একবার বিদ্রোহী হলে আজীবন নৌকা থেকে বঞ্চিত
একবার বিদ্রোহী হলে আজীবন নৌকা থেকে বঞ্চিত

একবার বিদ্রোহী হলে আজীবন নৌকা থেকে বঞ্চিত

Other

উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ ও  পৌরসভা নির্বাচনে বিদ্রোহীদের দমনে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। দলের পরিস্কার নির্দেশনা, একবার বিদ্রোহী প্রার্থী হলে জীবনের আর কখনোই নৌকার মনোনয়ন পাবেন না তিনি। থাকবে না দলের কোনো পদে আসার সুযোগও। নিউজ টোয়েন্টিফোরকে দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে এমন কথা জানিয়েছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা।

২০০৯ সাল থেকে টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ । তিন মেয়াদে অনুষ্ঠিত হয়েছে স্থানীয় পর্যায়ে অনেক নির্বাচন। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা। সাময়িক বহিস্কারসহ নানা ঘোষণা আসলেও কমেনি দলের ভিতরে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার প্রবণতা।

চলতি মাসের ২০ তারিখ অনুষ্ঠিত হবে ১৬১টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। এই নির্বাচনেও বিদ্রোহী প্রার্থীদের ছড়াছড়ি। ইউনিয়নের পাশাপাশি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও আছেন বিদ্রোহীদের তালিকায়।

তবে অন্যবারের চেয়ে এবার দলের অবস্থান অত্যন্ত কঠিন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান বলেন, বেশ কিছু প্রার্থী মনোনয়ন চেয়েছে যারা অতীতে বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল। আমরা তাদের আলোচনায় নিয়ে আসিনি।

আর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ জানান, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে দাঁড়াবে তাদের দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হবে। তাদের চূড়ান্ত শাস্তি কেন দেওয়া হবে না সে মর্মে শোকজ করা হবে। শোকজের জবাব পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, একবার যে বিদ্রোহী হিসেবে নাম লেখাবে ভবিষ্যতে তাদের আর দলে গুরুত্বপূর্ণ পদে নাম লেখানোর সুযোগ থাকবে না। আর কোন নির্বাচনে প্রার্থীও হতে পারবে না।  

কমিটি গঠনের ক্ষেত্রেও দেয়া হয়েছে নির্দেশনা। কোন বিতর্কিত এবং অনুপ্রবেশকারী যেন না থাকে কমিটিতে, সেই ব্যপারে জিরো টরারেন্সে নীতিতে আওয়ামী লীগ।

আরও পড়ুন


নীলফামারীতে নসিমন-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৩

দেড় কোটি ছাড়িয়ে ফলোয়ার, ভক্তদের উদ্দেশে যা বললেন সাকিব

নাটোরে অজ্ঞাত এক বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

অবশেষে মৃত্যুর ৫ বছর পর ‘ছাড়পত্র’ পেল দিতির শেষ সিনেমা


এ বিষয়ে মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, কাউন্সিলের মাধ্যমে যে কমিটি গঠন হয় সেখানে বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ পদে কোন বিতর্কিত ব্যক্তি যেন না আসতে পারে সেইভাবেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নেতা কর্মীদের মূলায়নের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, যারা ত্যাগী নেতাকর্মী আছে তাদের নবায়ন করতে হবে। সামজে গ্রহণ যোগ্য মানুষ, যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী তাদের বাড়ি গিয়ে তাদের অনুরোধ করে সদস্য করার নির্দেশনা দিয়েছি।

গেল ৯ সেপ্টেম্বর দলের কাযনির্বাহী কমিটির সভায় দলের শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য কঠোর নির্দশেনা দেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

news24bd.tv এসএম

;