বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত

অনলাইন ডেস্ক


বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত

কুমিল্লা-৭ আসনের উপ-নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত।

আজ সকালে কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার ডা. প্রাণ গোপালকে বিজয়ী ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন।

এ আসনে একক প্রার্থী হওয়ায় ভোট ছাড়াই তাকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার বলেছেন, ‘১৯ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল। এতে জাতীয় পার্টি ও ন্যাপের প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রাণ গোপাল দত্তই ছিলেন। এ অবস্থায় একক প্রার্থী হিসেবে তার নাম চূড়ান্ত করা হয়। যেহেতু একজন প্রার্থী, তাই আর মার্কা দেওয়ার কোনো বিধান নেই। এ অবস্থায় প্রাণ গোপাল দত্তকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এরপর গেজেট প্রকাশ করার জন্য নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পাঠানো হবে।’

আরও পড়ুন:


বাংলাদেশ-ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে দেওয়ায় ৭ বছরের 

নিউইয়র্কে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মারপিট (ভিডিও)

স্বাস্থ্যের সেই গাড়িচালক মালেকের ৩০ বছরের কারাদণ্ড

যে ২৬টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান গোয়েন্দা নজরদারিতে


প্রাণ গোপাল দত্ত ১৯৫৩ সালের ১ অক্টোবর চান্দিনা উপজেলার মহিচাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি চান্দিনা পাইলট উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৭০ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি ও পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রচার সম্পাদক ছিলেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

সরকারের মদদেই পূজা মণ্ডপে কোরআন অবমাননা: ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

সরকারের মদদেই পূজা মণ্ডপে কোরআন অবমাননা: ফখরুল

সরকারের মদদেই পূজা মণ্ডপে কোরআন অবমাননার ঘটনা ঘটেছে। ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট  করার চেষ্টা করছে সরকার। এমন মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

‘রাজাকারপুত্র’কে নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার অভিযোগে বিক্ষোভ

অনলাইন ডেস্ক

‘রাজাকারপুত্র’কে নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার অভিযোগে বিক্ষোভ

পাবনার সুজানগর উপজেলার নাজিরগঞ্জ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন করে ‘রাজাকারপুত্র’কে মনোনয়ন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত ১৪ অক্টোবর এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে পূর্বের মনোনীত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তারকে পরিবর্তন করে বর্তমান চেয়ারম্যান মশিউর রহমানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে মনোয়নয়ন পরিবর্তনের খবর এলাকায় পৌঁছালে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। 

মনোনয়ন পরিবর্তনের খবরে মশিউর সমর্থকরা খুশি হলেও, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও স্থানীয় মানুষ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। মশিউর চেয়ারম্যানকে দুর্নীতিবাজ ও রাজাকার পরিবারের সন্তান দাবি করে মনোনয়ন পরিবর্তনের দাবিতে শনিবার বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।

এদিকে মনোনয়ন পরিবর্তনের খবরে আব্দুস সাত্তারের সমর্থক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ ও হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। শনিবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করে আব্দুস সাত্তারকেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী করার দাবি জানিয়েছেন সমর্থকরা।

বিক্ষুব্ধ স্থানীয়রা জানান, চেয়ারম্যান মশিউর রহমান স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের সন্তান। তিনি জনবিচ্ছিন্ন, বিতর্কিত ব্যক্তি। চেয়ারম্যান থাকাকালে তিনি পরিষদে বসতেন না, জনগণের ভালো মন্দের খোঁজও রাখতেন না। ইউপি সদস্যদের মতামতের তোয়াক্কা না করে নিজস্ব ক্যাডার বাহিনীকে দিয়ে পরিষদ চালিয়েছেন। দুর্নীতি, অনিয়ম, সালিশ বাণিজ্য, অবৈধ বালি ব্যবসাসহ এমন কোনো অপকর্ম নেই যে তিনি করেননি। 

এছাড়াও সরকারী বিধি ভঙ্গ করে গোপনে দেশের বাইরে চলে যেতেন। এসব কারণে তিনি চেয়ারম্যান পদ থেকে বরখাস্তও হয়েছিলেন। এমন বিতর্কিত ব্যক্তিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে হতাশা নেমে এসেছে।

সুজানগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব বলেন, মশিউর রহমানের বাবা সৈয়দ আলী খান মুক্তিযুদ্ধের সময় শান্তি কমিটির সক্রিয় সদস্য ছিলেন। সর্বশেষ প্রকাশিত রাজাকারের তালিকাতেও তার নাম রয়েছে। এখন তার পরিবারের অনেকেই আওয়ামী লীগ করলেও তারা চিহ্নিত স্বাধীনতা বিরোধী পরিবার এতে কোনো সন্দেহ নেই। 

আরও পড়ুন:


মিনিস্টারে বিশাল নিয়োগ , যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে চাকরি, যোগ্যতা এসএসসি

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ, যোগ্যতা এইচএসসি

পল্লী বিদ্যুৎতে বড় নিয়োগ, যোগ্যতা এসএসসি


 

এদিকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগের সদ্য মনোনয়ন পাওয়া চেয়ারম্যান প্রার্থী মশিউর রহমান খান বলেন, কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ প্রার্থী সিলেকশনে ভুল বুঝতে পেরে প্রার্থী পরিবর্তন করেছে। তৃণমূল নেতাকর্মীকে সাথে নিয়েই আমি নৌকার বিজয় নিশ্চিত করব।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

চৌমুহনীর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান বুলু

অনলাইন ডেস্ক

চৌমুহনীর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান বুলু

নোয়াখালীর প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনীতে হিন্দুদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, মন্দির ও বাড়িতে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী বরকত উল্লাহ বুলু। এ ঘটনায় তিনি বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করে ফুটেজ দেখে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

 শনিবার বিকালে গণমাধ্যমের সঙ্গে ফোনালাপে তিনি এ দাবি করেন।

সাবেক মন্ত্রী বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, বিএনপি একটি অসম্প্রদায়িক দল। আমরা সব সময় সম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করি। এই সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সৃষ্টি করেছেন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান। অবিলম্বে দোষীদের শাস্তি দিতে হবে। চৌমুহনীতে মারা যাওয়া দুইজনের জন্য গভীর শোক ও সমবেদনা জানাচ্ছি।

বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ৯১ সালে আমরা যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসি তখন আমি নোয়াখালীতে সংসদ সদস্য ছিলাম। সেই সময় ভারতে বাবরী মসজিদ ভাঙার পর নোয়াখালীর বেগম গঞ্জের ২৬টি ইউনিয়নে গান্ধী ও রাম ঠাকুর আশ্রমসহ হিন্দুদের সকল মন্দির আমরা পাহারা দিয়েছি। বিডিআর, পুলিশসহ আমাদের নেতা-কর্মীরা আতঙ্কিত হিন্দু পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে। সবাইকে আশ্বস্ত করেছি, বেগমগঞ্জে কিছু হবে না।

আরও পড়ুন:


মিনিস্টারে বিশাল নিয়োগ , যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে চাকরি, যোগ্যতা এসএসসি

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ, যোগ্যতা এইচএসসি

পল্লী বিদ্যুৎতে বড় নিয়োগ, যোগ্যতা এসএসসি


 

তিনি বলেন, আমরা সেদিন সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিলাম। সেই বৈঠকের সভাপতিত্ব করেন বর্ষিয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ৭০‘ এর এমএনএ ও সংসদ সদস্য নূরুল হক। আমি সংসদ সদস্য হিসেবে প্রধান অতিথি ছিলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের জেলা সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ এম এ হানিফ। এ ছাড়া স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের নান্টু সাহাসহ বিএনপি, আওয়ামী লীগ, জাসদ, বাসদ ও কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃবৃন্দসহ সেদিন সব পক্ষের প্রতিনিধি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। প্রায় ২০ হাজার মানুষ সেদিন রেলওয়ে ময়দানে উপস্থিত ছিলেন। সেদিন কোনো ঘটনা সেখানে ঘটেনি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, শুক্রবার বেগমগঞ্জের চৌমুহনীতে ন্যাক্কারজনক এ ঘটনা কে বা কারা ঘটিয়েছে। কার উসকানিতে এ ঘটনা ঘটিয়েছে, তা খুঁজে বের করতে হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ওবায়দুল কাদের ও হাসান মাহমুদকে টপকাতে চান তথ্য প্রতিমন্ত্রী : রিজভী

অনলাইন ডেস্ক

ওবায়দুল কাদের ও হাসান মাহমুদকে টপকাতে চান তথ্য প্রতিমন্ত্রী : রিজভী

সরকারের অপকর্ম ঢাকার জন্য আগে বেফাঁস কথাবার্তার প্রতিযোগিতা ছিল ওবায়দুল কাদের এবং হাসান মাহমুদের মধ্যে। তাদেরকে এখন টপকাতে চান এই অবৈধ তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। 

তিনি বলেন, পবিত্র ইসলাম ধর্ম নিয়ে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের সম্প্রতি দেওয়া বক্তব্যে দেশে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। মূলত সরকার দেশকে চরম দুর্দিনের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। 

আজ শনিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক দল আয়োজিত বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম নিয়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেছেন রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করেছেন বিশ্ববেহায়া এরশাদ। এরশাদ কার লোক? বিশ্ববেহায়া এরশাদ তো শেখ হাসিনার সার্টিফাইড বন্ধু। 

তিনি বলেন, ইসলামধর্ম নিয়ে মুরাদ হাসানের বক্তব্যের পরে ঘটনা ঘটলো কুমিল্লায়, এরপরে সারাদেশে টেনশন, উত্তেজনা, রক্তপাত, পুলিশ গুলি চালাচ্ছে। গতকাল চৌমুহনীতে উত্তেজনা বিরাজ করেছে। আজ ১৪৪ জারি করেছে। কেন এই পরিস্থিতি? ওই যে মুরাদ যে বক্তব্য রেখেছে তারপরেই এই ঘটনা। এগুলো কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। সরকারের সকল অপকর্ম, সকল জনবিরোধী কর্ম, রক্তপাত গুম-খুন সবকিছু আড়াল করার জন্য এবং দ্রব্যমূল্য যে বাড়তি, সেগুলো আড়াল করার জন্য এসব ঘটনা। সরকারের এজেন্সির যে নীলনকশা, সেই নীলনকশারই একটা অংশ কুমিল্লার ঘটনা।


তিনি আরো বলেন, এদেশের কোনো মুসলমান বা হিন্দু এই ঘটনা ঘটাবে এটা আমার বিশ্বাস হয় না। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ। এই আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই রামু, উখিয়া, টাঙ্গাইল ও পাবনায় হিন্দুদের উপর আক্রমণ হয়েছে এবং তাদের সম্পত্তি লুট করা হয়েছে। বিএনপি ১৯৯১ ও ২০০১ সালে যখন ক্ষমতায় ছিল তখন কোনো সংখ্যালঘু বা হিন্দুদের মন্দিরে হামলা হয়নি। তাদের ধনসম্পত্তি লুটপাট হয়নি।

আরও পড়ুন:


মিনিস্টারে বিশাল নিয়োগ , যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে চাকরি, যোগ্যতা এসএসসি

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ, যোগ্যতা এইচএসসি

পল্লী বিদ্যুৎতে বড় নিয়োগ, যোগ্যতা এসএসসি


 

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ফখরুল ইসলাম রবিনের সভাপতিত্বে দোয়া মাহফিলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে : আ স ম রব

অনলাইন ডেস্ক

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে : আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে রাষ্ট্রের মৌলিক কাঠামো বিনষ্ট করে,গণতন্ত্র হত্যা করে,  ভোটাধিকারকে প্রহসনে পরিণত করে, আইনের শাসনকে নির্বাসনে পাঠিয়ে এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদকে হরিলুট করার সুযোগ দিয়ে রাষ্ট্রকে দুর্বৃত্তবৈশিষ্ট্যপূর্ণ করে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দলটির মহানগর সমন্বয় কমিটি আয়োজিত মানববন্ধন, সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, সরকারের অপশাসনের কারণে বাঙালি জাতীয়তাবাদ চরম ঝুঁকিতে পড়ছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হচ্ছে, সমাজে হিংসা প্রতিহিংসা নিষ্ঠুরতা বিস্তার লাভ করছে। শুধু ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য বর্তমান সরকার বাঙালি জাতীয়তাবাদ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা দুটোকেই পরিত্যাগ করেছে। এখন রাষ্ট্রের একমাত্র পথ হচ্ছে গণজাগরণের মাধ্যমে জাতীয় নৈতিক শক্তির পুনরুজ্জীবন করা। এই পুনরুজ্জীবিত শক্তিই জাতীয় সরকার গঠন করবে। বিদ্যমান সংকট নিরসনের একমাত্র বিকল্প  জাতীয় সরকার গঠন করা।

তিনি আরও বলেন, দেশের সাধারণ জনগণ এক দুর্যোগকালীন সময় অতিক্রম করছে। চাল, ডাল, পেয়াজ, লবনসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্য লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলছে। দিবারাত্রি হাঁড়ভাঙ্গা খাটুনির পরও জনগন পরিবারের প্রয়োজন মিটাতে পারছেনা। সুবিধাবাদী গোষ্ঠী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে জনগনকে জিম্মি করে ফেলেছে। দ্রব্যমুল্য মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখা কিংবা বাজার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে সরকারের কোন উদ্যোগ নেই। জনগণের স্বার্থ উপেক্ষা করে সরকার মুনাফালোভী চক্রের হীন স্বার্থ রক্ষায় সহযোগীর ভুমিকা  পালন করছে। 

আরও পড়ুন:


মিনিস্টারে বিশাল নিয়োগ , যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে চাকরি, যোগ্যতা এসএসসি

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ, যোগ্যতা এইচএসসি

পল্লী বিদ্যুৎতে বড় নিয়োগ, যোগ্যতা এসএসসি


 

আ স ম রব বলেন, জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার মহান উদ্দেশ্যে উপজেলা পরিষদ প্রশ্নে  মহামান্য হাইকোর্ট একটি যুগান্তকারী রায় প্রদান করেছেন। অথচ সরকার এ রায় বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগই গ্রহণ করছেনা। রায় বাস্তবায়ন প্রলম্বিত করা কল্যাণকর হতে পারেনা।

জেএসডি সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ছানোয়ার হোসেন তালুকদার বলেন, জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার মহান উদ্দেশ্যে উপজেলা পরিষদ প্রশ্নে মহামান্য হাইকোর্ট একটি যুগান্তকারী রায় দিয়েছেন। অথচ সরকার এ রায় বাস্তবায়নের কোনো উদ্যোগই গ্রহণ করছেন না। রায় বাস্তবায়ন প্রলম্বিত করা কল্যাণকর হতে পারে না।

জেএসডি ঢাকা মহানগর কমিটির সমন্বয়ক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব মানববন্ধন সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন সা কা ম আনিসুর রহমান খান কামাল, তানিয়া রব, অ্যাড. কে এম জাবির, অ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, শ্রমিক নেতা মোশাররফ হোসেন, যুব নেতা এস এম সামছুল আলম নিক্সন, মোসাররফ হোসেন, শফিকুল ইসলাম শফিক, ছাত্রনেতা তৌফিকুজ্জামান পীরাচা প্রমুখ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর