কানাডায় বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে আগ্রহ আছে, প্রয়োজন মানসম্মত ছবি

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডায় বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে আগ্রহ আছে, প্রয়োজন মানসম্মত ছবি

কানাডার মূলধারায় বাংলাদেশি চলচ্চিত্র নিয়ে তুমুল আগ্রহ আছে। সেই আগ্রহকে কাজে লাগাতে মানসম্পন্ন ভালো ছবির যোগান বাড়াতে হবে। কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশি চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং চলচ্চিত্রসেবীরা এই মত দিয়ে বলেছেন, টরন্টো ফিল্ম ফোরামের ব্যানারে তাঁরা মূলধারা এবং বিভিন্ন কমিউনিটিতে বাংলাদেশি চলচ্চিত্রকে জনপ্রিয় করে তোলার চেষ্টা করছেন।

কানাডার বাংলা পত্রিকা ‘নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ‘ শওগাত আলী সাগর লাইভে’র আলোচনায় তারা এই মত প্রকাশ করেন।

বক্তারা বাংলা চলচ্চিত্রের বর্তমান দূরাবস্থার জন্য সহায়ক নীতিমালার অভাব এবং বিশ্বপরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেদের গুণগত উৎকর্ষতার দিকে মনোযোগ না দেয়াকে দায়ী করেন। তারা বলেন, যে কোনো তরুণ এখন চাইলেই বিশ্বের যে কোনো দেশের ভালো সিনেমা দেখতে পারে। এই বাস্তবতা বিবেচনায় রেখে কাহিনী এবং চলচ্চিত্র নির্মাণে গুনগত মানের দিকে মনোযোগি না হলে সিনেমাকে মানুষের কাছে ফিরিয়ে আনা যাবে না।

স্থানীয় সময় সোমবার রাতে ‘টরন্টো মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং বাংলা চলচ্চিত্র’ শীর্ষক এই আলোচনায় অংশ নেন টরন্টো ফিল্ম ফোরামের সভাপতি, চলচ্চিত্র নির্মাতা এনায়েত করীম বাবুল, বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের সাবেক সভাপতি, চলচ্চিত্র নির্মাতা আমিনুল ইসলাম খোকন এবং টরন্টো মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০২১ এর ব্যবস্থাপনা কমিটির অন্যতম কর্মকর্তা ফায়েজ নুর ময়না।

প্রসঙ্গত, টরন্টোয় বসবাসরত বাংলাদেশি চলচ্চিত্র নির্মাতাদের সংগঠন টরন্টো ফিল্ম ফোরামের উদ্যোগে ‘টরন্টো মাল্টিকালচারাল ফেস্টিভ্যাল ২০২১’ চলছে। ছয় দিনের এই উৎসবে ১১০টি দেশের ৩০০টি বিভিন্ন ধরনের চলচ্চিত্র দেখানো হচ্ছে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাতা এনায়েত করীম বাবুল বলেন, কানাডা বহু সংস্কৃতির দেশ। এখানে নানা দেশের নানা ভাষার মানুষ বসবাস করেন। তাঁরা নিজেদের সংস্কৃতি, ঐতিহ্যকে চর্চায় রেখেই মূলধারার সংস্কৃতির সাথে যুক্ত হতে চায়। তিনি বলেন, ভালো ছবি নিজেরা দেখবো, অন্যকে দেখাবো এবং ভালো ছবির নির্মাতাদের সহযোগিতা দেবো- এই মূলনীতি নিয়েই টরন্টো ফিল্ম ফোরামের যাত্রা শুরু হয়েছিলো। এখন তারা ভালো বাংলা চলচ্চিত্রকে বহু সংস্কৃতির দর্শকদের সামনে তুলে ধরার কাজ করছেন।  

চলচ্চিত্র নির্মাতা আমিনুল ইসলাম খোকন বলেন, তাদের মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে এ বছর ৭১ জন কানাডীয়ান নির্মাতা তাদের ছবি নিয়ে অংশ নিচ্ছেন। বাংলাদেশি চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং চলচ্চিত্র চর্চায় প্রতি কানাডীয়ান নির্মাতাদের আগ্রহ বাড়ছে বলেই এতো বিপুল সংখ্যক নির্মাতা বাংলাদেশিদের একটি আয়োজনে অংশ নিচ্ছেন।

আরও পড়ুন


সংশপ্তকের জন্য জন্মদিনের শ্রদ্ধাঞ্জলি

কুষ্টিয়ার খোকসায় দুই শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত

মুফতি কাজী ইব্রাহীমকে আটক করেছে ডিবি

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে সাকিব আল হাসানের আবেগঘন স্ট্যাটাস


আমিনুল ইসলাম খোকন জানান, প্রবাসে নতুন প্রজন্মের সামনে বাংলা চলচ্চিত্রকে তুলে ধরতে ফিল্ম ফোরামে একটি কোর্স শুরুর পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এই কোর্সের মাধ্যমে বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের বিভিন্ন বিষয় তাদের সামনে তুলে ধরা হবে। তিনি বলেন, নতুন প্রজন্মের চিন্তাটা সম্পূর্ণ ভিন্ন রকম। তারা সামনের দিকে তাকাতে চায়। পুরো বিশ্বের তথ্য হাতের মুঠোয়, সেখানে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের তথ্যটাও ঢুকিয়ে দিতে হবে।

ফয়েজ নুর ময়না তার আলোচনায় বলেন, বাংলাদেশের, বাংলা ভাষায় ভালো চলচ্চিত্র হয় – সেটি আমরা কানাডীয়ানদের জাাননোর চেষ্টা করছি। আমাদের কাজ হচ্ছে চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং দর্শকের সাথে যোগসূত্র স্থাপন করে দেয়া। তিনি জানান, টরন্টো ফিল্ম ফোরাম কানাডার বিভিন্ন এথনিক গ্রুপের কাছে বাংলাদেশির চলচ্চিত্র তুলে ধরার পরিকল্পনাও নিয়েছে। 

আলোচনায় অংশ নিয়ে ‘নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর বলেন, নেটফ্লিক্স এর মতো আন্তর্জাতিক ওয়েব প্লাটফরমগুলোয় বাংলাদেশি এবং বাংলা ভাষার কনটেন্ট এর তেমন উপস্থিতি দেখা যায় না। নেটফ্লিক্স টরন্টোয় নিজস্ব অফিস স্থাপন করছে। তারা এথনিক কনটেন্টের দিকে মনোযোগি হবে। তিনি বাংলাদেশি চলচ্চিত্রসেবীদের সেদিকে মনোযোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, বর্হিবিশ্বে বাংলা ভাষার এবং বাংলাদেশ বিষয়ক বিষয়বস্তুর চলচ্চিত্রের উপস্থিতি বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

কানাডায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ আলোচনা অনুষ্ঠিত

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ আলোচনা অনুষ্ঠিত

কানাডার ক্যালগেরিতে আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল ‘প্রবাস বাংলা ভয়েস’র আয়োজনে প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুলের সঞ্চালনায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত ভার্চুয়াল আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন প্রবাসী সাংবাদিক ও কানাডার নতুনদেশ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এবিএম কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ড: মোহাম্মদ বাতেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান।

এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন প্রকৌশলী আবদুল্লাহ রফিক, প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির, সিলেট এসোসিয়েশন অব কেলগেরীর সভাপতি রুপক দত্ত এবং বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী কিরন বনিক শংকর।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর কাঙ্খিত সোনার বাংলাদেশ বিনির্মানের পথে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ উগ্র সাম্প্রদায়িকতাবাদ ও ধর্মান্ধতা। আর এটি মোকাবিলায় সকল প্রগতিশীল শক্তিকেই স্ব স্ব অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট হতে হবে। কুমিল্লায় সংঘটিত অপ্রত্যাশিত ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙালি জাতির হাজার বছরের আবহমান ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধরে রাখতে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

প্রবাসী সাংবাদিক ও কানাডার নতুনদেশ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর বলেন, কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ঘটনাবলীকে কোনভাবেই বিচ্ছিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই। রাষ্ট্র ও সরকারকে আগে স্বীকার করে নিতে হবে, দেশে সাম্প্রদায়িকতা আছে, হিন্দু ফোবিয়া আছে। সমস্যাকে স্বীকার করেই সমাধানের পথ অনুসন্ধান করতে হবে। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ কে স্বাধীনভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পথ বের করতে হবে। অপরাধ করলে শাস্তি অনিবার্য -এ ধারণা জনগনের মনে তৈরি করতে পারলে পুলিশ প্রহরায় উৎসব, পূজা-পার্বণ আয়োজনের প্রয়োজন নেই।

কলামিস্ট উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন, ধর্মান্ধ শক্তিকে ব্যবহার করে উগ্রবাদকে উস্কে দিয়ে অরাজকতার মাধ্যমে ফায়দা হাসিলের অপচেষ্টাকে রুখতে, রাষ্ট্রকে ধর্মনিরপেক্ষতার পরিবেশ নিশ্চিত করে সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টির উর্বর পথকে রুদ্ধ করতে হবে। সংবিধানে সংখ্যাগুরুর অবস্থান কে সংহত করে সংখ্যালঘুর অধিকার কে নিশ্চিত করা যাবে না। ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে আমরা সবাই বাঙালি, বাংলাদেশ সবার দেশ এ ভাবনাটিকে সংহত করতে হলে কুমিল্লা সহ বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ন্যাক্কারজনক সাম্প্রদায়িক ঘটনার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে জনমনে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

বিশেষ অতিথি এবিএম কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ডঃ মোহাম্মদ বাতেন বলেন- খুবই দুঃখজনক, ধিক্কার জানাই। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, কোনো ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ওপর এ ধরনের হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এক শ্রেণীর অপশক্তি প্রতিনিয়তই এধরনের ঘটনা ঘটিয়ে পার পেয়ে যাচ্ছে। তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে যাতে করে ভবিষ্যতে এধরনের ঘটনা আর না ঘটে। কুরআন হাদিসের রেফারেন্স টেনে তিনি বলেন, সকল ধর্মের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে না পারলে, ইসলামের মূলনীতি বিঘ্নিত হয়।

প্রকৌশলী আবদুল্লাহ রফিক বলেন- স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পার হলেও ৭১ এর পরাজিত শক্তিরা এখনও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টায় লিপ্ত। সুখী, সমৃদ্ধ অর্থনীতির অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মতোই সুদৃঢ় লক্ষ্য ও প্রতিশ্রুতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তাতে কোনো অপশক্তি বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারবে না। অপশক্তি রোধে প্রয়োজন শুধু সমন্বয়ের।

সিলেট এসোসিয়েশন অব কেলগেরীর সভাপতি রুপক দত্ত বলেন - আমরা বিস্মিত, হতবাক। এই কি সেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা? কোথায় আমরা? এই অপশক্তির উৎস কোথায়? তিনি আরো বলেন-চট্টগ্রাম, নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জের চৌমুহনী ও হাতিয়ার বুড়িরচরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির, বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অপরাধী যেই হোক, বাংলার মাটিতে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেখতে চাই।

আরও পড়ুন


ছড়াচ্ছিল দুর্গন্ধ, উৎস খুঁজতে গিয়ে মিলল চিকিৎসকের মরদেহ

৭ বছর পর হলে আসছে অনন্ত জলিলের ‘অ্যাকশন সিনেমা’

কিশোরী প্রেমিকাকে কাশবনে ডেকে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে দুই বন্ধু

মোস্তাফিজকে রুখে দেয়ার ইচ্ছে স্কটল্যান্ডের!


প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির বলেন, এ লজ্জা আমাদের সবার। এখনই যদি কঠোরভাবে এই অপশক্তির দমন না করি, তাহলে ভবিষ্যতে এরা আরো বেশি করে মাথা চাড়া দিয়ে উঠবে। শুধু প্রশাসন নয়, সর্বস্তরের সবাই কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন- আসুন এখনই ওদের নির্মূলে সোচ্চার হই। জনসচেতনতা গড়ে তুলি।

বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী কিরন বনিক শংকর বলেন- বাংলাদেশের সনাতন ধর্মাবলম্বীরা যখন তাদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা উদযাপন করছে, তখন চিহ্নিত সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গিগোষ্ঠী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ও মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় পূজামণ্ডপ, মন্দির ও হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে যে হামলা চালিয়েছে তাঁর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

বাংলাদেশ সম্প্রীতির দেশ, অসাম্প্রদায়িকতার দেশ- প্রবাসে থেকে আপনজনদের উপর এই হামলা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না। অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে আবেগ আপ্লুত হ্রদয়ে সাবেক এই ছাত্রনেতা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বারবার এমন ঘটনায় আমরা হতাশ ও দিকভ্রান্ত। তিনি বলেন, আর দাবি নয়, দেখতে চাই শেখ হাসিনার সরকার এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সর্বোচ্চ কঠোরতা প্রদর্শন করেছে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ইতালিতে দেবী দুর্গার বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব সমাপ্ত

এমডি রিয়াজ হোসেন,ইতালি

ইতালিতে দেবী দুর্গার বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব সমাপ্ত

প্রতিবছরের মতো ইতালির রাজধানী রোমসহ দেশটির বিভিন্ন শহরে  অনুষ্ঠিত হয়েছে সনাতন ও হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব সার্বজনীন শারদীয় দুর্গাপূজা। মিলান,বলোনিয়া,ছাড়াও রাজধানী রোমে হয়েছে পাশাপাশি দুটি  পূজা। ওমঁ হিন্দু ইন্টারন্যাশনাল সোস্যাল এন্ড কার্লচারাল এসোসিয়েশন ও হিন্দু পূজা উদযাপন পরিষদ কতৃক আয়োজিত দুর্গাপুজাগুলোতে মহাষষ্ঠীর দিন থেকে বিজয়া দশমীতে সর্বস্তরের দেবী মা দুর্গার ভক্ত ও পূজারীরা অংশ নেন মহা আনন্দে ।

আরও পড়ুন:


মিনিস্টারে বিশাল নিয়োগ , যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে চাকরি, যোগ্যতা এসএসসি

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ, যোগ্যতা এইচএসসি

পল্লী বিদ্যুৎতে বড় নিয়োগ, যোগ্যতা এসএসসি

করোনা সংকট কাটিয়ে পূজায় অংশ নিতে পেরে মহাখুশি ভক্তরা। দেবীকে অঞ্জলি প্রদানের পাশাপাশি একে অপরের সাথে বিনিময় করেছেন শারদীয় শুভেচ্ছার। পূজামণ্ডপগুলোতে মহাষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত চলে নানা ধর্মীয় আচার আচরণ। শান্তিজল গ্রহণ, সন্ধিপূজা, আরতী, নবপত্রিকা, অধিবাস ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।পূজা পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত শামীম আহসান।বিজয়া দশমীতে ছিল উপচে পড়া ভীড়।নেচে গেয়ে মা দূর্গাকে নদীতে বিসর্জণ দেওয়া হয়। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

পদার্থবিজ্ঞানে অবদানের জন্য ‘মুস্তফা পুরস্কার’ পেলেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী জাহিদ হাসান

অনলাইন ডেস্ক

পদার্থবিজ্ঞানে অবদানের জন্য ‘মুস্তফা পুরস্কার’ পেলেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী জাহিদ হাসান

এ বছর পদার্থবিজ্ঞানে অবদানের জন্য ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) ‘মুস্তফা পুরস্কার’ পেয়েছেন বাংলাদেশি পদার্থবিজ্ঞানী এম জাহিদ হাসান। তিনি ইরানের বিজ্ঞানী কামরুন ওয়াফার সঙ্গে যৌথভাবে এই পুরস্কারের জেতেন।

বুধবার ইরানে এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। এই পুরস্কারের আর্থিকমূল্য ৫ লাখ ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা।

প্রবাসী মুসলিম বিজ্ঞানী জাহিদ হাসান গাজীপুর-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট রহমত আলীর বড় ছেলে।

ইরানের মুস্তফা (স.) ফাউন্ডেশন প্রতিবছর বিশ্বের শ্রেষ্ঠ মুসলিম বিজ্ঞানী ও গবেষকদের এ পুরস্কার দিয়ে থাকে।

এই পুরস্কার এবার পাঁচ বিজ্ঞানী পেয়েছেন। যৌথভাবে পুরস্কার বিজয়ী বাকি তিন বিজ্ঞানী হলেন- স্বদেশে বসবাসকারী শ্রেষ্ঠ মুসলিম বিজ্ঞানী বিজয়ী হয়েছেন মরক্কোর ইয়াহিয়া তিয়ালাতি, লেবাননের মুহাম্মাদ সানেগ ও পাকিস্তানের মুহাম্মাদ ইকবাল চৌধুরী।

আরও পড়ুন


উরুগুয়েকে গোল বন্যায় ভাসিয়ে জয়ে ফিরল ব্রাজিল

এবার পেরুকে হারাল মেসির আর্জেন্টিনা

আজ বিজয়া দশমী

জালিয়াতি থেকে রক্ষা পেল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ৩৫৫ কোটি টাকা


গাজীপুরের সন্তান জাহিদ হাসান যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। তিনি ১৯৮৮ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন।

তথ্যপ্রযুক্তি, চিকিৎসাবিজ্ঞান, ন্যানোটেকনোলজিসহ ৪টি ক্যাটাগরিতে অবদানের জন্য এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। মহানবি মোস্তফার (স.) নামে ২০১৫ সাল থেকে ঘোষিত এই পুরস্কারকে বলা হয় মুসলিম বিশ্বের নোবেল।

এর আগে আরও তিন দফায় নয় জন শ্রেষ্ঠ মুসলিম বিজ্ঞানীকে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। তারা ছিলেন ইরান, সিঙ্গাপুর, তুরস্ক ও জর্ডান থেকে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে মালদ্বীপে আলোচনা সভা ও নৈশভোজ

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে মালদ্বীপে আলোচনা সভা ও নৈশভোজ

এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত ফুটবলের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ উপলক্ষে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে বাংলাদেশ থেকে আগত সাংবাদিকদের নিয়ে নৈশভোজ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে মালদ্বীপ ও বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের বিভিন্ন কার্যক্রমের ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রর্দশন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান।

এসময় অনুষ্ঠানে মালদ্বীপে অবস্থানরত সাংবাদিকরা বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন


একাই ৫৫০টি কেক কেটে জন্মদিন পালন করলেন যুবক!

মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য যেসব নির্দেশনা দিল মাউশি

প্রলোভন দেখিয়ে অর্ধশত নারীকে মধ্যপ্রাচ্যে পাঠিয়ে বিক্রি, গ্রেপ্তার ৮

আজ মহানবমী, কাল বিদায় নেবে দেবীদূর্গা


রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যের শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। পরে সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এর আগে একসঙ্গে এত সাংবাদিক মালদ্বীপের মাটিতে আসেননি। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ উপলক্ষে আপনারা এসেছেন বাংলাদেশ থেকে; মালদ্বীপে আমরা অনেক আনন্দিত।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ঘূর্ণিঝড় ক্ষতিগ্রস্ত প্রবাসীদের পাশে ওমান চট্টগ্রাম সমিতি

অনলাইন ডেস্ক

ঘূর্ণিঝড় ক্ষতিগ্রস্ত প্রবাসীদের পাশে ওমান চট্টগ্রাম সমিতি

গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় শাহীনের তাণ্ডবে ওমানে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এর প্রভাবে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ দুর্গত এলাকার হাজার হাজার মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে। 

ঘূর্ণিঝড় শাহীনের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাশে দাঁড়িয়েছে প্রবাসে মানবতার সেবায় নিয়োজিত চট্টগ্রাম সমিতি ওমান। 

সংগঠনটির পক্ষ থেকে ঘূর্ণিঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আল-সুইক, আল বিদিয়া, আল কাবুরা, আল খাদারা, আল কাছবিয়া এলাকায় মানুষের মাঝে জরুরি খাদ্যসহ মানবিক সহায়তা বিতরণ করা হয়।

ওই দিন রাজধানী মাস্কাট থেকে সমিতির সভাপতি এবং এনআরবি সিআইপি অ্যাসোসিয়েশনের নব-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইয়াছিন চৌধুরীসহ ৬০ জনের একটি দল ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যায়। সেখানে এক হাজার প্রবাসীর মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। সাত কেজি ওজনের প্রতিটি প্যাকেটে ছিল- চাল, ডাল, তেল, আলু পিয়াজ।

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


কর্মসূচিতে সংগঠনের আজীবন দাতা সদস্য তৌহিদুল আলম সিআইপি, আবু ইউসুফ, মনসুর আলম মুছা, আবু বক্কর, জানে আলম, ইঞ্জিনিয়ার শহীদ, সহ-সভাপতি সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, মো. মোরশেদ , নুরুল ইসলাম নুরু, প্রকৌশলী আশরাফুর রহমান সিআইপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবলু চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক নাসির মাহমুদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, কার্যকরী পরিষদের সম্পাদক আব্বাস উদ্দিন, আব্দুর রাজ্জাক, জুয়েল ওয়াহিদ, রহিম উল্লাহ, সেলিম নুর, মোহাম্মদ সেকান্দর, আজিজ মোহাম্মদ, মঞ্জুরুল আলম অংশ নেন।

এছাড়া সহায়তায় ছিলেন টিপু সরোয়ার, জাহাঙ্গীর, সোহেল, পারভেজ, রাশেদ, বেলাল, মুবিন, হাসান, রিয়াদ এনাম, আব্দুস সাত্তার, ফোরকানসহ অনেকে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর