স্কুল খোলা মানেই কী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা নিশ্চিত হওয়া?
স্কুল খোলা মানেই কী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা নিশ্চিত হওয়া?

আনোয়ার সাদী

স্কুল খোলা মানেই কী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা নিশ্চিত হওয়া?

Other

স্কুল খোলা মানেই কী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা নিশ্চিত হওয়া? ভাবার অবকাশ আছে। এখন প্রথম থেকে দ্বাদশ অবধি ক্লাস খোলা আছে। এরমধ্যে পঞ্চম শ্রেণি এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রতিদিন ক্লাস হবে। নার্সারি ও কেজি ইনপার্সন ক্লাস হচ্ছে না।

 

বড় বড় স্কুলগুলোতে এই দুই ক্লাসের জন্য অনলাইনে পড়ানো হয়। ফলে, তারা মায়ের আদরে বাবার কাছে বসে ক্লাস করছে। কোনো অসুবিধা হচ্ছে না। গ্রামে হয়তো এই সুবিধা অনেকে পাচ্ছে না, তাদের জন্য এই সুবিধা নিশ্চত করা দরকার। এটা একটা আলোচনার বিষয় হতে পারে।  

তাহলে প্রথম থেকে চতুর্থ, ষষ্ঠ থেকে নবম ক্লাস হবে সপ্তাহে একদিন। বাকী ছয় দিন কী পড়ানো বন্ধ থাকবে? অনলাইন ক্লাস হলেতো সপ্তাহে ৬ দিন বা ৫ দিন ক্লাস হতো।  

ঢাকার গুলশান মডেল স্কুল ও কলেজ এর অধ্যক্ষের সঙ্গে কথা হচ্ছিলো। তিনি জানালেন, অনলাইন ক্লাস বিষয়ে কোনো নির্দেশনা তাদের কাছে নেই। তার মানে ইনপার্সন ক্লাস খোলার পর তাদের আর অনলাইন ক্লাস নেই। তাহলে আগে যারা সপ্তাহে ৬ দিন বা ৫ দিন অনলাইন ক্লাস পেতো, তারা এখন একদিন ক্লাস পাবে।  

শিক্ষা সপ্তাহিক হয়ে গেলো। পড়া গেলো, পড়া গেলো রবে যারা (ফেইসবুক) পাড়া মাতাতেন, তারা বিষয়টা মাথায় নিন।  

জানি, শিক্ষকদের কষ্ট হবে, তারপরো মহামারীর এই সময়ে অনলাইন কার‌্যক্রম জোরদার করা ছাড়া খুব একটা বিকল্প নেই। ফলে, অফলাইন ও অনলাইন পড়ানো একই সঙ্গে চালিয়ে যাওয়া দরকার। তবে শিক্ষকরা যেদিন স্কুলে যাবেন, সেদিন তাকে অনলাইন ক্লাস দেওয়া ঠিক হবে না। যেদিন অনলাইন ক্লাস হবে, সেদিন তাকে স্কুলে নেওয়া ঠিক হবে না।  

আরও পড়ুন:


বাংলাদেশে যারা গান শেখে, তাদের কোনো স্বপ্ন আছে কী?

তারকারা সবাইকে আনন্দে রাখেন, কিন্তু তাদের অনেকের জীবন কষ্টে ভরপুর

রাতের রাজা বা কোনো জ্বিনকে আটক করা যাবে না


আমার প্রস্তাব পরিষ্কার, ক্লাস নিতে হবে সপ্তাহে ৫ দিন। একদিন ইনপার্সন হলে বাকী ৪ দিন অনলাইনে। এখন যেহেতু সপ্তাহে একদিন সবাই আসবে, তাদেরকে অনলাইন ক্লাসে নিয়মিত করা সহজ হবে। তাহলে পড়া এগুবে নইলে ক্লাস এগুবে। আর আমরা স্কুলের সামনে হাঁটতে হাঁটতে মনে মনে ভাবতে থাকবো, সন্তানদের দারুণ শিক্ষা দিয়ে দিলাম।

লেখাটি নিউজ টোয়েন্টিফোর টিভির সিনিয়র নিউজ এডিটর, আনোয়ার সাদী-এর ফেসবুক থেকে নেওয়া।  

(সোশ্যাল মিডিয়া বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়। )

news24bd.tv নাজিম