যশোরের ১৬ হাজার গ্রাহকের ৩০০ কোটি টাকা এহসান গ্রুপের প্রতারকদের পকেটে

রিপন হোসেন, যশোর

যশোরের ১৬ হাজার গ্রাহকের ৩০০ কোটি টাকা এহসান গ্রুপের প্রতারকদের পকেটে

যশোরের ১৬ হাজার গ্রাহকের ৩০০ কোটি টাকা এহসান গ্রুপের প্রতারকদের পকেটে। ধর্মীয় লেবাসে প্রতারণার শীর্ষে অবস্থানকারী মাল্টিপারপাস এহসান গ্রুপের প্রতারকদের ফাঁদে পড়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন যশোরাঞ্চলের ১৬ হাজার লগ্নিকারী। ভুক্তভোগীদের মধ্যে শত শত গ্রাহক ও লগ্নিকারী নানা রোগে ও টাকার  শোকে এখন শয্যাশায়ী। কেউবা ক্যান্সারে আক্রান্ত আবার কেউবা প্যারালাইজডে ভুগছেন। সব মিলিয়ে চোখের পানিতে সময় কাটছে অধিকাংশের।

এনিয়ে এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের চেয়ারম্যানসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে ২টি মামলা দায়ের হয়েছে। অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মারুফ আহম্মেদ অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে আদেশ দিয়েছেন।

টিনশেডের পুরনো বাড়ি। স্যাঁতসেঁতে দেয়াল, খসে পড়ছে প্লাস্টার। ঘরের চারদিকে উৎকট গন্ধ। জীর্ণ খাটে দুই পা ঝুলিয়ে বসে আছেন আফসার উদ্দিন। শরীরে ক্যাথেটার। বাঁ পায়ের এক অংশে ব্যান্ডেজ। ব্যান্ডেজের ভেতরে নেই পায়ের এক আঙুল। চলতে পারেন না কারোর সাহায্য ছাড়া। যশোর শহরের মিশনপাড়ার আফসার ছিলেন এয়ারফোর্সের ক্লার্ক। বিয়ে করেননি। থাকেন পৈতৃক বাড়িতে। 

পেনশনের সময় পাওয়া ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা ২০১১ সালের শেষের দিকে লগ্নি করেছিলেন এহসান গ্রুপে। দুই বছর মুনাফা ঠিক ঠিক হাতে আসে। এরপর বন্ধ হয়ে যায় লাভের মুখ দেখা। সেই সময় তিনি অনেক ঘুরেও আসল টাকার নাগাল পাননি। এখন মানুষটি কাটাচ্ছেন অসহায় জীবন।

এহসান এসের কাছে পাওনা টাকার কথা তুলতেই কেঁদে ফেললেন আফসার। বললেন, ‘চিকিৎসা যে করব সেই টাকাও নাই। ভাই-বোনরা যে ঠিকমতো চিকিৎসা করাবে, সে সামর্থ্যও তাদের নাই। ধর্মীয় লেবাস নিয়ে এহসানের কর্মকর্তারা যে এমন প্রতারক, কল্পনাও করতে পারিনি।’

শুধু আফসার উদ্দিন নয়, এমন ১৬ হাজার গ্রাহক জমি বিক্রি, পেনশনের টাকা তুলে দিয়েছেন এহসান গ্রুপের হাতে। প্রতিষ্ঠানটি এতে ব্যবহার করেছেন বিভিন্ন মাদ্রাসার শিক্ষক, মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিন মুফতি ও মাওলানা শ্রেণির মানুষকে।

আরও পড়ুন


জামালপুর থেকে নিখোঁজ ৩ মাদ্রাসাছাত্রীকে ঢাকা থেকে উদ্ধার

আগামী দুই দিন সারাদেশে বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে

এক যুগ পর আবারও প্রাণ ফিরে পেয়েছে দেশের দুই পুঁজিবাজার

এখন পর্যন্ত টিকার আওতায় দেশের সাড়ে তিন কোটি মানুষ


তবে এহসান ইসলামি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি ভাইস চেয়ারম্যান মুফতি ইউনুস আহমেদ বলেছেন, তাদের গ্রাহকের টাকা টাকা দ্রুত সময়ের মধ্যে পরিশোধ করে দিবেন।

এনিয়ে এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের চেয়ারম্যানসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে ২টি মামলা দায়ের হয়েছে। অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মারুফ আহম্মেদ অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে আদেশ দিয়েছেন।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন তদন্ত কর্মকর্তা একে এম ফসিহর রহমান জানান, এহসান গ্রুপের বিষয়ে তদন্ত চলছে। এরই মধ্যে অনেক তথ্য উঠে এসেছে। প্রতারণামূলক নানা কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ারও সত্যতা পাওয়া গেছে।

এহসান গ্রুপের এহসান সোসাইটি, এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, এহসান ইসলামি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি, আল এহসান নামে চারটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। দ্রুত এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি ভুক্তভোগীদের।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ফিল্মি স্টাইলে কাফনের কাপড়, মুরগীর মাংস ও চিরকুট পাঠিয়ে হত্যার হুমকি

অনলাইন ডেস্ক

ফিল্মি স্টাইলে কাফনের কাপড়, মুরগীর মাংস ও চিরকুট পাঠিয়ে হত্যার হুমকি

কাফনের কাপড়, গোলাপজল, আগরবাতি, মুরগীর মাংস ও চিরকুট লিখে একটি কাগজের বক্সে ভরে পাঠিয়ে জীবন নাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে  মো. মুকুল হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে। শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। তিনি উপজেলার নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ভোরে উপজেলার খলিশাকুড়া গ্রামে। ফিল্মি স্টাইলে এমন জীবন নাশের হুমকির ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের জবেদ আলীর ছেলে মো. মুকুল হোসেনকে উদ্দেশ্য করে একটি কাগজের বাক্সে এসব জিনিসপত্র কে বা কারা বাড়িতে রেখে যায়। রোববার সকালে জবেদ আলী ঘুম থেকে উঠে দেখে বাড়ির বারান্দায় একটি বাক্স।

ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

পরে সেটি এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নিয়ে খুলে দেখেন কাফনের নতুন কাপড়, গোলাপজল, আগরবাতি, মুরগীর মাংস ও একটি চিরকুট। পরে পুলিশে খবর দিলে এসআই আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে সেগুলো উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী দেওয়ান, নয়াবিল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুর ইসলাম, মিজানুর রহমান মিজানসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বছির আহম্মেদ বাদল সংবাদমাধ্যমকে জানান, এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত  

পরবর্তী খবর

১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি

অনলাইন ডেস্ক

১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি

১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার ঘটনায় শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে করা অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য আব্দুল লতিফ জানান, অভিযোগটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

এর গত শুক্রবার বিকেল ৪টার দিকে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ঢাকা অফিসে তদন্ত কমিটি বৈঠক করে। বৈঠকের পর আজ সোমবার তদন্ত কমিটির সিদ্ধান্তের দেওয়া প্রতিবেদনে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার প্রমাণ পাওয়ার কথা জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:


মুশফিক: আমি ক্যাচ ছাড়লে সমালোচনা হতো, লিটন তো সেরা

ইকবালকে নিয়ে পুলিশের অভিযান, যা পাওয়া গেছে!

আগামীকাল নুরের দলের আত্মপ্রকাশ

পাকিস্তানি সমর্থকদের ওপর ভারতীয় সমর্থকদের হামলা, আহত ২


উল্লেখ্য, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলায় অবস্থিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিন গত ২৬ সেপ্টেম্বর পরীক্ষার হলে প্রবেশের সময় ওই বিভাগের প্রথম বর্ষের ১৪ ছাত্রের মাথার চুল কাঁচি দিয়ে কেটে দেন বলে অভিযোগ ওঠে। চুল কেটে দেওয়ার অপমান সইতে না পেরে এক ছাত্র ঘুমের ওষুধ সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে ও শিক্ষিকা ফারহানার অপসারণ দাবিতে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা লাগাতার আন্দোলন কর্মসূচি শুরু করে। শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলনের মুখে শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করে ঘটনার তদন্তে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। 

news24bd.tv রিমু  

 

পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে রফিকুল ইসলাম (৩৫) নামে এক দুই সন্তানের  জনকের বিরুদ্ধে। গত শুক্রবার উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের উত্তর বালিয়াডাঙ্গী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রফিকুল ইসলাম ওই গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, ভ্যানচালক বাবা বাড়িতে ছিলেন না। মা মাঠে ছিলেন সাংসারিক কাজে। শুক্রবার দুপুরে বাড়িতে একা পেয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে রফিকুল। স্কুলছাত্রী চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে পালিয়ে যায় রফিকুল।

এ ঘটনার পর স্কুলছাত্রীর বাবা আইনী সহায়তা পেতে ৯৯৯ ফোন করলে থানায় আসতে বলে স্কুলছাত্রীর বাবাকে। এরপর ওইদিন সন্ধ্যায় প্রভাবশালীদের চাপে মীমাংসায় বসেন স্কুলছাত্রীর বাবা।

আরও পড়ুন:


গোসলখানার দরজা বন্ধ করে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ!

হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে দেখতে কোকোর স্ত্রী

প্রেমিকাকে জিহ্বা কাটার ঘটনায় প্রেমিকাসহ গ্রেপ্তার ৪

জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে, দুই বছর পর পিটিয়ে হত্যা করল স্বামী


স্কুলছাত্রীর মা ও বাবা জানান, আমাদের ৩ মেয়ে। রফিকুল ও তার লোকজন খুবই দুধর্ষ। ভয়ে কোথাও বিচার চাইতে ভয় পাচ্ছি। তাছাড়া মামলা চালানোর মত সামর্থ নেই।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রজব আলী জানান, স্কুলছাত্রীকে ও বাবার মুখে ঘটনাটি শোনার পর এলাকায় গিয়েছিলাম। অনেকের সামনেই রফিকুল অপরাধ স্বীকার করেছে। তবে স্থানীয় ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় স্কুলছাত্রীর বাবা ভয়ভীতির মধ্যে রয়েছে।

অভিযোগ উঠা রফিকুল ইসলামের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

বালিয়াডাঙ্গী থানার তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুস সবুর জানান, স্কুলছাত্রী ও তার বাবার সাথে পুলিশ কথা বলেছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

প্রেমিকের জিহ্বা কাটার ঘটনায় প্রেমিকাসহ গ্রেপ্তার ৪

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমিকের জিহ্বা কাটার ঘটনায় প্রেমিকাসহ গ্রেপ্তার ৪

প্রেমিকের জিহ্বা কাটার ঘটনায় প্রেমিকা শারমিন আক্তার, তার বাবা শফিকুল ইসলাম, মা আনোয়ারা বেগম ও ভাই ফারুক হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার  সূত্রে জানা গেছে, ধামরাইয়ের ফরিঙ্গা গ্রামের শারমিন আক্তার দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলেন। বিদেশে থাকার সময়েই একই গ্রামের রহমত আলীর ছেলে নরসুন্দর সাইফুর রহমানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। কয়েকমাস আগে শারমিন দেশে আসেন। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারমিনের সাথে শারীরিক সম্পর্কও গড়ে তোলেন সাইফুর।

আরও পড়ুন:


গোসলখানার দরজা বন্ধ করে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ!

হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে দেখতে কোকোর স্ত্রী

পুকুরে না, সেই গদা পাওয়া গেল বাড়ির ভেতরে!

জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে, দুই বছর পর পিটিয়ে হত্যা করল স্বামী


এরপর শারমিনকে বিয়ে না করে তালবাহানা শুরু করতে থাকে প্রেমিক সাইফুর রহমান। এতে শারমিন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। শনিবার রাতে শারমিন তাদের বাড়িতে ডেকে নেন সাইফুরকে। এরপর সাইফুরের হাত-মুখ বেধে বেদম মারপিট করতে থাকেন শারমিনের স্বজনরা। একপর্যায়ে জিহ্বা কেটে ফেলা হয় সাইফুরের। রাতেই জানাজানি হয়ে যায় ঘটনাটি। এরপরই শারমিনের পরিবারের লোকজন গা ঢাকা দেয়।

এ সময় এলাকাবাসী সাইফুরকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় সাইফুরের বাবা রহমত আলী বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

তবে সাইফুর রহমানের বাবা রহমত আলী জানান, শুধু প্রেমের সম্পর্ক নয়, শারমিনের কাছে পাওনা ৬০ হাজার টাকা চাওয়ার কারণেই তার ছেলে সাইফুর রহমানকে কৌশলে আটকিয়ে মারধর ও জিহ্বা কেটে দেওয়া হয়েছে। তিনি এই ঘটনার ন্যায় বিচার চেয়েছেন। 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই তন্ময় সাহা জানান, খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে কেটে রাখা জিহ্বা উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে গতকাল রোববার রাতে এ ঘটনায় জড়িত প্রেমিকা শারমিনসহ তার পরিবারের চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে, দুই বছর পর পিটিয়ে হত্যা করল স্বামী!

অনলাইন ডেস্ক

জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে, দুই বছর পর পিটিয়ে হত্যা করল স্বামী!

শারমিন আক্তার (১৯) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী ও পরিবারের বিরুদ্ধে। রোববার দুপুরে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার হেসাখাল ইউনিয়নের উরুকচাউল গ্রামে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে বলে জানা গেছে। 

নিহত শারমিন ওই গ্রামের কামাল হোসেনের ছেলে কামরুল ইসলামের স্ত্রী ও একই গ্রামের মৃত আবুল খায়েরের মেয়ে। এ ঘটনায় নিহতের শ্বাশুড়ী কমলা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেয় পুলিশ। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার উরুকচাউল গ্রামের আবুল খায়েরের মেয়ে শারমিন আক্তারকে দু’বছর আগে একই গ্রামের কামাল হোসেনের ছেলে, কামরুল ইসলাম জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে করে।

এরপর চট্টগ্রামে আত্নগোপন করে সে। পরে গ্রামবাসীর চাপের মুখে বিষয়টি স্বীকার করে বাড়িতে নিয়ে আসে শারমিনকে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে কামরুল ইসলাম মাদকাসক্ত হয়ে পড়লে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। 

এর জেরে কয়েক দফা শারমিনকে শারীরিক নির্যাতন করে স্বামী কামরুল ইসলাম ও তার পরিবারের লোকজন। এ নিয়ে দু’পরিবারের মাঝে একাধিক বার সালিশ বৈঠকের মাধ্যমে বিরোধ মীমাংসার চেষ্টা করলেও থামেনি শারমিনের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। এর ধারাবাহিকতায় গত শনিবার রাতে ও রোববার সকালে স্বামী কামরুল ইসলাম শারমিনকে বেধড়ক মারপিট করে ঘরে বন্দি করে রাখে। 

শারমিনের কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে নিহতের শ্বশুর বাড়ির লোকজন শারমিনের রুমে গিয়ে তাকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পায়। পরে শারমিনকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। মৃত্যু নিশ্চিত হলে কামরুল ইসলাম নিহতের লাশ বাড়িতে নিয়ে তড়িঘড়ি দাফনের চেষ্টা করলে শারমিনের পিতা-মাতা নাঙ্গলকোট থানা পুলিশকে খবর দেয়।  

হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি করেন নিহতের মা ছেনোয়ারা বেগম ও পিতা আবুল খায়ের। 

নাঙ্গলকোট থানার ওসি (তদন্ত) রকিবুল ইসলাম বলেন, লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

আরও পড়ুন:


গোসলখানার দরজা বন্ধ করে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ!

হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে দেখতে কোকোর স্ত্রী

পুকুরে না, সেই গদা পাওয়া গেল বাড়ির ভেতরে!

পাকিস্তানি সমর্থকদের ওপর ভারতীয় সমর্থকদের হামলা, আহত ২


news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর