কোম্পানীগঞ্জ থেকে বিচ্ছিন্ন নদীভাঙ্গণ কবলিত চরএলাহী ইউনিয়ন

আকবর হোসেন সোহাগ, নোয়াখালী:

কোম্পানীগঞ্জ থেকে বিচ্ছিন্ন নদীভাঙ্গণ কবলিত চরএলাহী ইউনিয়ন

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার উপকূলীয় ৮নং চরএলাহী ইউনিয়নের বিস্তির্ণ এলাকা দীর্ঘদিন থেকে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ।

এতে করে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে নদী ভাঙ্গণের কারণে অনেকটা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে ওই ইউনিয়নটি। ছোট ফেনী নদীর ভাঙ্গণের কারণে জনসাধারণ অন্যত্র চলে যাওয়ায়, ওয়ার্ড বিভক্তি না করার কারণে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এর বিরুপ প্রভাব পড়বে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। 

জানা যায়, ভাঙ্গণ কবলিত এলাকায় দেখা যায়, দীর্ঘদিন থেকে ছোট ফেনী নদী গিলে খেয়েছে কোম্পানীগঞ্জ চরএলাহী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বৃহদাংশসহ ১, ৩ ও ৪ ওয়ার্ডের অংশ বিশেষ। ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পূর্ব চরলেংটা, চরলেংটা, চরএলাহী এবং দক্ষিণ চরএলাহী এ ৪টি গ্রামের অধিকাংশ ঘর-বাড়ি, ফসলী জমি, মৎস্য-গবাদী পশু খামার, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান বিলিন হয়ে গেছে নদী গর্ভে। 

ইতিমধ্যে দুইবার ভাঙ্গণের কবলে পড়ে চরলেংটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি কোনরকম কাঠটিনের ভবন করে পাঠদান করছে। ভাঙ্গনের কবলে পড়ে ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে চরলেংটা আশ্রয়ন কেল্লা, হাতিয়া কলোনী, এরশাদ কলোনী এবং হাসনা মওদুদ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কয়েকটি মসজিদ।

নদী ভাঙ্গন কবলিত হয়ে নিঃস্ব মানুষেরা ঠাই নিয়েছে এক ওয়ার্ড থেকে অন্য ওয়ার্ড কিংবা উপজেলার অন্য কোন ইউনিয়নে। এতে ইউনিয়নের কোন কোন ওয়ার্ডে জনসংখ্যার আনুপাতিক হারেও ব্যাপক তারতম্য দেখা দিয়েছে।

৫নং ওয়ার্ডে ৪টি গ্রামে ভোটার সংখ্যা ছিল ১৭শ জন। ভাঙ্গণের কবলে পড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ায়, এখন এখানে মাত্র ২শ জন ভোটার এই ওয়ার্ডে বসবাস করছে। ইউনিয়নটির ৬নং ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ৩৬১জন অপরদিকে ৯নং ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৩শ ৪৪জন। 

চরএলাহী ইউনিয়নে জনসংখ্যা অনুপাতে ওয়ার্ড বিভক্তি করণ না করায় উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাপকভাবে ব্যহত হচ্ছে। 

সরকারি ভাবে প্রাপ্ত দান-অনুদান বিতরণে জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয়দের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি এবং দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জনগণকে। এসব অসামঞ্জস্যপূর্ণ অবস্থায় জনপ্রতিনিধিরাও সমস্যায় পড়ছেন, প্রশ্নের সম্মূখীন হচ্ছেন সরকারি দান-অনুদান বিতরণে।

চরএলাহী ইউনিয়নের জনসাধারণ এতই দুর্ভাগা যে, চরএলাহী “স্টিল ব্রিজ” ভেঙ্গে যাওয়ায় কার্যত উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে তারা। 

ইউনিয়নের বিস্তির্ণ চরাঞ্চলে উৎপাদিত সকল কৃষিপণ্য সরবরাহ, ক্রয়-বিক্রি, পরিবহণ চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ইউনিয়নবাসীকে। 

নতুন ভাবে নির্মিয়মান ব্রীজের কাজ করতে গিয়ে আবারও নদীর জোয়ারের পানিতে ভাঙ্গণের কবলে পড়ে নতুন ব্রীজ নির্মাণ কাজ বর্তমানে বন্ধ হয়ে আছে। 

চরএলাহী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক বলেন, আশঙ্কাজনক হারে নদী ভাঙ্গণ কবলীত ৮নং চরএলাহী ইউনিয়নের ওয়ার্ড বিভক্তি করণের জন্য ২০১৫ সালের ২৬ এপ্রিল তারিখে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে রেজুলেশন সহকারে আবেদন করা হয়েছিল নোয়াখালী জেলা প্রশাসক বরাবরে। 

এরপর ২০১৬ সালে সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ যাবত কয়েক বার সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরে লিখিত ভাবে আবেদন-নিবেদন করার পরও ওয়ার্ড বিভক্তি করণ করা হয়নি। ওয়ার্ড বিভক্তিকরণ কাজ সম্পন্ন না করায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনে এর বিরুপ প্রভাব পড়বে বলে চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক ছাড়াও আরও অনেকে মতামত প্রকাশ করেছেন। 

আরও পড়ুন


জেলেদের জালে ২ কেজি ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছ

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

প্রচণ্ড গরমে দেড় লিটার ঠাণ্ডা পানীয় পান করে যুবকের মুত্যু

ডিসেম্বরে পাকিস্তান সফরে আসবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ


তিনি আরও বলেন, নদী ভাঙ্গণ রোধকল্পে ক্রস ড্যাম নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে এবং সাময়িক ভাবে দ্রুত ব্লক ফেলে নদী ভাঙ্গণ প্রতিরোধের পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। 

বারবার ভাঙ্গনের কবলে পড়া স্থানীয় অধিবাসী ও এনজিওকর্মী আবদুল করিম ও আবদুর রহিম জানান, ইউনিয়নের এই অংশটি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে নদী ভাঙ্গন কবলিত তিন কিলোমিটার এলাকায় ব্লাক ফেলে কিংবা জিও ব্যাগ দিয়ে বাঁধ নির্মাণের কোন বিকল্প নাই। তারা এই এলাকাটিকে নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষায় স্থানীয় সাংসদ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন। 

স্থানীয়রা জানান, ২০১২ সালে কোম্পানীগঞ্জ সূবর্ণ চরের ভাঙ্গন কবলিত এলাকাকে রক্ষা করতে চর ক্লার্ক- চর বালুয়া ক্রস ডেম নির্মানের প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু অজানা কারনে তা বাস্তবায়িত না হওয়ায় চর এলাহীর বিস্তৃর্ণ এলাকা এবং ২৩ ভেন্ট স্লুইসগেট সহ মুছাপুর ক্লোজার ও ভাঙ্গনের করাল গ্রাসে তলিয়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। তাই যতদ্রুত সম্ভব ক্রসডেম নির্মান অত্যাবশ্যক।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.জিয়াউল হক মীর জানান, নদী ভাঙ্গণ রোধ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে অবহিত করা হয়েছে।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক

নয়ন বড়ুয়া জয়

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক

চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায়  বাঘের খাঁচায় আরো দুই শাবক। মা জয়া নামে বাঘিনীর আদরেই বড় হচ্ছে  এসব শাবক। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বলছে, চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায় এখন এক ডজন বাঘ।দর্শনার্থীরাও বাঘ দেখে খুশি। 

বনের বাঘ এখন খাঁচায়, চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় একের পর এক জন্ম দেয় বাঘের শাবক। সম্প্রতি আরো দুই শাবক জন্ম দিয়েছে মা জয়া। ২০২০ সালের ১৪ নভেম্বর জয়া বাঘিনী জো বাইডেন নামে ছেলে বাঘ শাবকের জন্ম দেয় ।যা তার প্রথম সন্তান ছিল। জো বাইডেনের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ করায় সেটিকে চিড়িয়াখানার তত্ত্বাবধানে লালন পালন করা হয়েছিল।তবে এবার দুই শাবকই মায়ের  আদরেই বড় হচ্ছে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় কোন বাঘ না থাকায় ২০১৬ সালে আফ্রিকা থেকে রাজ-পরি নামে  দুই বাঘ আনা হলেও এখন  নতুন দুই শাবকসহ এই চিড়িয়াখানার বাঘের খাঁচায়  এক ডজন বাঘ।

বাঘের ঝাঁক দেখে খুশি দর্শনার্থীরা। শুধু বাঘ নয় হাতিসহ আরো নতুন নতুন প্রানী যুক্ত করার চেষ্টা করছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। কিছুদিন আগেও বিরল সাদা বাঘ শুভ্রা জন্ম দিয়েছে আরেকটি ফুটফুটে ডোরাকাটা শাবক।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ৬০ মামলা, গ্রেপ্তার ২৬৩

অনলাইন ডেস্ক

সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ৬০ মামলা, গ্রেপ্তার ২৬৩

দেশের বিভিন্ন স্থানে মন্দির ও বাড়িঘরে ভাঙচুর এবং হামলার ঘটনায় ৬০টি মামলা হয়েছে। আসামি করা হয়েছে ৮ হাজার ৯৪৯ জনকে। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন জেলার ২৬৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে ‘কোরআন’ পাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এসব ঘটনা ঘটে।

তথ্যমতে, ঘটনার কেন্দ্রস্থল কুমিল্লায় সহিংসতার ঘটনায় ১ হাজার ৫৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪৪ জনকে। নোয়াখালীতে ৫ হাজার জনকে আসামি করে ৯০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


এছাড়া বাগেরহাটে ৪, পাবনায় ৩, চাঁপাইনবাবঞ্জে ১০, সিলেটে ২০, মৌলভীবাজারে ২, কুড়িগ্রামে ২১, গাজীপুরে ২০, কিশোরগঞ্জে ৪, মাদারীপুরে ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সবশেষ গতকাল রোববার (১৭ অক্টোবর) রাতে রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুদের বাড়িতে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। পীরগঞ্জে হামলায় ২০টি বাড়িঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

শেখ রাসেলের জন্মদিনে নয়াদিল্লিতে বৃক্ষ রোপণ

অনলাইন ডেস্ক

শেখ রাসেলের জন্মদিনে নয়াদিল্লিতে বৃক্ষ রোপণ

ভারতের নয়াদিল্লিস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন আজ দূতালয় চত্বরে উন্নত প্রজাতির ১০০টি বৃক্ষ রোপণ করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে এই আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশের হাই কমিশনার মুহাম্মদ ইমরান বৃক্ষরোপন করে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এ সময় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিনে শত বৃক্ষ রোপনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। 

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


বৃক্ষরোপনে সহযোগিতা করেন দিল্লীর খ্যাতনামা স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন প্লানটোলজি। বৃক্ষ রোপনের সময়ে প্লানটোলজির নির্বাহী প্রধান রাধুকা আনন্দও  একটি বৃক্ষ রোপন করেন।

পরে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিশুদের চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সন্তানরা।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

হাসপাতালে চলছিলো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের বৈঠক, হাতেনাতে ধরা ১৭ জন

অনলাইন ডেস্ক

হাসপাতালে চলছিলো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের বৈঠক, হাতেনাতে ধরা ১৭ জন

শেরপুর শহরের নারায়ণপুর এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে ১৭ জামায়াত নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আজ বিকেলে তাদের আটক করা হয়। 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে কুরআন শরীফ নিয়ে তৈরিকৃত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষে দারুস শিফা প্রাইভেট হাসপাতালে জামায়াত নেতাকর্মীরা রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের জন্য গোপন বৈঠকে মিলিত হন। খবর পেয়ে গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) কর্মকর্তা ও পুলিশ অভিযান চালায়। পরে হাসপাতালটির ৯নং কক্ষ থেকে বৈঠক চলাকালে ১৭ নেতাকর্মীকে হাতেনাতে আটক করা হয়। আটকের সময় তাদের কাছ থেকে ২৩টি মোবাইলসহ কিছু আলামত জব্দ করা হয়।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


তবে আটককৃতদের দাবি, তারা ওই হাসপাতাল পরিচালনার সঙ্গে জড়িত। সেখানে রাষ্ট্র বা সরকারবিরোধী কোনো গোপন বৈঠক ছিল না।

এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বন্দে আলী জানান, এনএসআই’র গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করা হয়েছে। তবে তারা কী উদ্দেশ্যে সেখানে সমবেত হয়েছিলেন জিজ্ঞাসাবাদের পর জানা যাবে। রাষ্ট্রদ্রোহের কোনো প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

শেরপুরে গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মী আটক

শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুরে গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মী আটক

শেরপুরে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র ও গোপন বৈঠককালে ১৭ জামায়াত নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর তথ্যের ভিত্তিতে শহরের নারায়ণপুর বাগবাড়ীস্থ ‘দারুস শিফা’ নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। 

আটককৃতরা হচ্ছেন, যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া জামায়াতের শীর্ষ নেতা কামারুজ্জামানের কথিত ড্রাইভার সদর উপজেলার গাজীর খামার এলাকার মো. ছোটন (৫০), জামায়াত নেতা আব্দুর রউফ (৪৮) ও গোলাম কিবরিয়া (৩৬), শেরপুর শহরের বাগরাকসা মহল্লার রফিকুল ইসলাম (৪০), সজবরখিলা মহল্লার সামস উদ্দিন (৬০), আনিসুর রহমান (৫০) ও শফিকুল ইসলাম (৫২), কান্দাপাড়া মহল্লার বুলবুল আহম্মেদ (৫৫), দিঘারপাড় মহল্লার আব্দুল মোনাফ খান (৪৮), ঝিনাইগাতী উপজেলার আব্দুল বারীর ছেলে আব্দুর রউফ (৪০), সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের জঙ্গলদী গ্রামের গোলাম মোস্তফা (৫৪)সহ আরও ৬ জন। 

তবে আটককৃতদের দাবি, তারা ওই হাসপাতাল পরিচালনার সাথে জড়িত। সেখানে রাষ্ট্র বা সরকার বিরোধী কোন গোপন বৈঠক ছিল না।

আরও পড়ুন

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

শরীরের ইমিউনিটির উপর বিশ্বাসী অভিনেত্রী করোনায় আক্রান্ত

অনিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

অবরোধ তুলে নিলো ঢাবি শিক্ষার্থীরা


জানা যায়, শহরের দারুস শিফা প্রাইভেট হাসপাতালের একটি কক্ষে শেরপুর অঞ্চলের জামায়াত নেতা-কর্মীরা রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র ও সাম্প্রতিক কুমিল্লার গুজব ইস্যু নিয়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাসহ রাজনৈতিক অস্থিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষ্যে গোপন বৈঠকে মিলিত হয়েছেন- এনএসআই'র এমন তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার বিকাল সাড়ে ৩ টার দিকে গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ওই হাসপাতালে অভিযান চালায় সাদা পোশাকদারী পুলিশ। 

এ সময় বৈঠকে থাকা ১৭ নেতা-কর্মীকে হাতেনাতে আটক করা হয় এবং তাদের হেফাজত থেকে ২৩ টি মোবাইলসহ কিছু আলামত জব্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযানে অংশ নেওয়া শেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বন্দে আলী জানান, এনএসআই'র গোপন সূত্রে সংবাদের ভিত্তিতে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। তারা কি উদ্দেশ্যে সেখানে সমবেত হয়েছিলেন-তা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদসহ তদন্ত চলছে। সে রকম কিছু পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

পরবর্তী খবর