মিরপুরে আবাসিক এলাকায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

মিরপুরে আবাসিক এলাকায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু

মিরপুর আবাসিক এলাকায় গ্যাস লাইন বিস্ফোরণের ঘটনায় রেনু বেগম নামে আরও একজনের মৃত্যু। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিটিউটে তিনি মারা যান। 

এ নিয়ে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল পাঁচজনে।

আরও পড়ুন


আন্দোলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা হবে: নিউজ টোয়েন্টিফোরকে মির্জা ফখরুল

পাকিস্তানে মার্কিন সেনাদের উপস্থিতি দীর্ঘস্থায়ী হবে না

সালমান শাহের মৃত্যু রহস্য তদন্তে নতুন শুনানি ৩১ অক্টোবর

স্বামীর পর্ণোকাণ্ডে সম্পর্কের ভাঙন, সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে বাড়ি ছাড়ছেন শিল্পা


গত ২৬ আগস্ট রাতে মিরপুর–১১ নম্বর, সি–ব্লকের ১১ নম্বর রোডের এই বাড়িটির গ্যাস লাইনে পানি ঢুকে পড়ে। পরে স্থানীয় মিস্ত্রি সুমন লাইন থেকে পানি বের করে সংযোগ মেরামতের পর পরীক্ষা করতে গেলেই মুহুর্তেই বিকট শব্দের বিস্ফোরণে পুরো বাড়িতে আগুন জ্বলে ওঠে। পরে রেনু বেগমসহ গুরতর দগ্ধ অবস্থায় ৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছিল শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিটিউটে।

news24bd.tv রিমু    

পরবর্তী খবর

শ্রীবরদীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

অনলাইন ডেস্ক

শ্রীবরদীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলায় ট্রাকচাপায় আলম মিয়া (৩০) নামের এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এসময় জিয়া উদ্দিন (২৮) নামের আরও একজন নিহত হয়েছেন। আজ বিকেলে উপজেলার বালিজুড়ি অফিস পাড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

হতাহতরা ঝিনাইগাতী উপজেলার তিনানী এলাকার সামাদ হাজী রাইস মিলের শ্রমিক।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বিকেলে উপজেলার বালিজুরি অফিস পাড়া এলাকার ব্রিজের ওপর একটি ট্রাক পিছন থেকে চলন্ত মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় আলম মিয়া। পরে স্থানীয়রা আহত জিয়াকে উদ্ধার করে ঝিনাইগাতী হাসপাতালে নিয়ে যান।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


শ্রীবরদী থানার ওসি বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ট্রাকটিকে জব্দ করা গেলেও চালক ও তার সহকারী পালিয়ে গেছেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

বিদ্যুৎস্পর্শে স্কুলছাত্রসহ নিহত ২

অনলাইন ডেস্ক

বিদ্যুৎস্পর্শে স্কুলছাত্রসহ নিহত ২

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে সংযোগ লাইনে কাজ করার সময় বিদ্যুৎস্পর্শে এক শিক্ষার্থীসহ দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। 

তারা হলেন রাজিব (২১)  ইলেকট্রিশিয়ান ও উছমান ওরফে রামিম (১২) নামে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। রোববার বিকালে উপজেলার ভরভরা নামা পাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে গফরগাঁও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাজী সাইফুল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ইলেকট্রিশিয়ান ভরভরা নামা পাড়া গ্রামের মৃত আলী হোসেনের ছেলে আর স্কুল শিক্ষার্থী উছমান ওরফে রামিম একই গ্রামের কাইয়ুম মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের ভরভরা নামা পাড়া গ্রামের কাইয়ুম মিয়ার বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ লাইনের তার মাটিতে নামিয়ে কাজ করছিলেন একই এলাকার ইলেকট্রিশিয়ান রাজিব। 

এ সময় পাশে অবস্থান করছিল উছমান। হঠাৎ বিদ্যুৎস্পর্শে তারা পাশের পুকুরে ছিটকে পড়ে। খোঁজ পেয়ে বাড়ির লোকজন দুজনকে মৃত অবস্থায় পুকুর থেকে উদ্ধার করে।

গফরগাঁও থানার ওসি ফারুক আহম্মেদ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে অফিসার পাঠিয়েছি। তদন্ত করে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

স্ত্রীকে ‘ধর্ষণ করতে দেখে বাবাকে ধাওয়া দিল’ ছেলে

অনলাইন ডেস্ক

স্ত্রীকে ‘ধর্ষণ করতে দেখে বাবাকে ধাওয়া দিল’ ছেলে

ধর্ষণ, প্রতীকী ছবি।

নিজের স্ত্রীকে বাবার হাতে ধর্ষণ হতে দেখে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে স্বামী। লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় লোমহর্ষক এ ঘটনা ঘটে। নববধূর স্বামীর নাম হাবিবুর রহমান (২৫)।

রোববার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার উত্তর তালুক পলাশী গ্রামে নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়দের বরাতে পুলিশ জানান, উত্তর তালুক পলাশী গ্রামের মোকসুদার রহমানের ছেলে অটোচালক হাবিবুর রহমান তিন মাস আগে প্রতিবেশী এক মেয়ের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে নববধূ শ্বশুর বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন।

স্বামী দিনের বেলায় অটো চালাতে বাইরে ব্যস্ত থাকেন। তার শাশুড়িও অন্যের বাড়িতে কাজে যান। এ অবস্থায় শ্বশুর মোকসুদার রহমানসহ পুত্রবধূ বাড়িতে থাকেন।

গত সপ্তাহে নববধূ জ্বরে আক্রান্ত হলে ওষুধ এনে দেন শ্বশুর মোকসুদার রহমান। এ সময় নববধূকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে ধর্ষণ করেন তিনি। পরের দিনও শ্বশুর তাকে কু প্রস্তাব দিলে পুত্রবধূ নারাজী জানায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শ্বশুর নববধূকে মারধর করলে চোখে আঘাত পান তিনি।

অবশেষে দ্বিতীয় দফায় পুত্রবধূকে ধর্ষণ করেন লম্পট শ্বশুর মোকসুদার রহমান (৪৮)। এভাবে সপ্তাহ ধরে লাগাতার ধর্ষণের শিকার নববধূ বিষয়টি তার স্বামী ও শাশুড়িকে জানায়।

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) হাবিবুর অটোরিকশা নিয়ে বাইরে গিয়ে কিছুক্ষণ পর বাড়ি ফিরে এসে নিজ চোখে অপকর্ম দেখে বাবার উপর ক্ষিপ্ত হন। এসময় লম্পট বাবাকে ধাওয়া করেও আটক করতে পারেনি।

এ ঘটনায় রোববার (৫ ডিসেম্বর) বিষয়টি নিয়ে বাবা ছেলের মাঝে পুনরায় বিতর্ক হলে নিজ বাড়িতে প্রকাশ্যে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় অটোচালক হাবিবুর রহমান।

এসময় চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

নির্যাতিতা নববধূ বলেন, বাড়িতে কেউ না থাকায় প্রথমদিন ঘুমন্ত অবস্থায় শ্বশুর তাকে ধর্ষণ করে। দ্বিতীয় দিন বাধা দেওয়ায় চোখে ঘুসি মেরে আহত করে পরে ধর্ষণ করে। এভাবে সাতদিন লাগাতার ধর্ষণ করে। বিষয়টি স্বামী ও শাশুড়িকে জানালে তারা প্রথমে বিশ্বাস করেনি। শেষদিন স্বামী নিজেই দেখেছেন। এই ক্ষোভে তিনি বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। ওই নববধূ লম্পট শ্বশুরের বিচার দাবি করেন।

এ ঘটনার পর থেকে বাড়িতে তালা দিয়ে সপরিবারে পালিয়েছেন লম্পট মোকসুদার রহমান।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক একাধিক গ্রামবাসী জানান, লম্পট মোকসুদার রহমান অনেক মেয়ের এমন সর্বনাশ করেছেন। একাধিক গ্রাম্য বিচারে তাকে সতর্ক করা হলেও তার চরিত্রের কোনো সংশোধন হয়নি।

আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোজাম্মেল হক বলেন, শ্বশুর কর্তৃক নববধূ ধর্ষণের ঘটনা লোকমুখে শুনেছি। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


খেলাধুলার মূল কথা প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি: মেয়র আতিক


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

নেত্রকোনায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে শ্রমিক নিহত

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে শ্রমিক নিহত

ফাইল ছবি

নেত্রকোনা শহরের পারলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে খুরশেদ আলম (৪০) নামের এক পরিবহন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। আজ দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

খুরশেদ আলম শাহজালাল পরিবহনের সুপারভাইজার ছিলেন। তিনি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মুগলতলা গ্রামের ইমাম আলীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে একটি বাস স্ট্যান্ডে প্রবেশের সময় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে খুরশেদ আলম গুরুতর আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাকের আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। স্বজনরা এলে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ট্রাকচাপায় নিহত হলেন সংবাদকর্মী

অনলাইন ডেস্ক

ট্রাকচাপায় নিহত হলেন সংবাদকর্মী

প্রতীকী ছবি

ট্রাকচাপায় এক গণমাধ্যমকর্মী নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। রাজধানীর কলেজগেট এলাকায় রাত আড়াইটার দিকে মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত গণমাধ্যমকর্মীর নাম এমদাদ হোসেন (৬০)। তিনি দৈনিক সংবাদে কর্মরত ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্রে জানা যায়, শনিবার রাত আড়াইটার দিকে একটি মোটরসাইকেলে দ্রুতগতির একটি ট্রাক চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা মোহাম্মদপুর থানার পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত সংবাদকর্মীর ছোট ভাই সেলিমের বরাতে জানা যায় আমার বড় ভাই দৈনিক সংবাদের সংবাদকর্মী ছিলেন। রাতে অফিস শেষ করে মোটরসাইকেলে করে বাসায় ফিরছিলেন। মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারের সামনে আসার পর পেছন থেকে একটি ট্রাক তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।

আরও পড়ুন:

ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাধা

আজ আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় 'জাওয়াদ'

পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার বিষয়ে চাইলে তিনি বলেন, এমন নৃশংস দুর্ঘটনার পরও কাউকে শনাক্ত বা ট্রাকটি আটক করা যায়নি। কার বিরুদ্ধে আমরা মামলা করব? এর জন্য আমরা কোনো মামলা করছি না। ময়নাতদন্ত শেষ হলে আমরা মরদেহ টাঙ্গাইলের নাগরপুরে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাব।

এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ জানান, রাতে স্থানীয়দের ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে আমাদের টহল টিম পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ট্রাকটি শনাক্ত করতে আমরা ইতোমধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি। ময়নাতদন্তের জন্য আমরা মরদেহটি মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর