নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, 'আমরা নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধে জড়াতে চাই না।' উদ্ভূত চ্যালেঞ্জের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য যেকোনো দেশের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র তার মিত্র ও বন্ধুদের পক্ষে দাঁড়াবে। দুর্বল দেশগুলোর ওপর প্রভাব বিস্তারকারী শক্তিশালী দেশগুলোর বলপ্রয়োগের চেষ্টার বিরোধিতা করবে বলেও জানিয়েছেন জো বাইডেন। খবর এএফপি ও সিএনএন’র। 

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের প্রথম দিন দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি। প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর জাতিসংঘে এটি জো বাইডেনের প্রথম ভাষণ।  

বাইডেন বলেন, যেহেতু আমরা সামনের দিকে তাকিয়ে আছি। আমরা কোভিড, জলবায়ু পরিবর্তন, শান্তি ও নিরাপত্তা; মানবাধিকার রক্ষা-এসব চ্যালেঞ্জের নেতৃত্ব দিতে চাই। কিন্তু এটা আমরা একা করব না। আমাদের মিত্র এবং অংশীদারদের নিয়েই আমরা সামনে এগিয়ে যাব।

তিনি আরও বলেন, 'আমরা আর সময় নষ্ট করার সামর্থ্য রাখি না। আসুন কাজ শুরু করি। আসুন এখন আমাদের উন্নত ভবিষ্যৎ তৈরি করি।'  

অন্যদিকে, এদিন সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের দেওয়া ভাষণে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস সতর্কবাণী উচ্চারণ করে বলেন, ‘বিশ্ব ক্রমেই বিভক্তির দিকে এগোচ্ছে। এর থেকে রেহাই পেতে হলে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনকে সংলাপে বসতে হবে।’ 

তিনি বলেন, বিশ্ব ক্রমেই দুটি ভিন্ন অর্থনীতি, বাণিজ্য, আর্থিক ও প্রযুক্তিগত নিয়মনীতি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উন্নয়নে দুটি স্বতন্ত্র পন্থায় বিভক্ত হয়ে পড়ছে। এমনকি দুটি পৃথক সামরিক ও ভূরাজনৈতিক কৌশলে বিভক্ত হয়ে পড়ছে পৃথিবী।

রও পড়ুন:

শিরোপা জয়ের আনন্দ উদযাপন বসুন্ধরা কিংসের

নারী ক্ষমতায়নে আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ফ্রান্সের পাশে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ, আটক ৩


এটি স্নায়ুযুদ্ধের সময়ের মতো সংকট বয়ে আনবে। তাই বিশ্বাস পুনরুদ্ধার এবং আশা জাগাতে আমাদের মধ্যে সহযোগিতা থাকা দরকার। মহাসচিব বলেন, আমাদের সংলাপ দরকার। বোঝাপড়া দরকার। কারণ দুই শক্তির মধ্যে বিভাজন অগ্রাধিকারমূলক মূল প্রচেষ্টাকে পিছিয়ে দিচ্ছে।

গুতেরেস বলেন, আমরা শক্তি দিয়ে ক্ষমতা দখলের বিস্ফোরণ দেখছি। সামরিক অভ্যুত্থান ফিরে এসেছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মধ্যে ঐক্যের অভাব থাকায় এক্ষেত্র কার্যকর ভূমিকা রাখা যাচ্ছে না। 

news24bd.tv রিমু   

পরবর্তী খবর

গরু জবাই নিষিদ্ধের প্রস্তাব অনুমোদন হলো শ্রীলংকায়

অনলাইন ডেস্ক

গরু জবাই নিষিদ্ধের প্রস্তাব অনুমোদন হলো শ্রীলংকায়

শ্রীলংকা সরকার একটি খসড়া আইন অনুমোদন করেছে। সে আইনে দেশে গরু জবাই নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

সরকার বলছে, এই নিষেধাজ্ঞার ফলে শ্রীলংকার গবাদি দুগ্ধ-শিল্প উপকৃত হবে। মন্ত্রিসভায় প্রস্তাবটি পাশ হওয়ার পর খসড়া আইনটিকে অনুমোদনের জন্য এখন সংসদে তোলা হবে।

সমালোচকদের উদ্ধৃত করে বিবিসি জানায়, শ্রীলংকার সংখ্যালঘু মুসলমানদের লক্ষ্য করে আইনটি তৈরি করা হয়েছে। কারণ তারাই গোমাংসের প্রধান ভক্ষক। শ্রীলংকার কট্টরপন্থী সিংহলী বৌদ্ধ গোষ্ঠীগুলি গোমাংস নিষিদ্ধ করার সরকারি প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে বলেও জানিয়েছে বিবিসি।

শ্রীলংকা একটি বৌদ্ধ সংখ্যাগুরু দেশ। জনসংখ্যার ৭০ শতাংশ লোক এই ধর্মের অনুসারী। কিন্তু দেশটির বেশিরভাগ মানুষই মাংসভোজী। তবে বৌদ্ধদের একাংশ গরুকে পবিত্র-জ্ঞান করেন এবং তারা গোমাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকেন। তবে সে দেশের জনসংখ্যার ১০ শতাংশ মুসলমান। এরা সহ খ্রিস্টান, কিছু বৌদ্ধ এবং হিন্দুরাও গরুর মাংস খান।

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


সরকারের সমালোচকরা বলছেন, শ্রীলংকার গোমাংসের ব্যবসা এবং হালাল সার্টিফিকেশনের নিয়ন্ত্রণ মুসলমানদের হাতে। ফলে এরাই এই প্রস্তাবিত আইনে ক্ষতিগ্রস্ত হতে যাচ্ছেন। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, গরু জবাই বন্ধ করার পক্ষে বিভিন্ন দল অবস্থান নিয়েছে। তাদের যুক্তি, কৃষিকাজ এবং দুগ্ধ শিল্পের জন্য প্রয়োজনীয় গরু দেশে নেই।

শ্রীলংকায় গরু জবাই নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব প্রথম উঠেছিল ২০০৯ সালে। সে সময় একজন সংসদ সদস্য ভিজেদাসা রাজাপাক্সে এসংক্রান্ত একটি প্রস্তাব সংসদে তুলেছিলেন। তবে সে সময় প্রস্তাবটি সংসদে গৃহীত হয়নি। এরপর ২০১২ সালে ক্যান্ডি শহরের কর্তৃপক্ষ পৌর এলাকার মধ্যে গরু জবাই নিষিদ্ধ করে। পরের বছর এনিয়ে বিতর্কটি তীব্র আকার ধারণ করে যখন গরু জবাই নিষিদ্ধ করার দাবিতে একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু নিজের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন।

এরপর কট্টরপন্থী দুটি সিংহলী বৌদ্ধ সংগঠন, সিনহালা রাভায়া এবং বদু বালা সেনা, একে তাদের আন্দোলনের একটি প্রধান বিষয়বস্তুতে পরিণত করে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাক্সে ২০১৬ সালের প্রস্তাবটিকে নতুন করে সংসদে তুলে আনেন এবং আইন প্রক্রিয়ার কাজ শুরু করেন।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

গাড়ির কাগজ দেখানোর কথা বলে পুলিশকে অপহরণ করলো গাড়ি চোর!

অনলাইন ডেস্ক

গাড়ির কাগজ দেখানোর কথা বলে পুলিশকে অপহরণ করলো গাড়ি চোর!

গাড়ির কাগজপত্র পরীক্ষার সময় রাস্তা থেকে কর্তব্যরত এক পুলিশ সদস্যকে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। রাস্তায় চলাচলকারী সব গাড়ি থামিয়ে কাগজ দেখছিলেন পুলিশ। সে সময় একটি ‘সুইফট ডিজায়ার’ গাড়ি এসে দাড়ায়।  সে সময়ে গাড়িতে থাকা ব্যক্তিকে পুলিশ সদস্যরা গাড়ির কাগজপত্র দেখাতে বললে গাড়ি চালক বলে,‘মোবাইলে কাগজের ছবি নেই কিন্তু গাড়িতে কাগজ রাখা আছে। একজন গাড়িতে উঠে কাগজ দেখে যান।’

পরে এক পুলিশ সদস্য উঠে বসেন গাড়িতে। কিন্তু কাগজ দেখানোর পরিবর্তে গাড়ির গতি বাড়ান চালক। মুহূর্তে পুলিশকর্মীকে নিয়ে ধুলো উড়িয়ে হাওয়া হয়ে যায় গাড়িটি। আনন্দবাজার   এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে।

পুলিশ সদস্যকে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশে। রোববার রাজ্যের গ্রেটার নয়ডা এলাকার সূরজপুরে অদ্ভূত এ কাণ্ডটি আলোচনার জন্ম দিয়েছে।  

এ ঘটনায় পুরো এলাকায় হইচই পড়ে যায়। হতবাক পুলিশকর্মীরাও। শেষ পর্যন্ত ঘটনাস্থল থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে একটি পুলিশ ফাঁড়ির সামনে অপহৃত পুলিশকর্মীকে নামিয়ে দেন সচিন। পরে পুলিশ সচিনকে গ্রেফতার করে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


জানা গেছে, ট্রাফিক কনস্টেবলকে অপহরণের অভিযোগে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ  ২৯ বছরের সচিন রাওয়াল নামে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। দু’বছর আগে গুরুগ্রামে একটি গাড়ির দোকান থেকে ‘টেস্ট ড্রাইভ’-এর নাম করে গাড়ি চুরি করেছিলেন তিনি। পুলিশকর্মীকে অপহরণসহ একাধিক ধারায় সচিনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

জাপান উপকূলে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া

অনলাইন ডেস্ক

জাপান উপকূলে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া

জাপান উপকূলে ফের একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের সামরিক বাহিনী এ তথ্য দিয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, পেনিনসুলার পূর্বে সিনপো থেকে এ ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। এদিকে আলজাজিরা জানায়, বিষয়টি দক্ষিণ কোরীয় ও মার্কিন গোয়েন্দারা বিশ্লেষণ করে দেখছে। ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর এ ঘটনাকে অত্যন্ত দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা।


আরও পড়ুন:

টিকা নিতে অস্বীকার করায় কোচকে বহিষ্কার

কাতারে শুরা কাউন্সিলে ২ নারী নিয়োগ

দ্বিতীয় ম্যাচ নিয়ে যা বললেন সাকিব

নাইজেরিয়ার বন্দুকধারীদের হামলায় কমপক্ষে ৪৩ জন নিহত


কিম প্রশাসনের এমন ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে স্থিতিশীলতা আনতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে কোনো কিছুকেই আমলে না নিয়ে ক্ষেপনাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে পিয়ংইয়ং।

মঙ্গলবার মার্কিন সেনাবাহিনী এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের জন্য উত্তর কোরিয়ার প্রতি নিন্দা জানায় এবং দেশটিকে পরবর্তী কোনো অস্থিতিশীল কাজ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানায়।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত 

পরবর্তী খবর

টিকা নিতে অস্বীকার করায় কোচকে বহিষ্কার

অনলাইন ডেস্ক

টিকা নিতে অস্বীকার করায় কোচকে বহিষ্কার

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিতে অস্বীকার করায় ফুটবল কোচ নিক রোলোভিচকে বহিষ্কার করেছে ওয়াশিংটন স্টেট ইউনিভার্সিটি। সেই সাথে তার সহযোগীকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। জানা যায়, নিকের বার্ষিক আয় ছিল ৩.১ মিলিয়ন ডলার।

বিবিসি একটি প্রতিবেদনে জানিয়েছে ওয়াশিংটনে সকল কর্মচারী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য করোনা টিকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। টিকা না নিলে চাকরিচ্যুত করারও বিধান রাখা হয়েছে।


আরও পড়ুন:

কাতারে শুরা কাউন্সিলে ২ নারী নিয়োগ

বানভাসি রাস্তায় বিয়ে করতে এলেন বর-কনে : ছবি ভাইরাল

দ্বিতীয় ম্যাচ নিয়ে যা বললেন সাকিব

নাইজেরিয়ার বন্দুকধারীদের হামলায় কমপক্ষে ৪৩ জন নিহত


টিকা নিতে অনাগ্রহ প্রকাশের জন্য নিক ধর্মীয় কারণ উল্লেখ করেন। তবে তার এ অজুহাত আমলে নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাথলেটিকস বিভাগের পরিচালক প্যাট চুন।

ইতিমধ্যে ওয়াশিংটন স্টেট ইউনিভার্সিটির ৯০ ভাগ কর্মচারী ও ৯৭ ভাগ শিক্ষার্থী করোনা টিকা নিয়েছে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত 

পরবর্তী খবর

অবশেষে ক্ষমা চাইলেন ট্রুডো

অনলাইন ডেস্ক

অবশেষে ক্ষমা চাইলেন ট্রুডো

৩০ সেপ্টেম্বর ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার কামলুপস আদিবাসীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা থাকলেও সেখানে যাননি কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। দুই দফায় চিঠি পাঠিয়ে আমন্ত্রণ জানানোর পরেও না যেতে পারায়  তাদের কাছে ক্ষমা চাইতে গতকাল সোমবার এলাকাটিতে ভ্রমণ করেছেন ট্রুডো। 

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা যায়, জাস্টিন ট্রুডো সেখানে গিয়ে আদিবাসী নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের কাছে ওই ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন।

জানা গেছে, আমন্ত্রণে সাড়া না দিয়ে ট্রুডো পরিবারের সঙ্গে ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার একটি সৈকতে সময় কাটিয়েছেন। তা নিয়ে কানাডায় ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।


আরও পড়ুন:

কাতারে শুরা কাউন্সিলে ২ নারী নিয়োগ

বানভাসি রাস্তায় বিয়ে করতে এলেন বর-কনে : ছবি ভাইরাল

দ্বিতীয় ম্যাচ নিয়ে যা বললেন সাকিব

নাইজেরিয়ার বন্দুকধারীদের হামলায় কমপক্ষে ৪৩ জন নিহত


এ বছর মে মাসে ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার একটি সাবেক আদিবাসী স্কুলের এক জায়গায় গণকবরের সন্ধান মেলে। সেখানে ২১৫টি শিশুর দেহাবশেষ পাওয়া যায়।

এই ঘটনা সামনে আসার পর থেকেই ৩০ সেপ্টেম্বর কানাডার ‘ট্রুথ অ্যান্ড রিকনশিলিয়েশন ডে’-তে জাস্টিন ট্রুডোকে ওই এলাকায় যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছিল। কিন্তু তখন সেখানে না যাওয়ায় অবশেষে ক্ষমা চাইলেন।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত 

পরবর্তী খবর