মাদ্রাসা শিক্ষকের অত্যাচারে ছাত্রের আত্নহত্যার চেষ্টা

আব্দুল লতিফ লিটু,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

মাদ্রাসা শিক্ষকের অত্যাচারে ছাত্রের আত্নহত্যার চেষ্টা

ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের জমিরিয়া ইহ্ইয়াউল উলুম মাদ্রাসার শিক্ষকের নির্যাতনের কারণে এক শিক্ষার্থী মাদ্রাসা বিল্ডিংয়ের উপর থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। আহত ওই শিক্ষার্থীকে প্রথমে বালিয়াডাঙ্গি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনার বিষয়টি আড়াল করতে আহত ওই শিক্ষার্থীকে সদর হাসপাতাল থেকে রিলিজ না করেই বর্তমানে বাসায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

জানা যায়, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের কাচনা গ্রামের চৌধুরী পাড়া এলাকার সাদেক আলী তার ছেলে শামীম আফজাল (১২) কে কোরানের হাফেজ করানোর জন্য আগষ্ট মাসে পার্শ্ববর্তী বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নে অবস্থিত জমিরিয়া ইহ্ইয়াউল উলুম মাদ্রাসায় হেফজো বিভাগে ভর্তি করে দেয়। সেই থেকে ওই শিক্ষার্থীকে লেখাপড়ার নামে সময়ে অসময়ে নির্যাতন করা হতো। পড়া মুখস্ত রাখতে না পারায় তার উপর নির্যাতন করত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি শরিফুল ইসলাম। এ অবস্থায় ওই শিক্ষার্থী বাড়িতে যাওয়ার জন্য উদ্গ্রীব হয়ে উঠলে কর্তৃপক্ষ তাকে চোখে চোখে রাখত।

এহেন অবস্থায় সে মাদরাসা থেকে পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ খুঁজতে থাকে। তার মাঝে একদিন ছাত্রটি মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে বাসায় চলে যায়। পরে বাসা থেকে শিক্ষার্থীকে বুঝিয়ে আবার মাদ্রাসায় নিয়ে আসা হয়।

গত বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) সকালে শিক্ষার্থীকে বুঝিয়ে মাদ্রাসায় দিয়ে যায় তার পরিবার। বিকালে আছরের নামাজের পর শামীমকে অধ্যাক্ষ তার রুমে ডেকে নিয়ে নির্যাতন করেন। সেখানে থেকে বের হয়ে শিক্ষার্থী মাদ্রাসার বিল্ডিংয়ের ছাদ হতে নিচে ঝাপ দেয়।

এ সময় মাদ্রাসার শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় শামীমকে তাৎক্ষনিকভাবে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি করা হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাতেই ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু বিষয়টি ধামাচাঁপা দিতে শিক্ষার্থীকে চিকিৎসা না করিয়ে হাসপাতাল থেকে রিলিজ না নিয়ে তার পরিবারকে চাঁপ দিয়ে দ্রুত বাসায় নিয়ে আসা হয়।

শিক্ষার্থীর পিতা সাদেক আলী বলেন, যেহেতু এটা ইসলামিক প্রতিষ্ঠান তাই আমি এটা নিয়ে কোন বাড়াবাড়ি করবো না।

শিক্ষার্থীর নানা মাওলানা নুরুল ইসলাম বলেন, বাচ্চাটিকে আমি সেখানে ভর্তি করেছিলাম। কিছুদিন যেতে না যেতেই সে পালিয়ে আসে। পরদিন তাকে রাখতে গিয়ে মাদ্রাসার কতৃপক্ষকে বুঝিয়ে বলি আমার নাতী শামিমের উপর রাগ বা বকাঝকা করবেন না। তার পরে সন্ধ্যায় খবর পাই আমার নাতি বিল্ডিংয়ের ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছে। পরে আমি খবর নিয়ে জানতে পারি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি শরিফুল ইসলাম আমার নাতির উপর অত্যাচার করে।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী শামিম আফজাল বলেন, আমি ২৪ পারা কোরআন মুখস্ত থাকলেও আমার সবকিছু নাকি ভুল। আর এই ভুলে অজুহাতে আমাকে অধ্যক্ষ মুফতি শরিফুল ইসলাম আমাকে নির্যাতন করতো। আমি পালিয়ে বাড়িতে গেলে আমার বাবাকে বলে আর এমন হবে না। পরে আমার নানা আমাকে আবার সকালে রেখে গেলে বিকালে আছরের নামাজের পরে আমাকে অধ্যক্ষ তার রুমে ডেকে নিয়ে যায়। তুমি এই প্রতিষ্ঠানের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করেছ রাতে তোমার ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। তার পরে আমি ভয়ে আমি ছাদ থেকে লাফ দেই।

এ ব্যাপারে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম শিক্ষার্থীর ঝাপ দিয়ে পড়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই শিক্ষার্থী আগষ্ট মাসে মাদ্রাসায় ভর্তি হয়। কিন্তু সে মাদ্রাসায় থাকতে আপত্তি করে আসছিল। তার ওই আত্মহত্যা চেষ্টার জন্য মাদরাসা কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় বলে দাবি করেন অধ্যক্ষ।

এ ব্যাপারে বালিয়াডাঙ্গী থানার অফিসার্চ ইনচাজ (ওসি) হাবিবুল হক প্রধানের সাথে কথা বলার জন্য থানায় গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। এছাড়া তার মুঠোফোনে কল দেওয়া হলে তিনি ফোন ধরেন নাই।

বালিয়াডাঙ্গি উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা জোবায়ের হোসেন বলেন, ্ওই মাদ্রাসার ঘটনাটি আমি শুনে হাসপাতালে শিক্ষার্থীকে দেখতে গিয়েছিলাম। করোনাকালীন প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ থাকার কথা, কিভাবে খোলা রয়েছে তা জেনে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রহমানকে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন


মাওলানা মামুনুল হককে খুলনা কারাগারে স্থানান্তর

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ভোগান্তি থাকবে না: ওবায়দুল কাদের

শুধু আলোচনার জন্য আলোচনায় বসবে না ইরান

পরকীয়া, তৃতীয় বিয়ে ও সাবেক স্ত্রীকে নিয়ে যা বললেন অপূর্ব


 

উল্লেখ্য, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার জমিরিয়া ইহ্ইয়াউল উলুম মাদ্রাসায় বর্তমানে শিক্ষার্থী সংখ্যা সাড়ে ৫শ। তন্মধ্যে এতিমখানায় শিক্ষার্থী রয়েছে ১২০ জন। আর হেফজ শ্রেনীতে শিক্ষার্থী অর্ধ শতাধিক।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়েছেন স্বামী পরিত্যক্তা (২৭) এক নারী। পেট্রালের আগুনে নারীর মুখমণ্ডল ও দুই হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ৩০ শতাংশের বেশি পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার সান্দিকোনা ইউনিয়নে আটিগ্রামে দিলু মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।আহত ওই নারী একই ইউনিয়নের ছেংজানা গ্রামের বাসিন্দা। 

পুলিশ ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, আহত ওই নারীর এর আগে একাধিক বিয়ে হয়েছে। সম্প্রতি সান্দিকোনা ইউপির পাইমাস্কা গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে জামাল মিয়ার সঙ্গে সর্বশেষ বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে দাম্পত্যকলহ দেখা দিলে মামলা-মোকদ্দমায় গড়ায়।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মনিরুল ইসলাম, কেন্দুয়া সার্কেল এএসপির জোনাঈদ আফ্রাদ ও থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজ।

কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজ বলেন, ঘটনা জানার পরপরই হাসপাতালে গিয়ে ভিকটিমের সঙ্গে কথা বলেছি।  দিলু মিয়ার সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি তাদের সম্পর্কের কিছুটা অবনতি ঘটেছে। প্রেমের স্বীকৃত আদায়ের জন্য এই কাণ্ড ঘটিয়েছে ওই নারী। এ ব্যাপারে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে ।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা (আরএমও) সৈয়দ আব্দুল্লাহ গালিব জোবায়ের বলেন, ওই নারীর মুখমণ্ডল, দুই হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ৩০ শতাংশের বেশি পুড়ে গেছে। 

তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বিয়ের দাবিতে প্রেমিক পুলিশ সদস্য’র বাড়িতে যুবতির অবস্থান

শেখ রুহুল আমিন,ঝিনাইদহ

বিয়ের দাবিতে প্রেমিক পুলিশ সদস্য’র বাড়িতে যুবতির অবস্থান

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন শারিরীক সম্পর্ক করার পর বিয়ে না করে প্রতারণা করায় ঝিনাইদহে বিয়ের দাবিতে পুলিশ সদস্য’র বাড়িতে অবস্থান ধর্মঘট করছে এক যুবতি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর প্রেমিক পুলিশ সদস্য’র বিয়ের খবরে তার বাড়িতে অবস্থান নেয় ওই যুবতি।

জানা যায়, ঝিনাইদহ শহরের আলহেরা স্কুলপাড়ার বাবুল ড্রাইভারের ছেলে পুলিশ সদস্য সম্রাট কয়েক বছর আগে কুষ্টিয়ায় পোস্টিং ছিল। সেখানে চাকুরি করার সুবাদে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ভাদালিয়া গ্রামের কলেজ ছাত্রী শারমিনের সাথে পরিচয় হয়। তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

শারমিন অভিযোগ করে বলেন, প্রেমের সম্পর্ক হওয়ার পর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দফায় দফায় বিভিন্ন স্থানে নিয়ে তার সাথে শারিরীক সম্পর্ক করে। পরে সম্প্রতি তাকে এড়িয়ে চলা শুরু করে। বিয়ের চাপ দিলে সম্রাট নানা তালবাহানা শুরু করে। উপায় না পেয়ে সম্রাটের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপারের বরাবর অভিযোগ করি। পরে সম্রাটেকে বাগেরহাট বদলি করে দেওয়া হয়। সেখানে গিয়েও বিয়ের দাবি করা হয়। বৃহস্পতিবার বাগেরহাট গিয়ে জানতে পারি শুক্রবার সম্রাটের বিয়ে হচ্ছে। 

এমন খবরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সম্রাটের বাড়ি ঝিনাইদহ শহরের আলহেরা স্কুলপাড়ায় অবস্থান নিয়েছি।

এদিকে সম্রাটের পরিবার থেকে বলা হচ্ছে শারমিনের সাথে তার কোন সম্পর্ক নেই। সম্রাটের পিতা বাবলু বলেন, আমার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করা হচ্ছে। আমার ছেলের সাথে যে মেয়েটার সম্পর্ক রয়েছে তার কোন প্রমাণ দিতে পারেনি মেয়েটি। শারমিনের সাথে সম্রাটের কোন সম্পর্ক নেই বা ছিল না। আমার ও আমার পরিবারের মান-সম্মান ক্ষুন্ন করার জন্য মেয়েটা মিথ্যাচার করছে।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এর আগেও মেয়েটি এসেছিল। কিন্তু মেয়েটির সাথে পুলিশ সদস্য সম্রাটের সম্পর্কের কোন প্রমাণ সে দিতে পারেনি। তবে মেয়েটি যদি অভিযোগ দেয় তাহলে তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়

অনলাইন ডেস্ক

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়

বিশিষ্ট ভাষাসৈনিক, বুদ্ধিজীবী, গবেষক, প্রাবন্ধিক আহমদ রফিকের পাশে দাঁড়িয়েছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

আজ সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদের নির্দেশনায় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে অসুস্থ আহমদ রফিকের হাতে তিন লক্ষ টাকার চেক তুলে দেয়া হয়। সহযোগিতার জন্য আহমদ রফিক এসময় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, আহমদ রফিক একাধারে বরেণ্য ভাষাসংগ্রামী, বুদ্ধিজীবী, লেখক, প্রাবন্ধিক ও গবেষক। তিনি আমাদের মহান মনীষী। ভাষা আন্দোলনে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করেছেন। বাঙালির প্রতিটি আন্দোলনে তাঁর ভূমিকা ছিল অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। সৃষ্টিশীল লেখা ও গবেষণা ছাড়াও তিনি জাতীয় ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে তার অসামান্য অবদান রয়েছে। 

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

কে এম খালিদ বলেন, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় আহমদ রফিকের পাশে আছে। ভবিষ্যতেও তাঁর সুচিকিৎসাসহ যেকোন সহায়তার প্রয়োজনে মন্ত্রণালয় পাশে থাকবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক

‘কুয়াকাটা হবে আন্তর্জাতিক মানের সীবীচ’

অনলাইন ডেস্ক

‘কুয়াকাটা হবে আন্তর্জাতিক মানের সীবীচ’

প্রধানমন্ত্রী দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের কথা চিন্তা করেন বলেই পায়রা বন্দর ও পদ্মা সেতু হয়েছে। এখানে এখন অনেক বিদেশী আসবে।আমরা কুয়াকাটা সীবিচটাকে আরো ভালো মানের করতে চাই। এটা একটি আন্তর্জাতিক মানের নান্দনিক সীবিচ হবে বলে জানিয়েছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কর্নেল (অব.)জাহিদ ফারুক।

বৃহষ্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর)বিকেলে সাগরকন্যা কুয়াকাটার সৈকত পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.)জাহিদ ফারুক এসব কথা বলেন। 

তিনি আরও বলেন,কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতের জন্য আমাদের প্রকল্প চলমান রয়েছে।কক্সবাজার বীচের জন্যও আমাদের প্রকল্প আছে।আর এখানে ৯৫০ কোটি টাকার মতো একটি প্রকল্প চলমান আছে। 

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন,নদী শাসনসহ যে কোন কাজে জনগনের সহযোগীতা প্রয়োজন। বিগত সময়ে এখানে যে জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছিলো,সেগুলোকে লোহা দিয়ে,সাইকেলের চাবি,সিগারেটের আগুন দিয়ে ছিদ্র করে দিয়েছিলো। আমাদের যারা প্রকৌশলী রয়েছেন তাদের আন্তর্জাতিক মানের সীবিচ তৈরি করার অভিজ্ঞতার জন্য মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীদের নিয়ে নেদারল্যান্ডে পরিদর্শনে গেছেন।তারা সেখানকার সীবিচ দেখে এসেছে এবং সেই গুনগতমানে কক্সবাজার এবং কুয়াকাটায় কাজ করবো। রাতারাতি কোন কাজ করলে হবে না তা টেকসই হবে না। সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রকল্প পাশ ও কাজ করতে চাই।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

এ-সময় উপস্থিত ছিলেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) রোকন উদ-দৌলা, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক ফজলুর রশিদ,পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীর হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান,অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম সরকার, তত্তাবোধক প্রকৌশলী মজিবুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃআরিফ হোসেন কুয়াকাটা পৌরসভার সাবেক মেয়ের আ. বারেক মোল্লা প্রমূখ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

মোটরসাইকেলে শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পথে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

মোটরসাইকেলে শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পথে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

ফাইল ছবি

সুনামগঞ্জের টাংগুয়ার হাওরে বনভোজন শেষে মোটরসাইকেলে করে স্ত্রীকে নিয়ে পাবনায় শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পথে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসের নিচে চাপা পড়ে স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট সাইফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কের কামারখন্দ উপজেলার সীমান্ত বাজার এলাকার এ দুর্ঘটনা ঘটে। এদিকে, দুর্ঘটনার পর বাসের চালক ও তার সহকারী পালিয়ে গেছে। বাস ও মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান ট্রাফিক সার্জেন্ট সাইফুল ইসলাম।

নিহতরা হলেন- সৈয়দ আব্দুল্লাহ (৩০) ও কেয়া খাতুন (২১)। তাদের বাড়ি চট্টগ্রামে বলে জানা গেছে।

ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট সাইফুল ইসলাম জানান, সুনামগঞ্জের টাংগুয়ার হাওরে বনভোজন শেষে মোটরসাইকেলে করে স্ত্রীকে নিয়ে পাবনায় শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছিলেন আব্দুল্লাহ। পথে তার মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ঢাকাগামী একটি বাসের নিচে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই আব্দুল্লাহ এর মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

আহত নারীকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়ায় পাঠানো হলে পথে তার মৃত্যু হয়। লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানা তিনি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর