শূন্য(০), সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মৌলিক আবিষ্কার

হারুন আল নাফিস

শূন্য(০), সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মৌলিক আবিষ্কার

শূন্য(০) এক অদ্ভুত গাণিতিক প্রতীক। এটি একাধারে একটি সংখ্যা ও অঙ্ক। এটি এককভাবে মানের অস্তিত্বহীনতা ও অন্যান্য সংখ্যার পেছনে বসে তাদের যুত পরিচয় প্রদান করে। এছাড়াও দশমিকের ডানে বসে এটি বিভিন্ন সংখ্যার দশমাংশ প্রকাশ করে। অঙ্ক হিসেবে শূন্য একটি নিরপেক্ষ অঙ্ক এবং সংখ্যার স্থানধারক হিসেবে কাজ করে। এটি একটি স্বাভাবিক পূর্ণ সংখ্যা। এটি না ধনাত্মক, না ঋণাত্মক, না মৌলিক না যৌগিক। একে সাহায্যকারী অঙ্ক বলা হয়। এর নিজের কোনো মান নেই।

বর্তমানে শূন্যের যে প্রতীক ‘০’ ব্যবহৃত হয় প্রথমদিকে তা ছিল না। সে সময় এর প্রতীক ছিল একটি বিন্দু [•]। প্রথম দিকে এটিকে সংখ্যা বলে গণ্য করা হতো না। বরং এটি ছিল খালি বা ফাঁকা স্থানের ধারণা। শূন্যের প্রতীক কবে বিন্দু থেকে ছোট বৃত্তের আকারে উন্নীত হয় তা অনুমানের ওপর নির্ভর করা ছাড়া উপায় নেই। নানাঘাটে যে লিপি আবিষ্কৃত হয় তাতে সংখ্যা (দশ, কুড়ি ইত্যাদি) প্রকাশের ক্ষেত্রে বিন্দু হিসেবে শূন্যের ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

গণনা থেকে যে গণিতের উৎপত্তি সেই গণনা কার্য কে, কবে শুরু করেছিলেন তার ইতিহাস আমাদের জানা নেই। এমনকী, শূন্য আবিষ্কারের ক্ষেত্রে মূল অবদানটি কার তাও জানা নেই। তবে এটা যে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মৌলিক আবিষ্কার তা আজ অস্বীকার করার উপায় নেই। শূন্য আবিষ্কার না হলে মানবসভ্যতার দ্রুত অগ্রগতি সম্ভব হত কিনা সে ব্যাপারে প্রশ্ন থেকে যায়। এর উদ্ভাবন ছাড়া বাইনারি সিস্টেম ও আধুনিক কম্পিউটার উদ্ভাবন সম্ভব হতো না। শূন্য ছাড়া শুধু গণিত নয়, বিজ্ঞানের অনেক শাখাই মুখ থুবড়ে পড়তো।

টলেমি তাঁর ‘অ্যালমাজেস্ট’ গ্রন্থে শূন্যস্থানের জন্য গ্রিক বর্ণ ‘ওমিক্রন’ [০]ব্যবহার করেন। সপ্তম শতাব্দীতে ভারতে ১, ২, ৩, ৪,...০ অঙ্ক সৃষ্ট গণনাপদ্ধতি আরব গণিতবিদ আল-খোয়ারিজমি ও আল-কিন্দির হাত ধরে ইউরোপে প্রবেশ করে। ইউরোপে দ্বাদশ শতাব্দী থেকে দশ অঙ্ক নিয়ে গণনা শুরু হয়। বিশ্বের মান্য গণিতজ্ঞরা সেজন্য এগুলোকে ‘ইন্দু-আরাবিক নিউমেরালস’ বলেন। আল-বেরুনি ভারত ভ্রমণের সময়ে একটি প্রদেশে ১ থেকে ৯ প্ৰদেশভিত্তিক সংখ্যাচিহ্ন ও ০-র লিপির উল্লেখ করেছেন।

প্রচীনকাল থেকেই ভারতবর্ষ, মিশর, ব্যাবিলন ও চীনে দশ ধরে গণনা করার পদ্ধতির প্রচলন ছিল। তবে যে সকল সঙ্কেতের সাহায্যে মিশরীয়, ব্যাবিলনীয় বা গ্রিকরা সংখ্যা প্রকাশের চেষ্টা করত তাতে শূন্যের কোনো ধারণা ছিল না। এই সকল সঙ্কেতের সাহায্যে ক্ষুদ্র সংখ্যা প্রকাশের ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধা না হলেও বৃহৎ সংখ্যা প্রকাশের ক্ষেত্রে খুবই অসুবিধা হত।

প্রাচীন মিশরীয় সংখ্যাগুলো ছিল দশ ভিত্তিক। তাদের সংখ্যাগুলো স্থানভিত্তিক না হয়ে চিত্র ভিত্তিক ছিল। খ্রিস্টপূর্ব ১৭৪০ সালের দিকে মিশরিয়রা আয়কর ও হিসাবরক্ষণের জন্য শূন্যের ব্যবহার করত। তাদের চিত্রলিপিতে একটি প্রতীক ছিল যাকে ‘নেফর’ বলা হতো, যার অর্থ হলো ‘সুন্দর’। এই প্রতীকটি তারা শূন্য এবং দশকের ভিত্তি হিসেবে ব্যবহার করত। প্রাচীন মিশরীয় পিরামিড ও অন্যান্য স্থাপনায় এ ধরনের সংখ্যার ব্যবহার পাওয়া যায়।

খৃষ্টপূর্ব দ্বিতীয় সহস্রাব্দের মাঝামাঝি সময়ে ব্যাবিলনীয় গণিতবিদরা ছয়ভিত্তিক সংখ্যা ব্যবস্থার প্রবর্তন ও উন্নয়ন করে। শূন্য সংখ্যাটির অভাব তারা ছয়ভিত্তিক সংখ্যার মধ্যে একটি খালি ঘর রেখে পূরণ করত। খ্রিস্টপূর্ব ৩০০ অব্দের দিকে দুটি যতিচিহ্ন প্রতীক এই ফাঁকা যায়গা দখল করে নেয়। প্রাচীন মেসোপটেমীয় শহর সুমের থেকে প্রাপ্ত শিলালিপি থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা যায় যে প্রাচীন লেখক বেল বেন আপ্লু তার লেখায় দুটি যতিচিহ্ন প্রতীক ব্যবহারের বদলে একটি ‘হুক’ দিয়ে শূন্যকে প্রকাশ করেছেন।

ব্যাবিলনীয় শূন্যটি প্রকৃতপক্ষে শূন্য হিসেবে গন্য করা সমীচীন মনে করা হয় না। কারণ এই প্রতীকটিকে স্বাধীনভাবে লেখা সম্ভব ছিল না। কিংবা এটি কোনো সংখ্যার পেছনে বসে কোনো দুই অঙ্ক বিশিষ্ট অর্থবোধক সংখ্যা প্রকাশ করত না।

ভারতীয় গণিতের ইতিহাস অতি প্রাচীন। ধারণা করা হয়, গণিতে ‘শূন্য’ আবিষ্কার ভারতবর্ষেই হয়েছিল। এবং ভারতবর্ষের সংস্কৃত শব্দ শ্যুন্যেয়া (শ্যূন্য)’ আরবের ‘সিফর’ হয়ে ধীরে ধীরে পশ্চিমে ‘জিরো’তে পরিণত হয়েছে। অনেকে মনে করেন, সর্বপ্রথম ভারতীয় উপমহাদেশের আর্যভট্ট (৪৭৫-৫৫০ খ্রি) প্রথম '০' (শূন্য) সম্পর্কে ধারণা দেন। তবে তিনি শূন্য প্রতীকটি ব্যবহার করেননি। ব্রক্ষ্মগুপ্ত (৫৯৮-৬৬৫ খ্রি) শূন্য আবিষ্কার করেন এবং এই শূন্যকে ব্যাপকভাবে আলোচনার শীর্ষে নিয়ে আসেন। এসময় শূন্য একটি স্বতন্ত্র সংখ্যা হিসেবে মর্যাদা পায়। তবে বিশ্বব্যাপী এর গ্রহণযোগ্যতা তৈরি হতে কয়েক শতাব্দী সময় লেগে যায়। মাত্র ষোড়শ শতাব্দীতে এসে এটির ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয়।
ইংরেজি জিরো শব্দটি এসেছে ভেনিশিয় শব্দ জিরো থেকে, যা আবার ইতালীয় জিফাইরো (zefiro) থেকে পরিবর্তিত হয়ে এসেছে। আবার ইতালীয় জিফাইরো শব্দটি এসেছে আরবি থেকে। আরবি ‘সাফাইর’ বা ‘সাফাইরা’ (صفر) অর্থ ‘সেখানে কিছু ছিল না’। তাই তারা সংস্কৃত শব্দটির অনুবাদ করেন ‘সিফর’। কারণ সংস্কৃত শব্দ শ্যুন্যেয়া (শ্যূন্য) অর্থ খালি বা ফাঁকা। এই ‘সিফর’ ল্যাটিনে গিয়ে হয় ‘Zephyr’। পরে এটি হয় Zero। ইংরেজি শব্দ জিরোর প্রথম ব্যবহার পাওয়া যায় ১৫৯৮ খ্রিস্টাব্দে। জার্মানরা এটিকে বলে Ziffer, পোলিশরা Cyfra, স্প্যানিশরা Cifra, সুইডিশরা বলে Siffra। এসবের উচ্চারণে আরবি প্রভার লক্ষণীয়। ইংরেজিতেও আছে Cipher শব্দটি।

এটা সহজেই অনুমেয় যে শূন্য আবিষ্কৃত না হলে দশমিক স্থানিক অঙ্কপাতন পদ্ধতির উদ্ভব সম্ভব হত না। শূন্য ধরে মাত্র দশটি সঙ্কেতের সাহায্যে হিন্দু পণ্ডিতদের আবিষ্কৃত অঙ্কপাতন পদ্ধতি এক নতুন যুগের সূচনা করে। এই নিয়ম আবিষ্কৃত হওয়ার ফলেই সংখ্যার ঘরগুলো একক, দশক, শতক, শহস্র ইত্যাদি ভাগে ১০ গুণ করে ভাগ করা হয় (দক্ষিণ থেকে বামে)।

‘ছন্দসূত্রের’ রচনাকাল খ্রিস্টপূর্ব ২০০। পিঙ্গল রচিত এই রচনায় শূন্যের ব্যবহার দেখা যায়। আর্যভট কর্তৃক বর্গমূল নির্ণয় পদ্ধতি দশমিক স্থানিক অঙ্কপাতন ও শূন্যের ব্যবহার লক্ষ করা যায়। বৃহৎসংহিতা ও পঞ্চসিদ্ধান্তিকা প্রভৃতি গ্রন্থে বরাহমিহির (খ্রিস্টাব্দ ৫০৫) বারবার শূন্যের উল্লেখ করেছেন। বরাহমিহিরের সমসাময়িক জিনভদ্রতানির রচনায় শূন্যের ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। তিনি তাঁর রচনায় বৃহৎ বৃহৎ সংখ্যা লেখার সময় একাধিক শূন্যের ব্যবহার করেছেন।

আর্যভট, বরাহমিহির প্রমুখ বিজ্ঞানীদের রচিত গাণিতিক ও জ্যোতিষীয় রচনার এই পদ্ধতির বহুল ব্যবহার দেখা যায়। তাই অনুমান করা হয়, আর্যভটের (আনুমানিক খ্রিস্টাব্দ ৪৯৯) সময়কালের বহু আগে থেকেই ভারতে এই পদ্ধতির প্রচলন ছিল। এছাড়া একক, দশক, শতক ইত্যাদি ভাগে ৫০২ সংখ্যাটি লিখতে হলে দশকের ঘরের ফাঁক (শূন্যস্থান) কোনো প্রতীকের সাহায্যে ভারাট করার প্রয়োজন হয়। তাই মনে হয় আর্যভটের সময়কালের বহুপূর্বেই সম্ভবত খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দীতে হিন্দুরা শূন্যকে সংখ্যা হিসেবে গ্রহণ করেছিল।

লেখক : হারুন আল নাসিফ : কবি, ছড়াকার, সাংবাদিক।

আরও পড়ুন: 


নদীতে নিখোঁজ যুবককে উদ্ধারে নেমে পানির নিচে ‘আটকে গেল’ ডুবুরি

জিয়ার জানাজায় বহু মানুষ ছিল, কফিনে লাশ ছিল না


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

‘ফেইল্ড ক্যাম্পেইন’টা সেপ্টেম্বরে ‘উইন ক্যাম্পেইন’ হয়ে গেলো

শওগাত আলী সাগর

‘ফেইল্ড ক্যাম্পেইন’টা সেপ্টেম্বরে ‘উইন ক্যাম্পেইন’ হয়ে গেলো

নির্বাচনের ঘোষনা দিয়ে মাঠে নেমেই জাস্টিন ট্রুডো টের পেয়ে গিয়েছিলেন- বড্ড ঝুঁকিপূর্ণ জুয়ায় নেমে গেছেন তিনি। সপ্তাহখানেকের মাথায়  দল আর ক্যাম্পেইন মিলে পর্যালোচনায় বসলো- কতোটা ঝুঁকির মধ্যে তারা, সেখান থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব কী না- তা খতিয়ে দেখতে। তাদের সব ধরনের পর্যালোচনাই লিবারেল পার্টিকে ১৪০টির বেশি আসনের নিশ্চয়তা দিলো না। 

কিন্তু জাস্টিন ট্রুডো সেটি কাউকে বুঝতে দিতে চাইলেন না। সতর্ক হলেন- তার কথায়, চেহারায়, বডি ল্যাঙ্গুয়েজে- কোনোভাবেই যেনো পার্টির এই দুরাবস্থার প্রকাশ না পায়, তিনি উদ্বিগ্ন- সেটি যেনো কেউ ক্ষুণাক্ষরেও টের না পায়। ‘মেজরিটি’ শব্দটি ভুল করেও উচ্চারণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন নীতিনির্ধারকরা। পুরো প্রচারণায় জাস্টিন ট্রুডো একবারের জন্যও ‘মেজরিটি’ শব্দটি উচ্চারণ করলেন না- অথচ মেজরিটির জন্যই তিনি হঠাৎ নির্বাচনের ঘোষনা দিয়েছিলেন। লিবারেল পার্টি নিরবে নিজেদের মূল্যায়নের খাতায় টুকে রাখলো ‘ আগষ্ট- ফেইল্ড ক্যাম্পেইন’।

’ফেইল্ড ক্যাম্পেইন’টা  সেপ্টেম্বরে এসে ‘উইন ক্যাম্পেইন’ হয়ে গেলো। সেপ্টেম্বরের শুরু থেকেই টের পাওয়া যাচ্ছিলো নতুন কৌশলটা কাজ করছে। শেষ দুই সপ্তাহে এসে তারা বুঝে গেলেন- এই যাত্রা রক্ষা পাওয়া গেছে। দলের মূল্যয়ন খাতায় এবার লেখা হলো- ‘ সেপ্টেম্বর- উইন ক্যাম্পেইন’। 

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

ভোট হয়ে যাবার পর বিজয়ী লিবারেল পার্টি এখন সেইসব কথা নতুন করে আলোচনায় নিয়ে এসেছে। নতুন করে পর্যালোচনা করছে। তবে ‘একটি ‘ফেইল্ড ক্যাম্পেইন’কে ‘উইন ক্যাম্পেইনে’ রুপান্তরিত করে ক্ষমতায় ফিরে আসার ম্যাজিক কৌশলটা নিঃসন্দেহে উদ্দীপনামূলক এবং কৌতূহলোদ্দীপক। পার্টি কখনো সেই কৌশলটা খোলামেলা প্রকাশ করলে কিংবা কোনো অনুসন্ধানী সাংবাদিক খুঁজে বের করে রিপোর্ট করলে রাজনীতি বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী এবং রাজনীতিতে আগ্রহীদের সেটি নতুন ভাবনার খোরাক যোগাবে নিঃসন্দেহে।

লেখক- শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ, কানাডা।

(মত-ভিন্নমত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বলছি না, প্রবাসীরা আওয়ামী লীগ বা বিএনপির রাজনীতি করবেন না

আনোয়ার সাদী

বলছি না, প্রবাসীরা আওয়ামী লীগ বা বিএনপির রাজনীতি করবেন না

বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত প্রবাসীরা যদি স্থানীয় রাজনীতি মনযোগ দিয়ে করতেন তাহলে আখেরে তা দেশের মানুষেরই কাজে দিতো। 

যুক্তরাজ্যে কিছু মানুষ আছেন যারা সেদেশের রাজনীতিতে ভালো করছেন, তাদের পূর্ব পুরুষ বাংলাদেশের। তাদেরকে আপনারা সবাই চেনেন, আমি আর নাম লিখলাম না। তারা দেশের যতোটা উপকার করতে পারবেন, সেদেশের আওয়ামী লীগ বা বিএনপি শাখার সভাপতি কী এতোটা কাজে আসবেন?  

আমেরিকা, কানাডা, অষ্ট্রেলিয়াসহ যেসব দেশ বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, সেসব দেশে প্রবাসীরা এখন স্থানীয় রাজনীতিতে যোগ দিতে পারেন। ক্ষমতার রাজনীতির সঙ্গে যার যোগাযোগ যতোটা নিবিড়, সে ততবেশি মানুষের উপকার করতে পারে, এ বিষয়ে নিশ্চয়ই কারো দ্বি-মত নেই? ফলে, বাংলাদেশের পক্ষে পলিসি সুবিধা নিশ্চিত করতে অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দেশের ক্ষমতার বলয়ে যোগাযোগ রাখা দরকার। সে কাজ শুধু আমাদের কূটনীতিবিদরাই করবেন কেন, দেশের মানুষরাও, বাংলাদেশি বংশোদ্ভুতরাও কূটনীতিবিদের কাজটি করে দিলে, ক্ষতি কী? 

আমি বলছি না প্রবাসীরা আওয়ামী লীগ বা বিএনপির রাজনীতি করবে না। বলছি না, জেলা সমিতি বা উপজেলা সমিতি করবে না। এসবেরও দরকার আছে। তবে এসব কাজে সব সময় বিলিয়ে দিলে, আরো বড় পরিসরে নিজেকে নিয়ে যাওয়ার কাজটি ব্যহত হয়ে বলেই অনেকের ধারণা। 

অনেক সময়, রাজনীতিবিদরা এক দেশে বসে আরেক দেশের রাজনীতি পরিচালনা করেন। কেউ কেউ নিজ দেশ থেকে নির্বাসিত থাকেন, প্রবাসে থেকে দল গুছিয়ে, ক্ষমতা দখল করে ফিরে আসার স্বপ্ন দেখেন। ইতিহাসে আমরা প্রবাসী সরকার গঠন করতেও দেখি। তারা বিদেশে থাকলেও তাদের জগত স্বদেশ নিয়ে থাকে। পরিষ্কার বলে রাখি, এই আলোচনা তাদেরকে নিয়ে নয় বা তাদের জন্য নয়। এই আলোচনা তাদেরকে নিয়ে করছি, যারা স্থায়ীভাবে অন্য একটি দেশে বসবাস করতে স্বদেশ ছেড়েছেন।  

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

একটি কথা প্রচলিত আছে, প্রবাসীদের প্রথম জেনারেশন শারীরিকভাবে বিদেশে থাকে, কিন্তু তারা মানসিকভাবে বাস করে বাংলাদেশে। দ্বিতীয় জেনারেশন দেশের জন্য কিছুটা টান অনুভব করে। তৃতীয় জেনারেশন নাকি পুরোপুরি বিদেশি হয়ে যায়। এটাই আমাদের ভাবনায় রাখতে হবে। শেকড়ের প্রতি টান যেনো প্রবাসীদের মাঝে প্রজন্মের পর প্রজন্ম বজায় থাকে, সে পরিবেশ তৈরি করে রাখতে হবে।  

যারা রেমিট্যান্স পাঠায় তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রাখছি। এটা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ কাজ। তবে বাংলাদেশের পক্ষে অপর একটি দেশের নীতি সহায়তা নিশ্চত করা কোনোভাবেই ছোট কাজ নয়।

লেখাটি নিউজ টোয়েন্টিফোর টিভির সিনিয়র নিউজ এডিটর, আনোয়ার সাদী-এর ফেসবুক থেকে নেওয়া। 

(মত ভিন্ন মত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

'এই লোকটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলতে চেয়েছিল না?'

মোহাম্মদ আলি আরাফাত

'এই লোকটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলতে চেয়েছিল না?'

এই লোকটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলতে চেয়েছিল না? লাশ ফেলার ষড়যন্ত্র করতে গিয়ে ধরা খেয়ে জেলও খেটেছে। এ আবার বড় বড় নীতি বাক্য শোনায় জাতিকে। লজ্জাও নাই এদের!

আমরা কোন একটা কথা বলা বা লেখার আগে দশ বার চিন্তা করি, কোন ভুল কিছু না বলে ফেলি বা লিখে ফেলি। অথচ এরা নিয়ত করে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যাচার করে। 
এরা মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে কথা বলে, অথচ মত প্রকাশের স্বাধীনতা তো পরের কথা, এরা মিথ্যাচার করার স্বাধীনতাও ভোগ করছে। এই লোককে যদি শুধু মিথ্যা অপপ্রচারের জন্য আইন অনুযায়ী জবাবদিহিতার আওতায় আনা হতো তাহলে সে বার বার সাজা পেত। 

রও পড়ুন:

জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


আওয়ামী লীগের এবং সরকারের সহিষ্ণুতা ও উদারতার সুযোগ নিয়ে এরা যা ইচ্ছা তাই মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। তাও না কি এদেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নাই!

(মত-ভিন্নমত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

ইভানা কি আত্মহত্যা করলো না অনার কিলিং-এর শিকার হলো?

অনলাইন ডেস্ক

ইভানা কি আত্মহত্যা করলো না অনার কিলিং-এর শিকার হলো?

এই ইভানাকে আমি খুব ভালো চিনি। খুব ভালো মানে খুব ভালো। আপাত সামাজিক প্রতিষ্ঠা পাওয়া অথচ অসহায় নারীদের আমার চেয়ে ভালো আর কেউ চেনে না। এই অনার কিলিংগুলো আমার চেনা।

ইভানা মরে গিয়ে জাস্ট একটা কেস হয়েছে, কেস স্টাডিই দেখেন। শিক্ষিত এবং মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। শিক্ষকরা বলছে, খুব মেধাবী শিক্ষার্থী ছিল সে, বিতর্ক করতো। কিন্তু পড়াশোনা শেষ না করে ব্যারিস্টার ঢাকায় বাড়ি গাড়ি থাকা ছেলে দেখে বাবা বিয়ে দিলে সেই বিয়েতে "না" বলার সাহস ইভানার ছিল না। তার নিজের ব্যারিস্টার হবার ইচ্ছা শিকেয় তুলে সে ঘরকন্নায় মন দিয়েছিল।  

বিয়ের পর ইভানা সবাইকে জানিয়েছে সে সুখী। মিথ্যা সুখের অভিনয় করে গেছে অবিরাম। দু'টো বাচ্চা হয়েছিল একটা বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন। স্বামীর সঙ্গে তার না বনা প্রথম থেকেই কিন্তু সে ডিভোর্সকে ভয় পেতো। নিজের কমফোর্ট জোন হারানোর ভয়? এই কথাটা সবসময় মাথায় ঘোরে আমার। মেয়েরা কি আসলে স্বামীর দেয়া স্বাচ্ছন্দ্য হারানোর ভয় করে না কি সমাজের? ইভানা দু'টো ভয়ই পেয়েছিল।

তার বাবা-মা জানিয়ে দিয়েছিল-  "যা কিছুই ঘটুক, স্বামীর সাথে থাকতে হবে।" ইভানা "বয়স" হয়ে যাওয়া বাবা মাকে ডিভোর্সের "লজ্জ্বা"য় ফেলতে চায় নি।

উপরন্তু দু'টো বাচ্চাকে নিয়ে এই শহরে চলার মতো কোনও আয় তার ছিল না। এরইমধ্যে স্বামীর অন্য নারীর সাথে সম্পর্ক জেনে এবং জীবনের এইসব পরিস্থিতি থেকে এক্সিট করার পথ হিসেবে একমাত্র আত্মহত্যাকেই দেখতে পেল ইভানা।

এখন বলেন, সে কী আত্মহত্যা করলো না অনারকিলিং বা হত্যার শিকার হলো? আমাদের সমাজ নারীর জন্য "ভালো পাত্র" হিসাবে যাকে রায় দেয় সে মানুষ হিসেবে কেমন তা কি কেউ দেখে? আর পরিবার। বাংলাদেশের অধিকাংশ পরিবারই একেকটা  আন্দামানের কালাপানি। বিনা অপরাধে শাস্তি পাওয়া নারীদের সেইখানে কারাবাস হয়। বিয়ে মানে সেইখানে শেষ কথা। যে পরিবার একজন মানুষের সবচেয়ে বড় ভরসার স্থল হবার কথা সেই পরিবার যখন কারাবাসের মতো হয় এই হিংস্র সমাজে তাহলে একটা নারী কোথায় যাবে কেউ বলতে পারেন? 

ইভানা আত্মহত্যা করেছে। "আত্মহত্যা কোনও সমাধান নয়" বলে অতিক্লিশে মোটিভেশনাল কথা আমি বলতেই পারি কিন্তু বলবো না কারণ ইভানার জুতা পায়ে আমি হাঁটিনি। যা করেছে সে ঠিকই করেছে। শুধু ভাবি, জীবনের কি বিপুল অবচয়!

রও পড়ুন:

প্রবাসীর জ্যাকেটের হাতায় ২ কোটি টাকার সোনা!

অবশেষে বাদুড়ের মধ্যে মিলল করোনাসদৃশ

লক্ষ্মীপুরে ৪ মাদকসেবীর বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

বিয়ে করছেন সিদ্ধার্থ-কিয়ারা!


ইভানার "আত্মহত্যা" নিয়েে ফেসবুক বিশেষ সড়গড় দেখলাম না, সম্ভবত তার এইভাবে মরে যাওয়াটা নারীবাদের কোনও শাখার মধ্যে পড়ে না। "প্রতিবাদ" না করে মরে যাওয়ার মতো এইসব "দুর্বলতা" সম্ভবত নিন্দা যোগ্য। এতো সব সবল, প্রতিষ্ঠিত নারীদের ভিড়ে ইভানার মরে যাওয়া একটা লজ্জ্বাজনক অধ্যায় সম্ভবত। কিন্তু মেয়েটা কি করলে ঠিক হতো কেউ বলতে পারেন? ইভানার বেঁচে থাকার মতো একটা ন্যূনতম সমাজ আর রাষ্ট্র কী সৃজন করা গেছে?

(মত-ভিন্নমত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv রিমু  

পরবর্তী খবর

সকল নাগরিকের জন্য 'অবসরভাতা' চালু করা হোক

আরিফ জেবতিক

সকল নাগরিকের জন্য 'অবসরভাতা' চালু করা হোক

আমরা বেশিরভাগই পরিশ্রমী 'বেসরকারি' মানুষ। সারাজীবন এলেবেলে ধরনের চাকুরি করি। না আছে যোগ্য সম্মান, না আছে যোগ্য পারিশ্রমিক। বিক্রয় প্রতিনিধি, বীমা এজেন্ট, বেসরকারি শিক্ষক, সাংবাদিক, গার্মেন্টেসর এক্সিকিউটিভ, একাউন্ট অফিসার, স্টোর ইনচার্জ- এরকম এক দীর্ঘ তালিকাতেই আমাদের অধিকাংশ মানুষের বাস।

সারাজীবন হাড়ভাঙা খাটুনি করে প্রতি মাস শেষে যে বেতন পাই সেটি বাড়িভাড়াতেই চলে যায়। সঞ্চয়ের কোনো সুযোগ নেই।
তারপরও যদি উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া গ্রামের বাড়ির দুই শতক জায়গা বিক্রি করে কিংবা আধপেটা খেয়ে লাখ দুয়েক টাকা জমাতে পারি, সেই টাকা বিনিয়োগের কোনো সুযোগ নেই।

জমি কিনতে যাবেন তো কিস্তির পর কিস্তি দিয়ে যাবেন, তারপর একদিন শুনবেন সেই কোম্পানি হাওয়া হয়ে গেছে। নানা ধরনের হায় হায় কোম্পানির ফাঁদে হারাবেন সর্বস্ব।

আমাদের টাকা তাই খেয়ে যায় শেয়ার মার্কেটের ফড়িয়ারা, এহসান গ্রুপ-যুবক-ডেস্টিনি-ইভ্যালির ধান্দাবাজরা।

যখন বুড়ো হয়ে যাব, তখন আমরা কীভাবে চলব? আমাদের চাকুরিরই নিশ্চয়তা নেই, পেনশনের তো বালাই-ই নেই। আর সরকারি ছোট চাকুরিও যারা করেন, তাঁরাও এককালীন যে টাকাটা পান সেই টাকাটা কোথায় খাটাবেন?

একটা মোটামুটি ব্যবস্থা ছিল সঞ্চয়পত্র। সারাজীবনে কয়েক লাখ টাকা যোগাড় করতে পারলে সেই টাকায় কেনা সঞ্চয়পত্রে কয়েক হাজার টাকা পেলে কষ্টেক্লিস্টে অন্তত একটা মানবিক সম্মান রেখে জীবনপাত করতে পারতেন আমাদের বুড়ো মানুষগুলো।

কিন্তু সঞ্চয়পত্রের সুদের হারও কমিয়ে আনা হলো। দেশে টাকা রাখার জায়গা নেই, তাই সাধারন এলেবেলে মানুষের টাকা এখন আর লাগছে না কারো। তাছাড়া এই হারে ইন্টারেস্ট দিয়ে টাকা রাখাটাও এখন অর্থনৈতিক দিক থেকে যৌক্তিক না।

আমি তাই জোর দাবি জানাই যে সকল নাগরিকের জন্য 'অবসরভাতা' চালু করা হোক। কর্মক্ষম প্রতিটি মানুষ প্রতি মাসে তাঁর ইচ্ছানুযায়ী একটি অংশ টাকা এই সরকারি স্কিমে জমা রাখবেন। বিনিময়ে বয়স ৬০ বছর পার হলে, তিনি বাকি জীবন সরকার থেকে একটি মাসিক পেনশন পাবেন। পেনশনের পরিমান এমন হবে যাতে তিনি বাকি জীবন একটি সম্মানজনক অবস্থায় জীবনযাপন করতে পারেন।
রও পড়ুন:

জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


এটি কোনো আহামরি বা আচানক ব্যবস্থা নয়। বিদেশে এরকম সুযোগ আছে সবার জন্য। এজন্যই ওসব দেশে রিটায়ারমেন্টের পরে বুড়োবুড়িরা একটি স্বচ্ছল জীবন যাপন করতে পারেন। ঘুরতে পারেন, বেড়াতে পারেন, রোগে ভুগলেও সাহস হারান না। মাথার উপর একটি ছাদও থাকে।

আমাদের দেশে এই ব্যবস্থা সরকারের তরফ থেকে চালু করতে হবে। সারাজীবন টেনশনের জীবন যাপন করে এদেশের অধিকাংশ মানুষ। অন্তত মরার আগে কয়েটা দিন দুশ্চিন্তাহীন কাটানোর প্রত্যাশা করা খুব বেশি কিছু না।

(মত-ভিন্নমত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর