বাগেরহাটে বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গাছ পাচারের অভিযোগ

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গাছ পাচারের অভিযোগ

বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলা বন কর্মকর্তা চিন্ময় মধুর বিরুদ্ধে সরকারি গাছ পাচারের অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গোপনে গাছ পাচারকালে চিতলমারী উপজেলা চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল সেই গাছ আটক করেন।

সামাজিক বন কর্মকর্তা (রেঞ্জার) চিম্ময় মধু বাগেরহাট জেলার ৯ উপজেলা ও খুলনার ৫ উপজেলাসহ ১৪টি উপজেলার বন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন। তবে বন কর্মকর্তা পাচারের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন ওই গাছ তিনি ৩ বছর আগে নিলামে ক্রয় করেছেন।

চিতলমারী উপজেলা চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলা বন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে দুটি ভ্যানযোগে বড় বড় ৮পিস শিশুকাঠের লক উপজেলা মোড়ে একটি স্ মিলে (করাতকল) নেওয়া হচ্ছিল। এ সময় ওই গাছের সম্পর্কে আমি জানতে চাই। তখন ভ্যানের চালক জানান বন কর্মকর্তা চিন্ময় মধু তাদের গাছ নিয়ে করাতকলে রাখতে বলেছেন। তখন আমি লক করা ৮ খণ্ড শিশুকাঠ আটক করে রাস্তার পাশে রাখতে বলি।

বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) খতিয়ে দেখতে বলেছি।

চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লিটন আলী বলেন, মঙ্গলবার গাছের বিষয়য়ে বন কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে ওই দিন বৈধ কোনো কাগজ দেখাতে পারেননি। বুধাবার দুপুরে দুই বছর আগের টেন্ডারের একটি কপি দেখিয়েছেন।

তবে সেই কাগজটি আসল না নকল সে বিষয়টি যাচাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে। তা সঠিক না হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে, বন কর্মকর্তা চিন্ময় মধু পাচারের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিন বছর আগে ওই গাছ আমি টেন্ডারের মাধ্যমে এক ব্যক্তির কাছ থেকে কিনে রেখেছি। ওই গাছ দিয়ে ফার্ণিচার তৈরি করা হবে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

চলন্ত ট্রেনে ডাকাতি নিহত ২, আহত ১

অনলাইন ডেস্ক

চলন্ত ট্রেনে ডাকাতি নিহত ২, আহত ১

ঢাকা থেকে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেনে ডাকাতির ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছে। ডাকাতির ঘটনায়  আহত হয়েছেন একজন।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকা থেকে দেওয়ানগঞ্জ যাওয়ার সময় রাতে এ ঘটনা ঘটে।

রেল পুলিশের জামালপুর থানার (জিআরপি) এসআই সোহেল রানা জানান, ঘটনাস্থল থেকে আহত ৩ জনকে উদ্ধার করে জামালপুর সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক ২ জনকে মৃত ঘোষণা করেন। 

আহত এক ব্যক্তি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে তাৎক্ষণিক হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

পরকীয়া প্রেমিকের সাথে মিলে মা খুন করে প্রিয়াকে

অনলাইন ডেস্ক

পরকীয়া প্রেমিকের সাথে মিলে মা খুন করে প্রিয়াকে

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে আলোচিত নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১) হত্যা মামলায় প্রিয়ার মা তাহমিনা সুলতানা রুমি ও পরকীয়া প্রেমিক আ. হান্নান মিলে প্রিয়াকে হত্যা করেছে। 

বৃহস্পতিবার বিকালে তাহমিনা সুলতানা রুমি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

এর আগে জড়িত সন্দেহে বুধবার বিকালে রুমির প্রেমিক হান্নানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শাহরাস্তি মডেল থানা সূত্রে জানা যায়, নিহত প্রিয়ার মা তাহমিনা সুলতানা রুমি ও তার প্রেমিক দেবকরা গ্রামের মৃত মুনসুর আলী ভূঁইয়ার পুত্র মো. আ. হান্নান (৩১) মিলে প্রিয়াকে খুন করে।

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রিয়া ও হান্নানদের বাড়ি পাশাপাশি। প্রিয়ার পিতা বিদেশে থাকার সুবাদে ৫-৬ বছর পূর্বে প্রিয়ার মা রুমির সঙ্গে হান্নানের অবৈধ পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে উঠে। তাদের নিষিদ্ধ প্রেমের রসায়ন লোকমুখে ছড়িয়ে গেলে প্রিয়া নিজেই একদিন আপত্তিকর অবস্থায় তাদের ধরে ফেলে। পরে বিষয়টি মামলা পর্যন্ত গড়ায়।

রও পড়ুন:


সেই বাংলা ছবি থেকে সানি লিওনের অংশটি বাদ

অনলাইনে পণ্য ডেলিভারির সময় নির্ধারণ করে দিলো মন্ত্রণালয়

ভ্রুন নষ্ট না করলে তালাক দেয়ার হুমকি স্বামীর

মানবতাবিরোধী মামলার আসামি শহীদুল্লাহ ফকির গ্রেপ্তার


রুমির স্বামী ইসমাইল হোসেন স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্কের বিষয়ে সৌদি আরব থেকে জানতে পেরে তার সাথে ছাড়াছাড়ির সিদ্ধান্ত নিলে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকটি সালিশের মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়। এরপর হান্নান বিদেশে চলে যায়। হত্যাকাণ্ডের ১ মাস পূর্বে হান্নান দেশে আসে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আসাদুল ইসলাম জানান, ঘটনায় জড়িত মামলার বাদী রুমি ও তার প্রেমিক আ. হান্নানকে কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।
 
শাহরাস্তি মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল মান্নান জানান, তাহমিনা সুলতানা রুমি ও তার প্রেমিক আ. হান্নান মিলে প্রিয়াকে খুন করে। মেয়ে মায়ের পরকীয়া জেনে ফেলায় ২ জনে পরিকল্পনা করে প্রিয়াকে তাদের পথ থেকে  সরিয়ে দিয়েছে।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

ঢাকায় মিললো ভয়ংকর মাদক আইসের সবচেয়ে বড় চালান

অনলাইন ডেস্ক

ঢাকায় মিললো ভয়ংকর মাদক আইসের সবচেয়ে বড় চালান

রাজধানী থেকে ৫৬০ গ্রাম ভয়ংকর মাদক ক্রিস্টাল মেথ বা আইস ও ইয়াবা জব্দ করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)।

ডিএনসির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, জব্দ করা আইসের মূল্য প্রায় ৯০ লাখ টাকা। এটি এখন পর্যন্ত ঢাকায় আটক হওয়া আইসের সবচেয়ে বড় চালান।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. মেহেদী হাসান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে তেজগাঁওয়ে অবস্থিত মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কার্যালয়ে (উত্তর) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও তিনি জানান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

নান্দাইলে অজ্ঞাত বৃদ্ধকে জবাই করে হত্যা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

নান্দাইলে অজ্ঞাত বৃদ্ধকে জবাই করে হত্যা

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় অজ্ঞাত (৬৫) এক বৃদ্ধকে জবাই করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে পালিয়েছে দুবৃত্তরা। 

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ধান ক্ষেত থেকে এ লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। 

রও পড়ুন:


জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


নান্দাইল থানার ওসি মিজানুর রহমান আকন্দ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, স্থানীয়দের খবর নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে নিহতের নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি। হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি পাশেই ফেলে রেখে গেছে খুনিরা। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

প্রবাসী নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ!

অনলাইন ডেস্ক

প্রবাসী নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ!

বিয়ের আশ্বাসে এক গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করা হয়েছে। হবিগঞ্জের মাধবপুরে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বাড়ির মালিকসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, পূর্ব মাধবপুর বাদশা পাঠান, জীবন মিয়া, কাটিহারা গ্রামের লাকী আক্তার ও পৌর শহরের আতিক মিয়া।

জানা গেছে, মাধবপুর বাঘাসুরা গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা বিদেশ ফেরত এক নারীর সঙ্গে মাধবপুর সদরের আতিক মিয়া নামে এক ব্যক্তির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে বুধবার দুপুরে ওই নারীকে বিয়ের আশ্বাসে মাধবপুরে নিয়ে আসে আতিক। পরে তারা মাধবপুর পৌর শহরের কাটিহারা গ্রামে লাকী আক্তারের বাসায় উঠে। এ সময় ওই নারীকে ধর্ষণ করা হয়।


আরও পড়ুন

অনলাইনে থেকেও অফলাইনে চ্যাট!

শর্তসাপেক্ষে করোনার বুস্টার ডোজের অনুমোদন দিলো যুক্তরাষ্ট্র


এক পর্যায়ে বাসায় আগে থেকে উপস্থিত থাকা বাদশা পাঠান এবং জীবন মিয়াও ধর্ষণ করে। পরে ওই নারী বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে খবর পেয়ে রাতেই অভিযান চালিয়ে বাড়ির মালিক লাকী আক্তারসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় রাতেই ভুক্তভোগী বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, এ ঘটনায় পুলিশ নারীসহ ৪ জনকে আটক করেছে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর