বিয়ের আসর থেকে স্কুলে চলে গেল কনে!
বিয়ের আসর থেকে স্কুলে চলে গেল কনে!

বিয়ের আসর থেকে স্কুলে চলে গেল কনে!

অনলাইন ডেস্ক

বিয়ের সব আয়োজন শেষ। সবাই অপেক্ষা করছে বরের। কিন্তু বর নয় বিয়ে বাড়ি উপস্থিত হল পুলিশ। পুলিশ আসার সংবাদ পেয়ে বর আর আসেনি বিয়ের করতে।

বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেলো নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী (১৪)। শ্বশুর বাড়ির বদলে ওই শিক্ষার্থীকে স্কুলে পাঠানোর ব্যবস্থা করলো চুয়াডাঙ্গা থানা পুলিশ।


আরও পড়ুন

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে ক্রিকেট চর্চা বাড়াতে চান কোচ নাজমুল আবেদিন

ইভ্যালির বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতা কমিশনের মামলা

অভিজাত এলাকায় প্রবেশ করতে গুনতে হবে ট্যাক্স: মেয়র আতিক

নতুন মন্ত্রিসভা ঘোষণা করেছে দুবাই শাসক


আজ শনিবার চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাড়াবাড়িয়া গ্রামের ছাগলাপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন জানান, ওই গ্রামের নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর বিয়ের আয়োজন করা হয়। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আমরা সেখানে যাই। খবর দেয়া হয় জনপ্রতিনিধি ও স্কুলের শিক্ষকদেরও। সবাই মেয়ের অভিভাবকের সাথে কথা বলি।

মেয়ের পিতা জানান আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে মেয়ের লেখাপড়া চালাতে বলে মেয়েকে বিয়ে দিচ্ছেন। সব শুনে আমরা মেয়েটির পড়াশোনার যাবতীয় দায়িত্ব গ্রহণ করি। তাৎক্ষণিকভাবেই মেয়েটির দুই বছরের স্কুল ফি, পরীক্ষার ফিসহ বিদ্যালয়ের সব খরচ পরিশোধ করা হয়। এছাড়াও তার যাবতীয় শিক্ষা উপকরণেরও ব্যবস্থা করে দেয়া হয়। ’

ওসি আরও বলেন, মেয়েটিকে শ্বশুর বাড়ি পাঠিয়ে অভিভাবকরা তার নতুন জীবন শুরু করতে চেয়েছিল। আমরা স্কুলে পাঠিয়ে তার নতুন জীবন শুরু করলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সীমান্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোছাম্মৎ মেহেজাবিন, স্থানীয় ইউপি সদস্য জিন্নু, মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট মানি খন্দকার, থানার উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ ইমরান প্রমুখ।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

 
 
 
 
 

বাসর রাতে ঘুমানোর জায়গা নিয়ে তর্ক, বরের মৃত্যু

 

অনলাইন ডেস্ক

বাসর রাতে ঘুমানোর জায়গা নিয়ে তর্ক, বরের মৃত্যু
  
 

বাসর রাতে বরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে। বাবুল হোসেন (২০) নামের ওই ব্যক্তিকে আজ শনিবার ভোরে বাড়ির রান্নাঘরে ফাঁস দেওয়া অবস্থায় তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান পরিবারের লোকজন।  

বাবুল দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের চরতিস্তাপাড়া এলাকার সফিজুল ইসলামের ছেলে। তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে তার পরিবার দাবি করেছে। তবে পুলিশ বলছে, এটি ‌‘রহস্যজনক’ মৃত্যু। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য রফিকুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার রাতে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের দিনবাজার এলাকার সবারউদ্দিনের মেয়ে সাবিনা ইয়াসমিনের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় বাবুলের বিয়ের পর নববধূ সাবিনাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। সাবিনার সঙ্গে আসেন তার দাদি ও দুই শিশু। কিন্তু বাড়িতে মাত্র দুটি ঘর থাকায় কে কোথায় ঘুমাবেন তা নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। একপর্যায়ে বাসর ঘরেই বর-কনের সঙ্গে কনের দাদি ও তার সঙ্গে আসা দুই শিশু, বরের বোনজামাই হুসেন আলী ঘুমান। ভোরে ঘুম থেকে উঠে পরিবারের লোকজন রান্না ঘরে গিয়ে গলায় রশি দিয়ে ফাঁসি দেওয়া অবস্থায় বাবুলের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান। তবে তার পা মাটিতে স্পর্শ করে থাকায় রহস্যের জন্ম দিয়েছে। খবর পেয়ে দেবীগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।


আরও পড়ুন

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে ক্রিকেট চর্চা বাড়াতে চান কোচ নাজমুল আবেদিন

ইভ্যালির বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতা কমিশনের মামলা

অভিজাত এলাকায় প্রবেশ করতে গুনতে হবে ট্যাক্স: মেয়র আতিক

নতুন মন্ত্রিসভা ঘোষণা করেছে দুবাই শাসক

 
;