যে অর্জনগুলো আর কারও নেই

অনলাইন ডেস্ক

যে অর্জনগুলো আর কারও নেই

আজ আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক ব্যতিক্রমী এবং অনন্য উচ্চতায় রয়েছেন শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে এমন কিছু অর্জন করেছেন সে অর্জনগুলো আর কারও নেই। 

শুধু বাংলাদেশ তো নয়, বিশ্বের অনেক রাজনৈতিক নেতাও এ অর্জনগুলোর স্পর্শ করতে পারেনি। যে রেকর্ডগুলো শেখ হাসিনা করেছেন সেই রেকর্ড ভবিষ্যতে কেউ ভাঙ্গতে পারবে কিনা তা নিয়েও রাজনৈতিক অঙ্গনে অনেক সংশয় রয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতির যে অর্জনগুলো অনন্য, অসাধারণ এবং তুলনাহীন তার মধ্যে রয়েছে: 

১. টানা ৪০ বছর একটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব দেওয়া: আওয়ামী লীগ সভাপতি চল্লিশ বছর ধরে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এটি একটি অনন্য অর্জন এই ৪০ বছর তিনি শুধুমাত্র যে আওয়ামী লীগের সভাপতি আছেন তা নয়, তাঁর জনপ্রিয়তা প্রশ্নাতীত এবং দলের একজন নেতাকর্মী ও মনে করেন না যে শেখ হাসিনার কোন বিকল্প আছে। এটি একজন রাজনৈতিক নেতার অসাধারণ প্রাপ্তি। আওয়ামী লীগের তৃণমূল থেকে শুরু করে সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা মনে করেন যে শেখ হাসিনার জন্য আওয়ামী লীগ আজকের এই অবস্থানে এসেছেন। আর সেকারণেই তারা মনে করে যে শেখ হাসিনার বিকল্প একমাত্র শেখ হাসিনাই।

২. ১৭ বছরের বেশি সময় প্রধানমন্ত্রী: বাংলাদেশের মতো একটি জটিল রাজনৈতিক মেরুকরণের দেশে যেখানে সরকারের জনপ্রিয় থাকা একটি কঠিন ব্যাপার, সেখানে টানা ১২ বছরের বেশি সময় ধরে ক্ষমতায় আছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর প্রধানমন্ত্রীত্বের সর্বমোট মেয়াদ ১৭ বছরের বেশি। ১৯৯৬ সালের প্রথম তিনি সরকার গঠন করেছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর আওয়ামী লীগের পুনর্জন্ম দেন শেখ হাসিনা এবং ধীরে ধীরে ২১ বছরের সংগ্রামের পর আওয়ামী লীগকে দেশ পরিচালনার দায়িত্বে নিয়ে আসেন, শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। এরপর ২০০৮ এর নির্বাচনে বিপুল তিনি ভোটে বিজয়ী হন এবং তারপর থেকে পরপর তিনটি নির্বাচনে টানা ক্ষমতায় আছেন আওইয়ামী লীগ সভাপতি। বাংলাদেশ শুধু নয় বিশ্বে ১৭ বছর সরকার প্রধান হিসেবে থাকা একটি বিরল ঘটনা। খুব কম সরকারপ্রধানের এই ধরনের বিরল রেকর্ডের অধিকারী।

৩. অর্থনৈতিক উন্নয়ন: আওয়ামী লীগ সভাপতির সাফল্যের একটি বড় দিক হলো অর্থনৈতিক উন্নয়ন। শেখ হাসিনা যখন ক্ষমতা গ্রহণ করেন তখন বাংলাদেশ ছিলো নিম্ন আয়ের দেশ। সেখান থেকে তিনি স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন। বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়, গড় আয়ু থেকে শুরু করে বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশ বিশ্বের বিস্ময় সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশকে মনে করা হয় উন্নয়নের রোল মডেল, এটি শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই সম্ভব হয়েছে।

৪. আত্মমর্যাদা এবং নিজের টাকায় পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনা কেবল বাংলাদেশকে উন্নত এবং অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রার একটি রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেননি, বাংলাদেশকে একটা আত্মসম্মান মর্যাদা নিয়ে গেছেন। বিশ্বব্যাংক যখন বাংলাদেশের পদ্মা সেতু নিয়ে আপত্তি ও দুর্নীতির অভিযোগ করেছিলো তখন প্রধানমন্ত্রী সেই অভিযোগ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে নিজের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন যে পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। বাংলাদেশের বড় একটা বিজ্ঞাপন হল এখন এই নিজের টাকায় পদ্মা সেতু। শুধু পদ্মা সেতু নয়, মেট্রোরেল, কর্ণফুলী টানেল সহ বিভিন্ন দৃশ্যমান উন্নয়ন এখন বাংলাদেশকে আত্মমর্যাদার এক অনন্য জায়গায় নিয়ে গেছে যেটি শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণেই সম্ভব হয়েছে।

৫. যুদ্ধাপরাধীদের বিচার: শেখ হাসিনার রাজনৈতিক অর্জনের একটি অন্যান্য দিক হলো যুদ্ধাপরাধের বিচার। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যে সমস্ত স্বাধীনতা-বিরোধী রাজাকার, আলবদর গোষ্ঠী বাংলাদেশের মা- বোনদের কে ধর্ষণ করেছে, নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে এবং অগ্নিসংযোগ লুটপাট করেছে তাদের বিচার ছিল সময়ের দাবি। আওয়ামী লীগ সভাপতি ২০০৮-এর নির্বাচনী ইশতিহারে অঙ্গীকার করেছিলেন যে তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবেন এবং এই অঙ্গীকার পূরণ করে তিনি বাংলাদেশকে কলঙ্কমুক্ত করেছেন।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

৬. বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার: ৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়। এই কলঙ্ক উন্মোচন করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। আর এটি করতে যেয়ে আইনের দীর্ঘ লড়াইয়ের পথ বেছে নিয়েছেন, প্রচলিত আইনে বঙ্গবন্ধুর বিচার শেখ হাসিনার এক অনন্য অর্জন।

এছাড়াও আওয়ামী লীগ সভাপতির আরো অনেক অর্জন রয়েছে যে অর্জনগুলো তাকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে, তাকে করেছে অপরাজেয়। শেখ হাসিনা একজন জননেত্রী থেকে রাষ্ট্রনায়ক, রাষ্ট্রনায়ক থেকে এখন বিশ্ব নেতায় পরিণত হয়েছেন। এই সামনের দিনগুলোতে হয়তো শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে নিয়ে যাবেন আরো অনেকদূর এগিয়ে এটি দেশবাসীর প্রত্যাশা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

দেশে করোনায় আরও ৬ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে করোনায় আরও ৬ জনের মৃত্যু

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩৬৮ জন।

আজ বুধবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন


লক্ষ্মীপুরে খোঁজ মিলছে না দুই কিশোরীর

আশুগঞ্জে অজ্ঞাত গাড়ির চাপায় দুই চালকল শ্রমিক নিহত

তিস্তার সব গেট খুলে দেওয়ায় বড় বন্যার আশঙ্কা

প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা


news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

দেশে গণতন্ত্র নেই, তাই এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি: জাফরুল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক

দেশে গণতন্ত্র নেই, তাই এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি: জাফরুল্লাহ

দেশে গণতন্ত্র নেই, ভোটে সরকার ক্ষমতায় আসেনি, তাই এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। এ কথা বলেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:


টাকা না দেওয়ায় নানাকে হত্যা করে ঘরেই পুঁতে রাখে নাতি

আমরা আরও বেশি সতর্ক: ওবায়দুল কাদের

পরবর্তী খবর

সিন্ডিকেটকে সুযোগ দিতে জনগণের দৃষ্টি চৌমুহনী-হাজীগঞ্জ-পীরগঞ্জে: রিজভী

অনলাইন ডেস্ক

সিন্ডিকেটকে সুযোগ দিতে জনগণের দৃষ্টি চৌমুহনী-হাজীগঞ্জ-পীরগঞ্জে: রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির পেছনে সরকারদলীয় সিন্ডিকেট দায়ী। প্রধানমন্ত্রী মনে করেন, চাল, লবণ, পেঁয়াজ ও ডালের দাম বাড়াবেন আর তার সিন্ডিকেটরা পকেট ফোলাবে। পকেট ফুলিয়ে মোটা-সোটা হতে থাকবে। আর এর মধ্য দিয়ে সরকারের ময়ূর সিংহাসন টিকে থাকবে- এটিই হচ্ছে শেখ হাসিনার অভিপ্রায়।

রুহুল কবির রিজভী বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন।
 
তিনি বলেন, সয়াবিন তেলের দাম এক লাফে সাত টাকা বেড়েছে। ১৫৩ টাকা থেকে বেড়ে ১৬০ টাকা হয়েছে। ওবায়দুল কাদের বলছেন, মনিটরিং করছেন শেখ হাসিনা। আর এ মনিটরিং করতে গিয়ে চাল-ডালের দাম সব হু হু করে আকাশ ছুঁই ছুঁই করছে। এটিই হচ্ছে শেখ হাসিনার রাজনৈতিক অপকৌশল।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সিন্ডিকেটকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য তিনি জনগণের দৃষ্টি চৌমুহনী, হাজীগঞ্জ, চট্টগ্রাম ও পীরগঞ্জে  নিয়ে রেখেছেন। আর ওবায়দুল কাদেরসহ আরও যারা মন্ত্রী রয়েছেন তাদেরকে তিনি বলে রেখেছেন, তোমরা এ নিয়ে জনগণকে ব্যস্ত রাখো। তারা সে কাজ অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে করছেন।

আরও পড়ুন:


টাকা না দেওয়ায় নানাকে হত্যা করে ঘরেই পুঁতে রাখে নাতি

আমরা আরও বেশি সতর্ক: ওবায়দুল কাদের


কুমিল্লার পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কুমিল্লাবাসী এবং হিন্দু সম্প্রদায়ও বলছে, তারা নিরাপত্তার জন্য কুমিল্লা প্রশাসনকে বলেছিল। কিন্তু প্রশাসন যথাসময়ে সাড়া দেয়নি, অনেক দেরি করে এসেছে, এ নিয়ে পত্রপত্রিকায়ও লেখালেখি হচ্ছে। আজ একের পর এক বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। 

বিএনপির এ নেতা বলেন, ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন। রংপুর পুড়ছে, হাজীগঞ্জ পুড়ছে, নোয়াখালীতে আক্রমণ হচ্ছে, আর শেখ হাসিনা শুধু দেখছেন। ওবায়দুল কাদেরের সুরে প্রধানমন্ত্রী আবার বলেন, আমি না দেখলে কে দেখবে। একটি ভয়ংকর মিথ্যার ওপর তারা বসবাস করছে। অন্যকে বলেছেন মিথ্যেবাদী।

রিজভী বলেন, আজ গুম-খুনের রাজনীতিতে, আজ মিথ্যাচারের রাজনীতিতে আমরা প্রত্যেকে যদি প্রশিক্ষিত হই, আমার মনে হয় সরকার বেশি দিন টিকতে পারবে না। আদর্শের কাছে, ন্যায়ের কাছে, ইনসাফের কাছে, সুশাসনের কাছে, নীতির কাছে কখনোই জুলুমকারীরা টিকে থাকতে পারে না। কখনোই পারবে না। আমার মনে হয় আজ এ সরকার একটি গভীর নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হওয়ায় বহু দেশের সরকার পতন, বাংলাদেশ টিকে আছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হওয়ায় বহু দেশের সরকার পতন, বাংলাদেশ টিকে আছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক

করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় মালোয়েশিয়া, ইটালি, আমেরিকা সহ বহু দেশের সরকার পতন হয়ে গেছে।

কিন্তু বাংলাদেশের সরকার কাজ করেছে বলেই টিকে আছে। এমন মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:


টাকা না দেওয়ায় নানাকে হত্যা করে ঘরেই পুঁতে রাখে নাতি

আমরা আরও বেশি সতর্ক: ওবায়দুল কাদের


news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

তিস্তার সব গেট খুলে দেওয়ায় বড় বন্যার আশঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক

তিস্তার সব গেট খুলে দেওয়ায় বড় বন্যার আশঙ্কা

ভারতের গজলডোবা ব্যারেজের সবগুলো গেট খুলে দেওয়ায় লালমনিরহাটে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার (২০ অক্টোবর) ভোর থেকে তিস্তার পানি বাড়ায় লালমনিরহাটের তিন উপজেলার তিস্তার চর এলাকায় ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সূত্র জানায়, মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাত থেকে তিস্তার পানি বেড়ে ডালিয়া পয়েন্টে ৫২ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছে। বুধবার (২০ অক্টোবর) সকাল ৯ টায় ওই পয়েন্টে ৫৩ দশমিক ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যা বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপরে। তিস্তার পানি ক্রমেই বাড়ছে।

এদিকে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাতীবান্ধার গড্ডিমারী, পাটগ্রামের দহগ্রাম, সিঙ্গামারি, সিন্দুর্না, পাটিকাপাড়া, ডাউয়াবাড়ী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, শৈইলমারী, নোহালী, চর বৈরাতি তিস্তা নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করে প্রায় ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

আরও পড়ুন


ক্ষীরশাপাতি আমের পর এবার আরও দুইটি পণ্য জিআই সনদ পাচ্ছে

দীপিকাকে না করতে পারিনি: তাহসান

প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

বুধবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে


ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আসফাউ দৌলা জানান, উজানের ঢলে ও ভারী বৃষ্টিপাতে তিস্তার পানি বেড়ে বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া ভারতের গজলডোবার ৪৪টি গেট খুলে দেয়া হয়েছে। তাই তিস্তাপাড়ের মানুষদের নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নেয়ার জন্য বলা হচ্ছে।

তিস্তা ব্যারেজ কন্ট্রোল রুম ইনচার্জ নুরুল ইসলাম জানান, ভারতে ভয়াবহ বন্যার কারণে বুধবার (২০ অক্টোবর) সকালে হঠাৎ করে ব্যারেজ পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি পেতে থাকে। সকাল ৬টায় ব্যারেজ পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর