কক্সবাজারের ২ পৌরসভা ও ১৪ ইউপির ভোট গ্রহণ আজ

অনলাইন ডেস্ক

কক্সবাজারের ২ পৌরসভা ও ১৪ ইউপির ভোট গ্রহণ আজ

আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজারের চকরিয়া ও মহেশখালী পৌরসভাসহ জেলার ৪টি উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে। ইতিমধ্যে নির্বাচনের যাবতীয় প্রস্তুতিও সম্পন্ন। অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।     

নির্বাচনে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে চকরিয়া ও মহেশখালী পৌরসভাসহ ২টি ইউনিয়ন যথাক্রমে মাতারবাড়ী এবং টেকনাফ সদরে ইউনিয়নে। চকরিয়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র আলমগীর চৌধুরীর সঙ্গে স্থানীয় এমপি জাফর আলমের আপন ভাতিজা জিয়াউল করিমের মধ্যে তুমুল লড়াই চলছে। অপরদিকে মহেশখালী পৌরসভার বর্তমান মেয়র এবং আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী মকছুদ মিয়ার সঙ্গে চলছে অপর আওয়ামী লীগ নেতা সরওয়ার আলমের লড়াই।

অপরদিকে গভীর সমুদ্র বন্দর আর তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে আলোচিত মাতারবাড়ি ইউনিয়নের তিন প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী মরিয়া হয়ে পড়েছেন বিজয় ছিনিয়ে নিতে। তিন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীই স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা। তাদের মধ্যে দলীয় প্রতীকধারী এস এম আবু হায়দার, বর্তমান চেয়ারম্যান মাষ্টার মোহাম্মদুল্লাহ ও এনামুল হক চৌধুরী রুহুলের মধ্যে তুমুল লড়াই চলছে। এখানে কোটি কোটি টাকা খরচ করছেন প্রার্থীরা। 

টেকনাফ সদর ইউনিয়নেও তিন প্রার্থীর মধ্যে লড়াই চলছে। এর মধ্যে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবু সৈয়দ এবং মোহাম্মদ শাহজাহান আওয়ামী লীগ এবং জিয়াউর রহমান হচ্ছেন বিএনপি পরিবারের সন্তান। টেকনাফের নির্বাচনী আকাশেও উড়ছে টাকা।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ জানিয়েছেন, প্রতি ভোট কেন্দ্রে পৃথক তিনটি টিম কাজ করবে। কোনো ধরনের প্রভাব বিস্তার করতে দেওয়া হবে না।

এদিকে জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, মহেশখালী ও চকরিয়া পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী রয়েছেন ৮ জন। সংরক্ষিত নারী আসনে ২৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৭৬ জন প্রার্থী রয়েছে। মহেশখালী পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ৪৮৪ জন এবং চকরিয়া পৌরসভায় ভোটার ৪৮ হাজার ৭২৪ জন। মহেশখালীতে ১০টি ভোট কেন্দ্রে বুথ ৫৯টি এবং চকরিয়া পৌরসভায় ১৮টি ভোট কেন্দ্রে ১৩৯টি বুথ রয়েছে।

আরও পড়ুন:


পাঁচ বিভাগে বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টির আশঙ্কা

এই হচ্ছে বিএনপি, আর সব দোষ আওয়ামী লীগের?

রাজপথে নামার আহ্বান মোশাররফ-মান্নার

বাগেরহাটে ৩ ঘণ্টা পর প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন নিয়ন্ত্রণে


অপরদিকে কুতুবদিয়া, মহেশখালী, পেকুয়া ও টেকনাফ উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১১ হাজার ২৩৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা এক লাখ ৫৯ হাজার ৯৯৫ জন এবং নারী ভোটার এক লাখ ৫১ হাজার ১২ জন। ৪টি উপজেলায় ১৪০টি ভোট কেন্দ্র এবং ৭৮০টি স্থায়ী ও ১১৩টি অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র রয়েছে। ১৪টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৯২ জন, সংরক্ষিত নারী মেম্বার প্রার্থী ১৯৯ জন ও পুরুষ মেম্বার প্রার্থী রয়েছেন ৭৭৫ জন। 

news24bd.tv রিমু

পরবর্তী খবর

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক

নয়ন বড়ুয়া জয়

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক

চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায়  বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক। মা জয়া নামে বাঘিনীর আদরেই বড় হচ্ছে  এসব শাবক। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বলছে, চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায় এখন এক ডজন বাঘ।দর্শনার্থীরাও বাঘ দেখে খুশি। 

বনের বাঘ এখন খাঁচায়, চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় একের পর এক জন্ম দেয় বাঘের শাবক। সম্প্রতি আরো দুই শাবক জন্ম দিয়েছে মা জয়া। ২০২০ সালের ১৪ নভেম্বর জয়া বাঘিনী জো বাইডেন নামে ছেলে বাঘ শাবকের জন্ম দেয় ।যা তার প্রথম সন্তান ছিল। জো বাইডেনের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ করায় সেটিকে চিড়িয়াখানার তত্ত্বাবধানে লালন পালন করা হয়েছিল।তবে এবার দুই শাবকই মায়ের  আদরেই বড় হচ্ছে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় কোন বাঘ না থাকায় ২০১৬ সালে আফ্রিকা থেকে রাজ-পরি নামে  দুই বাঘ আনা হলেও এখন  নতুন দুই শাবকসহ এই চিড়িয়াখানার বাঘের খাঁচায়  এক ডজন বাঘ।

বাঘের ঝাঁক দেখে খুশি দর্শনার্থীরা। শুধু বাঘ নয় হাতিসহ আরো নতুন নতুন প্রানী যুক্ত করার চেষ্টা করছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। কিছুদিন আগেও বিরল সাদা বাঘ শুভ্রা জন্ম দিয়েছে আরেকটি ফুটফুটে ডোরাকাটা শাবক।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ৬০ মামলা, গ্রেপ্তার ২৬৩

অনলাইন ডেস্ক

সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ৬০ মামলা, গ্রেপ্তার ২৬৩

দেশের বিভিন্ন স্থানে মন্দির ও বাড়িঘরে ভাঙচুর এবং হামলার ঘটনায় ৬০টি মামলা হয়েছে। আসামি করা হয়েছে ৮ হাজার ৯৪৯ জনকে। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন জেলার ২৬৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে ‘কোরআন’ পাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এসব ঘটনা ঘটে।

তথ্যমতে, ঘটনার কেন্দ্রস্থল কুমিল্লায় সহিংসতার ঘটনায় ১ হাজার ৫৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪৪ জনকে। নোয়াখালীতে ৫ হাজার জনকে আসামি করে ৯০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


এছাড়া বাগেরহাটে ৪, পাবনায় ৩, চাঁপাইনবাবঞ্জে ১০, সিলেটে ২০, মৌলভীবাজারে ২, কুড়িগ্রামে ২১, গাজীপুরে ২০, কিশোরগঞ্জে ৪, মাদারীপুরে ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সবশেষ গতকাল রোববার (১৭ অক্টোবর) রাতে রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুদের বাড়িতে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। পীরগঞ্জে হামলায় ২০টি বাড়িঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

শেখ রাসেলের জন্মদিনে নয়াদিল্লিতে বৃক্ষ রোপণ

অনলাইন ডেস্ক

শেখ রাসেলের জন্মদিনে নয়াদিল্লিতে বৃক্ষ রোপণ

ভারতের নয়াদিল্লিস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন আজ দূতালয় চত্বরে উন্নত প্রজাতির ১০০টি বৃক্ষ রোপণ করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে এই আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশের হাই কমিশনার মুহাম্মদ ইমরান বৃক্ষরোপন করে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এ সময় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিনে শত বৃক্ষ রোপনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। 

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


বৃক্ষরোপনে সহযোগিতা করেন দিল্লীর খ্যাতনামা স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন প্লানটোলজি। বৃক্ষ রোপনের সময়ে প্লানটোলজির নির্বাহী প্রধান রাধুকা আনন্দও  একটি বৃক্ষ রোপন করেন।

পরে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিশুদের চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সন্তানরা।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

হাসপাতালে চলছিলো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের বৈঠক, হাতেনাতে ধরা ১৭ জন

অনলাইন ডেস্ক

হাসপাতালে চলছিলো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের বৈঠক, হাতেনাতে ধরা ১৭ জন

শেরপুর শহরের নারায়ণপুর এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে ১৭ জামায়াত নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আজ বিকেলে তাদের আটক করা হয়। 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে কুরআন শরীফ নিয়ে তৈরিকৃত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষে দারুস শিফা প্রাইভেট হাসপাতালে জামায়াত নেতাকর্মীরা রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের জন্য গোপন বৈঠকে মিলিত হন। খবর পেয়ে গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) কর্মকর্তা ও পুলিশ অভিযান চালায়। পরে হাসপাতালটির ৯নং কক্ষ থেকে বৈঠক চলাকালে ১৭ নেতাকর্মীকে হাতেনাতে আটক করা হয়। আটকের সময় তাদের কাছ থেকে ২৩টি মোবাইলসহ কিছু আলামত জব্দ করা হয়।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


তবে আটককৃতদের দাবি, তারা ওই হাসপাতাল পরিচালনার সঙ্গে জড়িত। সেখানে রাষ্ট্র বা সরকারবিরোধী কোনো গোপন বৈঠক ছিল না।

এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বন্দে আলী জানান, এনএসআই’র গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করা হয়েছে। তবে তারা কী উদ্দেশ্যে সেখানে সমবেত হয়েছিলেন জিজ্ঞাসাবাদের পর জানা যাবে। রাষ্ট্রদ্রোহের কোনো প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

শেরপুরে গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মী আটক

শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুরে গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মী আটক

শেরপুরে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র ও গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর তথ্যের ভিত্তিতে শহরের নারায়ণপুর বাগবাড়ীস্থ ‘দারুস শিফা’ নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। 

আটককৃতরা হচ্ছেন, যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া জামায়াতের শীর্ষ নেতা কামারুজ্জামানের কথিত ড্রাইভার সদর উপজেলার গাজীর খামার এলাকার মো. ছোটন (৫০), জামায়াত নেতা আব্দুর রউফ (৪৮) ও গোলাম কিবরিয়া (৩৬), শেরপুর শহরের বাগরাকসা মহল্লার রফিকুল ইসলাম (৪০), সজবরখিলা মহল্লার সামস উদ্দিন (৬০), আনিসুর রহমান (৫০) ও শফিকুল ইসলাম (৫২), কান্দাপাড়া মহল্লার বুলবুল আহম্মেদ (৫৫), দিঘারপাড় মহল্লার আব্দুল মোনাফ খান (৪৮), ঝিনাইগাতী উপজেলার আব্দুল বারীর ছেলে আব্দুর রউফ (৪০), সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের জঙ্গলদী গ্রামের গোলাম মোস্তফা (৫৪)সহ আরও ৬ জন। 

তবে আটককৃতদের দাবি, তারা ওই হাসপাতাল পরিচালনার সাথে জড়িত। সেখানে রাষ্ট্র বা সরকার বিরোধী কোন গোপন বৈঠক ছিল না।

আরও পড়ুন

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

শরীরের ইমিউনিটির উপর বিশ্বাসী অভিনেত্রী করোনায় আক্রান্ত

অনিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

অবরোধ তুলে নিলো ঢাবি শিক্ষার্থীরা


জানা যায়, শহরের দারুস শিফা প্রাইভেট হাসপাতালের একটি কক্ষে শেরপুর অঞ্চলের জামায়াত নেতা-কর্মীরা রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র ও সাম্প্রতিক কুমিল্লার গুজব ইস্যু নিয়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাসহ রাজনৈতিক অস্থিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষ্যে গোপন বৈঠকে মিলিত হয়েছেন- এনএসআই'র এমন তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার বিকাল সাড়ে ৩ টার দিকে গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ওই হাসপাতালে অভিযান চালায় সাদা পোশাকদারী পুলিশ। 

এ সময় বৈঠকে থাকা ১৭ নেতা-কর্মীকে হাতেনাতে আটক করা হয় এবং তাদের হেফাজত থেকে ২৩ টি মোবাইলসহ কিছু আলামত জব্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযানে অংশ নেওয়া শেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বন্দে আলী জানান, এনএসআই'র গোপন সূত্রে সংবাদের ভিত্তিতে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। তারা কি উদ্দেশ্যে সেখানে সমবেত হয়েছিলেন-তা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদসহ তদন্ত চলছে। সে রকম কিছু পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

পরবর্তী খবর