স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ হওয়ায়

নেত্রকোনা হাওরাঞ্চলকে ঘিরে দেখা দিয়েছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা

সোহান আহমেদ কাকন:

হাওরে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ হওয়ায় নেত্রকোনায় ফসল হানির শঙ্কা কেটেছে কৃষকদের মধ্যে। সেইসাথে বিস্তৃর্ণ হাওরাঞ্চলকে ঘিরে দেখা দিয়েছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা। 

মানুষের কাছে দিনদিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে হাওরের মনোরম পরিবেশ। যদিও করোনা পরিস্থিতিতে এ বছরর পর্যটকদের আনাগোনা কম,পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দর্শনার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে কয়েকগুন, বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। 

নেত্রকোনার মদন-মোহনগঞ্জ-খালিয়াজুরী ও কলমাকান্দার আংশিক এলাকা নিয়ে জেলার বিস্তৃর্ণ হাওরাঞ্চল। বিশাল এই হাওরের ফসল রক্ষায় প্রতিবছরই পানি উন্নয়ন বোর্ড অসংখ্য বাঁধ নির্মাণ করে। খরচ হয় কোটি কোটি টাকা।

এ বাঁধগুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, মোহনগঞ্জ উপজেলার চরহাইজদা বেড়িবাঁধ। সম্প্রতি বাঁধটির ৫ কিলোমিটার অংশে ৪০ কোটি টাকা ব্যায়ে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ফসলহানির শঙ্কা কেটেছে কৃষকদের। সেইসাথে হাওরের মাঝে দৃষ্টি নন্দন বাঁধকে ঘিরে দেখা দিয়েছে পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনা।

ভ্রমন পিপাসুদের কাছে দিনদিনই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে হাওরের মনোরম পরিবেশ। শুধু হাইজদা বাঁধই নয় মদন ও খালিয়াজুরীর বির্স্তীন হাওরের স্বচ্চ জলরাশি মুগ্ধ করে সকলকে। করোনা পরিস্থিতিতে পর্যটক কম থাকলেও থেমে নেই স্থানীয়দেও আনাগোনা।

বাঁধ নির্মাণের ফলে ফসল রক্ষার পাশাপাশি পর্যটন শিল্পের ব্যাপক সম্ভাবনার কথা বলছেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী।

হাওরপাড়ে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে এরইমধ্যে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ, জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক কাজি মো. আবদুর রহমান।

জেলার হাওরকে কেন্দ্র করে পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হবে হাওরবাসী এমনটাই প্রত্যাশা স্থনীয়দের।

আরও পড়ুন:


নেশার টাকা না পেয়ে বাবাকে পিটিয়ে হত্যা

ঝিনাইদহে ২৪ ঘন্টায় করোনায় একজনের মৃত্যু

মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ’কে নাগরিক সমাজের আহ্বান

বাগেরহাটে রাস্তার পাশ থেকে নবজাতক উদ্ধার


NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

গল্প নয় সত্যি: মাতৃভক্তি

হারুন আল নাসিফ

গল্প নয় সত্যি: মাতৃভক্তি

ওর নাম চেন ঝেনগিং, দক্ষিণ পশ্চিম চিনের বাসিন্দা। ওর দুটো হাত নেই। ওর যখন সাত বছর বয়স তখন বড় ধরনের ইলেকট্রিক শক খেয়ে ওর দু'টো হাতই নষ্ট হয়ে যায়।

চেনের মা ২০১৪ সালের জুলাই থেকে প্যারালাইজড হওয়ার পর থেকে শরীর নাড়াতে পারে না। এর আগেই দুই হাতহীন চেন আর তার মাকে ছেড়ে তার ভাই-বোনেরা চলে যায়। এর দুই যুগেরও বেশি সময় আগে চেনের বাবাও মারা যান। চেন কিন্তু মায়ের ভালবাসা ছেড়ে কোথাও যায়নি। মা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হওয়ার পর আর কিছুই করতে পারেন না। চেন মাকে খাইয়ে দেয়, গোসল করিয়ে দেয়, ঘুম পাড়িয়ে দেয়। 

দু'টো হাত নেই বলে কাজগুলো চেনের কাছে খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু তাতে কী! কথায় আছে না ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়। ভালবাসা থাকলে সব কঠিন কাজকে সহজ করে দেয়।

আরও পড়ুন


সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’, দেশে ভারী বৃষ্টির আভাস

অবসান ঘটতে যাচ্ছে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের

শিশু সন্তানকে জবাই করে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্টা, আটক মা


চেন মাকে খাইয়ে দেওয়ার জন্য ব্যবহার করে দাঁত আর ঠোঁট, গোসল করানোর জন্য ব্যবহার করে পা, খাবার তৈরির জন্য ব্যবহার করে পা। চেনের এই মাতৃভক্তি ২০১৫ সালের মাঝামাঝি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে ভাইরাল হয়। 

লেখক : হারুন আল নাসিফ : কবি, ছড়াকার, সাংবাদিক।

(ফেসবুক থেকে নেয়া)

news24bd.tv রিমু

পরবর্তী খবর

লেকের তলদেশে ২৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ!

অনলাইন ডেস্ক

লেকের তলদেশে ২৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ!

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকোতে ২৩ হাজার বছর আগের আদি মানুষের যে পায়ের ছাপ পাওয়া গিয়েছিল সে সম্পর্কে একটি গবেষণা প্রকাশিত হয়েছে। গবেষকেরা ওই ছাপকে মানুষের উপস্থিতির নিদর্শন বলে উল্লেখ করেছেন। বৃহস্পতিবার 'সায়েন্স' জার্নালে এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে।

হোয়াইট স্যান্ডস ন্যাশনাল পার্কে একটি শুকনো লেকের তলদেশে ওই পায়ের ছাপ পাওয়া গিয়েছিলো। ২০০৯ সালে এক পার্ক ম্যানেজার প্রথম এই ছাপ দেখতে পান। 

মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভের বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি এই পদচিহ্নের জীবাশ্মের বয়স যাচাই করেন দেখেছেন। তাতে দেখা যায় ২২ হাজার ৮০০ থেকে ২১ হাজার ১৩০ বছর আগেকার এই জীবাশ্ম।

এশিয়াকে আলাস্কার সঙ্গে স্থলভূমির এক বিস্তীর্ণ অংশ যুক্ত করেছিল বলে বেশিরভাগ বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন। পরে ওই স্থলভূমি সমুদ্রের নিচে হারিয়ে যায়। 

পাথরের তৈরি সরঞ্জাম, জীবাশ্মের হাড় এবং জেনেটিক বিশ্লেষণ সহ বিভিন্ন প্রমাণের উপর ভিত্তি করে গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রায় ১৩ হাজার থেকে ২৬ হাজার বছর আগে উত্তর আমেরিকায় মানুষের আগমন হয়েছিল। উত্তর আমেরিকায় ঠিক কোন সময়ে মানুষের উপস্থিতি ছিল, তার সঠিক প্রমাণ দেয় এই সর্বশেষ গবেষণা। 

রও পড়ুন:

সব ফোনের একই চার্জার তৈরির প্রস্তাব, অ্যাপলের আপত্তি

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

শরীর আর আগের মতো ছিলো না, বিচ্ছেদের কারণ জানিয়ে রোশান

নতুন নায়িকা কোলে নিয়ে শাহরুখকে মনে করালেন জায়েদ খান


গবেষকরা বলছেন, 'সাংস্কৃতিক নিদর্শন, উদ্ধার করা হাড় বা অন্যান্য প্রচলিত জীবাশ্মের তুলনায় জীবাশ্ম পদচিহ্নগুলি আরও প্রত্যক্ষভাবে প্রমাণ দেয়।' 

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বলাকইড় বিলে গোলাপি ও সাদা রঙের হাজারো পদ্ম

মুন্সী মোহাম্মদ হুসাইন

পদ্মকে বলা হয় জলজ ফুলের রানী। গোপালগঞ্জের বলাকইড় বিলে ফুটেছে গোলাপি ও সাদা রঙের হাজারো পদ্ম। এই ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে আসছেন প্রকৃতি প্রেমীরা। নৌকায় ঘুরে বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করেন তারা। 

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বলাকইড় বিলে প্রাকৃতিকভাবে পদ্মফুল জন্মে। এখন এটি পদ্মবিল নামে পরিচিত হয়ে উঠেছে। বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে গোলাপি ও সাদা রঙের পদ্ম দেখলে মন জুড়িয়ে যায়। আর প্রতিদিনই এমন অপরূপ দৃশ্য দেখতে বন্ধু ও পরিবার নিয়ে ভিড় করে দর্শনার্থীরা। 

আরও পড়ুন:


অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


তাদের অভিযোগ, ভাঙাচোরা রাস্তার কারণে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। রাস্তা সংস্কার ও পযটন বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার দাবী দর্শনার্থীদের। 

পযটন বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এ বিল থেকে পদ্মফুল তুলে বাজারে বিক্রির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করছে স্থানীয় শত শত দরিদ্র পরিবার। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

ফুটপাতে দুই টাকার মাল বিক্রি করে যেভাবে লাখপতি রাজু!

অনলাইন ডেস্ক

ফুটপাতে দুই টাকার মাল বিক্রি করে যেভাবে লাখপতি রাজু!

ফুটপাত ও রাস্তার গলিতে দুই টাকার বিভিন্ন প্লাস্টিকপণ্য বিক্রি করে লাখ টাকার মালিক হয়েছেন মোহাম্মদ রাজু (৩৯)। তার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার কৈচড়া গ্রামে। তিনি রাজধানী ঢাকার ফুটপাত অলিতে-গলিতে ভ্যানে প্লাস্টিকের সরঞ্জাম বিক্রি করে সংসার চালান।

জানা যায়, ২০১১ সালে মাত্র ৭০০ টাকা পুঁজি নিয়ে দুই টাকার প্লাস্টিকের সরঞ্জাম বিক্রি শুরু করেন তিনি। বর্তমানে ৫০০ টাকার পর্যন্ত মালামাল পাওয়া যাচ্ছে তার ভ্যারাইটিজ আইটেমের ভ্যান গাড়িতে। যেখানে রয়েছে ৮ শতাধিক আইটেমের পণ্য।

রও পড়ুন:


জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


মো. রাজু জানায়, করোনা প্রাদুর্ভাবের আগে প্রতিদিন তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা বেচাকেনা করতাম। এখন তা ১২শ’ থেকে ১৫শ’ টাকায় নেমে এসেছে। কারণ স্কুল-কলেজ খোলার পর সবারই ছেলে-মেয়েদের জামা-কাপড়, স্কুলের জিনিসপত্র কেনা লাগছে- তাই এসব সাংসারিক ভ্যারাইটিজ মালের চাহিদা একটু কমে গেছে। আশাকরি আস্তে আস্তে সব আবার আগের জায়গায় চলে আসবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরও জানান, আমার এখানে সুই-সুতা থেকে শুরু করে ৫০০ টাকারও জিনিস পাওয়া যায়। শুধু চাকরির অপেক্ষা না করে কেউ যদি যে কোনো একটা কাজ শুরু করে, তবে একদিন না একদিন নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

মো. রাজু বলেন, ঢাকায় বউ-বাচ্চা নিয়ে থাকি। ছেলে ৭ম শ্রেণিতে পড়ে।   ভ্রাম্যমাণ এই দোকান (ভ্যান গাড়ি) তৈরি করতে এক লাখ টাকা খরচ হয়েছে। এ ব্যবসা করে গ্রামে জায়গা কিনে একটা টিনের ঘর তৈরি করেছি মায়ের জন্য। প্রতি মাসে বাড়িতে তিন হাজার টাকা পাঠাই মায়ের জন্য। সব মিলিয়ে আল্লাহর রহমতে ভালো আছি।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

অনলাইন ডেস্ক

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

প্রতি বছর বায়ুদূষণ বিশ্বজুড়ে মানুষের স্বাস্থ্য উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। প্রতি বছর প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষের অকালমৃত্যুর কারণ এই বায়ুদূষণ। ফলে ২০০৫ সালের পর বায়ুদূষণ সংক্রান্ত নীতিমালায় কড়াকড়ি আরোপ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। খবর আল জাজিরার।

বিশ্বে সবচেয়ে দূষিত বাতাসের দেশের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর সবচেয়ে দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় রাজধানী ঢাকার অবস্থান তৃতীয়। এই তালিকায় বাংলাদেশের পর রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার আরও দুটি দেশ ভারত ও পাকিস্তান। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক গাইডলাইনের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে পরিবেশবাদী সংগঠন গ্রিনপিস এমনটা জানিয়েছে।

দূষিত শহরের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা ঢাকায় ২০২০ সালে বাতাসে ভাসমান সূক্ষ্ম কণার (পার্টিকুলেট ম্যাটার বা পিএম২.৫) মাত্রা ডব্লিউএইচও’র নির্ধারিত মাত্রার চেয়ে প্রায় ১৫ গুণ বেশি ছিল বলে জানিয়েছে আল জাজিরা।

শহরের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে দিল্লি ও দ্বিতীয়তে রয়েছে লাহোর। শহর দুটিতে ২০২০ সালে বাতাসে পিএম২.৫ এর মাত্রা ডব্লিউএইচও এর মাত্রার চেয়ে যথাক্রমে ১৭ ও ১৬ গুণ বেশি ছিলো।

রও পড়ুন:

লালন শাহ সেতুতে বাসচাপায় শ্রমিকের মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ঢাকার যে এলাকায় মার্কেট বন্ধ

মাল্টা চাষে মডেল উজিরপুরের কৃষক শ্যামল, বছরে লাখ টাকা আয়

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


ডব্লিউএইচও প্রণীত নতুন নীতিমালায় বাতাসে ভাসমান কণা পিএম১০ ও পিএম২.৫, ওজোন, নাইট্রোজেন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই-অক্সাইড, কার্বন মনো-অক্সাইড ইত্যাদির বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর