দুই বান্ধবীকে ধর্ষণ-হত্যা: আজিজ-কালুর ফাঁসি কার্যকর

অনলাইন ডেস্ক

দুই বান্ধবীকে ধর্ষণ-হত্যা: আজিজ-কালুর ফাঁসি কার্যকর

যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে দুই বান্ধবী ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। সোমবার রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় উপজেলার খাসকররা ইউনিয়নের রায়লক্ষ্মীপুর গ্রামের দুই আসামি আজিজুল ওরফে আজিদ ওরফে আজিজ (৫০) ও মিন্টু ওরফে কালু (৫০)। আসামিদের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী পরিবারের লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ ও পছন্দের খাবারও খাওয়ানো হয়।

কারা সূত্রে জানা গেছে,  দুই খুনির ফাঁসি কার্যকরে রাতে একে একে কারাগারে প্রবেশ করেন যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়াদ্দার, সিভিল সার্জন দিলীপ শেখ আবু শাহীন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান। রাতে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ওই দুই আসামিকে গোসল করানোর পর তাদের তওবা পড়ান কারা মসজিদের ইমাম। রাতেই স্বজনদের সঙ্গে শেষ সাক্ষাতের পর তাদের খাবার খাওয়ানো হয়। এরপর তাদের রায় পড়ে শোনানো হয়। নিম্ন আদালতের রায়, আপিল এবং রাষ্ট্রপতির ক্ষমার আবেদন নামঞ্জুর হওয়ার বিষয়টি তাদের জানানো হয়। পরে তাদের জমটুপি পরিয়ে ফাঁসির মঞ্চে নেওয়া হয়। রাত ১০টা ৪৫মিনিটে প্রথমে মিন্টু ওরফে কালু এবং এর পাঁচ মিনিট পর একই গ্রামের আজিজ ওরফে আজিজুলের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

ফাঁসি কার্যকরে পাঁচ জল্লাদ কেতু কামার, মশিয়ার রহমান, লিটু হোসেন, আজিজুর রহমান ও কাদের অংশ নেন। ফাঁসি কার্যকরের পর সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে চিকিৎসক টিম তাদের মৃত্যু নিশ্চিত করে। এরপর ফরেনসিক টিম ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করার পর মরদেহ তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। 

যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের একটি সূত্র জানায়, রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ হওয়ার পর দুই আসামির ফাঁসি কার্যকরের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে কারা কর্তৃপক্ষ। 

যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার তুহিন কান্তি খান জানান, গত শনিবার (২ অক্টোবর) দুই আসামির পরিবারের সদস্যরা তাদের সাথে শেষবারের মতো দেখা করে গেছেন।

কারাগার সূত্রে জানা যায়, আজিজুল ওরফে আজিদ ওরফে আজিজ এবং মিন্টু ওরফে কালু ২০০৩ সালের সেপ্টেম্বরে চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার রায়লক্ষীপুর গ্রামের দুই বান্ধবীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে। পরে এ ঘটনায় ২০০৩ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মামলা হয়।

এ মামলায় চুয়াডাঙ্গার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতের বিচারক ২০০৭ সালের ২৬ জুলাই আসামি আজিজুল ও মিন্টুকে মৃত্যুদণ্ড ও ২ লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ দেন।

আরও পড়ুন


শীর্ষ সাইবার সন্ত্রাসীদের ভয়ংকর অপতৎপরতা

বিএনপি এবার ভুল করবে না: মেজর হাফিজ

পুলিশ-আদালত-সরকার একসাথে নিষ্পেষণ চালাচ্ছে: গয়েশ্বর

সব বিশ্ববিদ্যালয় খুলবে এ মাসেই

লাঠিসোটা লাগবে না, জনস্রোতে সরকারের পতন সম্ভব: নুর

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রকে আ.লীগের শোকজ


 

পরে আসামিপক্ষ হাইকোর্টে আপিল করলে ২০১২ সালের ১১ নভেম্বর হাইকোর্ট নিম্ন আদালতের রায় বহাল রাখার আদেশ দেন।

চলতি বছরের ২৬ জুলাই সুপ্রিম কোর্টেও একই রায় বহাল রাখেন। পরে রাষ্ট্রপতির কাছে তাদের প্রাণভিক্ষার আবেদনও নাকচ হয়।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

হাইকোর্টের স্থায়ী বিচারপতি হলেন ৯ জন

অনলাইন ডেস্ক

হাইকোর্টের স্থায়ী বিচারপতি হলেন ৯ জন

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে ৯ জন অতিরিক্ত বিচারপতিকে স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে সোমবার (১৮ অক্টোবর) আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বরত সচিব মো. গোলাম সারওয়ারের স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই নিয়োগ দেওয়া হয়।

স্থায়ী হওয়া বিচারপতিরা হলেন- বিচারপতি মুহম্মদ মাহবুব-উল ইসলাম, বিচারপতি শাহেদ নূরউদ্দিন, বিচারপতি মো. জাকির হোসেন, বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামান, বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদার, বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেন, বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার, বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক ও বিচারপতি কাজী জিনাত হক।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

কিউকমের আরজে নিরব ও রিপন মিয়া ফের রিমান্ডে

অনলাইন ডেস্ক

কিউকমের আরজে নিরব ও রিপন মিয়া ফের রিমান্ডে

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান কিউকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রিপন মিয়ার দুইদিন ও হেড অব সেলস (কমিউনিকেশন অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন) অফিসার হুমায়ুন কবির ওরফে আরজে নিরবের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে শুনানি শেষে এই রিমান্ডের আদেশ দেন ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ উর রশিদের আদালত।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লালবাগ থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই হেলাল উদ্দিন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

১৩ বছর পর হত্যা মামলার রায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড

অনলাইন ডেস্ক

১৩ বছর পর হত্যা মামলার রায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড

কিশোরগঞ্জে কৃষক বাচ্চু মিয়া হত্যা মামলায় জসিম উদ্দিন (৩৫) নামের একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত চারজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

আজ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ নার্গিস ইসলাম এ রায় ঘোষণা করেন। 

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জসিম উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কর্শা কড়িয়াইল ইউনিয়নের মনাকর্শা গ্রামের আবদুল মজিদের ছেলে।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, মনাকর্শা গ্রামের জসিম উদ্দিনের সঙ্গে পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে বিরোধ ছিল একই এলাকার কৃষক বাচ্চু মিয়ার। ২০০৮ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর বিকালে  বাচ্চু মিয়া স্থানীয় বাজারে ধান বিক্রি করতে যাচ্ছিলেন। এ সময় জসিম উদ্দিন ও তার ভাইয়েরা রাস্তায় বাচ্চু মিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করেন।

আরও পড়ুন:


ইভ্যালিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব: বিচারপতি মানিক

করোনা: দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

ডিএমপি কমিশনার ও র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি


এ ঘটনায় ঐদিন রাতেই বাচ্চু মিয়ার বড় ভাই হারুনুর রশীদ বাদী হয়ে ছয়জনকে আসামি করে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে ২০১০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। দীর্ঘ ১৩ বছর পর এ রায় দেন বিচারক। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ফতুল্লায় সুজন ফকির হত্যাকাণ্ডে দুই ঘাতক গ্রেপ্তার

দিলীপ মন্ডল, নারায়ণগঞ্জ

ফতুল্লায় সুজন ফকির হত্যাকাণ্ডে দুই ঘাতক গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় চাঞ্চল্যকর ক্লু-লেস ও নৃশংস সুজন ফকির হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী মো. আব্দুল মজিদ এবং হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশগ্রহণকারী মো. মজজেম হোসেনকে ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে নাটোরের বাগাতিপাড়া থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১।

রোববার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীনগরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‌্যাব ১১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল তানভীর মাহমুদ পাশা।

আরও পড়ুন:


টাকা না দেওয়ায় নানাকে হত্যা করে ঘরেই পুঁতে রাখে নাতি

আমরা আরও বেশি সতর্ক: ওবায়দুল কাদের


১৬ অক্টোবর সকালে ফতুল্লা থানাধীন নয়াবাজার এলাকায় সুজনকে হত্যা করা হয়।

ঘটনার খবর পাওয়ার পরই ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সজিব ফকির (২২) নামক এক ব্যক্তি গলাকাটা ও রক্তাক্ত লাশটি দেখে লাশটি তার বাবা সুজন ফকির (৪৫) বলে শনাক্ত করেন।

নিহতের ছেলে বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। হত্যাকাণ্ডের একটি সিসিটিভি ফুটেজ এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

১৮ অক্টোবর র‌্যাব-১১ ও র‌্যাব-৫ এর একটি দল নাটোরের বাগাতিপাড়ায় যৌথ অভিযান চালিয়ে সুজন ফকির হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী নাটোরের বাগাতিপাড়ার আফাজের ছেলে আব্দুল মজিদ (৩৭) ও হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশগ্রহণকারী মহাকাতের ছেলে মজজেম হোসেনকে (২৮) গ্রেপ্তর করতে সক্ষম হয়।

প্রাথমিক অনুসন্ধান ও আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আব্দুল মজিদের স্ত্রীর সঙ্গে নিহত সুজন ফকিররের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল।

এর কারণে সমসাময়িককালে মজিদ ও তার স্ত্রীর মধ্যে দাম্পত্য সম্পর্কের অবনতি ঘটে। এরই ধারাবাহিকতায় ০৫ অক্টোবর আব্দুল মজিদের স্ত্রী কাউকে কিছু না বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজির পর স্ত্রীকে না পেয়ে আব্দুল মজিদের মনে সন্দেহ হয় যে, তার স্ত্রী সুজন ফকিরের হেফাজতে রয়েছে। তখন থেকেই সে তার ভাতিজা মজজেম হোসেনকে নিয়ে সুজন ফকিরকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

মজজেম নাটোর থেকে নারায়ণগঞ্জ যাওয়ার সময় তার খালাতো ভাই মো. হাসান (২২) কে সঙ্গে নিয়ে আসে। হত্যাকাণ্ডের আগের রাতে মজজেম ও হাসান নারায়গঞ্জে আসে এবং আব্দুল মজিদের পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা ঘটনার দিন সকালে সুজন ফকিরের বর্তমান ঠিকানায় যায়। পরিকল্পনা অনুযায়ী আব্দুল মজিদ মোবাইল ফোনে ভিকটিম সুজনকে মজজেমের সঙ্গে দেখা করতে বলে। ভিকটিম সুজন ফকির মজজেমের সঙ্গে দেখা করতে এলে, মজজেম কথা আছে বলে অটোরিক্সায় তুলে নেয়।

যাওয়ার পথে সকালে নয়াবাজার এলাকায় চলন্ত অটোরিক্সার বসা সুজন ফকিরের গলায় পেছন থেকে ছুরিকাঘাত করে থেকে পালিয়ে যায় মজজেম।

উক্ত হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া অপর সদস্য হাসান (২২) গ্রেপ্তার এড়াতে আত্মগোপনে রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

news24bd.tv/তৌহিদ

পরবর্তী খবর

ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আ.লীগ নেতা গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আ.লীগ নেতা গ্রেফতার

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় গামছা দিয়ে চোখ-মুখ বেঁধে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের অভিযোগে রোববার রাতে রাঙ্গাবালী থানায় একটি মামলা করা হয়। রাতেই ওই মামলায় প্রধান অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা হাসান মৃধাকে (৪২) উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের কোড়ালিয়া বাজার থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতার হাসান মৃধা ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। সোমবার সকালে তাকে গলাচিপা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। 

এর আগে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ছোটবাইশদিয়া গ্রামে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, গ্রেফতার হাসান মৃধা অজ্ঞাতনামা একজন আসামি নিয়ে গৃহবধূর স্বামীর ঘরে ঢুকে তার চোখ ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলে। গরম বস্তু দিয়ে গৃহবধূর বাম হাতে এবং বাম কোমরে ছেকা দেয়। একপর্যায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি গৃহবধূর দুই হাত চেপে ধরে রাখে। আর হাসান মৃধা তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। 

আরও পড়ুন


বঙ্গবন্ধু যেতেই গুলি বন্ধ করল বিডিআর

মানুষের সঙ্গে যেভাবে কথা বলতেন বিশ্বনবী

সূরা বাকারা: আয়াত ১২৮-১৩৩, আল্লাহর নির্দেশ ও হয়রত ইব্রাহিম (আ.)

কলকাতা প্রেস ক্লাবে ‘বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার’


রাঙ্গাবালী থানার ওসি দেওয়ান জগলুল হাসান বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর