দহগ্রামের তিনবিঘা করিডোরে বিএসএফের কার্যক্রমকে রুখে দিল বিজিবি
দহগ্রামের তিনবিঘা করিডোরে বিএসএফের কার্যক্রমকে রুখে দিল বিজিবি

দহগ্রামের তিনবিঘা করিডোরে বিএসএফের কার্যক্রমকে রুখে দিল বিজিবি

অনলাইন ডেস্ক

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার আলোচিত দহগ্রাম ইউনিয়নের মানুষকে দেশের মূল ভূ-খণ্ডের সাথে যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করা হয় 'তিনবিঘা করিডোর'। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ সেই তিনবিঘা করিডোর সংস্কারের নামে সংকুচিত করতে থাকে। এই করিডোরটি মূলত ব্যবহৃত হয় দেশের মানুষের চলাচলের জন্য।

কৌশলে এই সড়কটির দুই পাশে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ৩ ফুট উঁচু দেয়াল নির্মাণের চেষ্টা চালায়।

এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিয়েছে বিজিবি।

জানা গেছে, গত তিনদিন থেকে তিনবিঘা করিডোর সড়কে ১০ ফুট গর্ত করতে থাকে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) নিয়ন্ত্রাণাধীন সড়কটি ঘিরে দেয়াল নির্মাণের জন্য লোহার ফর্মাও বসায়। বিজিবিকে বিএসএফ জানান সড়কটি সংস্কার করে সৌন্দর্য্য বর্ধন করা হবে। পরে একপর্যায়ে স্থানীয় বাসিন্দা ও বিজিবি বুঝতে পারে সংস্কার ও সৌন্দর্য্য বর্ধনের নামে মূলত সড়কটি সংকুচিত করতে চাচ্ছে বিএসএফ। কাজের ধরণ সন্দেহজনক হওয়ায় স্থানীয় জনসাধারণ, জনপ্রতিনিধি ও বিজিবি সড়ক সংস্কার কাজে বাধা দেয়। বিএসএফ বাধা না মেনে শ্রমিকদের দিয়ে কাজ অব্যাহত রাখার চেষ্টা চালালে বিজিবি তা রুখে দেয়। পরে উভয় বাহিনীর কম্পানি কমান্ডার ঘটনাস্থলে আলোচনা করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে ঘটনা জানায় ও কাজ বন্ধ রাখে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের মূল ভূ-খণ্ড পাটগ্রাম উপজেলার কুচলিবাড়ি ইউনিয়নের পানবাড়ি এলাকা সংযুক্ত হতে দহগ্রাম ইউনিয়নের ভূ-খণ্ড পর্যন্ত ১৭৮ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৮৫ মিটার প্রস্থ্যের ভারতীয় এ তিনবিঘা করিডোর সড়কটি। তিনবিঘা করিডোর ২৪ ঘণ্টা ব্যবহারের জন্য ২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সরকারের সাথে আলোচনা করে খুলে দেন। সে থেকে একটানা সড়কটি ব্যবহার করছে বাংলাদেশের মানুষ।

আরও পড়ুন


বসিলায় জঙ্গি আস্তানা: অস্ত্র, নগদ টাকা ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার

মহড়ায় অন্যের প্রাণ বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন রাশিয়ার মন্ত্রী

জঙ্গি আস্তানায় চলছে র‌্যাবের অভিযান, আটক ১

যে আইনে চলবে তালেবান সরকার


বিজিবি দাবি করেছে, দায়িত্বরত বিজিবিকে ভারতীয় বিএসএফ ভুল তথ্য দিয়ে জানায়, ‘সড়কটি সংস্কার করে সৌন্দর্য্য বর্ধন করা হবে। ’ এর দুই দিনে সড়কের প্রায় অর্ধেকে অংশে গর্ত করা হয়। করিডোর সড়কের পূর্ব- দক্ষিণ দিকে লোহার ফর্মা বসিয়ে ৩ ফুট উচু দেয়াল নির্মাণ করতে থাকে। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ যেভাবে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করতে প্রক্রিয়া করছিল, সেভাবে নির্মাণ সম্পন্ন করা হলে বাংলাদেশি জনসাধারণ ও যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হতো। বিষয়টি বুঝতে পেরে কাজ বন্ধে বুধবার (০৮ সেপ্টেম্বর) সকালে বাধা দেয় বর্ডার গার্ড (বিজিবি)। এরপরও বিএসএফ কাজ করার জন্য নির্মাণ সংশ্লিষ্ট ভারতীয় লোকজনদের নির্দেশ দেয়। এতে দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরা তীব্র প্রতিবাদ জানান। এসময় প্রবল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে ঘটনাস্থলে ভারতীয় ৪৫ রানীনগর বিএসএফ ব্যাটালিয়নের তিনবিঘা ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার বিকাশ রায় ও বাংলাদেশের ৫১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পানবাড়ি কম্পানি কমান্ডার জাহাবুল ইসলাম সংশ্লিষ্ট সদস্যদের নিয়ে আলোচনা করেন। পরে কাজ বন্ধে একমত হয়। বর্তমানে বিজিবির বাধার মুখে কাজ বন্ধ রয়েছে।

দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান বলেন, ‘তাঁরা (ভারতীয় কর্তৃপক্ষ) রাস্তা খুঁড়ছিল। সৌন্দর্য নাকি বৃদ্ধি করবে। মঙ্গলবার রাতে দেখি ফর্মা বসিয়েছে, ওখানে নাকি ৩ ফুট দেয়াল দিবে- এতে তো মানুষের চলাচলে সমস্যা হবে। ইউনিয়নের লোকজন, বিজিবিসহ নির্মাণ কাজ বন্ধে বাধা দেই। ’

৫১ বিজিবি (বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ) ব্যাটালিয়নের পানবাড়ি ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার সুবেদার জাহাবুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতীয় নির্মাণ শ্রমিকদের দিয়ে রাস্তার দুই পাশে সংস্কারের নামে দেয়াল নির্মাণ করছিল। আমরা বাধা দিয়েছি। ’

news24bd.tv এসএম