ডিএমপির ঊর্ধ্বতন ৫ কর্মকর্তার বদলি

অনলাইন ডেস্ক

ডিএমপির ঊর্ধ্বতন ৫ কর্মকর্তার বদলি

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) পদমর্যাদা ৫ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামের এক অফিস আদেশে এ বদলি করা হয়। 

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ডিএমপির গণমাধ্যম শাখা থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

বদলি হওয়া ৫ জন হলেন -

১. ক্যান্টনমেন্ট জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. কামরুজ্জামানকে সুপ্রিম কোর্ট অ্যান্ড স্পেশাল সিকিউরিটি বিভাগে। 
২. লালবাগ জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হাফিজ আল আসাদকে ডিএমপির মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগে।
৩. কমিশনারের স্টাফ অফিসার অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান মনিরকে লালবাগ জোনে।
৪. ডিএমপির মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইফতেখারুজ্জামান ক্যান্টনমেন্ট বিভাগে। 
৫. পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) এর পূর্ব বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. আফছার উদ্দিন খানকে গোয়েন্দা মতিঝিল টিমে বদলি করা হয়েছে।

news24bd.tv এসএম

আরও পড়ুন


নজরুল ইসলাম খানকে দেখতে হাসপাতালে গেলেন ফখরুল

ফরিদপুরে মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ১ জনের ফাঁসির আদেশ

নোয়াখালীতে ইয়াবা ও ৩০ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে কুয়েটে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি


 

পরবর্তী খবর

নির্বাচন কমিশনে হাজারেরও বেশি পাগলের আবেদন!

অনলাইন ডেস্ক

নির্বাচন কমিশনে হাজারেরও বেশি পাগলের আবেদন!

নির্বাচন কমিশনে (ইসি) পাগলদের আবেদন পড়ছে। ইসির হিসাবে মূলত পাগল হলো তারা যারা ভোটার হওয়ার সময় ভুল করে বা অজ্ঞতাবশত, নিবন্ধন ফরম পূরণ করার সময় ‘অপ্রকৃতিস্থতা’ অংশে টিক দিয়ে দিয়েছেন। যার ফলে এসব নাগরিক বর্তমানে দেশের নানান ধরনের নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) ‘অপ্রকৃতিস্থতা’ বা পাগল থেকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরত আসার জন্য ইসিতে আবেদন করছেন এসব নাগরিকরা। ইসি সূত্রে এইসব তথ্য জানা গেছে। 

ইসি সূত্র জানায়, অন্যান্য পেশাজীবিদের স্ট্যাটাস পরিবর্তন সহজ হলেও বিড়ম্বনায় পড়েছেন পাগল স্ট্যাটাসধারীরা। কেননা, যথাযথ কর্তৃপক্ষের সার্টিফিকেট বা আদালত থেকে স্বীকৃতি ব্যতিত তাদের স্ট্যাটাস পরিবর্তন করা হচ্ছে না।

সূত্র জানায়, এখ পর্যন্ত ‘ম্যাডনেস’ সমস্যার সমাধান চেয়ে মাঠপর্যায় থেকে কয়েক হাজার আবেদন ইসিতে এসেছে। এখন পর্যন্ত কমবেশি পাঁচশ ম্যাডনেস সমস্যার সমাধানও করে দিয়েছে কমিশন। 

সরকার করোনার টিকা এনআইডি ভিত্তিতে দেওয়া শুরু করলে এই সমস্যায় পড়েন অনেকে। কেননা, যাদের স্ট্যাটাস পাগল, তাদের টিকা কার্ড হচ্ছে না। আর এর সমাধান পেতে ভূক্তভোগীতে ধরনা দিতে হচ্ছে নির্বাচন অফিসে।

ইসি’র মাঠপর্যায়ের কার্যালয় থেকে প্রতিনিয়ত আবেদন আসছে। এসব নাগরিকদের এনআইডি দিয়ে সার্ভারে সার্চ করলে সেখানে ‘ম্যাডনেস’ দেখা যাচ্ছে। 

জানা যায়, সম্প্রতি ইসি জামালপুর সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ইসিতে এমন একটি আবেদন পাঠিয়েছেন। সেখানে ভোটার তার আবেদনে লিখেছেন, আমার এনআইডিতে ভুলবশত ‘অপ্রকৃতিস্থতা’ ফরম পূরণ করা হয়েছে। যার কারণে আমি এনআইডি সংক্রান্ত কোনো সেবা পাচ্ছি না। 

এ বিষয়ে ইসির এনআইডি অনুবিভাগের মহাপরিচালক একেএম হুমায়ুন কবীর বলেন, আমি কি বলতে পারি কে পাগল, আর কে পাগল নয়? এটা বলতে পারে একজন ডাক্তার বা আদালত। তাই যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সনদ বা স্বীকৃতি আনলে আমরা সেটা পরিবর্তন করে দিচ্ছি। এছাড়া অন্যান্য পেশার ক্ষেত্রেও প্রয়োজনীয় প্রমাণ সাপেক্ষে আমরা সংশোধন করে দিচ্ছি।

 


ভক্তের নগ্ন ছবির দেখার ইচ্ছে পুরণ করলেন পূজা হেগড়ে

পরকালের যে বিশ্বাসে মমির মুখে সোনার জিভ

টাচ ছাড়াই আনলক হবে আইফোন

কৃষকদের জঙ্গি আখ্যায়িত করলেন কঙ্গনা


 

এই বিষয়ে কথা হলে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের সিস্টেম ম্যানেজার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন, বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকানে গিয়ে ভোটার নিবন্ধন ফরম পূরণ করতে গিয়ে নাগরিকরা এই ভুলটি করছেন। তারা ফরম পূরণ করার সময় সেটি ভালোভাবে দেখছেন না।

এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়ানোর জন্য ভোটার হওয়ার সময় সাবধানতার সংগে নাগরিকদের নিজে ফরম পূরণ করার অনুরোধ জানান এই কর্মকর্তা। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আইসিইউতে এ কে খন্দকার

অনলাইন ডেস্ক

আইসিইউতে এ কে খন্দকার

মুক্তিযুদ্ধের উপ সেনাপ্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল (অব) এ কে খন্দকার বীরউত্তম গুরুতর শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল(সিএমএইচে) ভর্তি আছেন।  তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় বর্তমানে আইসিউতে রাখা হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে অসুস্থ বোধ করলে তাকে সিএমএইচে নিয়ে যাওয়া হয়। তার সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছে পরিবার।

আরও পড়ুন:

চাপের মুখে বাংলাদেশ

ইংল্যান্ড ম্যাচের আগে টাইগার শিবিরে বড় দুটি দুঃসংবাদ

শাহরুখের সাথে জুটি থেকে সরে দাঁড়ালেন নায়িকা


 

কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর প্রধান ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য ২০১১ সালে তিনি স্বাধীনতা পদক পান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কলকাতা প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্রের উদ্বোধন

অনলাইন ডেস্ক

কলকাতা প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্রের উদ্বোধন

কলকাতা প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্র উদ্বোধন করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়ন ও সহযোগিতায় কলকাতা প্রেসক্লাবের মুকুটে যুক্ত হলো নতুন পালক।  

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) প্রেসক্লাবে উদ্বোধন হলো ‘বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্র’। এই সংবাদ কেন্দ্র উদ্বোধনকালে প্রেসক্লাবের প্রেসিডেন্ট স্নেহাশিস সুর, সাধারণ সম্পাদক কিংশুক প্রামাণিক, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, কলকাতায় বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনার তৌফিক হাসান, উপ-দূতাবাসের প্রথম সচিব (প্রেস) রঞ্জন সেন এবং প্রেসক্লাবের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Kolkata, bongonondhu, hasan mahamud, press club

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ যে সময়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বাংলাদেশ-ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করছে, সে সময়ে বঙ্গবন্ধুর নামে কলকাতা প্রেসক্লাবে সংবাদ কেন্দ্র স্থাপন দু’দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের আরেকটি মাইলফলক।

কলকাতা প্রেসক্লাব প্রেসিডেন্ট স্নেহাশিস সুর বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে এ সংবাদ কেন্দ্র স্থাপন আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য দীর্ঘদিন আন্দোলন ও সংগ্রাম করায় ভারতে বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন। এ সংবাদ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার অর্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে প্রকৃত ইতিহাস জানতে নতুন প্রজন্মের জন্য এই কেন্দ্র উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।’

দিনটি উপলক্ষে এদিন কলকাতার পাঁচজন বর্ষীয়ান সাংবাদিককে ‘মুক্তিযুদ্ধ সুবর্ণজয়ন্তী কলম সেনা’ সম্মাননা দেওয়া হয়। যারা সেই সময় বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষের ঘটনা বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরেছিলেন। সম্মাননা পেয়েছেন বাংলা স্টেটসম্যানের মানস ঘোষ, মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহকারী দিলিপ চক্রবর্তী, আনন্দবাজারের সুখরঞ্জন দাশগুপ্ত, টেলিগ্রাফের তরুণ গাঙ্গুলি ও আনন্দবাজারের পার্থ চট্টোপাধ্যায়। মন্ত্রী সবার হাতে সম্মামনা তুলে দেন।

আরও পড়ুন:

চাপের মুখে বাংলাদেশ

ইংল্যান্ড ম্যাচের আগে টাইগার শিবিরে বড় দুটি দুঃসংবাদ

শাহরুখের সাথে জুটি থেকে সরে দাঁড়ালেন নায়িকা


 

কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসের সহায়তায় স্থাপিত এই সংবাদ কেন্দ্রে কম্পিউটার, প্রদর্শনী হল, লাইব্রেরি এবং প্রজেক্টরসহ আধুনিক ডিজিটাল সুবিধাদি রয়েছে। এর আগে সেপ্টেম্বরে নয়াদিল্লিতে প্রেসক্লাব অব ইন্ডিয়ায় বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

হিন্দুদের ওপর হামলার মাস্টারমাইন্ড বিএনপি’র সিনিয়র নেতারা : জয়

অনলাইন ডেস্ক

হিন্দুদের ওপর হামলার মাস্টারমাইন্ড বিএনপি’র সিনিয়র নেতারা : জয়

সম্প্রতি দুর্গাপূজার সময় কুমিল্লা সহ দেশের কয়েকটি জেলায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলার জন্য বিএনপিকে দায়ী করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। বুধবার রাতে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে এই অভিযোগ করেন তিনি। এখানে তার ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হল…

‘সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় বিক্ষত বাংলাদেশ।

১৩ অক্টোবর. ২০২১, স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ন্যাক্কারজনক সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটানোর ষড়যন্ত্র হয় কুমিল্লায়। সেদিন সারাদিনে কুমিল্লার প্রায় ৭০টি পূজা-মণ্ডপে হামলা চালিয়ে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার সর্বোচ্চ অপচেষ্টা করে উগ্রবাদী গোষ্ঠীর সন্ত্রাসীরা। ধর্মকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে সরলপ্রাণ অনেক মানুষকেও বিভ্রান্ত করে খেপিয়ে তোলে তারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে, ফেসবুক-ইউটিউবের মাধ্যমে উস্কানিমূলক বক্তব্য ও গুজব ছড়াতে থাকে সারা দেশে।

অন্যদিকে বিএনপি নেতৃত্ব সারাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশে না থেকে সরকারের বিরুদ্ধে তাদের প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে, যেখানে তাদের ভূমিকা হওয়ার কথা ছিল ভিন্ন। তাদের কাজ কর্মে এটা স্পষ্ট যে কুমিল্লা থেকে শুরু থেকে সারাদেশে তাণ্ডবের এই ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত আর এ ঘটনাগুলোর মাস্টারমাইন্ড বিএনপি'র সিনিয়র নেতারা।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূল উদ্দেশ্যগুলোও ধীরে ধীরে মুছে দিয়েছে পাকিস্তানপন্থী রাজনৈতিক দল ও সরকারেরা। বাংলার শান্তিপ্রিয় মানুষের মাঝে ধর্মের মনগড়া ও ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে, স্বাধীনতার সত্য ইতিহাসকে ধামাচাপা দিয়ে একটি অসহিষ্ণু, বাংলাদশেক অন্ধকারাছন্ন দেশে পরিণত করার চেষ্টা করেছে তারা বারবার। অমুসলিম জনগোষ্ঠীর বিপক্ষে সাধারণ মানুষকে উত্তেজিত করে ভাঙচুর ও তাণ্ডবের মাধ্যমে নিজেদের হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য সবসময়ই সচেষ্ট বিএনপি-জামাতের মতো পাকিস্তানপন্থী রাজনৈতিক দলগুলো। এবারের ঘটনাতেও ব্যতিক্রম নেই’।

গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লার একটি মণ্ডপে কুরআন অবমাননার অভিযোগ তুলে কয়েকটি মন্দিরে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ হয়। এরপর চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, কক্সবাজার, ফেনী, রংপুরসহ বিভিন্ন জেলায়ও হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলা হয়।

এই সব হামলার একটি ভিডিওচিত্র বুধবার রাতে নিজের ফেইসবুক পাতায় পোস্ট করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, যার শিরোনাম ‘সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় বিক্ষত বাংলাদেশ : জেঁকে বসেছে সেই পাকিস্তানী প্রেতাত্মারা’।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছেন হান্নানসহ আ.লীগ নেতারা: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছেন হান্নানসহ আ.লীগ নেতারা: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জাম্মেল হক।

জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক নন, চার নম্বর পাঠক। এ মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জাম্মেল হক।

তার আগে এম এ হান্নানসহ আওয়ামী লীগ নেতারা স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে খুনি জিয়াউর রহমানরা মিথ্যাচার করে ইতিহাসের বিকৃতি করেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর উত্তর কাট্টলী এলাকায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিসৌধ ও জাদুঘর নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শন করেন মন্ত্রী।

এসময় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আরও বলেছেন, চট্টগ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক স্মৃতিবিজড়িত স্থান রয়েছে, যেগুলো এখনো সংরক্ষণ করা হয়নি। কুচক্রী মহল যাতে ইতিহাসকে বিকৃত করতে না পারে, সে জন্য এসব স্থান সংরক্ষণ করা হবে।

আরও পড়ুন:


নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন: ওসি-এসআইকে বরখাস্তের নির্দেশ

প্রেমিকাকে গলা কেটে ‌‘হত্যাকারী’ মনিরও মারা গেল

মাওলানা আজহারীর লন্ডন সফরের পক্ষে বিপক্ষে নানা তৎপরতা

প্রবাসীদের জন্য যে সুখবর দিল মালয়েশিয়া


‌‘বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য যে জায়গা বাছাই করা হয়েছে, সেটা চমৎকার একটা জায়গা। এত সুন্দর স্থান দেখে আমি অভিভূত। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এই এলাকা স্বর্ণের খনিতে রূপান্তর হবে। এ অঞ্চলের গুরুত্ব বাড়বে, ব্যাপক উন্নয়ন হবে।’

চট্টগ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক স্মৃতিবিজড়ি স্থান সংরক্ষণের ব্যাপারে তিনি আরো বলেন, ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যান আন্তর্জাতিক মানের করে সংরক্ষণের কাজ চলছে। একই সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আমাদের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরকেও সংরক্ষণের জন্য কাজ চলছে। কিন্তু যেখান থেকে মানুষ প্রথম স্বাধীনতার ঘোষণা শুনতে পেয়েছিল, সেই চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্রের বিষয়ে আমারা এখন পর্যন্ত কোনো পরিকল্পনা গ্রহণ করিনি। চট্টগ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক স্মৃতিবিজড়িত স্থান রয়েছে, সেগুলো এখনো সংরক্ষণ হয়নি। আমরা সেগুলো সংরক্ষণে উদ্যোগ নেব।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর