মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ১১ মিনিট আগে

কাপ্তাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স উন্নীতকরণ কাজের উদ্বোধন

ফাতেমা জান্নাত মুমু  • রাঙামাটি

কাপ্তাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স উন্নীতকরণ কাজের উদ্বোধন

রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণে ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। আজ (১৬ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর (এইচইডি) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়নে ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন উদ্বোধন করেন সাবেক পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। 

এ সময় রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, রাঙামাটি জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার শহীদ তালুকদার, কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য প্রকৌশলী থোয়াইচিং মং মারমা, কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কাপ্তাই উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান অংসুইছাইন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মফিজুল হক উপস্থিত ছিলেন।

কাপ্তাই উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন উদ্বোধনকালে দীপংকর তালুকদার বলেন, বর্তমান সরকার  পাবর্ত্যাঞ্চলকে অনেক উন্নয়নর দিকে এগিয়ে নিয়েছে। সে উন্নয়নের ধারা ধরে রাখার দায়িত্ব পার্বত্যবাসীর। কিন্তু সরকারের এ উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্থ করতে চায় একটি সশস্ত্র গোষ্ঠী। তারা চায়না পাহাড় উন্নত হোক, পাহাড়ের মানুষ সে উন্নয়নের সুফল ভোগ করুক। সশন্ত্র সন্ত্রাসীরা অবৈধ অস্ত্রের জোড়ে পাহাড়ে ত্রাসের রাজ্যত্ব কায়েম করতে চায়।

তিনি আরও বলেন, সরকার যখন পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার জন্য মেডিকেল কলেজ স্থাপনের উদ্যোগ নিলো, তখন একটি মহল তা বাধাগ্রস্থ করার জন্য রাঙামাটিতে সহিংসতা সৃষ্টি করলো। সে সহিংসতায় অনেক জানমালের ক্ষতিও হয়েছে। কিন্তু তারপরও রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ স্থাপনে বাধা দিতে পারেনি।এখন তাদের সন্তানরা সে কলেজে লেখাপড়া করে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখছে।

যারা সরকারের এই উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করে মানুষকে কষ্ট দিতে চায়, তাদের পরিণাম কখনো ভালো হবেনা। সরকার সহিংসতাকারী, অশান্তি সৃষ্টিকারীকে কখনো ক্ষমা করবেনা বলে হুঁশিয়ার করেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর।

 তিনি সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের অবৈধ অস্ত্রে পরিহার করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহবান জানান।

এর আগে তিনি কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণে ভবন নির্মাণ কাজ ঘুরে দেখেন।

মুমু/অরিন/নিউজ টোয়েন্টিফোর

মন্তব্য