বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পাওয়া দুই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন ইউএনও
বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পাওয়া দুই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন ইউএনও

বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পাওয়া দুই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন ইউএনও

Other

বাগেরহাটের রামপালে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া সেই শিক্ষার্থীদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো কবীর হোসেন। রামপালে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া সেই দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে একজনের হাতে রোববার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী

কর্মকর্তা তুলে দেন প্রয়োজনীয় সকল শিক্ষা সামগ্রী। এ সময় শিক্ষার্থীর অভিভাবকেরাও উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শুক্রবার দুপুরে উপজেলায় পেড়িখালী ইউনিয়নের জিগিরমোল্লা গ্রামের শেখ ফরিদ হোসেনের মেয়ে মাদ্রাসা ছাত্রী মরিয়ম খাতুন (১৬) ও সিংগরবুনিয়া গ্রামের রহুল আমিন আমিন হাওলাদারের মেয়ে স্কুল ছাত্রী তাছলিম লামিয়া’র (১৫) বাল্যবিয়ে দিচ্ছিলেন তাদের পরিবার।

এমন খবর জাতে পেরে পুলিশ নিয়ে ওই দুই বাড়িতে ছুটে যান রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কবীর হোসেন। বিয়ে দুইটি বন্ধের পাশাপাশি বাল্যবিয়ের আয়োজনকারী দুইটি পরিবারের অভিভাবকেরা প্রশাসনের কাছে মুচলেকা দেন। মুচলেকায় তারা তাদের মেয়েরা প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না বলে অঙ্গিকার করেন। মুচলেকা দেওয়ায় তাদের ক্ষমা করে সর্তক করে দেয় উপজেলা প্রশাসন।

আরও পড়ুন


গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রকে আ.লীগের শোকজ

কুষ্টিয়ার খোকসায় প্রতিমা ভাঙচুর

আদালত চত্ত্বরে বোমা হামলা: বোমা মিজানের মৃত্যুদণ্ড, জাবেদের যাবজ্জীবন

মধ্যরাত থেকে ইলিশ ধরায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা


রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কবীর হোসেন বলেন, বাল্যবিয়ের থেকে রক্ষা পাওয়া দরিদ্র এই শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার দায়িত্ব এখন আমাদের। তাদের একজনে শিক্ষা সামগ্রী দেওয়া হয়েছে। দুজনকেই আমরা লেখাপড়া চালিয়ে যেতে সহায়তা প্রদান করব। এছাড়া তাদেরকে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণসহ সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হবে। এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এমন উদ্যোগে তাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, বাসিন্দা ও অভিভাবকেরা।

news24bd.tv/ তৌহিদ 

সম্পর্কিত খবর