১৬ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি ২৭ বছর পর গ্রেপ্তার
১৬ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি ২৭ বছর পর গ্রেপ্তার

১৬ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি ২৭ বছর পর গ্রেপ্তার

Other

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী থেকে ১৬ বছরের সাজা প্রাপ্ত এক আসামিকে দীর্ঘ ২৭ বছর পর গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কাজী আজানুল হক (৬৫) নামে ওই আসামিকে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ রোববার (২৯ আগস্ট) ভোরে ভূরুঙ্গামারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পিছন থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। সাজা এড়াতে সে দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপন করেছিল।  

ধৃত আজানুল হক কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের মৃত: কাজী আনোয়ারুল হকের পূত্র।

তার বিরুদ্ধে খাদ্য গুদামে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা থাকাকালিন সরকারি সম্পদ (গম) আত্মসাতের মামলা ছিল।

কুড়িগ্রাম সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উৎপল কুমার রায় জানান, আসামী কাজী আজানুল হক ঠাকুরগা জেলার বালিয়াডাঙ্গি থানার লাহিড়িহাট খাদ্য গুদামে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) হিসেবে দায়িত্ব পালককালিন সময়ে সরকারি সম্পত্তি (গম) আত্মসাতের অভিযোগে বালিয়াডাঙ্গি থানায় একটি মামলা হয়।  

মামলা নং-৬ তারিখ: ৩১ জুলাই ১৯৯৪ইং। জিআর নং-৩১/৯৪ রুজু হয়। মামলায় ঠাকুরগা ট্রাইবুনালে তার ১৬ বছরের সাজা হয়। মামলা চলাকালিন সময় থেকে সে বিভিন্ন জায়গায় পরিচয় গোপন করে আত্মগোপনে ছিল। দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে সে আইন শৃংখলা বাহিনীর চোখকে ফাঁকি দিয়ে পলাতক ছিল।

আজানুল হককে ধরতে পুলিশ বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছিল। তারই ফল স্বরুপ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা’র নির্দেশনায় ও কুড়িগ্রাম সদর সার্কেলের এএসপি উৎপল কুমার রায়’র নেতৃত্বে ইন্সপেক্টর (তদন্ত) গোলাম মুর্তজা, এসআই কাইয়ুম, এসআই আমিনুল ইসলামসহ একদল পুলিশ কাজী আজানুল হককে ভূরুঙ্গামারী উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পিছনে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।  

পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা জানান, ঠিকানা জটিলতার কারণে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি কাজী আজানুল দীর্ঘদিন পলাতক ছিল। রোববার তাকে গ্রেপ্তার করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ঠিকা জটিলতা নিরসন করে পর্যায়ক্রমে সকল ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

আরও পড়ুন:


বোনের বৌভাত অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে লাশ হলো ভাই

শবনম ফারিয়াকে বিয়ের প্রস্তাব ভক্তের, যা বললেন অভিনেত্রী


NEWS24.TV / কামরুল

;