পরিবেশ অধিদপ্তর ও চউকের দ্বন্দ্বে বন্ধ ফৌজদারহাট-বায়েজিদ লিংক রোডের কাজ

পরিবেশ অধিদপ্তর ও চউকের দ্বন্দ্বে বন্ধ ফৌজদারহাট-বায়েজিদ লিংক রোডের কাজ

Other

শেষ পর্যায়ে এসে পরিবেশ অধিদপ্তর ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (চউক) বিবাদে কাজ বন্ধ আছে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট-বায়েজিদ লিংক রোডের কাজ।  

৬ কিলোমিটার পথ নির্মাণে ১৮টি পাহাড় কাটায় আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে পরিবেশ অধিদপ্তর ১০কোটি টাকা জরিমানা করে সিডিএ কে। এখনো চলছে সেটির দেন দরবার।  

পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে বন্ধ আছে সড়কের এক পাশের যানচলাচল।

এ প্রকল্পটির বয়স এখন ২২বছর, ৩৩ কোটি থেকে খরচ বেড়ে দাঁড়িয়েছে এখন ৩২০ কোটি টাকায়। দ্রুত বিবাদ মিটিয়ে কাজ শেষ করার তাগিদ দিয়েছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা।  

ফৌজদারহাট-বায়েজিদ লিংক রোড। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফৌজদারহাট অংশ থেকে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী অংশকে যুক্ত করে এই সড়ক। চট্টগ্রাম শহরে প্রবেশ না করেই এই সড়কে যাওয়া যায় বান্দরবান,খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটিতে।

১৯৯৭ সালে হাতে নেয়া প্রকল্প একনেকে পাশ হয় ১৯৯৯ সালে। তখন এর নির্মাণ ব্যয় ছিল ৩৩ কোটি ৮১ লাখ টাকা। নানা জটিলতায় খরচ এখন ৩২০ কোটি টাকা।

কাজ বাকি থাকলে ও ২০২০ খুলে দেয়া হয় সড়কটি। কিন্তু পাহাড় খাড়াভাবে কাটার অভিযেগে পরিবেশ অধিপ্তরের করা ১০কোটি টাকা জরিমানা নিয়ে এখন চলছে দেন দরবার। বন্ধ আছে কাজ।

পাহাড় ধস রোধে দ্রুত রিটেইনিং ওয়াল করতে চায় সিডিএপরিবেশ অধিদপ্তর বলছে কিভাবে পরিবেশের কমক্ষতি করে বিদ্যমান প্রকল্প শেষ করা যায় সিডিএর কাছে তার সংযোজিত পরিকল্পনা চাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:


বাংলাদেশ-ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে দেওয়ায় ৭ বছরের 

নিউইয়র্কে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মারপিট (ভিডিও)

স্বাস্থ্যের সেই গাড়িচালক মালেকের ৩০ বছরের কারাদণ্ড

যে ২৬টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান গোয়েন্দা নজরদারিতে


সড়কটি নগরীর যানজট নিরসনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে উল্লেখ করে আলোচনার মাধ্যমে দ্রুত জটিলতা নিরসরে আহ্বান এই নগর পরিকল্পনাবিদের।

গত জুনে পাহাড় ধসের কারণে সড়কটি ৩ মাসের জন্য বন্ধ করে ছিলো সিডিএ। কিন্তু নগরে যানজট তীব্র আকার ধারণ করলে ট্রাফিক বিভাগের অনুরোধে ৩দিন পরই খুলে দিতে হয়।

news24bd.tv নাজিম