দক্ষিণ এশিয়ায় সন্ত্রাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় ভীত তালেবান ভক্তরা

অনলাইন ডেস্ক

দক্ষিণ এশিয়ায় সন্ত্রাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় ভীত তালেবান ভক্তরা

আল-কায়েদা সহ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সাথে সম্পর্কযুক্ একটি সহিংস, প্রতিবাদী শক্তি বলে বিবেচিত তালেবান গোষ্ঠী। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অবশেষে আফগানিস্তান এবং তালেবানদের হাতে দেশটি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ইসলামী সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য উচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।

ইসলামিক স্টেট (আইএস) ইতিমধ্যেই তার কপিকল বহন করে আগস্টের শেষের দিকে কাবুল বিমানবন্দরে হামলা চালিয়েছে, আমেরিকানদের হত্যা করেছে এবং শতাধিক আহত হয়েছে। আইএসের সঙ্গে তালেবানদের বিরোধের বিষয়টি আফগানিস্তানের পরিস্থিতি আরও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে।

ইন্দোনেশিয়ায় ডেনসাস, যা দেশের সন্ত্রাস দমন পুলিশ হিসাবে পরিচিত। তালেবান সহানুভূতিশীলদের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া এবং অন্যান্য উৎসগুলি পর্যবেক্ষণ শুরু করেছে। যে দেশে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মুসলিম রয়েছে, সে দেশে ইসলামী আইন আরোপ করতে চাওয়া চরমপন্থী গোষ্ঠীগুলির সাথে মোকাবিলা করার অভিজ্ঞতা তাদের আছে।

ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেটনো মারসুদি টুইট করেছেন যে, কাবুল হামলার কয়েকদিন আগে দোহায় তিনি সিনিয়র তালেবান কর্মকর্তা শের মোহাম্মদ আব্বাস স্টানেকজাইয়ের সাথে দেখা করেছিলেন যেখানে নিশ্চিত করা হয় যে আফগানিস্তান সন্ত্রাসী সংগঠন ও কার্যক্রমের উৎস হয়ে উঠবে না।

ইন্দোনেশিয়ার উদ্বেগ যে ইসলামী চরমপন্থা বৈদেশিক বিনিয়োগ এবং পর্যটনের মাধ্যমে মহামারী-বিধ্বস্ত অর্থনীতি পুনর্নির্মাণের উদ্দেশ্যের জন্য হুমকিস্বরুপ। বিদেশিরা প্রায়ই সন্ত্রাসী হামলার টার্গেট হয়ে থাকে। আর আফগানরা ইন্দোনেশিয়ায় শরণার্থীদের সবচেয়ে বড় দল হয়ে উঠেছে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রধান চরমপন্থী গোষ্ঠী হল জেমাহ ইসলামিয়া। ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতা দিবসে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছে বলে সন্দেহ করে দেশটির পুলিশ আগস্টের শুরুর দিকে দলের কয়েক ডজন সদস্যকে গ্রেফতার করে। এই গোষ্ঠীর বেশ কয়েকজন তালেবান সহানুভূতিশীল বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

নিক্কেই এশিয়া জানিয়েছে: জেমাহ ইসলামিয়ার সদস্যরা ১৯৯০-এর দশকে আফগানিস্তানে সামরিক প্রশিক্ষণ পেয়েছিল এবং এই গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে আল-কায়েদার সাথে সম্পর্ক রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আইএসআইএস -এর প্রতি আনুগত্যের প্রতিশ্রুতি দেওয়া একটি স্থানীয় গোষ্ঠী জামাআ আনসারুত দৌলার উপর ইন্দোনেশিয়ার পুলিশও কড়া নজর রাখছে।

মালয়েশিয়ায় পুলিশ তদন্ত করছে যে তালেবান তার দুই নাগরিককে আটক করেছে। আটক দুজনই আইএসআইএস -এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। ফিলিপাইনে, প্রতিরক্ষা সচিব সতর্ক রয়েছেন যে তারা এখন স্থানীয় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের  যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলনের জন্য সতর্ক রয়েছে।

সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং আফগানিস্তানে জেমাহ ইসলামিয়া এবং আল-কায়েদার মধ্যে সংযোগের দিকে মনোনিবেশ করেছেন।

দক্ষিণ-এশিয়ায় ভারত সন্ত্রাসবাদ থেকে সবচেয়ে বেশি সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে, যার বেশিরভাগই পাকিস্তানের পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগে। লস্কর-ই-তৈয়বা এবং জইশ-ই-মোহাম্মদের মতো ভারতবিরোধী সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলি জম্মু-কাশ্মীরে অভিযান চালানোর জন্য আফগানিস্তানকে ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান, যা পাকিস্তানি তালেবান নামেও পরিচিত, পাকিস্তানে নতুন করে হামলা চালানোর জন্য আফগানিস্তানে নিজেকে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে।

পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানও সন্ত্রাসের হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে। তালেবানের উত্থান কেবল আফগানিস্তানে আল-কায়েদা নয়, বাংলাদেশে জমিয়াতুল-মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) এবং নব্য-জেএমবি, লস্কর-ই-তৈয়বা, হরকাতুল মুজাহিদিন, জইশ-ই-মোহাম্মদ, আল পাকিস্তানে কায়েদা এবং তেহরিক-ই-তালিবান, যদিও এই গোষ্ঠীগুলি পাকিস্তান থেকে আফগানিস্তানে ঘাঁটি স্থানান্তর করলে পরিত্রাণ পাবে।

বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলাম, হেফাজতে ইসলাম এবং পাকিস্তানের তেহরিক-ই-লাব্বাইকের মতো চরমপন্থী রাজনৈতিক ইসলাম সংগঠনগুলোকেও উৎসাহিত করা হবে। তালেবান এই সংগঠনগুলোর জন্য একটি সাফল্যের গল্প হিসেবে কাজ করে, যারা তাদের বসবাসের দেশে শরিয়া আইন প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

২০১৬ সালের হোলি আর্টিজান হামলার পর থেকে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ সর্বোচ্চ সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান চালিয়েছে, যেখানে পাঁচজন সন্ত্রাসী একটি বেকারির দোকানে ২০ জনকে হত্যা করেছে। আফগান-প্রত্যাবাসী বিদেশি যোদ্ধাদের সাথে তাদের সম্পর্কের উত্থানের পর এটি ইসলামপন্থী কট্টরপন্থী রাজনৈতিক দল হেফাজতে ইসলামকে বিলুপ্ত করে দিয়েছে।

তালেবানের কাছে কাবুলের পতন বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুমুল আলোচনার জন্ম দিয়েছে। ২০২১ সালের প্রথম দিকে, রাজধানীর পুলিশ চার ইসলামপন্থীকে গ্রেপ্তার করে সন্দেহভাজন তালেবানে যোগ দেওয়ার জন্য ভারত ও পাকিস্তান হয়ে আফগানিস্তানে যাওয়ার পথ খুঁজে বের করার চেষ্টা করে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তারা ১০ জন বাংলাদেশির একটি দলের অংশ ছিল যারা তালেবানদের সাথে যোগ দেওয়ার চেষ্টা করছিল।


আরও পড়ুন

মায়ের মাথা ফাটালেন তারকা শিল্পী

এবার দর্শকপ্রিয় মনোজ প্রভার সুরঞ্জনার শেষ সংলাপ

ভারতে যাওয়া যাত্রীদের বেশিরভাগই যাচ্ছেন চিকিৎসার উদ্দেশে

রোহিঙ্গাদের জন্মসনদ: সেই ইউপি সচিবের জামিন স্থগিত


বাংলাদেশের অনেক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্যরা আফগানিস্তানে প্রশিক্ষিত এবং অন্যান্য যারা তালেবানদের সাথে যুদ্ধ করেছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট বাংলাদেশের জন্য তালেবানদের বিজয়ের প্রভাব নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকলেও উড্রো উইলসন সেন্টারের মাইকেল কুগেলম্যানের মতো দক্ষিণ এশিয়ার বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, যদিও বাংলাদেশের সন্ত্রাস দমন অভিযানে নিহত সন্ত্রাসী, এটি দেশে অ-জঙ্গি ইসলামপন্থীদের ভবিষ্যতে মৌলবাদী হওয়ার পথ সুগম করেছে।

যাইহোক, সন্ত্রাসের পুনরুজ্জীবনের প্রকৃত ভয়টা তালেবান এবং আল-কায়েদার মধ্যে ভবিষ্যতের সম্পর্ক সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা থেকে আসে। পরবর্তীকালের যোদ্ধারা বহু বছর ধরে আফগানিস্তানে লুকিয়ে আছে এবং শক্ত বন্ধন তৈরি করেছে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত

পরবর্তী খবর

যুবতীকে ধর্ষণ শেষে গাড়ি থেকে ফেলে দেয় উবার চালক!

অনলাইন ডেস্ক

যুবতীকে ধর্ষণ শেষে গাড়ি থেকে ফেলে দেয় উবার চালক!

এক নারী তার বন্ধুর বাড়ি থেকে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন ভোর রাতে। কিন্তু এত রাতে বাড়ি ফেরার সময়ে ওই নারী যাত্রীকে একা পেয়ে গাড়ির ভেতরেই ধর্ষণের অভিযোগ এক উবার চালকের বিরুদ্ধে।

অভিযোগের সূত্রে জানা যায়, এইচএসআর লেআউট থেকে মুরুগেশ পাল্যা ফেরার জন্য উবার ভাড়া করেছিলেন তিনি। গন্তব্যে পৌঁছনোর আগে গাড়ির দরজা বন্ধ করে দিয়ে তার ওপর অত্যাচার চালায় উবার চালক। পরে তাকে গাড়ি থেকে ফেলে দেওয়া হয়।

অভিযুক্ত চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এমন খবর দিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

বেঙ্গালুরুর অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মুরুগান গণমাধ্যমকে বলেছেন, নির্যাতিত ওই নারীর বাড়ি ঝাড়খণ্ডে। বেশ কয়েক বছর ধরেই বেঙ্গালুরুতে বসবাসের পাশাপাশি সেখানকার একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন তিনি। অভিযুক্ত উবার চালকের বাড়ি দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশে। গত দু’বছর ধরে তিনি বেঙ্গালুরু শহরে উবার চালক হিসেবে কাজ করছিলেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

সংসার ভাঙার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি!

অনলাইন ডেস্ক

সংসার ভাঙার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি!

অদ্ভুত এই বিশ্বের নানা প্রান্তে প্রতিদিন কতই না বিচিত্র সব ঘটনা ঘটে। এমনই এক বিচিত্র ঘটনা হলো ডিভোর্সের খুশিতে পার্টির আয়োজন। যুক্তরাষ্ট্রের এক নারী বিয়ে থেকে মুক্তি পাওয়ার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি দিয়েছেন। আর এতেই তিনি ইতি টেনেছেন ১৭ বছর পর বিবাহিত জীবনের।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা সোনিয়া গুপ্ত নামে ৪৫ বছর বয়সী ওই নারী নিজের বিবাহিত জীবনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি উপলক্ষে ডিভোর্স পার্টিতে মজেছেন। সেখানে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের।

এক ছবিতে দেখা যায় দুই সন্তানের জননী ওই নারী ঝলমলে রঙিন পোশাকের ওপর লিখেছেন ’ফাইনালি ডিভোর্স।’পার্টিতে আগত অতিথিদের ঝলমলে ও উজ্জ্বল পোশাক পরে আসতে বলেছেন সোনিয়া।

তিনি নিজেকে একজন খোলামনের মানুষ হিসেবে অভিহিত করেছেন। কিন্তু তার স্বামী ছিলেন পুরোপুরি তার বিপরীত।

২০০৩ সালে ভারতে বিয়ে হয় সোনিয়ায়। বিয়ের পরই তিনি অনুধাবন করেন, তার বিবাহিত জীবন সুখের নয়। এরপর বহু বছর ধরে বিয়ে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করেন তিনি। অবশেষে তিনি চূড়ান্ত বিচ্ছেদের পথেই হেঁটেছেন। শুধু ডিভোর্স দিয়েই থামেননি তিনি। তাইতো খুশিতে দিয়েছেন ডিভোর্স পার্টি।

পরবর্তী খবর

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই অকাল মৃত্যু হচ্ছে ৭০ লাখ মানুষের

আসমা তুলি

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই ৭০ লাখ মানুষের অকালমৃত্যু হচ্ছে। ১৬ বছর পর বুধবার এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস –একিউজিএস প্রকাশ করে এই তথ্য জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেইসঙ্গে সব দেশের প্রতি একিউজিএসের নির্দেশিকা মানার আহ্বান জানিয়েছেন সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রস আধানম গেব্রিয়েসাস।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-সবশেষ একিউজিএস প্রকাশ করে ২০০৫ সালে। এরপর ১৬ বছর ধরে সংগ্রহ করা তথ্য–উপাত্ত পর্যালোচনা বলছে, অবিলম্বে বায়ুদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। এ সংকট নিরসনে বিশ্বজুড়ে বায়ুর মান উন্নত করতে এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস -একিউজিএস জোরদারেরও বিকল্প নেই।

বায়ুর মানের নতুন গাইডলাইন বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে লাখো মানুষকে সুরক্ষা দেবে। একই সঙ্গে এটি বিভিন্ন দেশকে বায়ুদূষণের বিরুদ্ধে লড়তে মানবিষয়ক আইনি সীমা নির্ধারণে সহায়ক হবে।

তবে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, গাইডলাইনগুলো কোনো নির্দিষ্ট দেশ কিংবা অঞ্চলভেদে নয়, পুরোবিশ্বের জন্য প্রযোজ্য। সতর্ক করেন, বিশ্বজুড়ে বায়ুর মানের সব সূচক এখন নিম্নমুখী। জনস্বাস্থ্যে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এমনকি অস্বাস্থ্যকর খাবার ও ধূমপানের চেয়েও বায়ুদূষণ বেশি স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি করেছে।

এসব তথ্য ও নির্দেশিকা চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-২৬ সামিটেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে সংস্থাটি।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

বছরে বায়ুদূষণেই অকালমৃত্যু হচ্ছে ৭০ লাখ মানুষের

আসমা তুলি, ডেস্ক রিপোর্ট

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই ৭০ লাখ মানুষের অকালমৃত্যু হচ্ছে। ১৬ বছর পর বুধবার এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস –একিউজিএস প্রকাশ করে এই তথ্য জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেইসঙ্গে সব দেশের প্রতি একিউজিএসের নির্দেশিকা মানার আহ্বান জানিয়েছেন সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রস আধানম গেব্রিয়েসাস। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-সবশেষ একিউজিএস প্রকাশ করে ২০০৫ সালে। এরপর ১৬ বছর ধরে সংগ্রহ করা তথ্য–উপাত্ত পর্যালোচনা বলছে, অবিলম্বে বায়ুদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। এ সংকট নিরসনে বিশ্বজুড়ে বায়ুর মান উন্নত করতে এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস -একিউজিএস জোরদারেরও বিকল্প নেই।

বায়ুর মানের নতুন গাইডলাইন বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে লাখো মানুষকে সুরক্ষা দেবে। একই সঙ্গে এটি বিভিন্ন দেশকে বায়ুদূষণের বিরুদ্ধে লড়তে মানবিষয়ক আইনি সীমা নির্ধারণে সহায়ক হবে।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

তবে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, গাইডলাইনগুলো কোনো নির্দিষ্ট দেশ কিংবা অঞ্চলভেদে নয়, পুরোবিশ্বের জন্য প্রযোজ্য। সতর্ক করেন, বিশ্বজুড়ে বায়ুর মানের সব সূচক এখন নিম্নমুখী। জনস্বাস্থ্যে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এমনকি অস্বাস্থ্যকর খাবার ও ধূমপানের চেয়েও বায়ুদূষণ বেশি স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি করেছে।

এসব তথ্য ও নির্দেশিকা চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-২৬ সামিটেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে সংস্থাটি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ কেজি, দৈর্ঘ ৪০ ফুট

অনলাইন ডেস্ক

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ কেজি, দৈর্ঘ ৪০ ফুট

৪০ ফুট দীর্ঘ এবং ৩০ হাজার কেজি ওজনের বিশালাকার তিমি ভেসে এসেছে ভারতের মুম্বাইয়ের সাগরপাড়ে। এব বড় প্রাণী দেখতে সৈকতে জড়ো হয়েছেন স্থানীয়রা।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রকাশিত হয়েছে এ খবর।

বলা হয়েছে, ভারতের মহারাষ্ট্রের ভাসাই এলাকার সমুদ্র সৈকতে ভেসে এসেছে এই বিশাল তিমি। দেখতে ভিড় জমিয়েছিলেন সাধারণ মানুষ।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, এটি সম্ভবত আরব সাগরের। সম্ভবত আগস্টের মাঝামাঝি এটির মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন: 


চাকরিচ্যুত সংবাদিকদের কাজে ফিরিয়ে নিতে আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এল মৃত ডলফিন

জাফরুল্লাহ এরশাদের দোসর: রিজভী

গুলশান লেকে নৌকাডুবি, যাত্রীরা সাঁতরে উঠে গেল পাড়ে


স্থানীয়রা জানায়, তিমির দেহ কিছুক্ষণ সাগর পাড়ে থাকার পড়েই তা পচতে শুরু করে। তৈরি হয় তীব্র দুর্গন্ধ।

ভারতের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা জানান, আকারে বড় তিমিটি কোথাও নিয়ে যাওয়ায় প্রায় অসম্ভব। সে কারণে সৈকতেই পুঁতে দেওয়া হয়। ২৪ ঘণ্টার চেষ্টায় ৫ ফুট গভীর, ৪০ ফুট দীর্ঘ গর্ত খোঁড়া হয়। সেখানেই সমাধি হয় তিমির।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর