মৃত ভেবে দাহ করতে শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল দেবকে
মৃত ভেবে দাহ করতে শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল দেবকে

মৃত ভেবে দাহ করতে শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল দেবকে

অনলাইন ডেস্ক

ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেতা ও সাংসদ দীপক অধিকারী ওরফে দেব। সিনেমায় যেমন জনপ্রিয় এই নায়ক বাস্তব জীবনেও একই রকম। এবার নিজের সম্পর্কে গা শিউরে ওঠার মতো চাঞ্চল্যকর একটি তথ্য জানিয়েছেন তিনি।

দেব জানান, শৈশবে তাকে মৃত ভেবে শ্মশানে ফেলে রেখেছিল গ্রামবাসী।

সম্প্রতি শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের সঞ্চালনায় এক অনুষ্ঠানে এমন তথ্য জানান তিনি। ওই শো’তে দেবের সঙ্গে ছিলেন প্রেমিকা রুক্মিণী মৈত্রও। পুরো ঘটনা জেনে শিউরে ওঠেন তিনি।  

পশ্চিমবঙ্গের এই সাংসদ জানায়, গাজনের মেলা দেখতে মুম্বাই থেকে মামার বাড়ি যান তিনি। তখন তিনি খুবই ছোট। সবার সঙ্গে হইহই করতে করতে গ্রামের মেলায় গিয়েছিলেন। সেখানেই সম্ভবত কেউ কিছু খাইয়ে দিয়েছিল তাকে। সঙ্গে সঙ্গে অজ্ঞান হয়ে যান। যার জেরে কিছুক্ষণ নয়, টানা এক দিন জ্ঞান ফেরেনি তার! এদিকে গ্রামবাসীরা ভেবেছেন, তিনি মৃত। নির্দিষ্ট সময়ের পরে তাকে দাহ করতে নিয়ে চলে আসেন শ্মশানে।

আরও পড়ুন


বরিশাল সদরের সেই ইউএনওর বিরুদ্ধে ২ মামলার আবেদন

বিগ বস ওটিটির ঘরে ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত প্রসঙ্গে বিস্ফোরক মন্তব্য অভিনেত্রীর

মাহফুজ আনাম ও তার স্ত্রীর সম্পদের উৎস জানতে চাই: অধ্যাপক হীরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস

পরীমণির মুক্তির অপেক্ষা দীর্ঘ হল


দেব আরও জানান, অনেক সময় ধরে যখন আমাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। তখন আমার নানা আমাকে হন্যে হয়ে খুঁজতে বের হন। আর কাঁদছেন, কী জবাব দেবেন মেয়ে-জামাইকে। এদিকে শ্মশানে ফেলে রেখে যাওয়ার একদিন পরে জ্ঞান ফেরে দেবের। সারা রাত খোঁজাখুঁজির পর তাকে খুঁজে পান নানা-মামারা। তার নানা ততক্ষণে প্রতিজ্ঞা করে ফেলেছেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেবকে বাড়ি পাঠিয়ে দেবেন। কারণ, তিনি তার মেয়ের একমাত্র সন্তান।

এই টালিউড সুপারস্টার বলেন, নানা তার জন্য সেই সময় মানত করেছিলেন, দেবকে খুঁজে পেলে বড় হওয়ার পর তিনি তাকে দিয়ে গাজনের সন্ন্যাস পালন করাবেন। নানার মানত রাখতে মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার পরে আবার গ্রামে ফিরেছিলেন দেব। এক সপ্তাহের জন্য তিনি গাজনের সন্ন্যাসী হয়েছিলেন। অন্যান্য সন্ন্যাসীদের মতো তখন তিনিও মন্দিরে থাকতেন।

news24bd.tv এসএম