জামাইকে গাছে বেঁধে পেটালো শ্বাশুড়ি

জামাইকে গাছে বেঁধে পেটালো শ্বাশুড়ি

Other

মেয়ের মা-বাবার মত ছিলো না বিয়েতে। তাই বরকে গাছের সঙ্গে বাঁধা অবস্থায় সইতে হলো অমানবিক নির্যাতন। গেল সোমবার ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলায় এমন ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে এখন দিনাজপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন নাসিরুল ইসলাম নামের এক যুবক। সামাজিক মাধ্যমে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হলে মেয়ের মাকে আটক করে থানা পুলিশ।

 

গাছের সঙ্গে বাঁধা এই ব্যক্তির অপরাধ, সাবালিকা এক মেয়েকে আইনগতভাবে বিয়ে করা। দুইজনের প্রেমের সম্পর্ক এবং বিয়ের কারণে এভাবেই মেয়ে পক্ষের নির্যাতন সহ্য করতে হয় নাসিরুলের।

আরও পড়ুন:


ডিসেম্বরেই চালু হবে ৫জি নেটওয়ার্ক: মোস্তাফা জব্বার

দেশে বিনিয়োগ করুন: প্রধানমন্ত্রী

যানজট নিরসনের উদ্যোগ আটকে থাকে মহাপরিকল্পনার নথিতেই

মক্কা-মদিনার মসজিদে কাজ করবেন নারীরা


ঘটনাটি গেলো সোমবারের। তবে ভিডিও ভাইরাল হলে বৃহস্পতিবার রাতে সবার নজরে আসে। পাশাপাশি গ্রামের নাসিরুল ও কেয়া মনি ১ সেপ্টেম্বর ঠাকুরগাঁও আদালতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। পরে নাসিরুলের কর্মক্ষেত্র ঢাকায় চলে যান দুইজনে। বিয়ে মেনে নেওয়ার কথা বলে তাদের গ্রামে ডাকা হয়। এরপরই চলে নির্যাতন।

সামাজিক মাধ্যমে ভিডিও ভাইরালের পর শুক্রবার অভিযুক্ত নারীকে আটক করে পুলিশ। এমন অমানবিক নির্যাতনের বিচার দাবি করেছেন নাসিরুলের স্বজনরা। একইভাবে বিচারের দাবিতে নাসিরুলের গ্রামের মানুষও মানববন্ধন করেছেন।

news24bd.tv নাজিম

;