৩৫ কিলোমিটার সড়ক পেরুতে সময় লাগে ৪ ঘণ্টা(ভিডিও)

৩৫ কিলোমিটার সড়ক পেরুতে সময় লাগে ৪ ঘণ্টা(ভিডিও)

Other

চলতি বছরের ডিসেম্বরেরই মধ্যে রাজধানীর টঙ্গী থেকে গাজীপুর পর্যন্ত সড়কে দুর্ভোগ কমবে বলে জানিয়েছেন বাস র‌্যাপিড ট্র্যানজিট, বিআরটি প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। বাস র‌্যাপিড ট্র্যানজিট  (বিআরটি) প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান-চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পের নিচের পুরো রাস্তা উন্নতমানের হবে। একইসাথে-আশা করছেন আগামী বছরের ডিসেম্বরে শেষ হবে বিআরটি প্রকল্পের কারণের চলমান তীব্র ভোগান্তিও।

রাজধানীর বিমানবন্দর থেকে গাজীপুর-বছরের পর বছর এই পথ যেন যাত্রীদের কাছে অসহনীয় যন্ত্রনার অন্য নাম।

সেই দুর্ভোগ লাঘবে ২০১২ সালে শুরু হয় রাস্তার মাঝখান দিয়ে বাসের জন্য আলাদা লেন তৈরীর বাস র‌্যাপিড ট্র্যানজিট (বিআরটি) প্রকল্প।

এরইমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় মাথা তুলে দাড়িয়েছে এমন পিলার। টঙ্গীতে দশ লেনবিশিষ্ট উড়ালসড়কসহ পুরো পথে চলছে চলমান ছয়টি ফ্লাইওভার নির্মানকাজ। কিন্তু দীর্ঘ ৯ বছরেরও দুর্ভোগ কমা তো দুরের কথা, উল্টো বেড়েছে ২০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়ার যন্ত্রনা। তিন দফা সময় বাড়িয়েও প্রকল্পের অগ্রগতি মাত্র ৬৩ ভাগ। তারপরও-প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন-আগামী এক বছর তিন মাসে শেষ হবে বাকী ৩৭ ভাগ কাজ।


বিয়ে ছাড়াই আবারও মা হচ্ছেন কাইলি জেনার

বলিউড পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজের প্রস্তাবে মিমের না!

দেশমাতা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন


 

বৃহস্পতিবার সকালে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও জানান-চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে এই পথের দুর্ভোগ-বিড়ম্বনা কমে যাবে। বিআরটি প্রকল্পের নিচের রাস্তা উন্নতমানের করার কাজ জুনে শেষ না হলেও-আসছে ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করেন তিনি।

২০১২ সালে শুরু হওয়া ২ হাজার ৪০ কোটির এই প্রকল্প শেষের কথা ছিল ২০১৬ সালে। কিন্তু প্রকল্পের মেয়াদ কয়েকদফা বেড়ে খরচ দাঁড়ায় ৪ হাজার ২৬৫ কোটিতে। তাতেও শেষ হচ্ছে না কাজ। খরচ বাড়ছে আরেক দফা। যদিও- আশা-পুরো প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে-ঢাকা থেকে গাজীপুরের পথে ফিরবে স্বস্তি।  

news24bd.tv/আলী