মাকরানের মতো আরও জাহাজ নির্মাণ করবে ইরান

অনলাইন ডেস্ক

মাকরানের মতো আরও জাহাজ নির্মাণ করবে ইরান

ইরানের বৃহত্তম সামরিক জাহাজ মাকরানের মতো আরও জাহাজ তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে বলে আভাস দিয়েছেন ইরানের সেনাবাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল সাইয়্যেদ আব্দুর রহিম মুসাভি।

ডেস্ট্রয়ার ও যুদ্ধজাহাজসহ নানা ধরনের নৌযান নির্মাণে নিজেদের সক্ষমতার কথা তুলে ধরে তিনি আরও বলেন, নৌবাহিনী সব মহাসাগরেই সক্রিয়ভাবে উপস্থিতি বজায় রাখতে চায়।

একইসঙ্গে তারা সাজ-সরঞ্জামের দিক থেকেও শতভাগ স্বনির্ভরতা অর্জনের পক্ষে।

আরও পড়ুন: 


মোংলা বন্দরে চাল ও সার বোঝাই জাহাজের পণ্য খালাস বন্ধ

দুই শিশুকে ধর্ষণের দায়ে ৬০ বছর কারাদণ্ড

ঘাস সংগ্রহ করতে নাগর নদী পার হচ্ছিল মৃত দুই নারী

নীলফামারীতে বিমান কোস্টার সার্ভিস উদ্বোধন


বর্তমানে জাহাজ নির্মাণে গতি এসেছে উল্লেখ করে ইরানের সেনাপ্রধান বলেন, আগে জামারানের মতো একটি ডেস্ট্রয়ার নির্মাণে ১০ বছরের বেশি সময় লাগত এখন সেই সময়সীমা কমে এসেছে। এখন সবচেয়ে কম সময়ের মধ্যে ডেস্ট্রয়ারসহ প্রয়োজনীয় নৌ সরঞ্জাম নির্মাণ করতে পারে ইরান।

ইরানের তৈরি নতুন ডেস্ট্রয়ারগুলো অনেক উন্নত এবং এগুলোর সক্ষমতাও অনেক বেশি।

`আগামীতে আরও বড় ধরনের নৌ অভিযান পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে। এ কারণে মাকরানের মতো আরও জাহাজ নির্মাণ করা হবে' বলেন জেনারেল মুসাভি।

মাকরান হচ্ছে ইরানের সবচেয়ে বড় জাহাজ। সম্প্রতি এই জাহাজের নেতৃত্বে আটলান্টিক মহাসাগরে অভিযান পরিচালনা করেছে ইরানের ৭৫ তম নৌবহর।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

আসছে ইউনিসেক্স কনডম, ব্যবহার করতে পারবে নারী-পুরুষ উভয়ই

অনলাইন ডেস্ক

আসছে ইউনিসেক্স কনডম, ব্যবহার করতে পারবে নারী-পুরুষ উভয়ই

বিশ্বের প্রথম নারী ও পুরুষের ‍উভয়ের ব্যবহারযোগ্য (ইউনিসেক্স কনডম) তৈরি করেছে মালয়েশিয়া। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে আজ বৃহস্পতিবার এ খবর উঠে আসে। 

এতে বলা হয়েছে, টুইন ক্যাটালিস্ট মেডিকেল ফার্মের একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ মেডিকেল ড্রেসিং এর কাজে ব্যবহৃত উপাদান দিয়ে ইউনিসেক্স কনডম তৈরি কনডম তৈরি করেছেন।  

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, 'ওয়ান্ডালিফ' নামের এই ইউনিসেক্স কনডম মানুষকে তাদের জন্ম নিয়ন্ত্রণ ও যৌন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করছেন জন ট্যাং ইং চিন নামের ওই উদ্ভাবক। 

তিনি জানান, এটি সাধারণ কনডমের মতই, সাথে শুধু একটা আঠালো আবরণ আছে। এতে যে আঠালো আবরণটা আছে যা ভ্যাজাইনা বা পেনিসের সাথে লেগে থাকে এবং অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য ওই অংশের পুরোপুরি ঢেকে রাকে। আঠালো অংশটি শুধুমাত্র একপাশে ব্যবহার করা হয় যার মাধ্যমে ছেলে বা পুরুষ উভয়ই এইটা ব্যবহার করতে পারবে। এই ইউনিসেক্স কনডম এতটাই স্বচ্ছ যে ব্যবহারের পর কিছু বোঝাই যাবে না বলেও তিনি জানান। 

আরও পড়ুন:


স্ত্রীর ইচ্ছা পূরণে মন্দিরে ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণ দান


আগামী ডিসেম্বর থেকে ওই ফর্মের নিজস্ব ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে এই ইউনিসেক্স কনডম। প্রতিটি প্যাকেটে দুইটি করে কনডম থাকবে এবং মালয়েশিয়ান মুদ্রায় এর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে আরএম-১৪.৯৯ রিঙ্গিত।

এ ব্যাপারে  ড. ট্যাং বলেন, 'আমি যথেষ্ট আশাবাদী যে এটি অনিচ্ছাকৃত গর্ভধারণ এবং যৌন রোগ প্রতিরোধে করতে একটি অন্যতম সংযোজন হবে এই কনডম।' 

news24bd.tv রিমু    

 

পরবর্তী খবর

সুপারসনিক পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালালো ভারত

অনলাইন ডেস্ক

সুপারসনিক পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালালো ভারত

পরমাণু বোমা বহনে সক্ষম আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র অগ্নি-৫ এর সফল পরীক্ষা চালিয়েছে ভারত। বুধবার স্থানীয় সময় রাত ৭টা ৫০ মিনিটে ওডিশার এপিজে আব্দুল কালাম দ্বীপ থেকে এই ক্ষেপণাস্ত্রের উৎক্ষেপ করা হয়। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, সাড়ে ১৭ মিটার দৈর্ঘ্যের এবং ২ মিটার পরিধিবিশিষ্ট অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র  ৫ হাজার কিলোমিটার দূরের যেকোনো লক্ষ্যবস্তুকে আঘাত হানতে সক্ষম। এটি অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক মিসাইল সিস্টেমকেও ধোঁকা দিতে সক্ষম।

এছাড়া অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্রটি ১৫ হাজার কেজি পরমাণু অস্ত্র বহনেও সক্ষম। এর গতি শব্দের চেয়ে ২৪ গুণ বেশি। সেকেন্ডে ৮.১৬ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করবে এই ক্ষেপণাস্ত্র।

সম্পূর্ণ ভারতের দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই অগ্নি-১ থেকে অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্রগুলো তৈরি করেছে দেশটির ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন-ডিআরডিও। এখন পর্যন্ত অগ্নি সিরিজের ক্ষেপণাস্ত্রের মধ্যে অগ্নি-৫ সবচেয়ে দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে পারে। এর আগে অগ্নি-৩ ও অগ্নি-৪ আড়াই থেকে সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারতো।

আরও পড়ুন:

ফাটল ধরেছে উত্তর মেরুর সবচেয়ে প্রাচীন বরফখণ্ডে, বিপর্যয়ের আশঙ্কা


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

ফাটল ধরেছে উত্তর মেরুর সবচেয়ে প্রাচীন বরফখণ্ডে, বিপর্যয়ের আশঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক

ফাটল ধরেছে উত্তর মেরুর সবচেয়ে প্রাচীন বরফখণ্ডে, বিপর্যয়ের আশঙ্কা

ফাইল ছবি

আর্কটিক বা উত্তর মেরুর প্রাচীনতম ও সবচেয়ে পুরু বরফখণ্ডে প্রকাণ্ড এক গর্ত চোখে পড়েছে জলবায়ু বিজ্ঞানীদের। ওই অংশটিই সবচেয়ে স্থিতিশীল বলে ধারণা ছিল বিজ্ঞানীদের। ফলে প্রাচীন ওই বরফখণ্ডটিতে ভাঙন দেখায় শঙ্কায় পড়ে গিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। খবর ইউএসএ টুডের।

উত্তর মেরুর সুনির্দিষ্ট ওই বরফখণ্ডটিকে 'লাস্ট আইস অফ আর্থ' বা, পৃথিবীর শেষ অক্ষত বরফ-চাদর বলা হয়ে থাকে। ওই বরফের চাদরে ফাটল ধরে একটি ফাঁকা অংশ তৈরি হয়েছে, যার নীচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এই ধরণের ফাটলকে পলিনিয়া বলা হয়ে থাকে।

গত বছরের মে মাসে লাস্ট আইস এলাকার অন্তর্ভুক্ত কানাডার এলসমেয়ার আইল্যান্ডে বরফের মাঝে ওই পলিনিয়া চিহ্নিত হয় বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। প্রকৃতি বিজ্ঞানীদের অনুমান, উত্তর মেরুর জোরালো অ্যান্টিসাইক্লোনিক হাওয়ার জেরে পলিনিয়াটি তৈরি হয়েছিল। পরে সেটি বুজে গেলেও মেরুর ওই অংশ যে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে রয়েছে তা নিয়ে বিজ্ঞানীদের কোন সন্দেহ নেই।

গত আগস্ট মাসে জিয়োফিজিক্যাল রিসার্চ লেটারসে এ বিষয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে। ওই গবেষণায় ১৯৮৮ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত এমন বেশ কিছু পলিনিয়া তৈরির খবর বিজ্ঞানীদের কাছে রয়েছে বলেও জানানো হয়। উপগ্রহচিত্রে ধরা পড়েছে সেই ছবি।

গবেষণার মূল গবেষক কেন্ট মুর জানান, ওই অংশে সমুদ্রের ওপর বরফের চাদর প্রায় ১৩ ফুট পুরু। অন্তত পাঁচ বছরের জমা বরফ। কিন্তু এই অংশও যে বিপন্ন হয়ে উঠছে, তা স্পষ্ট। ২০২১ সালের গবেষণায় দেখা গেছে, গ্রিনল্যান্ডে প্রতিবছর আরো দ্রুত বরফ গলে যাচ্ছে। 

এভাবে চললে এই শতকের শেষে লাস্ট আইস পুরো নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা বিজ্ঞানীদের।

আরও পড়ুন:

স্ত্রীর ইচ্ছা পূরণে মন্দিরে ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণ দান


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

স্ত্রীর ইচ্ছা পূরণে মন্দিরে ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণ দান

অনলাইন ডেস্ক

স্ত্রীর ইচ্ছা পূরণে মন্দিরে ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণ দান

প্রতীকী ছবি

স্ত্রীর ইচ্ছা পূরণে ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণ দান করেছেন স্বামী। এমন অভিশ্বাস্য ঘটনাটি ঘটে ভারতের ঝাড়খণ্ডে। এ খবর উঠে এসেছে ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে।

মঙ্গলবার ( ২৬ অক্টোবর) প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের ঝাড়খণ্ডে মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়ন জেলা মহাকালেশ্বর মন্দিরে এক ব্যক্তি  ১৭ লাখ রুপির স্বর্ণের গয়না দান করেছেন। নিজের স্ত্রীর শেষ ইচ্ছা পূরণের জন্যই এত দামের গয়না দান করেছেন ওই ব্যক্তি।

ওই ব্যক্তির স্ত্রী নাম রেশমি প্রভা, যিনি বেশকিছু দিন আগে মারা যান। তিনি এই মন্দিরের খুব বড় ভক্ত ছিলেন এবং প্রায়ই এখানে পূজা দিতে আসতেন।

আরও পড়ুন:


নির্বাচনে এক সতীনকে জেতাতে দুই সতীনের প্রচারণা!

চুল কিভাবে কাটতে হবে নিয়ম জারি ইউপি চেয়ারম্যানের!


মন্দির পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত গণেশ কুমার জানান, মৃতা রেশমির মনকামনা করেছিলেন নিজের মৃত্যুর পর তিনি নিজের যাবতীয় গয়না এই মন্দিরে দান করবেন।

গত শনিবার ঝাড়খণ্ডের বোকারোর বাসিন্দা সঞ্জীব কুমার রেশমির স্বর্ণের সব গয়না এই মন্দিরে দান করেন। গয়নার মোট ওজন প্রায় ৩১০ গ্রাম, বাজারমূল্য প্রায় ১৭ লাখ রুপি। 

news24bd.tv রিমু  

 

পরবর্তী খবর

প্রকাশ্যে থুতু ফেলায় ৮৩৭ জনকে জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ্যে থুতু ফেলায় ৮৩৭ জনকে জরিমানা

রাস্তায় প্রকাশে থুতু ফেলায় ৮৩৭ জনকে জরিমানা করেছে কলকাতার পুলিশ প্রশাসন।   বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করা হয়।এ সময় করোনাবিধি লঙ্ঘন করায় অন্তত ৯২৯ জনের নামে মামলা দিয়েছে পুলিশ।  

জানা গেছে, দুর্গাপূজা কাটতেই ভারতের পশ্চিমবঙ্গে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে। পূজার ভিড়ের কারণে সেখানে করোনার প্রভাব বেড়েছে ২৫ শতাংশ । তাই কলকাতা করপোরেশন ও পুলিশ শহরের বিভিন্ন বাজার এবং গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মাস্ক ব্যবহার নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছে।  

বুধবার সকাল থেকে কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় প্রকাশ্যে মাস্কহীন অবস্থায় ঘোরাফেরা পাশাপাশি ৮৩৭ জনকে রাস্তায় থুতু ফেলার অভিযোগে আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। উত্তর থেকে দক্ষিণ কলকাতা সর্বত্রই চলে এই অভিযান। 

আরও পড়ুন:

চাপের মুখে বাংলাদেশ

ইংল্যান্ড ম্যাচের আগে টাইগার শিবিরে বড় দুটি দুঃসংবাদ

শাহরুখের সাথে জুটি থেকে সরে দাঁড়ালেন নায়িকা


 

এ বিষয়ে পৌরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম বলেন, পুলিশকে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকের কাছে অনুরোধ করছি, পথে বের হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন। এ বিষয়ে বাজারে মাইকিং করে প্রচারে জোর দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চলবে পুলিশি অভিযান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর