সিরাজগঞ্জ-৬ উপনির্বাচন

উন্নয়নের স্বার্থে ড. লিটনকে চান আ.লীগের নেতাকর্মীরা

অনলাইন ডেস্ক

উন্নয়নের স্বার্থে ড. লিটনকে চান আ.লীগের নেতাকর্মীরা

সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের উপ-নির্বাচনে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তাঁদের মতে, এলাকার উন্নয়নে এবং কর্মীবান্ধব নেতা হিসেবে ড. লিটনের বিকল্প নেই। 

ড. লিটনের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের হাত ধরে যেমন শাহজাদপুর উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ অনেক পরিবর্তন এসেছে, তেমনি ড. লিটনকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করা গেলেও এলাকায় যুগান্তকারী অনেক পরিবর্তন আসবে।

স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক এবং সরকার ও আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ে ভাল যোগাযোগ থাকায় তাঁর পক্ষেই কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব। শাহজাদপুর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা এমনটা জানিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত সিরাজগঞ্জ-৬ সংসদীয় আসন। সম্প্রতি সংসদ সদস্য হাসিবুর রহমান স্বপনের মৃত্যুতে আসনটি শূণ্য হয়। শাহজাদপুর উপজেলার অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হলো দুগ্ধ এবং তাঁত শিল্প। 

করতোয়া নদীর পশ্চিমে দুগ্ধ শিল্প আর পূর্ব দিকে তাঁত শিল্পের প্রাধান্য। শাহজাদপুরে এই দুইটি শিল্পের বিকাশে যিনি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন তিনি হলেন ড. লিটনের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহন। তিনি শাহজাদপুরের পোঁতাজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৫ বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান এবং শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের দুইবার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। 

তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থাকাকালেই পোঁতাজিয়া ইউনিয়নে স্থাপন হয় বাংলাদেশ দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় ইউনিয়ন লিমিটেড (মিল্কভিটা) এর সবচেয়ে বড় কারখানা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের হাত ধরে শাহজাদপুরে তাঁত শিল্পেরও বিকাশ হয়। তিনি পাকিস্তান আমলে তাঁত শিল্পের সঙ্গে যুক্ত হন। তৎকালীন ভারতের বোম্বে (মুম্বাই) থেকে ডিজাইন নিয়ে এসে শাহজাদপুরে নিজের কারখানায় কাপড় উৎপাদন করতেন মোহন। তিনি সেসময়ে শাহজাদপুর বণিক সমিতির সভাপতিও ছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময়ে একদিকে যেমন সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নেন অন্যদিকে মুক্তিযোদ্ধাদের অর্থনৈতিকভাবেও সহযোগিতা করতেন।

জানা যায়, আব্দুল মতিন মোহনের পদাঙ্ক অনুসরণ করে তাঁর সন্তান সাজ্জাদ হায়দার লিটনও শাহজাদপুরের মানুষের পাশে থেকে তাদের সেবা করে চলেছেন। তার ঐকান্তিক চেষ্টায় শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। তাঁর বাবা আব্দুল মতিন মোহনের নামে রাস্তা, ব্রিজ নির্মাণ করেছেন। নিজস্ব জমি ও অর্থায়নে স্কুল, ঈদগাহ, কবরস্থান নির্মাণ করেছেন।

জানা গেছে, গত দুই দশক ধরে জাতীয় পর্যায়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন সাজ্জাদ হায়দার লিটন। তিনি গত ১৯ বছর ধরে আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা। বর্তমানে তিনি যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। এর আগে ২০১২ সালে যুবলীগের কমিটি গঠন হলে সাজ্জাদ হায়দার লিটন আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। 

এরও আগে জাহাঙ্গীর কবির নানক ও মির্জা আজমের নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন ড. লিটন। তিনি ২০১২ সালে আন্তর্জাতিক সম্পাদক হওয়ার পরে সারা বিশ্বে যুবলীগের কর্মকাণ্ডে গতির সঞ্চার হয়। তিনি বিভিন্ন দেশ ঘুরে যুবলীগকে সংগঠিত করেন।

আরও পড়ুন


জেলেদের জালে ২ কেজি ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছ

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

প্রচণ্ড গরমে দেড় লিটার ঠাণ্ডা পানীয় পান করে যুবকের মুত্যু

ডিসেম্বরে পাকিস্তান সফরে আসবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ


২০০৭ সালের আলোচিত এক এগারোর রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সাহসী ভূমিকা রাখেন সাজ্জাদ হায়দার লিটন। সেসময়ের বাস্তবতায় অনেক নেতা যখন গা ঢাকা দেন তখন তিনি রাজপথে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কারামুক্তির আন্দোলন সংগ্রামে সামনের সারিতে ছিলেন। ঝুঁকি নিয়ে ও তৎকালীন সেনা সমর্থিত সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সাজ্জাদ হায়দার লিটন ধানমণ্ডির সুধাসদনে শেখ হাসিনার সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন।

শাহজাদপুরের বিভিন্ন পর্যায়ের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সাজ্জাদ হায়দার লিটনকে আগামী উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান। ড. লিটনের পরিবার ও তাঁর নিজের রাজনৈতিক অবদান, শিক্ষাগত যোগ্যতা, কর্মী বান্ধব রাজনীতি, সর্বপোরি জনসেবার মানসিকতাই তাঁকে প্রার্থী হিসেবে এগিয়ে রাখছে।

জানতে চাইলে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবলা বলেন, ‘এবারের উপনির্বাচনে দুই পরিবারের তিনজন মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্যে মূল লড়াই হবে।’

সাজ্জাদ হায়দার লিটনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তাঁর বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। বর্তমানে ড. লিটন যুবলীগের কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন। এলাকাতেও তাঁর ভালো অবস্থান রয়েছে।’

পোঁতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আনসার আলী বলেন, ‘লিটনের বাবা মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। পোঁতাজিয়া ইউনিয়নের টানা ৫ বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ছিলেন। তাঁর নেতৃত্বে আমরা রাজনীতি করেছি। লিটন নিজেও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। তাঁর বাবার অবস্থান এবং নিজের সাংগঠনিক পরিচয় সবমিলিয়ে এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে। আওয়ামী লীগ তাঁকে মনোনয়ন দিলে এলাকার সবাই তার পক্ষে কাজ করবে। তবে যদি কোনো হাইব্রিড নেতা মনোনয়ন পায় তাহলে আমরা কষ্ট পাব।’

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

ধর্মবালম্বীদের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সম্প্রীতি বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক

ধর্মবালম্বীদের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সম্প্রীতি বাংলাদেশ

সম্প্রীতি বাংলাদেশ দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মবালম্বীদের উপাসনালয়, বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। 

এক বিবৃতিতে সংগঠনের আহ্বায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় ও সদস্যসচিব মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল জানান, কুমিল্লায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজা এবং উৎসবের সময় এবং এর জের ধরে পরবর্তীতে দেশের বিভিন্ন স্থানে যে ঘটনা ঘটেছে, তা হাজার বছরের বাঙালি সংস্কৃতির সম্পূর্ণ বিপরীত। একটি চিহ্নিত গোষ্ঠী সম্প্রীতি ও বাঙালি সংস্কৃতির বহুত্ববাদকে চ্যালেঞ্জ করতে চাইছে।

সম্প্রীতি বাংলাদেশ এসব ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

সম্প্রীতি বাংলাদেশ মনে করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং জাতির পিতার অসাম্প্রদায়িক দর্শন বিনষ্ট করার এ এক পুরনো ষড়যন্ত্র। এ যেন নতুন বোতলে পুরনো নেশাদ্রব্য। দেশের পবিত্র সংবিধানে লিপিবদ্ধ অসাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির আঘাত সম্মিলিতভাবে রুখে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সম্প্রীতি বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ। 

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


সম্প্রীতি বাংলাদেশ বিশ্বাস করে ষড়যন্ত্রকারী দুর্বৃত্তের সংখ্যা বেশি নয় এবং শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষের ঐক্যবদ্ধ শক্তিই পারে এ অপকর্ম রুখে দিতে। এ দেশের অতীত অভিজ্ঞতা সেটাই প্রমাণ করেছে।

ভুলে গেলে চলবে না যে জাতির পিতার আহ্বানে মহান একাত্তরে দেশের মুসুলমান-হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানসহ সকল ধর্মের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলে। সকল ধর্মবিশ্বাসী বাঙালির মিলিত রক্তস্রোতের বিনিময়ে অর্জিত অসাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে চিরতরে রুখে দেওয়ার জন্য সরকারের পাশাপাশি সকল মানুষ বিশেষ করে যুবসমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানায় সম্প্রীতি বাংলাদেশ।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল

অনলাইন ডেস্ক

খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল করেছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদল। আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় এ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

দোয়া মাহফিলে অংশগ্রহণ করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কাজী আবুল বাশার, যুবদলের সাইফুল আলম নীরব, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, নুরুল ইসলাম নয়ন, হাবিবুর রশিদ হাবিব, গোলাম মাওলা শাহীন, খন্দকার এনামুল হক এনামসহ বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


এছাড়া মিরপুর শাহী মসজিদে বিএনপি নেতা এস এ সিদ্দিক সাজুর নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া মিলাদের আয়োজন করা হয়।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আমাকে সম্মান দিয়ে কথা বলুন : ডা. মুরাদ

অনলাইন ডেস্ক

আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আমাকে সম্মান দিয়ে কথা বলুন : ডা. মুরাদ

তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার মুখের দিকে তাকিয়ে রাজনীতি করি। মেরুদণ্ডহীন মির্জা ফখরুল আর খোঁড়া রিজভী আন্দোলনের ভয় দেখায়। কাদেরকে দেখায়? মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগকে, বঙ্গবন্ধুকন্যাকে, ডা. মুরাদ হাসানকে? রাজাকারের বাচ্চারা, ওই ভয় আমরা পাই না। আমাদের হুমকি-ধমকি দিয়ে কোনো লাভ হবে না।

আজ সোমবার চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর আয়োজিত দীপ্ত জয়োল্লাস অদম্য আত্মবিশ্বাস শেখ রাসেলের ৫৭তম জন্মবার্ষিকীতে আলোচনা সভায় বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তিনি এসব কথা বলেন তথ্যপ্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ডা. মুরাদ মাথা নিচু করে কথা বলবে না। মাথা উঁচা করেই কথা বলবে। কাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করো, কুশপুত্তলিকাদাহ করো। আমরা যদি শুরু করি তাহলে ঢাকার মাটিতে টিকতে পারবেন না। ডাক্তার মুরাদ হাসান সম্পর্কে ভালো করে জেনে নিয়েন। তারপরে কথা বলেন। আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আমাকে সম্মান দিয়ে কথা বলুন।


আরও পড়ুন

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

শরীরের ইমিউনিটির উপর বিশ্বাসী অভিনেত্রী করোনায় আক্রান্ত

অনিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

অবরোধ তুলে নিলো ঢাবি শিক্ষার্থীরা


তথ্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমাকে নিয়ে কথা বলেন, কত যোগ্যতা আছে? আসেন বসি। কোথায় বসবেন জাতীয় প্রেস ক্লাবে? চলেন বসি। আমার মন্ত্রিগিরি থাকবে নাকি থাকবে না- আপনাকে বলার অধিকার কে দিয়েছে?
অনুষ্ঠানে নিজের বক্তব্যের শুরুতে মুরাদ হাসান বলেন, আমার প্রতি অনুরোধ, কিছু বিষয়ে যাতে কথা না বলি।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত 

পরবর্তী খবর

শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে পটিয়ায় দোয়া মাহফিল

অনলাইন ডেস্ক

শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে পটিয়ায় দোয়া মাহফিল

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলমের পক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত সভার সভাপতিত্ব করেন পটিয়া পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার আবদুল খালেক।

আরও পড়ুন:


ফতুল্লায় সুজন ফকির হত্যাকাণ্ডে দুই ঘাতক গ্রেপ্তার

মন্দিরে হামলার ঘটনায় গোয়েন্দা সংস্থা নিয়ে প্রশ্ন রিজভীর

প্রেম করে বিয়ে করায় ৪ নাতি ও ২ মেয়েকে পুড়িয়ে হত্যা

বড় ভাই শেখ জামালের মতো সেনা অফিসার হতে চাইতো শেখ রাসেল: প্রধানমন্ত্রী


সঞ্চলনা করেন পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সাজ্জাদ হোসাইন।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ডি এম জমির উদ্দিন ও বিশেষ অতিথি ছিলেন পটিয়া উপজেলা মৎসজীবী লীগের আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম এবং এতে আরো উপস্থিত ছিলেন পটিয়া পৌরসভা ১নং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, পটিয়া পৌরসভা ১নং ওয়ার্ড শ্রমিকলীগের সভাপতি বাশেক, পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক রিটন বড়ুয়া, ভাটিখাইন ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি মো. হাসান পটিয়া উপজেলা যুবলীগ নেতা তৌহিদুল আলম জুয়েল, সাইফুদ্দিন ভোলা, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আদনান রুবেল, সৌরভ, পারভেজ, মারুফ, রাপসান, ওসমান, সুমন, মিনহাজ, সজীব প্রমুখ।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারকে রক্ষা করতে না পারা বাঙালি জাতির বড় ব্যর্থতা : প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারকে রক্ষা করতে না পারা বাঙালি জাতির বড় ব্যর্থতা :  প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারকে রক্ষা করতে না পারা বাঙালি জাতির সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাজধানীর মৎস্য ভবনে মৎস্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে শেখ রাসেল দিবস ২০২১ উপলেক্ষ্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

এ সময় তিনি বলেন, "শেখ রাসেলকে হত্যার মাধ্যমে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবিকে হত্যা করতে চেয়েছিল, বঙ্গবন্ধুর ধারাবাহিকতাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। জাতির পিতার পরিবারকে রক্ষা করতে না পারা জাতি হিসেবে আমাদের বড় ব্যর্থতা। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে জাতির ইতিহাসের এ গ্লানিকে আরো জঘন্যতম অধ্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। যে কারণে শেখ রাসেলের জন্মদিনে আনন্দ-উচ্ছ্বাসের পরিবর্তে আমাদের হৃদয় থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছে"।

মন্ত্রী আরো বলেন, "শেখ রাসেল ছিলেন বঙ্গবন্ধুর রক্ত ও আদর্শের উত্তরসূরি। জন্মের পরই তার ধমনীতে রাজনীতি সূচিত হয়েছিল। অসাধারণ, অকল্পনীয় ব্যক্তিত্বের বিকাশ তার মধ্যে হয়েছিল। শিশু রাসেলকে পর্যবেক্ষণ করে অনুধাবন করা যায়, তিনি বেঁচে থাকলে আজ জাতির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসুরি হতেন। কিন্তু আমরা সে সুযোগ নিতে পারিনি। এটা বাঙালি জাতির দুর্ভাগ্য"।

শ ম রেজাউল করিম যোগ করেন, "শেখ রাসেলের মতো নিষ্পাপ শিশুকে যারা নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে, সে মানুষগুলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে না, তারা বাংলাদেশে বিশ্বাস করেনা, বঙ্গবন্ধুতে বিশ্বাস করে না, তারা হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান-এর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশে বিশ্বাস করে না। এই মানুষগুলো বাংলাদেশ থেকে নিঃশেষ হয়ে যায়নি। তাদের উত্তর প্রজন্ম এখনো বাংলাদেশে রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে এখনো তারা ধ্বংস করতে চায়"।
 
"শেখ রাসেলের জন্মদিনের মনে রাখতে হবে, আমাদের শিশুরা যাতে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত নির্যাতনের শিকার না হয়, নির্দয় আচরণের শিকার না হয়। আগামী দিনে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য শিশুদের মেধা ও চিন্তা-চেতনায় আদর্শ ও সততার বিকাশ ঘটাতে হবে। এভাবে নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলতে পারলে তাদের ভেতরে শিশু শেখ রাসেলকে আমরা খুঁজে পাবো"-যোগ করেন মন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, "শিশু শেখ রাসেলকে যারা হত্যা করেছে, জাতির জনককে যারা হত্যা করেছে, তারা একটি অপশক্তি, তারা একটি প্রতিক্রিয়াশীল চক্র। তাদের হাত থেকে বাংলাদেশকে রক্ষা জন্য আমরা বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরসূরি শেখ হাসিনাকে পেয়েছি। তাঁর মধ্যে আমরা বঙ্গবন্ধুকে খুঁজে নিতে চাই, শেখ রাসেলকে খুঁজে নিতে চাই। তাঁর মধ্যে ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মত্যাগ খুঁজে নিতে চাই। তাঁর মধ্যে খুঁজে নিতে চাই হাজার বছরের সম্প্রীতির বাংলাদেশ"।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান কাজী হাসান আহমেদ, মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী শামস্ আফরোজ, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডাঃ শেখ আজিজুর রহমান, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মোঃ আবদুল জলিল এবং মেরিন ফিশারিজ একাডেমির অধ্যক্ষ ক্যাপ্টেন ওয়াসিম মকসুদ। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার। মন্ত্রণালয়, মৎস্য অধিদপ্তর ও প্রাণিসম্পদ অধিপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর