শিশুদের টিকার আওতায় আনতে চায় বিভিন্ন দেশ

শিশুদের টিকার আওতায় আনতে চায় বিভিন্ন দেশ

Other

দীর্ঘ ১৮ মাসের বেশির সময় ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থার পরিবর্তনে এবার পশ্চিমা দেশগুলোর পাশাপাশি স্কুল-কলেজ খোলার নির্দেশ এসেছে এশিয়ার দেশগুলোতেও। কিন্তু শিশুদের টিকার আওতায় আনা হয়নি বেশিরভাগ দেশে। আর তাই স্কুল খোলার পাশাপাশি শিশুদের ভ্যাকসিন দেয়ার বিষযে চলছে আলোচনা।

তবে এ বিষয়ে এখনই অনুমোদন দিতে রাজি হয়নি ব্রিটিশ টিকা বিষয়ক যৌথ কমিটি- জেসিভিআই।  

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অন্যান্য ক্ষতির পাশাপাশি দীর্ঘমেয়াদি এক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে শিক্ষাখাত। দীর্ঘ দুই বছরের মতো বিশ্বের বিভিন্ন দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় শিশুদের মনস্তাত্ত্বিক নেতিবাচক প্রভাবে পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক ও কর্মীরা।

তবে এই বছরের শুরু থেকে দ্রুত গতিতে টিকাদান কর্মসূচি এগিয়ে চলায় ইউরোপ ও পশ্চিমা দেশগুলোর পাশাপাশি এশিয়ার দেশগুলোতেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে শুরু করেছে। মাস্ক পড়ে ও দূরত্ব বজায় রেখে, পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে স্কুলে ক্লাশ করতে শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা।

তবে তা স্বত্ত্বেও করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সম্ভবনা থাকায়, শিশুদের টিকাদানের পরিকল্পনা করছে বেশকটি দেশ। এরইমধ্যে ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের মাঝে পরীক্ষামূলকভাবে টিকাদান শুরু হয়েছে ফ্রান্স ও রাশিয়ায়। যুক্তরাজ্যেও শিশুদের মাঝে টিকাদান কর্মসূচি গ্রহণের বিষয়ে জোর আলোচনা চলছে। কিন্তু ব্রিটিশ টিকা বিষয়ক যৌথ কমিটি- জেসিভিআই, এই উদ্যোগে এখনো অনুমোদন দেয়নি।

স্কুলগামী শিশুদের ঢালাওভাবে টিকাদানের এখনো সময় আসেনি। শিশুদের ক্ষেত্রে ঝুকি এবং লাভের মাঝে ভারসাম্য নির্ধারণ করা খুবই শক্ত। তাই এখনই তাদের টিকাদানের সুপারিশ করা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন:


সপ্তাহে কতদিন ক্লাসের পরিকল্পনা সরকারের, জানালেন শিক্ষা উপমন্ত্রী

পাসপোর্ট অফিসে দালালদের নিয়ন্ত্রণে সিসি ক্যামেরা

১০ হাজার 'ভুয়া' মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল

নভেম্বর-ডিসেম্বরে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে নন অনেকেই


 

এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত গবেষণার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন, ব্রিটেনের শীর্ষ চার চিকিৎসক। শুধু সুস্থ্য শিশুদের টিকাদানের বিষয়ে আলোচনা চললেও, সামগ্রিকভাবে তা কতোটুকু ফলপ্রসু হবে এ বিষয়ে এখনো যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে বলে জানিয়েছে জেসিভিআই।

news24bd.tv/আলী