কুপিয়ে ভুঁড়ি বের করে মৃত্যু নিশ্চিত করতে হাসপাতালেও হামলা চালায় ‌‘খুনিরা’
কুপিয়ে ভুঁড়ি বের করে মৃত্যু নিশ্চিত করতে হাসপাতালেও হামলা চালায় ‌‘খুনিরা’

কুপিয়ে ভুঁড়ি বের করে মৃত্যু নিশ্চিত করতে হাসপাতালেও হামলা চালায় ‌‘খুনিরা’

Other

নেত্রকোনায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় শহীদ মিয়া (৫৫) নামে এক কৃষক খুন হয়েছেন।

রোববার দুপুরে নেত্রকোনা সদর উপজেলার রৌহা ইউনিয়নের কমলপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী কন্যা ও ছেলে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে।

এদিকে গ্রামবাসী হামলাকারী চারজনকে ঘিরে ফেলে আটকে রেখে পুলিশে সোপর্দ করে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কমলপুর গ্রামের সাবির শেখের দুই ছেলে মগবুল ও শহীদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। বড় ভাই মগবুল শহরে স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসলেও গ্রামের বাড়িতে থাকেন ছোট ভাই শহীদ। জমি নিয়ে শনিবার সকালে বড় ভাইয়ের লোকজন গ্রামে এসে শহীদের বাড়িঘরে হামলা চালায়। এ নিয়ে শহীদের ভাগ্নে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

পরদিন রোববার (২২ আগস্ট) দুপুরে অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একদল দৃবৃত্ত পুনরায় শহীদের বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় দায়ের কুপে শহীদ ও তার স্ত্রী সমলা, ছেলে শাহীন, কিশোরী মেয়ে কাকলি গুরুতর আহত হয়। পরে তাদেরকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাাতলে নিয়ে আসলে শহীদকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল জানান, দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ ছিল। পরে ছোট ভাইকে মারধর করতে বড় ভাই শহর থেকে ভাড়া করে গুন্ডা পাঠায়। পরপর দুদিন ধরে হামলা চালালে রোববার দুপুরে আবরো বড় ভাইয়ের লোকজন এসে কুপিয়ে হত্যা করেছে শহীদকে।

এদিকে আরেকটি সূত্র জানায়, শহীদতে কুপিয়ে ভুড়ি বের করে ফেললে হাসপাতালে আনলে মারা যায়নি শুনে হামলাকারীরা হাসপাতালে আসে মৃত্যু নিশ্চিত করতে। পরে হাসপাতাল এলাকায় পুলিশ দেখে পালিয়ে যায়।

নিহতের ভাতিজা লালন জানায়, শনিবার হামলা চালিয়ে বাড়ি ঘর গাছপালা বাঙ্চুর করে। এ ঘটনায় পুলিশ গেলে পরদিন রোববার আবার এই হামলা হতো না। রোববার অতর্কিতে চাচা শহীদের ওপর হামলা চালায় এবং কিশোরী মেয়ে কাকলিকে (১৩) ঘর থেকে বের করে এনে মারধর করেছে। স্ত্রীসহ ছেলেকেও মেরেছে।

নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাকের আহমেদ জানান, চারজনকে আটক করা হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

সম্পর্কিত খবর