রাজধানীতে আবাসিক হোটেল ব্যবসার আড়ালে দেহব্যবসা ও নারী পাচার (ভিডিও)

তাইমুর হাসান শুভ

আবাসিক হোটেল ব্যবসার আড়ালে চাকরীপ্রার্থী অসহায় নারীদের জোর করে আটকে রেখে দেহব্যবসা করতে বাধ্য করছে মানবপাচারকারী সিন্ডিকেট। শুধু তাই নয়, চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে অসহায় নারীদের পার্শবর্তী দেশ ভারতেও পাঁচার করছে এ চক্র। 

এসব ঘটনার সংশ্লিষ্টতায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত অভিযান ও মামলা হলেও, আইনকে যেন তোয়াক্কাই করে না প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। নিউজ টোয়েন্টিফোর বিশেষ অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এমনই এক ভয়ঙ্কর অপরাধের চিত্র। 

অভাবের তাড়নায় কাজ খুঁজতে যাত্রাবাড়ি এসেছিলেন স্বামী পরিত্যক্তা শিউলি। সেখানে পরিচয় হয় পাচারকারী চক্রের এক সদস্যর সঙ্গে। চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে  চক্রের  সদস্য শিউলিকে বিক্রি করে দেন হোটেল প্রভাতীতে। জোর করে আটকে রেখে কিছুদিন পর সুযোগ বুঝে শিউলিকে পাচার করে দেয়া হয় ভারতে।

ভারতে পাচারের শিকার ভুক্তভোগী (দুইটা মেয়ে আছে। স্বামী চলে গেছে। অভাবের কারণে চাকরি খুঁজি। চাকরির লোভ দেখিয়ে ...অমুক অমুক আমাদের ভারতে পাঁচার করে। আমরা ৮জন নারী সাতক্ষীরা দিয়ে রাতের আঁধারে বর্ডার পার হই। সেখান থেকে হায়দ্রাবাদে পাঠায়। খারাপ কাজ না করলে খুব অত্যাচার করতো, পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার ভয় দেখাত। পরে এক লোকের সহযোগীতায় বর্ডার পার হয়ে চলে আসি। এখন ভয়ে আমরা পালিয়ে থাকি। এই এলাকায় আর আসি না।)

যাত্রাবাড়ির সামিউল্লাহ প্লাজার ৪ তলায় অবস্থিত প্রভাতী আবাসিক হোটেল। বাইরে থেকে খুব সাধারণ মানের আবাসিক হোটেল মনে  হলেও এই হোটেলকে ঘিরে মানবপাচারকারীরা তৈরি করেছেন  ভয়ঙ্কর এক ফাঁদ। শুধু ভুক্তভোগীর অভিযোগেই নয়, বিষয়টির সত্যতা যাচাই করতে অনুসন্ধানে মাঠে নামে নিউজ টোয়েন্টিফোর।

ছদ্মবেশী পরিচয়ে দালালের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলে নিউজ টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধানী দল। হোটেলে প্রবেশ করতেই  গোপন ক্যামেরার চোখে ধরা পড়ে অপেক্ষমান বহু খদ্দের ও নারীদের আনাগোনা।
 
খদ্দের বেশে এক নারীকে নিয়ে একটি রুমে প্রবেশ করে প্রতিবেদক। কিছুটা সখ্যতাও জমাতেই বেরিয়ে আসে পাচারকারী সিন্ডিকেটের ভয়ঙ্কর ফাঁদের গল্প!

এক নারী বলেন, আমি কাজের জন্য আসছিলাম। অফিসিয়াল কাজের কথা বলে নিয়ে আসছে। শিশির আছে, সাজ্জাদ আছে। আরও অনেকেই আছে যাদের নাম জানি না। আমাকে দিয়ে নোংরা কাজ করায়। আমাকে এক রুমেই আটকে রাখা হয়েছে। আমাকে বের হতে দেয় না। আমি মুক্তি চাই। আমি বের হতে চাই। এখানে কতদিন? এইতো ১০-১৫ দিন ধরে ।

নিউজ টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধান বলছে, যাত্রাবাড়ির শহীদ ফারুক সড়কে অবস্থিত প্রভাতী ও পপুলার নামের দুইটি  হোটেলের মালিক শিশির চৌধুরী মূলত মানবপাচারকারী চক্রের প্রধান হোতা। চলতি বছরের মে ও জুন  মাসেই মানবপাচার দমন আইনে পাচারকারী সিন্ডিকেটের ৬ জনের বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ি থানায় মোট ৫টি মামলা দায়ের করে র‌্যাব।

মামলায় যুবতীতের জোর পূর্বক আটকে রেখে যৌনবৃত্তির কাজে নিয়োজিত করার অভিযোগ আনা হয়। চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কিভাবে অভাবগ্রস্ত নারীদের টার্গেট করছে এসব চক্র (সিআইডি) তবে এলিট ফোর্স র‌্যাবে দাবি, অভিযান চালিয়ে ইতিমধ্যে বেশ কিছু চক্রকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত আছে। চক্রের কিছু সদস্যদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তবে এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এত এত অভিযান কিংবা মামলার পরেও আইনের ধরাছোয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছে মানব পাচারকারীরা। এই চক্রের কারণে আর কোন নারীর জীবন যেন ধংস্ব না হয়, এমন আশায় দিন গুনছেন ভুক্তভোগীররা।

আরও পড়ুন: 


স্কুলের আলমারিতে মিলল ব্যালট পেপারের মুড়ি

জামায়াতের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারিসহ ৫ নেতা রিমান্ডে

ভাসানচর থেকে পালানোর সময় দুই রোহিঙ্গা আটক

তালেবান নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ


NEWS24.TV / কেআই 

পরবর্তী খবর

কিশোরীর দ্বিতীয় বিয়ে এটি, বর বলছেন ‘বাল্যবিয়ে’

অনলাইন ডেস্ক

কিশোরীর দ্বিতীয় বিয়ে এটি, বর বলছেন ‘বাল্যবিয়ে’

ঠাকুরগাঁওয়ে বাল্যবিয়ে দেওয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান, কাজীসহ ৯জনকে গ্রেপ্তারের আদেশ দিয়েছেন ঠাকুরগাঁও সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমান।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) সকালে জামিন নিতে আদালতে গেলে বালিয়াডাঙ্গী দুওসুও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম, কাজী আব্দুল কাদের ও স্থানীয় সাংবাদিক আবুল কালামসহ ৯জনের জামিন নামঞ্জুর করে তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক। 

আদালত সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি একটি সালিসে বালিয়াডাঙ্গি উপজেলা চাড়োল ইউনিয়নের পলাশবাড়ী গ্রামে এক কিশোরীর সঙ্গে একই গ্রামের মিজানুরের (২৬) বিয়ে হয়।

মিজানুর দাবি করেন, কিশোরীর সঙ্গে জোরপূর্বক তাকে বিয়ে দেওয়া হয়। এই অভিযোগে ঠাকুরগাঁও কোর্টে ৯জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন মিজানুর।

বর মিজানুর বলেন, অন্যায়ভাবে একটি বিচার সালিসে আমাকে নাবালিকা মেয়ের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই এই বিষয়ে আমি সঠিক বিচার দাবি করছি।

এদিকে, পুরো বিষয়টিকে রহস্যজনক বলে এর সঠিক তদন্ত দাবি করেছেন আসামির স্বজনরা।

তাদের দাবি, যে মেয়েটিকে নাবালিকা বলা হচ্ছে, এটি তার দ্বিতীয় বিয়ে।

আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবেদুর রহমান বলেন, মিজানুরের করা মামলাটি মিথ্যা এবং উদ্দেশ্যমূলক। ধর্ষণ মামলা থেকে রক্ষা পেতেই মিজানুর ওই মেয়েকে সালিসে বিয়ে করে।

পরবর্তী খবর

আবারও নিজের বাইকে আগুন দিলেন বাইকার (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

আবারও নিজের বাইকে আগুন দিলেন বাইকার (ভিডিও)

পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে আবারও রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরসাইকেল চালকের নিজের মোটরসাইকেলে আগুন দিয়েছেন।  পুলিশ বলছে, এই মোটরসাইকেল চালকের আগে দুটি মামলা ছিল। মামলাগুলো না ভাঙানোয় আজ সার্জেন্ট আরও এক হাজার টাকা জরিমানা করলে কিছু দূর গিয়ে তিনি তার মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর পলাশী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:


পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ওই ব্যক্তি ‌‘ভবঘুরে’

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা হয় রাত আড়াইটা থেকে ৬টার মধ্যে

নিজের শিশুকন্যাকে ব্লেডের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করল বাবা


লালবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এম মোরশেদ জানান, আজ দুপুরে ট্রাফিক সার্জেন্টের কাছ থেকে মামলা খাওয়ার পর ইলিয়াস মিয়া (৩০) নামের ওই ব্যক্তি নিজের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন।

ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের দায়ে সার্জেন্ট তাকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করতে গেলে হতাশা ও রাগে তিনি এ কাজ করেন, বলেন ওসি। 

তবে ইলিয়াস মিয়ার বিস্তারিত পরিচয় জানাতে পারেননি ওসি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া এ ঘটনার একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দুপুর সোয়া ২টার দিকে পলাশী এলাকায় বাইকার নিজের বাইকে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন।

এর আগে গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বাড্ডায় ট্রাফিক পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেন রাইড শেয়ারিং প্লাটফর্ম ‘পাঠাও’র এক চালক।

ভিডিও

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

মোবাইলে প্রেম, পরে ৩৪ দিন আটকে গণধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

মোবাইলে প্রেম, পরে ৩৪ দিন আটকে গণধর্ষণ

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ৩৪ দিন আটকে রেখে এক কিশোরীকে গণর্ধষণের অভিযোগ উঠেছে। পরে ওই কিশোরীকে ভারত পাচারের উদ্যোগ নেয় পাচারকারী দলের সদস্যরা। সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে আসে সে। পরবর্তীতে পরিবারের সদস্যদের কাছে সমস্ত ঘটনা খুলে বলে ওই কিশোরী।

এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা জুলহাস শেখ বাদী হয়ে আল আমিনকে প্রধান আসামি করে ট্রাক চালক মাসুম, আসকর মল্লিক, নজরুল মল্লিকের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৫-৬ জনের বিরুদ্ধে রোববার (১৭ অক্টোবর) টাঙ্গাইল আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) তদন্তের নির্দেশ দেয়। এ ছাড়া ২০২২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

কিশোরী ও মামলা সূত্রে জানা যায়, ভূঞাপুরের একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে ওই কিশোরী। মোবাইলের মাধ্যমে তার পার্শ্ববর্তী ঘাটাইল উপজেলার গৌরিশ্বর গ্রামের আসকরের ছেলে আল আমিনের (২৫) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

গত ২১ জুলাই কোরবানির ঈদের দিন বিকেলে ওই কিশোরী ও তার মায়ের সঙ্গে নানার বাড়ি ভূঞাপুরের পৌর এলাকার তেঘরী গ্রামে যায়। সেখান থেকে আল আমিনের টেলিফোন পেয়ে নানার বাড়ি থেকে আল আমিনের সঙ্গে ঘাটাইল উপজেলার চেংটা গ্রামে যায়। আল আমিন তাকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই বাড়িতে রেখে একটানা ২৫ দিন ধর্ষণ করে।

পরবর্তীতে ১৫ আগস্ট সে তার আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে আসে। বাসস্ট্যান্ডে আল আমিনের বন্ধু পাচার চক্রের সদস্য ট্রাক ড্রাইভার মাসুদের ট্রাকে তুলে দেয়। ১৬ আগস্ট ভোর ৫টার দিকে একটি ফাঁকা বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় কিশোরীকে।

সেখানে তিন-চারজন মিলে মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে তিন-চারজন লোকের আলাপচারিতায় মেয়েটি বুঝতে পারে যে তাকে ভারতে পাচার করার পরিকল্পনা করছে। পরের দিন সে বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে ২৫ আগস্ট রাত ৮টার দিকে ওখান থেকে পালিয়ে রিকশাযোগে বেনাপোল বাসস্ট্যান্ড আসে। পরে সেখান থেকে ২৬ আগস্ট বাড়িতে চলে আসে।

মেয়ের বাবা জুলহাস জানান, আমার মেয়েটি বাড়িতে আসার পর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে পল্লী চিকিৎসক দ্বারা চিকিৎসা করে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের ঘটনা অবহিত করি। পরে আসামিদের নাম ও ঠিকানা সংগ্রহ করে গত ১০ সেপ্টেম্বর আমার মেয়েকে নিয়ে ভূঞাপুর থানায় একটি অভিযোগ করতে যাই। ভূঞাপুর থানা পুলিশ অভিযোগ শুনে মামলা গ্রহণ না করায় আমি আল আমিনকে প্রধান আসামি করে ট্রাক চালক মাসুম, আসকর মল্লিক, নজরুল মল্লিকের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও পাঁচ-ছয় জনের বিরুদ্ধে টাঙ্গাইল আদালতে মামলা দায়ের করি।

তবে ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আবদুল ওহাব জানান, এ বিষয়ে ভূঞাপুর থানায় কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি।

এদিকে, বাদীপক্ষের আইনজীবী আকবর হোসেন রানা জানান, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ডিবি টাঙ্গাইলকে তদন্তের নির্দেশ দেন। ২০২২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

মামলার বিষয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি উত্তর) ওসি মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, এ ধরনের কোনো মামলা এখনও হাতে আসেনি।

পরবর্তী খবর

সিলেটে কলেজ গেটের সামনে ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

অনলাইন ডেস্ক

সিলেটে কলেজ গেটের সামনে ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা কলেজ গেটের সামনে এক ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। তার নাম আরিফুল ইসলাম রাহাত (১৮)।

 বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল হাসান তালুকদার। 

নিহত রাহাত দক্ষিণ সুরমা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। তিনি দক্ষিণ সুরমা উপজেলার পুরাতন তেতলি এলাকার সুরমান আলীর ছেলে।

এ ঘটনায় দক্ষিণ সুরমা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কর্মী সাদিকে অভিযুক্ত করা হচ্ছে। সাদি দক্ষিণ সুরমা কলেজের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি শিলাম এলাকায়।

আরও পড়ুন:


পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ওই ব্যক্তি ‌‘ভবঘুরে’

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা হয় রাত আড়াইটা থেকে ৬টার মধ্যে

নিজের শিশুকন্যাকে ব্লেডের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করল বাবা


প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহত রাহাতের চাচাতো ভাই রাফি আহমদ বলেন, দুপুরে রাহাত প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছিল। আমিও তখন তার মোটরসাইকেলে ছিলাম। যাওয়ার আগে এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে কলেজের ভেতর যায় সে। কলেজ থেকে বের হয়ে মূল গেটের সামনে আসা মাত্রই সাদি নামে একজন পেছন থেকে অপর মোটরসাইকেলে করে এসে রাহাতকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

দক্ষিণ সুরমা কলেজের অধ্যক্ষ মো. শামসুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে একাডেমিক কাউন্সিল সভা করে একটি তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদেরকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি চার দিনের জন্য পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে পরীক্ষা চলবে।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সিলেটে ছাত্রলীগের কর্মীর ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র নিহত

অনলাইন ডেস্ক

সিলেটে ছাত্রলীগের কর্মীর ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র নিহত

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা কলেজ গেটের সামনে আরিফুল ইসলাম রাহাত (১৮) নামে এক ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের কর্মী সাদির বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত রাহাত দক্ষিণ সুরমা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। তিনি দক্ষিণ সুরমা উপজেলার পুরাতন তেতলি এলাকার সুরমান আলীর ছেলে। সাদি দক্ষিণ সুরমা কলেজের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি শিলাম এলাকায়।

নিহত রাহাতের চাচাতো ভাই রাফি আহমদ বলেন, দুপুরে রাহাত প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছিল। আমিও তখন তার মোটরসাইকেলে ছিলাম। যাওয়ার আগে এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে কলেজের ভেতর যায় সে। কলেজ থেকে বের হয়ে মূল গেটের সামনে আসা মাত্রই ছাত্রলীগ কর্মী সাদি নামে একজন পেছন থেকে রাহাতকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন


বাল্যবিয়ে দেয়ায় বরের করা মামলায় কাজী ও চেয়ারম্যানসহ গ্রেপ্তার ৯

বদরুন্নেসার শিক্ষিকা রুমা সরকারের মুক্তির দাবি আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের

ইকবালকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ভুবন চিল নামেই বেশি পরিচিত, পৃথিবী জুড়েই এদের বসবাস


দক্ষিণ সুরমা কলেজের অধ্যক্ষ মো. শামসুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে একাডেমিক কাউন্সিল সভা করে একটি তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেবে। পাশাপাশি চার দিনের জন্য পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে পরীক্ষা চলবে। 

দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল হাসান তালুকদার বলেন, এ ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর