ধর্ষণের সময় ধারণ করা ভিডিও চিত্রটি উদ্ধার: ওসি

অনলাইন ডেস্ক

ধর্ষণের সময় ধারণ করা ভিডিও চিত্রটি উদ্ধার: ওসি

কুমিল্লায় নববধূকে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অজ্ঞান করে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পরে রাতে স্বামীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।

গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে নাঙ্গলকোটের কাশিপুরে ঘটে এ ঘটনা।

এ ঘটনায় শনিবার সকালে ধর্ষণের মামলা করেছেন ধর্ষিতা।

সূত্র জানায়, লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চরবাকলা গ্রামের আরিফ হোসেন (২০) কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা বাজারের মুক্তা হোটেল নামক আবদুল হকের খাবারের দোকানে বয়ের কাজ করতেন। আরিফ হোসেন দোকানে কাজ করা অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেলার এক মেয়ের (১৬) সাথে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান।

এক সপ্তাহ আগে তারা পালিয়ে বিয়ে করে। গত বুধবার রাতে তারা দোকান মালিক আবদুল হকের ছেলে লিটন (২৩) ও স্থানীয় বাবুল মিয়ার ছেলে সিএনজি অটোরিকশা চালক সালাহউদ্দিনের (২৫) সহায়তায় কাশিপুরের আজগর মিয়ার একটি পরিত্যক্ত ঘর ভাড়া নেয়।

আরও পড়ুন: 


টঙ্গী রেল ক্রসিংয়ের পাশে যুবকের মরদেহ

সিলেট-৩ আসন থেকে নির্বাচিত হাবিবের শপথ গ্রহণ

সিরাজগঞ্জে ট্রাকচাপায় যুবক নিহত

আত্রাই নদীতে গোসলে নেমে স্বামী-স্ত্রী নিখোঁজ


এরপর বৃহস্পতিবার রাতে স্বামী-স্ত্রী দুইজন ঘুমিয়ে পড়লে ঘরে প্রবেশ করে লিটন ও সালাউদ্দিন।

এসময় আরিফের স্ত্রীকে নেশাজাত দ্রব্য খাইয়ে অচেতন করে ধর্ষণ করে লিটন। সালাউদ্দিন ভিডিওচিত্র ধারণ করে। ধর্ষণের একপর্যায়ে আরিফের ঘুম ভেঙে গেলে সালাউদ্দিন ও লিটন পালিয়ে যায়।

নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ স ম আবদুন নূর বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় স্ত্রী বাদী হয়ে দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। ধর্ষণের সময় ধারণকৃত ভিডিও চিত্রটি উদ্ধার করা হয়েছে। ভিডিও চিত্রের বিশ্লেষণ ও সরেজমিন তদন্তের মাধ্যমে আপাতত প্রতীয়মান হচ্ছে, লজ্জা সইতে না পেরে অপমানে আত্মহত্যা করেছে আরিফ।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

ইভ্যালির সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা হাইকোর্টের

অনলাইন ডেস্ক

ইভ্যালির সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা হাইকোর্টের

ইভ্যালির সব ধরনের সম্পদ বিক্রি এবং হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) এক গ্রাহকের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী এ এম মাসুম ও সৈয়দ মাহসিব হোসেন।

আইনজীবী সৈয়দ মাহসিব হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, আবেদনকারী গত মে মাসে ইভ্যালিতে একটি ইলেকট্রনিকস পণ্যের অর্ডার করেন। অর্ডারের সময় তিনি অনলাইনের মাধ্যমে পেমেন্ট করেন। এরপর কোম্পানিটি অনলাইনে তাকে একটি পণ্য কেনার রশিদও দিয়েছেন। কিন্তু এতদিনেও তারা পণ্যটি বুঝিয়ে দেয়নি। আবেদনকারী যোগাযোগ করার পর তাকে আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু পণ্যটি দেয়নি কিংবা টাকাও ফেরত দেয়নি ইভ্যালি। যোগাযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি আবেদনকারী। তাই তিনি উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হন। আবেদনে কোম্পানিটির অবসায়ন চাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন


সংবিধান অনুযায়ী এ সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর পণ্যপরিবহন মালিক-শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার

প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার দেশের ইতিহাসে মাইলফলক: কাদের

চাকরি দেবে এসএমসি এন্টারপ্রাইজ


তার আবেদনের শুনানি নিয়ে আদালত আবেদনটি অ্যাডমিট করেন। এছাড়া আদেশে ইভ্যালির যত সম্পদ আছে, সেটা যেন বিক্রি অথবা হস্তান্তর না করা যায়। আদালত একটি নোটিশ ইস্যু করেন, কেন ইভ্যালিকে অবসায়ন করা হবে না।

আবেদনে বিবাদী করা হয়েছে ইভ্যালি লিমিটেড, রেজিস্ট্রার জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস, বাংলাদেশ ফিনান্সিয়াল ইন্টিলিজেন্স ইউনিট, কনজুমার রাইটস প্রটেকশন ব্যুরো, নগদ, বিকাশ, বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন, ই-ক্যাব অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, বেসিস, বাংলাদেশ ব্যাংক ও বাণিজ্য সচিবকে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

৯ বছর আগের অপহরণ মামলার ভিকটিম উদ্ধার

রাহাত খান, বরিশাল:

৯ বছর আগের অপহরণ মামলার ভিকটিম উদ্ধার

বরিশালের গৌরনদী থানার ৯ বছর আগের একটি অপহরণ মামলার ভিকটিমকে (কথিত অপহৃত) ঢাকার যাত্রাবাড়ি থেকে উদ্ধার করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে মামলার এক আসামি। 

আসামির দাবি অপহরণ মামলা একটি সাঁজানো নাটক। তাদের হেনেস্তা করতেই মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে কথিত অপহৃত ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তার দাবি যারা অপহরণ করেছিল, তারাই তাকে উদ্ধার করে থানায় সোপর্দ করেছে। 

উদ্ধারকৃত রাসেল মৃধাকে আজ বুধবার বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হলে আরেকটি অপহরণ মামলার আসামি হওয়ায় তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন বিচারক। 

আরও পড়ুন


ছাড়পত্র পেলেন তামিম, খেলতে যাবেন নেপাল

কুয়েত ও সুইডেনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক

স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীর ফাঁসির আদেশ


গৌরনদীর কলাবাড়িয়া গ্রামের ১৪ বছর বয়সের কিশোর ছেলে রাসেল মৃধাকে অপহরণ ও গুমের অভিযোগে ২০১২ সালে গৌরনদীর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন তার মা মনোয়ারা বেগম। রাসেল ওই গ্রামের বাসিন্দা জালাল মৃধার ছেলে। 

এর আগে থেকেই কিশোর বয়সে একটি অপহরণ মামলার আসামি ছিল রাসেল। রাসেল অপহরণ মামলায় ১৪ জনকে অভিযুক্ত করে ২০১৩ সালে আদালতে অভিযোগপত্র দেন গৌরনদী থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক ফোরকান হোসেন। এই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে ৫ জন আসামি দির্ঘদিন হাজতবাস করেবাকি ৯জন এখনও পলাতক। 

এ অবস্থায় গত ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকার যাত্রাবাড়ি রায়েরবাগ থেকে অপহৃতকে উদ্ধার করে গৌরনদী থানায় সোপর্দ করে মামলার ১ নম্বর আসামি এস. রহমান। ৯ বছর আগে কথিত অপহৃত কিশোর রাসেল এখন বয়সে যুবক এবং দুই সন্তানের পিতা। 

রাসেল মৃধা এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তার দাবি, যারা অপহরণ করেছে তারাই তাকে উদ্ধার করে থানায় পৌঁছে দিয়েছে।

এদিকে অপহৃতের পরিবার বলেছে তাদের ২০ কাঠা জমি নিয়ে পারিবারিক স্বজনদের সাথে বিরোধ রয়েছে। জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে উভয় পক্ষ পরস্পরের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১২টি মামলা দায়ের করেছে। যার সব শেষটি রাসেল অপহরণ মামলা। রাসেলের স্বজনদের দাবি, অপহরনকারীরাই তার ভাইকে থানায় ফেরত দিয়েছে। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীর ফাঁসির আদেশ

আব্দুর রশিদ শাহ, নীলফামারী:

স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীর ফাঁসির আদেশ

যৌতুক নিয়ে ঝগড়া বিবাদের এক পর্যায়ে স্ত্রী সুমি আখতারকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামী আলমগীর হোসেনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল-২এর বিচারক। সেই সাথে ২০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশও দেয়া হয়। 

মঙ্গলবার দুপুরে ট্রাইবুনালের বিচারক মো. মাহাবুবুর রহমান আসামির উপস্থিতিতে এ আদেশ ঘোষণা করেন। স্বাক্ষ্য প্রমানে প্রমানিত না হওয়ায় অপর ৭ জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

বিগত ২০১৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর রাতে যৌতুক নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বাধে। এর এক পর্যায়ে স্বামী খাটের পায়া দিয়ে স্ত্রীর মাথায় আঘাত করলে তার মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা খতিবর রহমান বাদী হয়ে আলমগীর হোসেনসহ ৮ জনের নামে ডিমলা থানায় মামলা দায়ের করেন। 

আরও পড়ুন


কালীগঞ্জে জুটমিলের গার্ডকে বেঁধে ডাকাতি, ১৫-২০ লাখ টাকার ক্যাবল লুট

হৃদয় নিয়ে নাড়াচাড়া করতে পারলেই হলো!

ভাসানটেকে ফুটপাত ও রাস্তা অবৈধ দখলে, যানজট নিত্যসঙ্গী

ই-ভ্যালির প্রতারণায় আস্থা সংকটে গোটা ই-কমার্স খাত


মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিমলা থানার উপ-পরিদর্শক আতিকুর রহমান স্বামী আলমগীর হোসেনকে রেখে অপর ৭ জনকে অব্যহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পরে বাদী আদালতে নারাজী করলে বিজ্ঞ আদালত অদিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন। পিবিআই দীর্ঘ তদন্ত শেষে ৮ জনের নামে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

নিহত সুমি আখতার  ডিমলা উপজেলার উত্তর সোনাখুলি গ্রামের খতিবর রহমানের মেয়ে। আর ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আলমগীর হোসেন দক্ষিণ সোনাখুলি গ্রামের সিরাজুল ইসলামে ছেলে। 

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর রমেন্দ্র নাখ বর্দ্ধন জানান, যৌতুকের টাকার জন্য একজন স্ত্রীকে নির্যাতন ও আগুনের ছ্যাকা দিয়ে হত্যা জঘন্যতম অপরাধ। মামলার রায়ে অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা হয়েছে। ও আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাড. মো. আল বরকত  হোসেন বলেন,  আমরা ন্যায় পাইনি। প্রয়োজনে বিচারের জন্য হাইকোর্টে আপিল করব।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

জামিনের জন্য ‘শিশু বক্তা’ রফিকুল মাদানীর আবেদন

অনলাইন ডেস্ক

জামিনের জন্য ‘শিশু বক্তা’ রফিকুল মাদানীর আবেদন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার ‘শিশু বক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানী হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেছেন। 

আজ সকালে তার আইনজীবী আশরাফ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের বাসন থানায় দায়ের করা মামলায় ও ময়মনসিংহের একটি মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছি। গত মাসে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলার জামিন আবেদন করা হয়েছে। আরেকটি করা হয়েছে চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে।

আরও পড়ুন:


পাঁচ বছরে বাংলাদেশকে ১২০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি

লোহাগড়ায় বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

বিচারের কাঠগড়ায় অং সান সুচি

‘বিসমিল্লাহ’র ফজিলত


৮ এপ্রিল নেত্রকোনার নিজ বাড়ি থেকে আটকের পর গাছা থানায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল জব্দ করা হয়। এরপর থেকে তিনি কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ভুল চিকিৎসায় পুরুষত্বহীন হতে হলো যুবককে

অনলাইন ডেস্ক

ভুল চিকিৎসায় পুরুষত্বহীন হতে হলো যুবককে

চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় এক যুবকের ভবিষ্যৎ অস্তিত্ব অন্ধকারে হারিয়ে যেতে বসেছে। ওই চিকিৎসকের ভুলে যুবক তার পুরুষত্বের শক্তি হারিয়ে ফেলেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গোপন শারীরিক জটিলতার চিকিৎসা নিতে গিয়ে তিনি ওই হাসপাতালে যান।

সংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা, এই ঘটনার ফলে ভুক্তভোগী যুবক আর বাবা হতে পারবেন না। এমন পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আলমের আদালতে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেন ভুক্তভোগী যুবক। পরে সেই অভিযোগকে আদালত মামলা হিসেবে গ্রহণ করতে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিলে নির্দেশনা মোতাবেক ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই অভিযোগটিকে এফআইআর হিসেবে গ্রহণ করে থানা পুলিশ।

তথ্য অনুযায়ী মামলা হিসেবে গ্রহণ হলেও আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত দুই আসামীর কেউই গ্রেপ্তার হয়নি।

মামলার তথ্য অনুযায়ী- ভুক্তভোগী যুবকের অভিযোগ ডা: মো: মহব্বত উল্লাহ’র বিরুদ্ধে। তিনি নারায়ণগঞ্জের মেডিনোভা মেডিকেল সার্ভিস সেন্টারে চেম্বার করেন। এছাড়াও একই প্রতিষ্ঠানের জেনারেল ম্যানেজার হেমায়েত হোসেন হিমেলকেও সেই মামলায় আসামী করা হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী  অভিযোগ করেন- ভুল চিকিৎসায় তার শরীরে এবং গোপনাঙ্গে সাধারণ ও গুরুতর জখম হয়। বাদীর শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায় এবং ক্ষত সৃষ্টি হয়।

ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশ অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি সংশ্লিষ্ট মামলা রেকর্ড করেন। এদিকে এ ঘটনায় সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। আদালত আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পুলিশকে এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত    

পরবর্তী খবর