মনে পড়ে আমি ছিলাম...
মনে পড়ে আমি ছিলাম...

মনে পড়ে আমি ছিলাম...

Other

আজকাল কোনো কিছুই আর ঠিকঠাকমতো ঘটে না আমার। যা কিছু করি মনে হয় কিছুই ঠিকমতো হয় নি। লেখা ঠিকমতো হয়নি, বলা ঠিকমতো হয়নি, যোগাযোগ ঠিক মতো হয়নি। মনে হয় কোথায় যেনো একটা গ্যাপ তৈরী হচ্ছে।

মনে হয় কোথায় যেনো ভুলের চিণ্হ থেকে গেছে। কলেজে পড়ার সময় থেকেই নীহার রঞ্জন গুপ্তের বই পড়তে শুরু করি। তার রহস্য বইগুলোতে কিরীটি রায় ছিল একজন ঝানু গোয়েন্দা। অপরাধী যত বড় সেয়ানাই হোক না কেনো কিরীটি বাবু ঠিকটাক ধরে ফেলতেন। অপরাধী কোথাও না কোথাও একটা চিন্হ রেখে যায়। গোয়ান্দারা সবসময় মনে করেন, কোথাও না কোথাও একটা ক্লু থাকবেই। আমার ভুলগুলো অবশ্য ভিন্ন মাত্রার, একান্ত নিজের। আমি আমার নিজের ভুলে নিজেই জর্জরিত। আমার ভুলগুলো অন্য কেউ সহজে শুধরে দেয় না, কোনো গোয়েন্দাগিরিও নেই হয়তবা। আমার গোয়েন্দা আমি নিজেই। আমি যেমন ভুল করি, আবার একা একা ভুল স্বীকার করি, ভুল শোধরাতেও চেষ্টা করি। একই ভুল বার বার করি বলে নিজের উপর নিজেই ক্ষুব্ধ।

কেনো ভুল করলাম এইসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজি। ভাবি একই ভুল আর করব না। বড় অপরাধীরা বড় বড় ক্রাইম করে। আমি চুনোপুটি টাইপ মানুষ। বড় অপরাধ করতে বুকের পাটা লাগে, সবাই পারে না। আমি আমার ক্ষুদ্র জীবন নিয়ে জেরবার। অন্যে কে কি করল সেসব নিয়ে লিখতে সাহস পাই না। কি থেকে কি হয়। শুনেছি আমরা যে যাই লিখি না কেনো সবকিছু সিস্টেমে থেকে যায়। কিছুই মুছে যায় না। হারিয়ে যায় না। লেখা সঠিক না হলে একদিন ধরা হবে। জাল পাতা আছে। তাই ওসবের ধারে কাছে নাই আমি। শুভাকাঙ্খিরা সবসময় বলে নিজেকে সেভ করে চলতে। সত্য কথা বলার দরকারটা কি। সত্যবাবুর মা মইরা গেছে। যেমনে আছ তেমনে থাক। জেসমিনও বলে, তুমি হইছ দুই পয়সার মানুষ, কে কি করলো তা নিয়া এতো চিন্তা করতে হবে না। নিজেরে নিয়া চিন্তা করো।

কথা সত্য। আমি তাই করি। নিজেরে নিয়া চিন্তা করি। আজকাল এমন হয়েছে একটা না একটা কিছু ভুল হয়েই যায়। নিজের উপর কন্ট্রোল কমে যাচ্ছে। যা করা দরকার তা করি না, অদরকারি কাজ নিয়ে সদা ব্যস্ত। আৱ ভুলগুলোও খুউব হাস্যকর। মোটা দাগের।   কাউকে বলাও যায় না। অন্য কেউ আমার মতো করে কিনা জানি না। আমার মতো কারো না হওয়াই বাঞ্চনীয়। আমার এখন যে বয়স তাতে আমার আরো চিন্তাশীল, শান্ত, স্থির, ধৈর্য্য থাকার কথা। কিন্তু তা না হয়ে অপ্রত্যাশিত সব কান্ড করি। যাকে যা বলার কথা না তাকে তা বলি, যার সাথে যে আচরন করা উচিত না, তার সাথে সে আচরন করি, যা করা শোভন না তা করি, যাকে সম্মান করা উচিত তাকে যোগ্য সম্মান না দিয়ে অযোগ্যকে সম্মান দিয়ে বসি।

আরও পড়ুন


ভোটের অধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলার শুরু জিয়ার আমলে

কোহিলির বেঙ্গালুরুকে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে চেন্নাই

কানাডার সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশি মিজানুর রহমান

শতবর্ষী মায়ের অপেক্ষা, ৭০ বছর পর কুদ্দুস খোঁজ পেলেন পরিবারের


পক্ষান্তরে আমার সাথেও অন্যেরা এমন আচরন করে। যার উপকার করি সেই দেখি চোখ উল্টে ফেলে। এসব কারনে একসময় গভীর বেদনায় আচ্ছন্ন হতাম। এখন হইনা তেমন। এখন সবকিছু স্বাভাবিকভাবে নিতে শিখেছি। আমার উদারতার সুযোগ নিয়েও কেউ কেউ আমাকে ব্যবহার করে। তাই এসব ভেবে কখনও একটু এলোমেলো হই বটে, নিজের উপর নিয়ন্ত্রণও হারাই। কিন্তু মেনে নেই, ভাবি এমনটাই হওয়ার কথা। প্রতিটি জীবন তার আপন নিয়মে চলবে। কেউ আমাকে নিয়ন্ত্রণ করুক, অভিযোগে জর্জরিত করুক আমি তা চাই না। আমি কখনো কারো উপর অভিযোগ করি না। কত আপনজন আমাকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে! আমি কখনো জানতে চাইনি কেনো এমন করেছে। আমার জানতে চাইতে ইচ্ছে করে না। যে হারায় সে এমনি হারায়, আর যে থাকে সে এমনি থাকে। এইসব যখন ভাবি তখন আউলা ঝাউলা লাগে। রাস্তায় নেমে পথ হারিয়ে ফেলি। এক জায়গায় যাব বলে পথে বেরিয়েছি চলে যাই অন্য জায়গায়। হঠাৎ মনে হয় আরে আমার তো এখানে আসার কথা না! অন্য কোথাও যাওয়ার কথা ছিল!

অসুস্থ্য অবস্থায় এলেবেলে ভাবনায় জর্জরিত হয়ে এমন সব কথা মাথায় আসে।

জীবনানন্দের কবিতার লাইন দিয়ে শেষ করছি…
”আবার আকাশে ঘন হয়ে উঠেছেঃ
আলোর রহস্যময় সহোদরার মতো অন্ধকার।  
যে আমাকে চিরদিন ভালোবেসেছে
অথচ যার মুখ আমি কোনোদিন দেখিনি, 
সেই নগরীর মতো ফাল্গুন আকাশে অন্ধকার নিবিড় হয়ে উঠেছে।
মনে হয় কোন্‌ বিলুপ্ত নগরীর কথা
সেই নগরীর এক ধূসর প্রাসাদের রূপে জাগে হৃদয়ে..”

news24bd.tv এসএম

সম্পর্কিত খবর

;