ঢোকা যাচ্ছে না ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢোকা যাচ্ছে না ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামে

বিশ্বজুড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামের সার্ভার ডাউন হয়েছে। সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত পৌনে ১০টার পর থেকে ফেসবুকের মালিকানাধীন এসব সোশ্যাল মিডিয়া সাইটে প্রবেশ করা যাচ্ছে না।

এদিকে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটারে ফেসবুক কমিউনিকেশনস এক্সিকিউটিভ অ্যান্ডি স্টোন এক টুইট বার্তায় বলেছেন, আমরা দেখছি সমগ্র বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অনেক ব্যবহারকারী আমাদের অ্যাপ এবং ফেসবুকে প্রবেশ করতে সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছে। 

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করছি যত দ্রুত সম্ভব ফেসবুকে সচল করতে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

এদিকে ফেসবুক টুইট করে জানিয়েছে, অনেকে আমাদের অ্যাপ ও প্রোডাক্টস ব্যবহার করতে গিয়ে অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমরা অবগত। দ্রুত স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরে আসার জন্য আমরা কাজ করছি। যে কোনো অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাচ্ছি। তবে কী কারণে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, তা নিয়ে কিছু জানায়নি এ সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট।

ওয়েবসাইট ব্রাউজারের সমস্যা ট্রাককারী ডাউনডিটেক্টর হোয়াটসঅ্যাপের ক্ষেত্রে ৮০ হাজার এবং ফেসবুকের ক্ষেত্রে ৫০ হাজার রিপোর্ট চিহ্নিত করেছে। ডাউনডিটেক্টরের তথ্যানু্যায়ী, সারাবিশ্বে এই সমস্যা দেখা যাচ্ছে। 

ডাউন ডিটেকটর কি?
ডাউন ডিটেকটর হচ্ছে একটি অনলাইন সাইট যারা বিভিন্ন সাইট বা অনলাইন সেবা বিপর্যন্ত হলে তা নিয়ে তথ্য প্রকাশ করে।

ফেসবুকের মালিকানাধীন ইনস্টাগ্রামে প্রবেশ করতে গেলে 5xx সার্ভার ত্রুটির বার্তা দেখাচ্ছে।

এদিকে সারাবিশ্বে এই তিনটি জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যমে কেন প্রবেশ করা যাচ্ছে না সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত  ফেসবুকের তরফ থেকে অফিসিয়ালি কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


 

বর্তমানে ফেসবুকের মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারী এখন ২৯০ কোটি। অর্থাৎ বিশ্বব্যাপী ২৯০ কোটি অ্যাকাউন্ট থেকে মাসে একবার হলেও প্ল্যাটফর্মটিতে লগইন করা হয়। এই ব্যবহারকারীদের ৪ কোটি ৮০ লাখের বাস বাংলাদেশে।

এর আগে ৮ জুন বিবিসি, সিএনএন, নিউ ইয়র্ক টাইমস, ব্লুমবার্গ, দ্য গার্ডিয়ান, দ্য ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের মতো আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর ওয়েবসাইট বিপর্যয়ের মুখে পড়ে

তথ্যসুত্র দ্যা ভার্জ

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ইউপি ও পৌরসভা নির্বাচনে আরও খুনোখুনির আশঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক

ইউপি ও পৌরসভা নির্বাচনে আরও খুনোখুনির আশঙ্কা

সারাদেশে দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি), পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কয়েক জেলায় বড় ধরনের সংঘর্ষ, গোলাগুলি ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, তৃতীয় ও পরবর্তী ধাপগুলোয়ও আইনশৃঙ্খলার অবনতির ঘটনা ঘটতে পারে। ইতোপূর্বে পুলিশ সদর দফতরে অনুষ্ঠিত সভায় ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচন কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় মাঠপুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী মাঠপর্যায়ের পুলিশ ইউপি ও পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত এলাকাগুলোয় টহল ও নজরদারি জোরদার করেছে। এর পরও প্রতিদিনই কোনো না কোনো এলাকায় হামলা, সংঘর্ষ ও খুনোখুনির মারাত্মক অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, ‘ইউপি নির্বাচন সামনে রেখে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে সতর্ক থাকা ও স্বাভাবিক রাখার বিষয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারদের (এসপি) বলেছি যাতে নির্বাচনকেন্দ্রিক কোনো ধরনের সহিংসতা ঘটতে না পারে। পাশাপাশি নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আমরা বিশেষ কিছু পরিকল্পনা নিয়েছি। নির্বাচন কমিশনার, কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা সফর করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন।’ তৃতীয় ধাপে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের ১৬ ইউনিয়ন পরিষদে। 

নির্বাচনের আইনশৃঙ্খলা প্রস্তুতি বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, ‘আমরা ইউপি নির্বাচন সামনে রেখে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় আছি। নির্বাচনে যাতে আইনশৃঙ্খলার অবনতি না ঘটে সেদিকে খেয়াল রাখছি। পাশাপাশি তফসিল ঘোষিত এলাকাগুলোয় পুলিশি টহল ও তল্লাশি বাড়ানো হয়েছে।’ ইসি ও পুলিশের উচ্চ পর্যায় থেকে সতর্কবার্তা এবং মাঠপর্যায়ের পুলিশ সতর্ক থাকার পরও নির্বাচনে খুনোখুনি ও সহিংসতা থামছে না।  

উল্লেখ্য, শনিবার (১৬ অক্টোবর) মধ্যরাতে রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার চিৎমরম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী নেথোয়াই মারমাকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এর আগে মাগুরা সদর উপজেলার জগদল ইউনিয়নে নির্বাচনী সংঘর্ষে চারজন নিহত হন। প্রথম ধাপের নির্বাচনে কক্সবাজারের মহেশখালীতে সহিংসতায় নিহত হন দুজন আর বরিশালের গৌরনদীতে নিহত হন দুজন। আর ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত হয়েছিলেন ১১৭ জন। 

পুলিশ সদর দফতরের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, যে এলাকায় ইউপি নির্বাচন হবে সেখানে উৎসবমুখর পরিবেশের পাশাপাশি আধিপত্য বিস্তার, হামলা-পাল্টা হামলা, দাঙ্গা-হাঙ্গামাসহ সন্ত্রাসকান্ড ও কেন্দ্র দখলের মতো অপরাধ ঘটতে পারে। এ আশঙ্কায় সম্প্রতি পুলিশ সদর দফতরে অনুষ্ঠিত অপরাধ পর্যালোচনা সভায় আইজিপি মাঠপুলিশকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘ইউপি নির্বাচনে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার, বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহারসহ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটতে পারে। তাই এ বিষয়ে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিতে হবে। সংশ্লিষ্ট রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলা পুলিশ সুপারদের এ বিষয়ে বিশেষ সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন আইজিপি।

আরও পড়ুন


দলে পরিবর্তন, এক নজরে ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল মারা গেছেন

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, আরও দুদিন বৃষ্টির সম্ভাবনা

চিকিৎসকের আত্মহত্যা, লাশের পাশে পড়ে থাকা চিঠিতে যা লেখা ছিল


পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি (অপারেশন ও প্ল্যানিং) মো. হায়দার আলী খান বলেন, ‘স্থানীয় পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে প্রতিটি ইউনিয়নে নির্বাচনের নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজানো হয়। মাঠপুলিশকে সেভাবেই নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে কেন্দ্রের নিরাপত্তা ও টহল এবং স্ট্রাইকিং ফোর্সের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য চেয়ে একটি চাহিদা দেওয়া হয়। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সে অনুযায়ী সরবরাহ করে। এর বাইরে পুলিশ একটি নিজস্ব নিরাপত্তা পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে কাজ করছে। নির্বাচনকেন্দ্রিক সহিংসতা ও ঝুঁকির বিষয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদন থাকলে সেগুলো আমলে নিয়ে মাঠপর্যায়ে নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজানোর নির্দেশনা দিয়েছি।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদে সহিংসতার বিষয়টি নির্ভর করে মূলত প্রার্থীদের আচরণের ওপর। খুনোখুনি, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারসহ সামগ্রিক বিষয়ে আমরা সতর্ক আছি। পুলিশ ছাড়াও বিজিবি, আনসার সদস্যরাও নির্বাচনী নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকেন। তারা নির্বাচনকেন্দ্রিক সহিংসতা রোধে কাজ করছেন।’  সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

news24bd.tv রিমু  

 

পরবর্তী খবর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব, বিভ্রান্তি ছড়লে কঠোর ব্যবস্থা

অনলাইন ডেস্ক

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব, বিভ্রান্তি ছড়লে কঠোর ব্যবস্থা

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব, বিভ্রান্তি ছড়িয়ে সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাতে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিটগুলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব, বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের মনিটর করছে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


সম্প্রতি দেশে বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে কতিপয় ব্যক্তি, গোষ্ঠী উদ্দেশ্য প্রণোদিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব, বিভ্রান্তি ছড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে চক্রান্তকারীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্ট কিংবা বিভিন্ন তথ্য বিকৃত বা অপব্যাখ্যা করে তা বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে সংঘাতমূলক পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস) কামরুজ্জামান বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ যে কোনো মাধ্যমে গুজব/বিভ্রান্তি না ছড়াতে এবং অযাচাইকৃত সংবাদ বিশ্বাস না করতে সকলের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সারাদেশে আ.লীগের সমাবেশ কাল

অনলাইন ডেস্ক

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সারাদেশে আ.লীগের সমাবেশ কাল

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আগামীকাল মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সারাদেশে ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। 

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক জরুরি সভা শেষে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ কর্মসূচি পালন করবে দলটি। এছাড়া এই কর্মসূচির আওতায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো দেশের সব জেলা, মহানগর, উপজেলায় ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ আয়োজন করবে। তাছাড়া সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করবেন আওয়ামী লীগের জাতীয় নেতৃবৃন্দ।

সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দলের সব নেতাকর্মীকে দেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ দেন।

যেকোনো মূল্যে বাংলাদেশের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ যখন মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঠিক সে সময়ে একটি চিহ্নিত মহল পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক হানাহানি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে। সরকার ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই গ্রেপ্তার হয়েছে এবং বাকিদেরও আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


সরকার পরিস্থিতির ওপর সতর্ক দৃষ্টি রাখছে এবং এই ধরনের সন্ত্রাসী ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে বলেও জানান সরকারপ্রধান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, আ. ফ. ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি. এম মোজাম্মেল হক, এস. এম কামাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য আনোয়ার হোসেন, সাহাবুদ্দিন ফরাজী, সৈয়দ আবদুল আউয়াল শামীম।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ

অনলাইন ডেস্ক

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়িয়ে যারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাতে পুলিশ সদরদপ্তরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস) মো. কামরুজ্জামানের পাটানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে দেশে বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে কিছু ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে চক্রান্তকারীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্ট কিংবা বিভিন্ন তথ্য বিকৃত বা অপব্যাখ্যা করে তা বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে সংঘাতমূলক পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

বাংলাদেশ পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিটগুলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের মনিটর করছে ও তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ যে কোনো মাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি না ছড়াতে এবং যাচাই ছাড়া সংবাদে বিশ্বাস না করতে সবার প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ।

যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনগণের সার্বিক সহযোগিতাও প্রত্যাশা করছে বাংলাদেশ পুলিশ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

শেখ রাসেলের হত্যাকাণ্ড ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা: পরিকল্পনা মন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

শেখ রাসেলের হত্যাকাণ্ড ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা: পরিকল্পনা মন্ত্রী

পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের হত্যাকাণ্ড ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা।

তিনি বলেন, শিশুরা সবার কাছে আদরের। অথচ আমরা এমন একটা জাতি যে শিশু শেখ রাসেলকে হত্যা করলাম। এই নিষ্ঠুরতা মেনে নেওয়া যায় না।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ১৯৮৮ সালে আমি চট্টগ্রামের ডিসি ছিলাম। ডিসি থাকার সময় শেখ রাসেলের হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করেছিলাম। এই সংবাদ চট্টগ্রামের পত্রিকা দৈনিক পূর্বকোণ ও দৈনিক আজাদীতে বড় করে ছাপা হয়। এরপরে আমাকে রাতারাতি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় বদলি করা হয়। আমার স্ত্রীকে চট্টগ্রামে রেখে একা ঢাকায় চলে আসি। ঐ সময় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবের কাছে আমাকে জবাবদিহি করতে হয়। আমি তো রাজনীতিবিদ নই, আমলা হয়ে কেন এমন কথা বললাম- তার জবাব চাওয়া হয়। কেবিনেট সচিব আমাকে বলে, তুমি কি নেতা হয়ে গেছো?

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


তিনি আরও বলেন, শেখ রাসেল আমার চেয়ে ২০-২৫ বছরের ছোট। এক অদম্য প্রাণ। রাসেল আমাদের জন্য অনেক অবদান রাখতে পারতো অথচ তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। এটা অনেক লজ্জার ও ঘৃণার।

সভায় বাস্তবায়ন পরীবিক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) ড. বিনায়েক সেন প্রমুখ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর