ই-কমার্সে হাওয়া গ্রাহকের অন্তত তিন হাজার কোটি টাকা, দায় নিচ্ছে না কেউ

নাঈম আল জিকো

ই-কমার্স খাতে আটকে আছে লাখ লাখ গ্রাহক ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের তিন হাজার কোটি টাকা। আর এই টাকার দায় এখন কে নেবে এমনি প্রশ্ন তাদের। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এর দায় সরকার কোন ভাবেই এড়াতে পারেনা। এদিকে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন এসব লোভনীয় অফারে গ্রাহকদের প্রলুব্ধ হতে নিরুৎসাহিত করছেন। 

মিরপুরের একটি দোকান মালিক সুমন সরদার। ব্যবসার কাজে মাস সাতেক আগে ই-ভ্যালিতে দুটি মোটর সাইকেল অর্ডার করেন তিনি। এরপর সময়মত পণ্য না পেলে রিফান্ডের চেক নেন। কিন্তু সেই চেক আর ক্যাশ করতে পারেননি তিনি। ধরা খান সাড়ে তিন লাখ টাকারও বেশি। এখন প্রশ্ন কে দেবেন তার টাকা?

আরও পড়ুন


গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রকে আ.লীগের শোকজ

কুষ্টিয়ার খোকসায় প্রতিমা ভাঙচুর

আদালত চত্ত্বরে বোমা হামলা: বোমা মিজানের মৃত্যুদণ্ড, জাবেদের যাবজ্জীবন

মধ্যরাত থেকে ইলিশ ধরায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা


বিশষজ্ঞরা বলছেন, ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ধামাকা, নিরাপদ ডটকমসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে দেশের কয়েক লাখ গ্রাহকের প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা আটকে আছে।

এর মধ্যে ইভ্যালির কাছে রয়েছে এক হাজার কোটি এবং ই-অরেঞ্জের কাছে ১১শ কোটি টাকা। আর এই টাকা পাওয়া নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। তবে তারা বলছেন, এসবের দায় নিতে হবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার, ইক্যাবসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলোকে।

টাকা ফেরতের দায় এড়িয়ে ইক্যাব এসব খাতে বিনিয়োগে সতর্ক হতে বলছে গ্রাহকদের।

ইক্যাবের তথ্য মতে, দেশে বর্তমানে ৩০ হাজার ই-কমার্স বা অনলাইনে কেনাবেচার প্রতিষ্ঠান আছে। আর করোনা মহামারির সময় ই-কমার্সের বিশাল উত্থান হয়েছে। এ খাতের প্রবৃদ্ধি ছিল ৫০-১০০ শতাংশ। কিন্তু ইভ্যালি, ই- অরেঞ্জ, ধামার মতো কয়েকটির কারণে ই-কমার্স খাত বর্তমানে প্রায় ৫০ শতাংশ বাজার হারিয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

যশোরে আউশ ধানের আশানুরূপ উৎপাদন

রিপন হোসেন

যশোরে এ বছর আউশ ধানের আশানুরূপ উৎপাদন হয়েছে। বর্তমানে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন এ অঞ্চলের কৃষকরা । আবার বাজারে বিক্রিও করছেন অনেকে । বাজার দর চড়া থাকায় খুশী তারা ।

যশোরের মনিরামপুর, বাঘারপাড়া, শার্শা ও অভয়নগর উপজেলার বেশ  কয়েকটি এলাকায় আউশ ধান  পাকতে শুরু করেছে। কষ্টে ফলানো সোনার ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত  কৃষক-কৃষাণীরা ।

 কৃষকরা জানান, এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় আউশ ধানের আশানুরুপ উৎপাদন হয়েছে। বোরো ধানের চেয়ে আউশ ধানের উৎপাদন খরচ কম । এ ধান তোলার পর একই জমিতে আবার সবজি চাষ করা হয় । এ কারণে এই ধান আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন অনেকে ।

আরও পড়ুন:


ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪ 

আ.লীগের মনোনয়নপত্র বিক্রি ১৬ থেকে ২০ অক্টোবর

দেশে সাম্প্রদায়িক হামলাগুলোর মদদ দিচ্ছে সরকার: ফখরুল

সেদিন নীল শাড়িটাই পরবো: মাহি

দ্বিতীয় বিয়ে করে সত্যিই 'সারপ্রাইজ' দিলেন মাহি


এই ধান বাজারে বিক্রিও শুরু করেছেন কেউ কেউ । দর ভাল থাকায় খুশী তারা ।

আউশ ধান রোপণ ও বপনের বিষয়ে কৃষকদের মাঠ পর্যায়ে সব ধরণের সহায়তা করেছে স্থানীয়  কৃষি বিভাগ ।  

চলতি মৌসুমে এ  জেলায় ১৬ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

যশোরে এ বছর আউশ ধানের আশানুরুপ উৎপাদন

রিপন হোসেন, যশোর

যশোরে এ বছর আউশ ধানের আশানুরুপ উৎপাদন হয়েছে। বর্তমানে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন এ অঞ্চলের কৃষকরা। 

আবার বাজারে বিক্রিও করছেন অনেকে। বাজার দর চড়া থাকায় খুশি তারা। যশোরের মনিরামপুর, বাঘারপাড়া অভয়নগর উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় আউশ ধান  পাকতে শুরু করেছে। কষ্টে ফলানো সোনার ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষক-কৃষাণীরা। 

আরও পড়ুন


থেমে-থেমে জ্বর আসছে খালেদা জিয়ার, খাচ্ছেনও খুবই অল্প

কুমিল্লার ঘটনা উদ্দেশ্যমূলক ও পরিকল্পিত: রিজভী

যুক্তরাষ্ট্রে উড়াল দিলেন মৌসুমী, ভিসা মেলেনি ওমর সানীর

ক্ষমতায় যাওয়ার বিএনপির রঙিন খোয়াব অচিরেই দুঃস্বপ্নে পরিণত হবে: কাদের


কৃষকেরা জানান, এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় আউশ ধানের আশানুরুপ উৎপাদন হয়েছে। বোরো ধানের চেয়ে আউশ ধানের উৎপাদন খরচ কম। এ ধান তোলার পর একই জমিতে আবার সবজি চাষ করা হয়। এ কারণে এই ধান আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন অনেকে। এই ধান বাজারে বিক্রিও শুরু করেছেন কেউ কেউ। দর ভাল থাকায় খুশি তারা।

আউশ ধান রোপণ ও বপনের বিষয়ে কৃষকদের মাঠ পর্যায়ে সব ধরণের সহায়তা করেছে স্থানীয়  কৃষি বিভাগ। চলতি মৌসুমে এ জেলায় ১৬ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছে। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

পেঁয়াজ-চিনিতে কমলো শুল্ক

অনলাইন ডেস্ক

পেঁয়াজ-চিনিতে কমলো শুল্ক

পেঁয়াজ ও চিনির দাম নিয়ন্ত্রণে শুল্ক কমিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পেঁয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। চিনির নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক (আরডি) ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত দুটি পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে এনবিআর।

আজ ১৪ অক্টোবর থেকেই নতুন শুল্কহার কার্যকর হয়েছে। চিনির নতুন শুল্কহার কার্যকর থাকবে আগামী বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। অন্যদিকে পেঁয়াজের নতুন শুল্কহার কার্যকর থাকবে আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

এর আগে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন পেঁয়াজ ও চিনির ওপর শুল্ক কমানোর সুপারিশ করেছিল। পরে পেঁয়াজ, চিনি ও ভোজ্য তেলে শুল্ক-কর কমানোর জন্য এনবিআরকে অনুরোধ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। 

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


 

দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সোমবার আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পেঁয়াজের দাম উঠলে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এনবিআর পেঁয়াজে আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করেছিল। তখন শুল্ক প্রত্যাহারের মেয়াদ ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। এপ্রিল মাস থেকে আবার পেঁয়াজের আমদানি শুল্ক ৫ শতাংশ পুনর্বহাল করা হয়।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ব্যাংক বন্ধ মঙ্গলবার নয় বুধবার

অনলাইন ডেস্ক

ব্যাংক বন্ধ মঙ্গলবার নয় বুধবার

পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে  আগামী আগামী বুধবার (২০ অক্টোবর) সব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।
বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে।

বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো সার্কুলারে বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, পবিত্র ঈদ-ই- মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিল। 

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


 

কিন্তু জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে ঘোষিত ছুটি ১৯ অক্টোবরের পরিবর্তে ২০ অক্টোবর বুধবার নির্ধারণ করা হলো।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আজও ৩০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি

অনলাইন ডেস্ক

আজও ৩০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি

খোলা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা করে হলেও  ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবিতে ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এই খাদ্যদ্রব্য। 

টিসিবির ভ্রাম্যমাণ ট্রাকে তুরস্ক থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ সোমবার (১১ অক্টোবর) থেকে বিক্রি হচ্ছে।

জানা গেছে, টিসিবি বর্তমানে প্রতি কেজি চিনি ও মসুর ডাল বিক্রি করছে ৫৫ টাকায়। সয়াবিন তেল ১০০ টাকা লিটার। এ ক্ষেত্রে প্রতি ক্রেতা সর্বোচ্চ দুই কেজি চিনি, মসুর ডাল ও তেল এবং পেঁয়াজ কিনতে পারছেন চার কেজি করে।

আরও পড়ুন:


মুসা বিন শমসেরের কিছুই নেই, তিনি ভুয়া মানুষ: পুলিশ

‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে বিকেলে নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ

মাতৃত্বের স্বাদ পেলেন অভিনেত্রী নাজিরা মৌ

মক্কা ও মদীনার দুই পবিত্র মসজিদে ২০০ এর বেশি নারীর নিয়োগ


টিসিবি জানিয়েছে, তুরস্কের পেঁয়াজের সঙ্গে সয়াবিন তেল, মসুর ডাল ও চিনি বিক্রি চলমান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। করোনাকাল ও দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীর মূল্য স্থিতিশীল রাখতে সয়াবিন তেল, পেঁয়াজ, মসুর ডাল ও চিনি বিক্রি কার্যক্রম গত বুধবার থেকে চলমান রেখেছে টিসিবি। এ কার্যক্রম আগামী ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে। এর মধ্যে শুধু শুক্রবার ট্রাকসেলের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি বন্ধ থাকবে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর