কম্পিউটার ও মোবাইল ফোন নষ্ট করছে চোখ, বাঁচার উপায়

অনলাইন ডেস্ক

কম্পিউটার ও মোবাইল ফোন নষ্ট করছে চোখ, বাঁচার উপায়

সারাদিন কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপে কাজ, না হলে মোবাইল ফোনে ব্যস্ততা। এই দুই ক্ষেত্রেই আমাদের প্রত্যেককেই ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের দিকে বেশ অনেকক্ষণ তাকিয়ে থাকতে হয়।

সেই সঙ্গে টিভিতে প্রিয় অনুষ্ঠান দেখি অনেক সময় ধরে। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হয় শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ চোখ।

কম্পিউটার হোক কিংবা মোবাইল অথবা টিভি, অত্যধিক ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের দিকে তাকিয়ে থাকার ফলে আমাদের চোখে নানা সমস্যা হতে থাকে।

এর বেশিরভাগই আমরা এড়িয়ে চলি। যেমন- চোখ থেকে জল পড়া, চোখ লাল হয়ে যাওয়া, মাথা যন্ত্রণা, চোখ শুকিয়ে যাওয়া প্রভৃতি। মারাত্মক কিছু রোগের পূর্ব লক্ষণ এগুলো।

আরও পড়ুন:


চীনের ১৯ যুদ্ধবিমান ঢুকল তাইওয়ানে

গাজীপুরে তুরাগ ও বংশী নদীর পানি বৃদ্ধি

খিলগাঁও ও কেরানীগঞ্জ থেকে ফেনসিডিল-গাঁজা উদ্ধার

কারাভোগ শেষে ভারত ফিরল তিনজন


চোখ ভালো রাখার সহজ উপায়-

চোখের পাতা ফেলুন: 
একটানা অনেকক্ষণ ডিজিট্যাল স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকা চলবে না। মাঝে মাঝে স্ক্রিন থেকে চোখ সরিয়ে এদিকে সেদিকে নিতে হবে। প্রতি ২০ মিনিট পর কিছুক্ষণের জন্য কম্পিউটার, মোবাইল, টিভি স্ক্রিন থেকে চোখ সরিয়ে রাখুন।

চোখের মণি ঘোরান:
প্রথমে ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং তার পর ঘড়ির কাঁটার বিপরীতে চোখের মণি ঘোরান। তবে তাড়াহুড়ো নয়, ধীরে ধীরে করুন। প্রতিদিন অন্তত দুই-তিন মিনিট সময় এমনটা করুন। এতে আরাম পাবেন চোখে।

গরম–ঠান্ডা পানির ভাপ:
একটি বাটিতে গরম পানি, আরেকটি বাটিতে ঠান্ডা পানি নিন। তারপর একটা পরিষ্কার তোয়ালে গরম পানিতে ডুবিয়ে কিছু সময়ের জন্য চোখের ওপর রাখুন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে একইভাবে চোখে ভাপ দিন। এমন কয়েক মিনিট করলে সারাদিনে চোখে যে যে ক্লান্তি ভর করেছে, তা দূর হবে।

ফোকাস শিফটি:
এটি এক ধরনের চোখের ব্যায়াম। এক্ষেত্রে চোখের একেবারে সামনে যে বস্তুটি আছে তার দিকে তাকাতে হবে। ৫ সেকেন্ড পর তার থেকে একটু দূরে রয়েছে এমনকিছুর দিকে একদৃষ্টিতে ৫ সেকেন্ড তাকিয়ে থাকতে হবে। এমনটা করতে থাকলে চোখের পেশির কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি বাড়ে দৃষ্টিশক্তি।

এছাড়াও  চিকিত্সকরা জানাচ্ছেন, চোখ ভালো রাখতে গেলে, সারাদিনে প্রচুর পরিমাণে পানি খাওয়া প্রয়োজন। রোজ অন্তত ৬ থেকে ৮ গ্লাস হলে ভালো। তার ফলে একদিকে যেমন চোখ পরিষ্কার এবং সুস্থ থাকবে, তেমনই ডিহাইড্রেশনেরও চিন্তা থাকবে না।

 প্রত্যেক দিনের ডায়েটে তাজা ফল এবং সবজি রাখতে হবে। ফল এবং সবজি চোখকে বিভিন্ন রোগের প্রকোপ থেকে রক্ষা করে। যে সমস্ত খাবারে অ্যান্টি অক্সিডেন্টস রয়েছে যেমন- বিভিন্ন বেরি খেতে হবে।

চোখ ভালো রাখতে ধূমপান করা বন্ধ করতে হবে।

রোদে বেরোলে ইউভি প্রোটেকশনযুক্ত সানগ্লাস ব্যবহার করুন। যাতে সূর্যের প্রখর তাপ চোখে লাগতে না পারে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

পড়াশোনার সময় ঘুম আসা বন্ধে যা করতে পারেন

অনলাইন ডেস্ক


পড়াশোনার সময় ঘুম আসা বন্ধে যা করতে পারেন

পড়াশোনার সময় আমাদের অনেকেরই ঘুম চলে আসে। তবে কিছু কৌশল জানা থাকলে খুব সহজেই এই সমস্যা থেকে পরিত্রান পেতে পারেন। ঘুম আসা বন্ধ করার কয়েকটি ব্যবহারিক পদ্ধতি আলোচনা করা হলো।

পর্যাপ্ত পানি পান করুন

পড়াশোনার সময় আপনি ঘুমিয়ে পড়ার আরেকটি কারণ হলো আপনি পর্যাপ্ত পানি পান করছেন না। তবে একটি গবেষণার হিসাবে, ডিহাইড্রেশন আক্ষরিকভাবে আপনার মস্তিষ্ককে সঙ্কুচিত করতে পারে! পড়ার সময় পর্যাপ্ত পানি না পান করলে আপনি মনোযোগ হারাতে পারেন। এটি মোকাবেলা করতে, আপনার পড়ার টেবিলে সবসময় ঠাণ্ডা পানির একটি বোতল রাখুন এবং সারা দিন একটু একটু করে চুমুক দিন। আপনার প্রতিদিন ২ লিটার পানি পান করা উচিৎ। আপনি একটি ২ লিটারের বোতলে পানি ভরে রাখতে পারেন এবং ঘুমানোর আগে সেটি শেষ করে ঘুমাতে পারেন।

টেবিল থেকে উঠুন এবং কিছুক্ষণ ঘোরাফেরা করুন:

পাওয়ার ন্যাপ নেয়া ছাড়াও, পড়াশোনার সময় আপনি যদি ঘুম অনুভব করেন তাহলে কিছুক্ষণের জন্য হাটাহাটি করতে পারেন। বা আপনার প্রিয় গান ছেড়ে নাচতে পারেন। বাইরে থেকে ১০ মিনিটের জন্য ঘুরে আসতে পারেন। এমনকি আপনার ঘরে হেঁটে হেঁটে বইটি নিয়ে পড়াশোনা করতে পারেন।

একটানা অনেকক্ষণ পড়া যাবে না:

অনেকেই একটানা ৫-৬ ঘন্টা পড়ার কথা বলে তবে মনোযোগ না হারিয়ে এটি করা প্রায় অসম্ভব। একটানা সর্বোচ্চ ২ ঘন্টার বেশি পড়া উচিৎ নয়। প্রতি ২ঘন্টা পরপর বা ২৫ মিনিট পড়ার পরে ৫ মিনিটের বিরতি নিতে হবে। এই ৫ মিনিটে আপনি শ্বাস প্রশ্বাসের ব্যাম করতে পরেন। বা প্রতি ২ ঘন্টা পরে আপনি প্রায় ২০ মিনিটের দীর্ঘ বিরতিও নিতে পারেন।

জোরে জোরে পড়ুন এবং বেশিবেশি লিখুন:

জোরে জোরে পড়া আপনাকে মনে মনে পড়ার চেয়ে আরো বেশি ব্যস্ত রাখতে পারে যা আপনাকে পড়াশোনার সময় না ঘুমাতে সাহায্য করবে। এছাড়া একটি রাফ খাতা আপনার পাশে রাখুন এতে আপনি যা পড়ছেন তার গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো লিখে রাখতে পারেন। আপনার নোটগুলি মুখস্থ করার জন্য এটিই সেরা উপায় নয়, এটি আপনার শরীরকে ব্যস্ত রাখবে এবং আপনাকে জাগিয়ে রাখবে।

আপনার পড়ার বিষয়গুলো ঘুরিয়ে ফিরিয়ে পড়ুন:

কখনো কখনো একই বিষয় খুব দীর্ঘ সময় পড়লে আপনার ঘুম আসতে পারে। পড়তে পড়তে ঘুম আসলে অন্য কোনো বিষয় পড়ুন বা  আপনার পছন্দের বিষয়ও পড়তে পারেন। এছাড়া, গভীর রাতে জটিল বিষয়গুলি না পড়াই ভালো।

পড়ার সময় আরাম করা যাবে না:

পড়াশোনার সময় ঘুমিয়ে যাওয়ার একটা বড় কারণ খুব স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করা। এক্ষেত্রে আপনার বিছানায় পড়াশোনা না করা উচিত। আপনার পড়ার যায়গা এবং ঘুমানোর যায়গা আলাদা রাখুন। এর ফলে আপনার মস্তিষ্ক দুটির মধ্যে পার্থক্য করতে পারবে।

ঘন ঘন মুখ ধোয়া:

জেগে থাকার সর্বাধিক ব্যবহারিক একটি উপায় হলো যখনই ঘুম পাচ্ছে তখনই মুখ ধুয়ে নেয়া। এটি অন্যতম পরীক্ষিত পদ্ধতি এবং এটি সম্ভবত অভিভাবকরা সবচেয়ে বেশি পরামর্শ দিয়ে থাকেন। যখনই আপনার চোখ ভারী লাগবে ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া আপনি  দাঁত ব্রাশও করতে পারেন। 

নিজের সঙ্গে কথা বলুন:

নিজের সঙ্গে কথা বলা পাগলামির মত শোনাতে পারে তবে এটি সত্যিই কার্যকর। নিজেকে জাগ্রত রাখতে পড়াশোনার সময় নিজের সঙ্গে কথা বলুন। নিচের বাক্যগুলো আপনার আত্মবিশ্বাসকে বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং আপনাকে আরো বেশি কেন্দ্রীভূত করতে পারে –

“আমি আগামীকাল পরীক্ষায় টেক্কা দিতে যাচ্ছি!”, “আমি খুব ভালো প্রস্তুত, আমি নিশ্চিতভাবে ৯০-আপ পাব!”

আপনার চোখকে বিশ্রাম দিন:

আমরা এখন কেবল বই এবং নোটবুক থেকে পড়াশোনা করি না। এটি ডিজিটাল যুগ এবং অনেক শিক্ষার্থী অনলাইনে বক্তৃতার দিকে নজর রাখছে বা নোট পড়তে কম্পিউটারের স্ক্রিনে ঘন্টার পর ঘন্টা কাটাচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা প্রতি ২০ মিনিটে কম্পিউটারের পর্দা থেকে দূরে সরে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

চুইংগাম খেতে পারেন:

চুইংগাম আপনার দাঁতগুলির জন্য খুব খারাপ তবে আপনার পড়ার সময় সঙ্গে একটি প্যাকেট রাখতে পারেন। এবং  ঘুম আসলে এটি খেতে পারেন। আপনার মুখ যদি অবিচ্ছিন্নভাবে কাজ করে তবে পড়ায় মনোযোগ হারানোর ঝুঁকি কম রয়েছে।

আরও পড়ুন:স্বামীকে কুপিয়ে সেই দা নিয়ে ঘরের দরজায় বসেছিলেন স্ত্রী

ক্যাফিনেটেড পানীয় পান করতে পারেন:

কফি বা অন্যান্য পানীয় পান করতে পারেন। এটি আপনার শক্তিকে বাড়িয়ে তুলতে পারে তবে মাথায় রাখা উচিত যে এ এনার্জি অল্পের জন্য স্থায়ী হতে পারে। তাছাড়া খুব বেশি ক্যাফিন আপনার পক্ষে খারাপ। আপনার একদিনে ৫০০-৬০০ মিলিগ্রামের বেশি ক্যাফিন পান করা উচিত নয়।

অন্যদের সঙ্গে অধ্যয়ণ:

যদি আপনি একা অধ্যয়ন না করেন তবে সম্ভাবনা রয়েছে যে আপনার ঘুম কম পাবে। একদল বন্ধুবান্ধব নিয়ে পড়াশোনা বিভ্রান্তিকর হতে পারে তবে পরীক্ষার জন্য এটি আরো ভালভাবে আপনাকে সহায়তা করতে পারে। আপনার বন্ধুরা আপনাকে প্রস্তুতি নিয়ে কুইজ করতে পারে বা এমন ধারণাটি বুঝতে সহায়তা করতে পারে যা আপনার কাছে এখনো পরিষ্কার নয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আজকের রাশিফল: কেমন কাটবে সারাদিন জেনে নিন

অনলাইন ডেস্ক

আজকের রাশিফল: কেমন কাটবে সারাদিন জেনে নিন

আজ রবিবার, ২৪ অক্টোবর। ভাগ্যরেখা অনুযায়ী আপনার আজকের দিনটি কেমন কাটবে, জেনে নিন।  

মেষ: ব্যাবসায়িক ও আর্থিক ক্ষেত্রে শুভ যোগ। আর্থিক সুবিধা পেতে পারেন। কোনো লাভজনক কাজ হাতে আসবে। অমীমাংসিত সমস্যা সমাধানের পথ পাবেন। সুযোগ হাতছাড়া করবেন না।

বৃষ: কাজে উত্সাহ বাড়বে। অর্থপ্রাপ্তির সম্ভাবনা। বকেয়া টাকা আদায় হতে পারে। পেশাগত দিক ভালো যাবে। ব্যবসায়ীরা ভালো আয় করতে পারবেন। অসমাপ্ত কাজ সেরে ফেলা উচিত।

মিথুন: আপনার উদ্দীপনা ও দৃঢ়তায় অনেক কাজ সমাধান হবে। কোনো সুসংবাদ পেতে পারেন। কাজকর্মে উন্নতির যোগ প্রবল। আপনার কাজে অন্যদের উত্সাহিত করতে পারবেন। দৃঢ় পদক্ষেপ নিন।

কর্কট: আর্থিক চাপ থাকলেও প্রয়োজনীয় অর্থ হাতে আসবে। পাওনা আদায়ে বিলম্ব। ব্যয় চাপ থাকবে। প্রত্যাশিত কাজে বাধা আসবে। সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য নিয়ে এগোতে পারেন। শরীরের যত্ন নিন।

সিংহ: কোনো আশা পূরণ হতে পারে। আয়ের পরিধি বাড়বে। আর্থিক সাহায্য পাওয়ার আশ্বাস। কাজে বন্ধুর সহযোগিতা পাবেন। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কাউকে প্রতিশ্রুতি দেবেন না। ভালো থাকবেন।

কন্যা: কোনো পরিকল্পনার অগ্রগতি হবে। ব্যাবসায়িক কাজে আশানুরূপ অগ্রগতি। ইতিবাচক পরিবর্তনে আশাবাদী হবেন। আগের কোনো যোগাযোগে বর্তমানে সুফল পাবেন। কল্যাণকর কাজে যুক্ত থাকুন।

তুলা: বিদেশ থেকে কোনো সুখবর পেতে পারেন। নতুন কোনো পরিকল্পনা মাথায় আসবে। শরীর ভালো থাকলেও যত্নের প্রয়োজন। ব্যবসায় জটিলতা কাটবে। সঠিক প্রচেষ্টায় সুফল পাবেন।

বৃশ্চিক: পুরনো কোনো সমস্যা সমাধানে অগ্রগতি। অতীতের কোনো ঘটনা মনের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে। উপস্থিত বুদ্ধির কারণে সংকট মোকাবেলা করতে পারবেন। বিতর্ক এড়িয়ে চলুন।

ধনু: অবিবাহিতদের বিয়ের আলোচনায় অগ্রগতি। মানসিক চাপ কিছু কমবে। ভবিষ্যত্ পরিকল্পনায় অন্যের সহযোগিতা পাবেন। ভালো কাজে স্বীকৃতি। আপনার চারপাশের লোকদের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়ান।

আরও পড়ুন


অতিরিক্ত আপেল খেলে হতে পারে যেসব বিপদ!

যে কারণে মহিব উল্লাহসহ ৭ খুন সংঘটিত হয়!

ঘুরতে আসা তরুণীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ চেষ্টা, মূল হোতা গ্রেপ্তার

পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনায় ইকবালের সঙ্গে যে ৩ জনের যোগসূত্র


মকর: কর্মস্থলে কিছু পরিবর্তন ঘটতে পারে। অর্থপ্রাপ্তিতে বিলম্ব হবে। ব্যবসায় বাড়তি চাপ আসবে। আইনসংক্রান্ত ঝামেলা থেকে দূরে থাকবেন। সময় ও সুযোগের সুষ্ঠু ব্যবহার করুন। ভালো থাকুন।

কুম্ভ: কাজের স্বীকৃতি পাবেন। কর্মক্ষেত্রে আশার সঞ্চার হবে। ব্যবসায় বাড়তি আয়ের সুযোগ আসবে। বন্ধুর সহযোগিতায় কাজের অগ্রগতি হবে। কোনো অযাচিত সুযোগে লাভবান হবেন।

মীন: কোনো স্থাবর সম্পত্তির আলোচনায় অগ্রগতি হবে। সন্তানের জন্য ভাবনা কমবে। পারিবারিক বিষয়ে আপনার আধিপত্য বজায় থাকবে। রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। ধর্মীয় কাজে আগ্রহ বাড়বে।

news24bd.tv রিমু    

পরবর্তী খবর

শীতে যেসব বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি

অনলাইন ডেস্ক

শীতে যেসব বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি

শীত আসার আগেই শীত মোকাবিলার প্রস্তুতি নিতে হয়। কারণ শীতের দিনগুলো বছরের অন্যান্য সময়ের মতো নয়। এক নজরে দেখে নিন শীতের আগে কোন প্রস্তুতিগুলো নিয়ে রাখবেন-

প্রসাধনী সামগ্রী কিনে রাখুন:

শীত আসার আগেই তার প্রভাব পড়তে শুরু করে আমাদের ত্বকে। চামড়ার উপরিভাগ ফেটে যায়, ফাটে ঠোঁটও। এসময় ত্বকে রুক্ষভাব দেখা দেয়। তাই ত্বক ভালো রাখতে শীতের আগে বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী কিনে রাখা দরকার। ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম, স্নো, পেট্রোলিয়াম জেলি, অলিভ অয়েল, বডি লোশন, লিপজেল, গ্লিসারিন, গোলাপজল ইত্যাদি কিনে হাতের কাছে রাখুন।

অসুখ থাকুক দূরে:

শীত এলে তার হাত ধরে আসে নানা অসুখ। এসময় ঠান্ডাজনিত জ্বর, নাক দিয়ে পানি পড়া, সর্দি-কাশি দেখা দিতে পারে। এসব অসুখ থেকে দূরে থাকার জন্য নিতে হবে প্রস্তুতি। এসম তরল ও গরম জাতীয় খাবার বেশি খাবেন। প্রতিদিন চা, হালকা গরম পানি, আদা, লেবু, মধু ইত্যাদি রাখবেন খাবারের তালিকায়। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে হালকা গরম পানির সঙ্গে এক চা চামচ মধু ও এককোয়া রসুন মিশিয়ে খেলেও উপকার পাবেন। এসময় ঠান্ডা পানিতে গোসল করলেও ঠান্ডাজনিত নানা অসুখ দেখা দিতে পারে। তাই গোসলের পানি হালকা গরম থাকাই ভালো।

আরও পড়ুন:আগারগাঁওয়ে উন্নয়ন কাজে ধীর গতি, দুর্ভোগ চরমে

ঘর পরিষ্কার:

শীতের সময় ধুলোবালির পরিমাণ অনেকটা বেড়ে যায়। এসময় শুষ্ক আবহাওয়া এর বড় কারণ। এই ধুলোবালির কারণে বাড়িঘর অপরিষ্কার হতে সময় লাগে না। শুধু তাই নয়, ধুলোবালির মাধ্যমে জীবাণু ছড়িয়ে দেখা দিতে পারে অসুখও। তাই এসময় বাড়িঘর পরিষ্কার রাখাও সমান জরুরি। ধুলোবালি পরিষ্কারের জন্য ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ব্যবহার করতে পারেন। জানালা ও দরজায় ভারী পর্দা লাগাতে পারেন তাতে ঘরে ধুলোবালি কম প্রবেশ করবে। বাড়ির মেঝে, আসবাব, কার্পেট সব নিয়মিত পরিষ্কার করুন।

শীতের পোশাক:

শীতের প্রস্তুতির একটি বড় অংশ হলো শীতের পোশাক পরিষ্কার করা। কারণ সারা বছর ব্যবহার না করার কারণে তাতে নানা ধরনের জীবাণু জন্ম নিতে পারে। তাই শীত শেষে গুছিয়ে রাখার সময় ধুয়ে পরিষ্কার করে রাখলেও শীতের শুরুতে আরেকবার ধুয়ে নিন। যেহেতু শীতের শুরু কদিন পরেই তাই এখনই তুলে রাখা শীতের পোশাক ধুয়ে পরিষ্কার করে রাখুন। প্রয়োজন হলে শীতের পোশাক যেমন সোয়েটার, কার্ডিগান, জ্যাকেট, স্যুট, প্যান্ট, মাফলার, মোজা, কানটুপি ইত্যাদি কিনে রাখুন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

অনলাইন ডেস্ক

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

আজ শনিবার, ২৩ অক্টোবর। বৈদিক জ্যোতিষে ১২টি রাশি- মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন-এর ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। একই রকমভাবে ২৩টি নক্ষত্রেরও ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়ে থাকে। ভাগ্যরেখা অনুযায়ী আপনার আজকের দিনটি কেমন কাটবে, জেনে নিন।  

মেষ: আপনার উদ্যোগে বৈষয়িক লাভবান হওয়ার সুযোগ পাবেন। ব্যবসায় উন্নতির যোগ আছে। পেশাগত যোগাযোগ ফলপ্রসূ হতে পারে। নতুন কোনো বিষয় আলোচনায় আসবে। বন্ধুসঙ্গ আনন্দ দেবে।

বৃষ: আপনার ব্যক্তিত্ব দিয়ে অন্যকে প্রভাবিত করতে পারবেন। আর্থিক দিক ভালো। সন্তানের জন্য ভাবনা কমবে। কাজকর্মে উত্সাহ বৃদ্ধি। স্বার্থের পরিপন্থী কারো অনুরোধ রক্ষা করবেন না।

মিথুন: কাজে উন্নতির যোগ আছে। পরিশ্রম বাড়লেও মানসিক শান্তি থাকবে। আর্থিক সাহায্য মেলার সম্ভাবনা। আবেগের কারণে কোনো ভুল হতে পারে। সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে হবে। মন ভালো রাখুন।

কর্কট: কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের অগ্রগতি। সঠিক পরিশ্রমের ভালো ফল। ব্যবসায়ীদের নতুন যোগাযোগ কাজে লাগবে। প্রিয়জনের স্বাস্থ্য নিয়ে দুশ্চিন্তা হবে। সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য নিয়ে এগোতে পারেন।

সিংহ: কোনো প্রচেষ্টায় বিলম্ব হবে। ভবিষ্যত্ ভাবনা বৃদ্ধি পাবে। একঘেয়েমি ও কাজে স্থবিরতা আসতে পারে। ব্যয় বাড়বে। ভুল সংশোধনের সুযোগ পাবেন। ব্যর্থতার কাছে আত্মসমর্পণ করবেন না।

কন্যা: কর্মক্ষেত্রে গতানুগতিক। আর্থিক চাপ থাকলেও কিছু অর্থ হাতে আসবে। ব্যবসায়ীদের টাকা বাজারে আটকে থাকবে। কাজ নিরলসভাবে করুন। ফলাফল ছেড়ে দিন নিয়তির হাতে।

তুলা: জীবনের গতিপথ পরিবর্তনের সুযোগ আসবে। আপনার কাজ সহজে অন্যকে উত্সাহিত করবে। প্রত্যাশা পূরণে বন্ধুর সহযোগিতা পাবেন। মেইল বক্স চেক করুন, ভালো সংবাদ পেতে পারেন।

বৃশ্চিক: সামাজিক কাজে সুনাম বৃদ্ধি। ব্যবসায় জটিলতা কাটিয়ে ওঠার ভালো সময়। অবসাদে ভুগলেও দিনের শেষে উত্ফুল্ল থাকবেন। কোনো সুযোগ অযাচিতভাবে আসতে পারে। শরীর ভালো রাখুন।

ধনু: আয় বাড়লেও ব্যয়ের চাপ থাকবে। প্রত্যাশা পূরণে অন্যের সহযোগিতা পাবেন। ব্যবসায় কিছু পরিবর্তন আসতে পারে। অন্যের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে হবে। সব কিছু নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

আরও পড়ুন


ঘটনা তৃতীয় পক্ষই ঘটিয়েছে, ইকবাল শুধু পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছেন, তৃতীয় পক্ষ কারা?

সব ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী, অভিযোগ মানা হয়নি গঠনতন্ত্র

মাদরাসায় ঢুকে ছাত্র-শিক্ষকসহ ৬ জনকে হত্যা

বিল থেকে কিশোরের মরদেহ উদ্ধার, পাওয়া যায়নি পরিচয়


মকর: কোনো যোগাযোগে উত্সাহিত হবেন। কর্মস্থলে দায়িত্ব বাড়বে। কারো সাহচর্যে আনন্দ পাবেন। কোনো দ্বন্দ্ব-বিরোধে জড়াবেন না। অতীত অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সফলতা পেতে পারেন।

কুম্ভ: কাজের চাপ থাকবে। আয়ের ক্ষেত্রে যোগাযোগ অক্ষুণ্ন থাকবে। অন্যের ওপর নির্ভর করবেন না। অধীন কর্মচারী সমস্যা করতে পারে। সাহসী পদক্ষেপে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করুন।

মীন: উদ্যোম ও পরিশ্রমের ফলে কিছু কাজের অগ্রগতি হবে। ব্যবসায় চাপ থাকবে, কিন্তু লাভবান হবেন। কোনো বন্ধুর সমস্যায় চিন্তিত থাকবেন। সমস্যা সমাধানে নিজস্ব বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগান।

news24bd.tv রিমু    

পরবর্তী খবর

কার্পেট পরিষ্কার পদ্ধতি

অনলাইন ডেস্ক

কার্পেট পরিষ্কার পদ্ধতি

কার্পেট হল মেঝের আচ্ছাদন। ঘর সাজাতে বর্ণিল নকশার কার্পেটের জুড়ি নেই। বর্ষা বা গরমকালে দরকার না হলেও শীতে ঠান্ডা মেঝে ঢেকে রাখতে কার্পেটের তুলনা হয় না।

কার্পেট ঘরের সৌন্দর্য বাড়ালেও এতে ধুলাবালি জমে বেশি। এছাড়া পোকার আক্রমণ, তেলের ছোপ ও যত্নের অভাবে অকালেই কার্পেট হয়ে যেতে পারে মলিন। কার্পেটের যত্ন ও পরিষ্কার পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নিন।

ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করুন। ব্রাশ বা ঝাড়ু দিয়েও পরিষ্কার করতে পারেন।

কার্পেট পরিষ্কার করার সময় প্রথমে কর্নার থেকে শুরু করে মাঝের অংশ পরিষ্কার করুন। কার্পেটের ওপর যদি চা বা কফি পড়ে তাহলে চিন্তার কিছু নেই। প্রথমে দাগের ওপর গরম দুধ ঢেলে দিন। এবার তুলার সাহায্যে ঘষতে থাকুন, দাগ হালকা হয়ে যাবে।

দাগ যখন হালকা হবে তখন তুলা পানিতে ভিজিয়ে আবার ঘষুন দাগ উঠে যাবে।বছরে অন্তত দুবার কার্পেট রোদে দিন।

কার্পেটে যদি তেল মশলাযুক্ত দাগ থাকে তাহলে এক টেবিল চামচ হোয়াইট ভিনেগার, বেকিং সোডা ও দু’কাপ হালকা গরম পানি এক সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এরপর কার্পেটের যে অংশে দাগ রয়েছে সেখানে নরম ব্রাশ দিয়ে তৈরি করা পেস্ট লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ভেজা তোয়ালে দিয়ে হালকাভাবে ঘষে নিন, দাগ সহজে উঠে যাবে।

আরও পড়ুন:


তাইওয়ানকে চীনের হাত থেকে রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর যুক্তরাষ্ট্র

অভিযুক্ত ইকবালের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতা মিশু-রায়হান-অনিকের পরিচয় যেভাবে

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চাকরির সুযোগ, আবেদন অনলাইনে

আরও বিস্তৃতি বাড়াচ্ছে আইপিএল, আসছে নতুন দল


কার্পেট থেকে দুর্গন্ধ ছড়ালে বেকিং সোডা ছড়িয়ে ১০ মিনিট রেখে দিন। এরপর ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে ক্লিন করে নিন, নোংরা ও দুর্গন্ধ দু-ই চলে যাবে।

কার্পেট স্টোর করার সময় সাদা পরিষ্কার সুতির কাপড়ে জড়িয়ে এর ভেতরে ন্যাপথলিন বা শুকনা নিমপাতা দিয়ে স্টোর করুন। এতে অনেক দিন কার্পেট ভালো থাকবে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর