বাড়ছে নারী মাদকাসক্তের সংখ্যা

মাসুদা লাবনী

দেশে পুরুষের পাশাপাশি বেড়েছে নারী মাদকাসক্তের সংখ্যাও।  বিভিন্ন বয়সী নারীদের অনেকেই ইয়াবা, গাঁজা, আইস ও এলএসডির মতো মরণ নেশার ছোবলে আসক্ত। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বলছে, দেশে নারী মাদকাসক্তের হার বাড়ছে।  আসক্তরা জানান, নানা রকম প্রলোভনে পড়ে তারাও ঝুকছেন নতুন নতুন মাদকে। তবে, বেরুতে চান, এই মরণ নেশার ছোবল থেকে। 

যখন ক্লাস সেভেনে পড়তেন, বন্ধু-বান্ধবীর খপ্পড়ে পড়ে, ইয়াবায় আসক্ত হয়ে পড়েন এই তরুণী। শুধু ইয়াবাই নয়, আসক্ত হন নতুন নেশা আইসেও। ছয়বার থেকেছেন রিহ্যাব সেন্টারে। তবু বেরুতে পারেননি নেশার জাল থেকে ।

এমনই আরেকজন মডেলিং পেশার সাথে যুক্ত নারী নেশার জালে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন, ২০০৯ সালে। স্বামী আসক্ত থাকায়, স্বামীর সাথে তিনিও আসক্ত হয়ে পড়েন ইয়াবাসহ আরো নানা মাদকে। 

এমনই আরেকজন, যিনি না জেনে বিয়ে করেন এক ইয়াবা ব্যবসায়ীকে। স্বামীর সংস্পর্শে এসে নিজেও আসক্ত হয়ে পড়েন। গত এক বছরে তিনবার এসেছেন রিহ্যাবে।


বিয়ে ছাড়াই আবারও মা হচ্ছেন কাইলি জেনার

বলিউড পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজের প্রস্তাবে মিমের না!

দেশমাতা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন


 

মাদকদ্রব্য নিরাময় কেন্দ্রের কনসালটেন্ট মমতাজ খাতুন জানান এখন আগের তুলনায় মালটিপল নেশায়, নারীরা বেশি আসক্ত হচ্ছেন।

তবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কাছে এখনো দেশে মোট মাদকাসক্তের সঠিক পরিসংখ্যান নেই। 

তবে, বিভিন্ন নিরাময় কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন মাদকাসক্ত নারীরা জানান, তারা সুস্থ হয়ে ফিরতে চান, স্বাভাবিক জীবনে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

হত্যা মামলার আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও লাইভে, এলাকায় তোলপাড়!

অনলাইন ডেস্ক

হত্যা মামলার আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও লাইভে, এলাকায় তোলপাড়!

চাঞ্চল্যকর একটি হত্যা মামলার আসামিকে গ্রেফতারের পর ফেসবুকে লাইভে জিজ্ঞাসাবাদের ঘটনায় তোলপাড় চলছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে 'ছাতক টু সুনামগঞ্জ' নামক একটি পেজে লাইভটি প্রচার করা হয়। লাইভ শুরুর পর পরই প্রায় ৫ হাজার মানুষ ভিডিওটি দেখেন। আপলোড দেওয়ার পর মুহূর্তেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়।

খোদ পুলিশের মোবাইলে ধারণ করা গোপনীয় এই ভিডিও কিভাবে কথিত এই পেজে চলে গেল তা নিয়ে সচেতন মহলে চলছে নানান আলোচনা-সমালোচনা। পরবর্তীতে প্রায় এক ঘণ্টা পর ভিডিওটি ডিলিট করে দেওয়া হয়। 

ভিডিওতে গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিসহ ছাতক থানার ওসি নাজিমউদ্দিন, গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমানসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে দেখা যায়।

এ ব্যাপারে সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন জানান, বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, আমি অবগত ছিলাম না, এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।


সিলেটে বাসার ছাদ থেকে আপন দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

ক্ষমতায় থাকছেন ট্রুডো, তবে গঠন করতে হবে সংখ্যালঘু সরকার

মিডিয়া ভুয়া খবর ছড়িয়েছে: বাপ্পী লাহিড়ি


 

ছাতক থানার ওসি নাজিম বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি এগুলো করিনি, পরে অন্য কেউ হয়তো করেছে। ফেসবুক লাইভ প্রচার করা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে বলেন, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

আইনবিদরা বলছেন, ক্লুলেস হত্যাকাণ্ডের আসামিকে লাইভে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ গর্হিত অপরাধ। আসামির অপর সহযোগীদের তথ্য নেওয়া, রহস্য উদঘাটনের বদলে তদন্তকাজে বড় ধরণের ক্ষতির সমূহ আশংকা থাকে। 

উল্লেখ্য, গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে আখলাকুর রহমান ওরফে আখলাদ (৩৫) নামের এক ব্যবসায়ী উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ বাজার থেকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তরা তাকে খুন করে পালিয়ে যায়।

রাতেই গ্রামের মাঠের ক্ষেতের জমি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। আখলাদ গোবিন্দগঞ্জ -সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের মোল্লাআতা গ্রামের জাহির আলীর ছেলে ও গোবিন্দগঞ্জ বাজারের একজন ব্যবসায়ী।

এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে একই ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে আবু সুফিয়ান সোহাগ ও বিশ্বনাথ উপজেলার  দিঘলী-চাকলপাড়া গ্রামের আশরাফুল আলমের ছেলে আলীম উদ্দিনকে নিজ বাড়ি থেকে গত বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে আসামিরা আদালতে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

মাস্ক না পরার প্রবণতা উদ্বেগ বাড়াচ্ছে

মাহমুদুল হাসান

করোনায় সংক্রমণ ও মৃতের পরিসংখ্যান নিম্নগামী হওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে উদাসীনতা বেড়েছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

শুক্রবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দেখা যায় মাস্ক ছাড়া ঘরের বাইরে বেড়িয়েছেন অসংখ্য মানুষ।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, মানুষের এমন গা ছাড়া ভাব দ্রুত আনতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ।

লকডাউনের সময়ে পেরিয়ে দেশের সবকিছুই এখন যেন স্বাভাবিক।

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের চিত্র। বেশিরভাগ মানুষ ভুলে গেছে করোনার কঠিন দিনগুলোর কথা। এমন উদাসীন চলাচলে সৃষ্টি হচ্ছে নতুন শঙ্কার।

বাস ট্রেন কিংবা বিমানবন্দরের উন্মুক্ত স্থানে দেখা মিলছে অসংখ্য মানুষের। হাসপাতালে করোনায় মৃত্যুর মিছিল আর অসুস্থদের আকুতি দেখেছেন যারা তাদের চলাচলে এখন বেপরোয়াভাব।

করোনার ভয়াবহতা কিছুটা কমায় ঢাকার বাইরেও ঢিলেঢালাভাবে চলছে সাধারণ মানুষ। রাস্তাঘাটে- বাজারে অসংখ্য মানুষ ঘুরছেন মুখে মাস্ক ছাড়াই।

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

সংস্কারের অভাবে বেহাল রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট

গাজীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ হাজার কেজি, দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট


করোনা শনাক্তের হার এখন ৫ শতাংশের নিচে। সাধারণ মানুষ সচেতন না হলে আবারও আসতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ- আশঙ্কা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

অন্তত ৮০ ভাগ মানুষের টীকার আওতায় না আসা পর্যন্ত বড় জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

ছাত্রের কিশোরী বোনকে ধর্ষণ, জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ধরা

অনলাইন ডেস্ক

ছাত্রের কিশোরী বোনকে ধর্ষণ, জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ধরা

ছাত্রের বড় বোনকে ধর্ষণের অভিযোগে মসজিদের মুয়াজ্জিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ঘটে এমন ঘটনা। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে তাকে কোর্ট হাজতে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তার মুয়াজ্জিনের নাম তৌহিদুল আলম হৃদয় (১৯)।

তিনি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের মুছাপুর ৮নম্বর ওয়ার্ডের মো. আলমগীরের ছেলে।

থানায় দায়ের মামলা সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ডের আর আর জুট মিলস জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন তৌহিদুল আলম হৃদয় একই কলোনীতে এক শিশুকে আরবি শিক্ষা দিতেন। সেই সূত্রে মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ওই ছাত্রের কিশোরী বোনকে ডেকে তার কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে তাকে ‘বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে ধর্ষণ করেন মুয়াজ্জিন। পরে তাকে একথা কাউকে না বলার জন্য বলে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

এদিকে, বাড়ি ফেরার পর মেয়েটি এ ঘটনা তার মাকে জানায়। এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে সীতাকুণ্ড থানায় মামলা দায়ের করেন।

পরে অভিযান চালিয়ে মুয়াজ্জিন হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান সীতাকুণ্ড থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক।

পরবর্তী খবর

চিৎকার বন্ধ করতে সন্তানের গলায় ছুরি, মাকে ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

চিৎকার বন্ধ করতে সন্তানের গলায় ছুরি, মাকে ধর্ষণ

‌ব্যবসায়ীক কাজে স্বামী চলে যান বাহিরে। শিশুসন্তান নিয়ে ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন গৃহবধূ। গভীর রাতে ঘরের মধ্যে পুরুষ দেখে চিৎকার শুরু করেন তিনি। চিৎকার শুনে সন্তানের গলায় ছুরি ধরে অভিযুক্ত ব্যক্তি। পরে সন্তানকে জিম্মি করে ওই নারীকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করেন নির্যাতিন সতা।

মঙ্গলবার রাতে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের চরাঞ্চলের রুলীপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলার রুলীপাড়া গ্রামের শহিদ জামানের ছেলে কবির সরকার (২৬) ও হাবেস ঘোষের ছেলে শাহাদতের (৩০) নামে মামলা করেন গৃহবধূ।

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

সংস্কারের অভাবে বেহাল রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট

গাজীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ হাজার কেজি, দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট


পরে পুলিশ কবিরকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আদালতে পাঠায়।

গ্রেপ্তার কবির রুলীপাড়া গ্রামের শহীদ জামানের ছেলে।

ঘটনার ব্যাপারে কথা হয় গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনিরের সঙ্গে। তিনি বলেন, ঘটনা শুনেছি। অভিযুক্ত কবির একাধিক বিয়ে করেছে। এর আগেও এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে সে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাহমুদুল হাসান বলেন, থানায় অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই আসামি কবিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

‌‘স্ত্রীর পরকীয়া’ সহ্য করতে না পেরে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন কুমিল্লার এক যুবলীগ নেতা। 

তার নাম এমরান হোসেন মুন্না (২৯)। তিনি সদরের বারপাড়ার মতিউর রহমানের ছেলে। তিনি কুমিল্লা মহানগর যুবলীগের সদস্য বলে জানা গেছে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ৮ বছরের প্রেমের সম্পর্কের পর পরিবারের অমতেই বিয়ে করেন এমরান ও ঊষা। কিন্তু এক বছর না পার হতেই তাদের দাম্পত্য জীবনে নেমে আসে অশান্তি। স্ত্রী ঊষা ঢাকায় পড়াশোনা করেন। সেখানে আরেকটি সম্পর্কে জড়ান তিনি। নানাভাবে চেষ্টা করেও স্ত্রীকে পরকীয়া সম্পর্ক থেকে ফিরাতে না পেরে অভিমানে আত্মহত্যা করেন এমরান হোসেন মুন্না।

গত বুধবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা নগরীর  বারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার  বাদ যোহর গুধির পুকুরপাড় ঈদগাহে এমরান হোসাইন মুন্নার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মারা যাওয়ার আগে ওই যুবলীগ নেতা ফেসবুকে লেখেন, ‘আর পাঁচটা মানুষের মতো আমার জীবন না। মনে রাখিস, তোর বেঈমানি ও পরকীয়ার জন্য আত্মহত্যা করলাম আমি...।’

এদিকে এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে স্ত্রী সৈয়দা সাজিয়া শারমিন উষার (২৮) বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন নিহতের বাবা মো. মতিউর রহমান।

মামলা সূত্রে জানা যায়, শহরতলীর বারপাড়া এলাকার মো. মতিউর রহমানের ছেলে এমরান হোসেন মুন্না। লাকসামের রাজাপুর এলাকার খিলা বাজার সংলগ্ন সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে সৈয়দা সাজিয়া শারমিন ঊষা। একসময় কুমিল্লা কমার্শিয়াল ইন্সটিটিউটের (বর্তমানে সরকারি সিটি কলেজ) শিক্ষার্থী ছিল মুন্না ও ঊষা। দুইজন এক বছরের সিনিয়র-জুনিয়র। কলেজ জীবনে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন দুইজন।

আরও পড়ুন:


সংস্কারের অভাবে বেহাল রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট

গাজীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ হাজার কেজি, দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট


প্রেমের সম্পর্ক থেকে ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের বছর খানেক পর থেকেই তাদের পারিবারিক জীবনে টানাপোড়ন শুরু হয়। ঊষা ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার সুবাদে বেশিরভাগ সময় ঢাকায় থাকতেন। মুন্না প্রথমে কুমিল্লায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করলেও পরে চাকরি ছেড়ে ঠিকাদারী ব্যবসা শুরু করেন। দিনদিন তাদের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরে।

এদিকে, ফোন বন্ধ থাকায় অভিযুক্ত সৈয়দা সাজিয়া শারমিন ঊষার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

কুমিল্লা কোতয়ালি মডেল থানার ওসি আন্ওয়ারুল আজিম বলেন, পরিবার আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর