‘স্বপ্নে তথ্য পান’ দাবি মুফতি ইব্রাহীমের
‘স্বপ্নে তথ্য পান’ দাবি মুফতি ইব্রাহীমের

‘স্বপ্নে তথ্য পান’ দাবি মুফতি ইব্রাহীমের

অনলাইন ডেস্ক

দুই মামলায় গ্রেফতার মুফতি কাজী ইব্রাহীম বিভিন্ন মাধ্যমে করা বিতর্কিত সব মন্তব্য সম্পর্কে নিজের একটা ব্যাখ্যা দিয়েছেন। আধ্যাত্মিক জগতে রয়েছে তার অবাধ বিচরণ। স্বপ্নে তিনি অনেক তথ্য পান বলেও জানিয়েছেন তিনি। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও গোয়েন্দা পুলিশ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বাংলাদেশে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর অনেক দালাল বা এজেন্ট রয়েছে- মর্মে যে বক্তব্য মুফতি কাজী ইব্রাহীম প্রচার করেছেন, সেটিও তিনি জেনেছেন স্বপ্নে পাওয়া এক নোটিশে। তবে সত্যতা যাচাই না করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটি প্রচার করা উচিত হয়নি বলেও গোয়েন্দা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন মুফতি ইব্রাহিম।

এ ধর্মীয় বক্তাকে রিমান্ড শেষে আদালতে সোপর্দ করা হলে গত শনিবার ঢাকার মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান জামিন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

ডিএমপির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তরের যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, কাজী ইব্রাহীমের দাবি ছিল, করোনা টিকা নিলে ছেলে মেয়ে হয়ে যাবে, মেয়ে ছেলে হয়ে যাবে। কোরআন হাদিসের আলোকে যারা কথা বলে না, তারা হিন্দুস্তানি দালাল, তারা ‘র’-এর দালাল। তিনি বিভিন্ন উদ্ভট, বিভ্রান্তিকর তথ্য তিনি ছড়িয়েছেন সামাজিক মাধ্যমে।

তালেবানরা ক্ষমতায় এলে মন্ত্রী হবেন- কাজী ইব্রাহীমের এমন উদ্ভট স্বপ্ন সম্পর্কে হারুন অর রশীদ বলেন, তিনি বলেছেন, তিনি নাকি স্বপ্নে দেখেছেন তালেবানরা ক্ষমতায় আসবে। সেটি নাকি সত্যিও হয়েছে। তিনি মন্ত্রিত্বও পাবেন। এমন সব তথ্য তিনি পেয়েছেন স্বপ্নযোগে।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর ভোরে মোহাম্মদপুর লালমাটিয়া জাকির হোসেন রোডের বাসা থেকে মুফতি ইব্রাহীমকে গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে দুটি মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।  

আরও পড়ুন:


দুই মেয়েসহ মা নিখোঁজ উৎকন্ঠায় পরিবার

রশি দিয়ে বাধা প্রতিবন্ধী শহিদের বন্দী জীবন

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় ক্রিকেটার রিদু নিহত

স্কুল খোলার পর যেভাবে চলবে প্রাথমিকের ক্লাস


 

অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার অভিযোগ এনে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন জেড এম রানা নামের এক ব্যক্তি। আর সামাজিক মাধ্যমে ‘উগ্র’ বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলাটি করে গোয়েন্দা পুলিশ। বর্তমানে মুফতি কাজী ইব্রাহীম রিমান্ড শেষে কারাগারে রয়েছেন।

news24bd.tv/আলী

;