ঘরেই তৈরি করুন কাঁচা কলার কাটলেট

অনলাইন ডেস্ক

ঘরেই তৈরি করুন কাঁচা কলার কাটলেট

কাঁচা কলার কাটলেট নাম হলেও এর সঙ্গে আলুও রয়েছে। টিকিয়াটি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি পুষ্টিকরও। শুধু সস নয়,  চা-কফি বা জুসের সঙ্গেও বেশ মানিয়ে যায় নাস্তাটি। শিশুদের টিফিনের জন্যও এটি হতে পারে মজার একটি খাবার।

 
কাঁচা কলার কাটলেট বানাতে যা যা লাগবে

> ৪টি কাঁচা কলা
> ২টি আলু
> ১ চা চামচ গুঁড়া মরিচ
> ১ চা চামচ ধনিয়া গুঁড়া
> ৪০০ মি.লি. তেল
> ১ চা চামচ চাট মসলা
> ৬ পিস পাউরুটি
> লবণ পরিমাণমতো
> ২টি কাঁচামরিচ
> ২ টেবিল চামচ ধনিয়া পাতা কুচি
> ১০০ মিলিলিটার দুধ
> ১০০ গ্রাম ব্রেডক্রাম্ব
 
প্রণালী :

> প্রথমেই কলার চামড়া আলাদা করে সেদ্ধ করে নিন। একইসঙ্গে আলুটাও সেদ্ধ করুন।

> এরপর আলু ও কলা একসঙ্গে ভালো করে চটকে মিশিয়ে নিন।

> পাউরুটির টুকরোগুলোকে পানিতে চুবিয়ে রেখে পানি চিপে নিন। এরপর আলু ও কলা মাখানো বোলে পাউরুটিগুলো রেখে তাতে গুঁড়া মরিচ, কাঁচামরিচ কুচি, ধনিয়া পাতা কুচি, ধনিয়া গুঁড়া ও পরিমাণমতো লবণ মেখে নিন।

> সবকিছু ভালো করে মেখে ডো তৈরি করুন। ডো-টাকে কাটলেটের আকারে গোল ও চ্যাপ্টা করে নিন।

> দুটি আলাদা বাটিতে দুধ ও ব্রেডক্রাম্ব নিন। পাশাপাশি একটি প্যানে তেলটুকু ঢেলে গরম করতে থাকুন।

> এরপর কাটলেটগুলোকে নিয়ে প্রথমে দুধে মেশান, ও পরে ব্রেডক্রাম্বের কোট দিয়ে নিন। প্যানে রেখে ডুবো তেলে ভাজুন। দ্রুত বাকিগুলোও প্যানে দিন। বাদামি রঙ হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। কাটলেটের মুচমুচে চেহারাই বলে দেবে ঠিক কখন সেটা নামাতে হবে। নামানোর পর চাট মশলা ছিটিয়ে পরিবেশন করুন।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত

পরবর্তী খবর

যাদের লইট্টা মাছ পছন্দ তাদের জন্য

ফাতেমা জান্নাত মুমু

যাদের লইট্টা মাছ পছন্দ তাদের জন্য

বৃষ্টির দুপুরে গরম ভাতের সাথে লইট্টা মাছ ফ্রাই কার না ভালোলাগে। এ জন্য মাওয়া কিংবা কক্সবাজার যেতে হবে না। লইট্টা মাছ ফ্রাই এখন আপনি ঘরেই তৈরি করতে পারেন।

রেসিপি:
লইট্টা মাছ আধা কেজি। (কিংবা ঘরের পরিবারের সদস্য সংখ্যা মাথায় রেখে আপনার ইচ্ছামতো নিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে উপকরণের পরিমাণও বাড়বে)।

আধা কেজি লইট্টা মাছের জন্য লাগবে আদা-বাটা আধা চা-চামচ। রসুন-বাটা আধা চা-চামচ। হলুদ-গুঁড়া আধা চা-চামচ। লাল মরিচ-গুঁড়া আধা চা-চামচ। পেঁয়াজ বাটা আধা চা-চামচ। জিরা, ধনিয়া, গরম মসলা গুঁড়া এক সাথে আধা চা-চামচ। লবণ স্বাদ মতো। আর ময়দা ও তেল পরিমাণ মতো।

পদ্ধতি:
মাছ ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। পছন্দ মতো কেটে কিচেন টিস্যু দিয়ে চেপে মুছে নিন। যাতে বাড়তি পানি না থাকে।
এরপর ময়দা ছাড়া সব উপকরণ দিয়ে মাছ মাখিয়ে এক ঘণ্টা মেরিনেইট করে ফ্রিজে রেখে দিন। তবে উপকরণের সাথে কয়েক ফোটা তেল দিতে পারেন। এতে মাছটা ঝড়ঝড়া থাকবে। এক ঘণ্টা বা আধা ঘণ্টা হয়ে গেলে ফ্রিজ থেকে মাছ বের করে অল্প অল্প করে মাছগুলো ময়দায় গড়িয়ে নিন। এ আগে একটি ফ্রাই পেনে তেল গরম করে নিন। তারপর ডুবো তেলে বাদামি করে মাছ ভেজে তুলুন। মাছ ভাজার সময় বেশি উল্টাবেন না। এতে মাছ ভেঙে যেতে পারে। একটু শক্ত হয়ে আসলে একবার উল্টে দিতে পারেন। মাছ ভাজা হয়ে গেলে টিস্যুর উপর রেখে দিন। এতে অতিরিক্ত তেল টিস্যু টেনে নেয়।

পরিবেশন:
ভাজা মাছের উপর ধনিয়াপাতা, কাঁচা মরিচ ও ভাজা পেঁয়াজ দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

রেসিপি- ফাতেমা জান্নাত মুমু
(সাংবাদিক)।

আরও পড়ুন:


‌‘কস্ট সহ্য করতে’ না পেরে স্বামীর বিশেষ অঙ্গ ও গলাকেটে হত্যা

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সম্ভাব্য সূচি

প্রথম স্বামীর কথার জবাব দিলেন মাহি

পাঁচ বিভাগে বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টির আশঙ্কা

এই হচ্ছে বিএনপি, আর সব দোষ আওয়ামী লীগের?

রাজপথে নামার আহ্বান মোশাররফ-মান্নার

বাগেরহাটে ৩ ঘণ্টা পর প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন নিয়ন্ত্রণে


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সুস্বাদু কাপ কেক রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

সুস্বাদু কাপ কেক রেসিপি

কাপ কেক দেখতেও যেমন সুন্দর; খেতেও ভীষণ মজাদার। বিশেষ করে ছোেদের কাপ কেক বেশি পছন্দ।

কাপ কেক তৈরি করা যায় খুব সহজেই। তাও আবার চুলায়। ঘরে থাকা চায়ের কাপেই বসাতে পারেন এই কেক। ঝটপট তৈরি করা যায় কাপ কেক। তাহলে আর দেরি কেন, জেনে নিন রেসিপি-

উপকরণ

১. ডিম ২টি
২. চিনি ১/৪ এক কাপ
৩. তেল ১/৪ কাপ
৪. ময়দা আধা কাপ
৫. বেকিং পাউডার আধা চামচ
৬. অরেঞ্জ ফ্লেভার ১ চামচ (পছন্দমতো যেকোনো ফ্লেভার ব্যবহার করতে পারেন)

প্রণালী:

ডিম, চিনি এবং তেল একটা পাত্রে ভালো করে ফেটে নিতে হবে; যতক্ষণ পর্যন্ত চিনিগুলো গলে না যায়। এরপর ময়দা এবং বেকিং পাওডার মিশ্রণের ভেতরে দিয়ে আবারো ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

সময় নিয়ে হ্যান্ড বিটারের সাহায্যে মিশ্রণটি ফেটিয়ে নিতে হবে। এরপর মিশ্রণের মধ্যে অরেঞ্জ ফ্লেভার দিয়ে দিন। কেউ চাইলে নিজের পছন্দমতো চকলেট, ভ্যানিলা, স্টবেরিসহ যেকোনো ফ্লেভার মেশাতে পারেন।

এরপর চায়ের কাপের ভেতরে আলতো করে তেল লাগিয়ে নিন। যাতে কেকটি তৈরি হয়ে গেলে তা কাপের গায়ে লেগে না যায় এবং ভালোভাবে উঠে আসে। এরপর মিশ্রণটা কাপের মধ্যে ঢালতে হবে।

কাপের অর্ধেকটা খালি রাখুন। যেন কেক ফুলে ওঠে পুরোটা ভরে যায়। 

এরপর কাপগুলো একটি ফ্রাইপেন বা বড় পাত্রে রেখে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ১৫ থেকে ২০ মিনিট হালকা আঁচে বেক করে নিন। এক্ষেত্রে কাচের ঢাকনা দিয়ে ঢাকলে সুবিধা হবে।

কারণ বাইরে থেকেই দেখা যাবে কেকটা কতটুকু বেক হয়েছে এবং সে হিসেবে নামানো যাবো। কেক হয়ে গেলে চুলা থেকে নামানোর আগে একটি টুথপিক ঢুকিয়ে দেখতে পারেন ভালোভাবে বেক হয়েছে কি-না। এবার পরিবেশন করুন সুস্বাদু কাপ কেক।

 news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

ঘরে বসেই গার্লিক নান তৈরির সহজ রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

ঘরে বসেই গার্লিক নান তৈরির সহজ রেসিপি

রসুন আর বাটার দিয়ে তৈরি নান রুটি গার্লিক নান হিসেবে পরিচিত। তবে এটি নানাভাবে তৈরি করা যায়। এক নজরে দেখে নেয়া যাক গার্লিক নান তৈরির সহজ রেসিপি-

উপকরণ:

ময়দা- ২ কাপ

ইস্ট- ১ চা চামচ

গরম দুধ- ১ কাপ

লবণ- পরিমাণমতো

বেকিং পাউডার- ১ চিমটি

গলানো মাখন- ৪ চা চামচ

রসুন মিহি কুচি করা- ২ চা চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন:

হালকা গরম দুধের সঙ্গে ইস্ট মিশিয়ে ভালোভাবে নাড়ুন। এরপর মিনিট দশেকের জন্য ঢেকে রাখুন। এবার বড় একটি পাত্রে ময়দা, বেকিং পাউডার ও লবণ ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর তাতে মেশান রসুন কুচি ও বাটার। ভালোভাবে মেশানো হলে তাতে ইস্টযুক্ত দুধ অল্প অল্প করে ঢেলে খামির তৈরি করে নিন। বাটারের পরিবর্তে তেলও ব্যবহার করতে পারেন। প্রয়োজন হলে গরম পানি যোগ করুন। ডো খুব নরম করে বানান। এতে রুটি ভালোভাবে ফুলবে।

রও পড়ুন:

তৃতীয় স্বামীর কাছ থেকে মুক্তি পেতে মামলা করলেন শ্রাবন্তী

কুড়িগ্রামে ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেপ্তার

অবশেষে ফুঁ দিয়ে আগুন ধরানো সেই সাধুবাবা গ্রেপ্তার

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

ডো এর উপর অল্প তেল বা বাটার মাখিয়ে ভেজা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন। কিছুক্ষণ পর ডো ফুলে দ্বিগুণ হয়ে যাবে। এবার ভালোভাবে হাত দিয়ে মেখে নিন। ডো ভাগ ভাগ করে নিয়ে রুটির মতো বেলে নিন। পছন্দ মতো শেপে নান তৈরি করুন। চুলায় তাওয়া গরম করতে দিন। বাটার দিয়ে মাঝারি আঁচে নানগুলো সেঁকে নিতে হবে। নানের উপরের অংশ ফুলে উঠলে সাবধানে উল্টে দিন। এভাবে একটি একটি করে নান সেঁকে তুলে নিন।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

মুখরোচক চিকেন মিটবলের সহজ রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

মুখরোচক চিকেন মিটবলের সহজ রেসিপি

চিকেন মিটবল। মাংসের কিমার সঙ্গে মশলা এবং রসুন দিয়ে তৈরি চিকেনে ছোট ছোট বড়াগুলির বাইরেটা কুচমুচে এবং ভিতরটা নরম হয়। এগুলি একটি সস বানিয়েও খাওয়া যায় আবার নুড্‌লসের সঙ্গেও খেতে পারেন। জেনে নিন বাড়িতে তৈরি করার একটি সহজ রেসিপি।

কী করে বানাবেন

১। একটি পাত্রে আধ কাপ পার্মেসান চিজ গ্রেট করা নিন। তার মধ্যে ১ ডিম, ৩ টেবিল চামচ সরু সরু করে কুচোনো চাইভ, ২ টেবিল চামচ পার্সলে পাতা, ২ কোয়া রসুন থেতলে নেওয়া, আধ চা চামচ অরিগ্যানো এবং সামান্য নুন ও গোলমরিচগুঁড়ো মিশিয়ে নিন।

২। এবার এই পাত্রে ৫০০ গ্রাম চিকেন কিমা দিন। সঙ্গে ৩ টেবিল চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার নিয়ে ভাল করে মিশিয়ে একটি মণ্ড বানিয়ে নিন।

৩। এবার সেখান থেকে ছোট ছোট করে বলের মতো বড়া বানিয়ে সামান্য কর্নফ্লাওয়ার মাখিয়ে নিন। একটি কড়াইয়ে অলিভ অয়েল গরম করে বলগুলি ভেজে নিন।

আরও পড়ুন:


ইমরান খানের সঙ্গে ছবি! শাহরুখকে বয়কটের দাবি

জাতীয় দলের নতুন কোচ বসুন্ধরা কিংসের অস্কার ব্রুজোন

ঢাকার যেসব এলাকায় মার্কেট-দোকানপাট বন্ধ থাকবে আজ

বিশ্বজুড়ে প্রাণঘাতী করোনায় কমেছে সংক্রমণ ও মৃত্যু


৪। ভাজার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে সব দিক সমান ভাবে বাদামি রং আসে। হয়ে গেলে এগুলি এমনিও খেতে পারেন। আবার পাস্তার রেড সস দিয়েও পরিবেশন করতে পারেন।

news24bd.tv রিমু

পরবর্তী খবর

দারুণ উপকারী জিরা চা

অনলাইন ডেস্ক

দারুণ উপকারী জিরা চা

জিরা চা। স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ উপকারী একটি পানীয়। নিয়মিত জিরা চা খেলে শুধু ওজনই নিয়ন্ত্রণে থাকে না, সেই সঙ্গে হজমশক্তিও উন্নত হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, খাবার হজম করতে, হজমশক্তি বাড়াতে দারুণভাবে সাহায্য করে জিরা।

পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরে জমে থাকা বর্জ্য পদার্থ ধীরে ধীরে হজম ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। জিরা চা সেই বিষ থেকে শরীরকে মুক্ত করে। এতে স্বাভাবিকভাবেই ওজন ঝরে। জিরা চা বানানোর জন্য একটা পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন।

আরও পড়ুন:


এসএসসি-এইচএসসির পরীক্ষা ও ফলাফলের নতুন নিয়ম

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি রোহিত শর্মার কাঁধে

রমিজ রাজা পিসিবির চেয়ারম্যান

৯৩০ মাইল পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া

আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার গাছ


 

জিরা চা বানানোর জন্য উপকরণ:

আস্ত জিরা এক চা-চামচ

দেড় কাপ পানি

আধা চা চামচ মধু

প্রস্তুত প্রণালী: প্রথমে একটি শুকনো কড়াইয়ে জিরা হালকা গরম করে নিন। এবার এতে পানি দিন যাতে জিরা ভালো ভাবে ফুটতে পারে। পাঁচ মিনিট ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রাখুন। এরপর নামিয়ে ছেঁকে নিন। স্বাদ বাড়াতে সামান্য মধু যোগ করতে পারেন। কিন্তু জিরা ফোটানোর সময় মধু দেওয়া যাবে না। ভালো ফল পেতে সকালে খালি পেটে জিরা চা খাওয়ার অভ্যাস করুন। এতে একদিকে যেমন হজমশক্তি বাড়বে, অন্যদিকে দ্রুত ওজনও কমবে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর