৭৫ বিয়ে, ২০০ নারী পাচার, ভারতে বাংলাদেশি যুবক আটক

অনলাইন ডেস্ক

৭৫ বিয়ে, ২০০ নারী পাচার, ভারতে বাংলাদেশি যুবক আটক

মুনির (মাঝে)

একটি বা দুইটি নয়, ৭৫টি বিয়ে। দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে গরিব পরিবারের মেয়েদের বিয়ে করতেন মুনির। এরপর দালালের হাত ধরে নিজের বিয়ে করা স্ত্রীদেরই অবৈধভাবে বাংলাদেশ সীমান্ত পার করিয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হতো ভারতে। আর অবৈধভাবে সীমান্ত পার করাতে ব্যবহার করা হতো অরক্ষিত সীমান্ত সংলগ্ন ড্রেইনগুলিকে। 

বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশের পরে তাদের কলকাতায় একটি গোপন ডেরায় নিয়ে যাওয়া হতো। সেখানেই চলত একপ্রস্থ প্রশিক্ষণ, সেখানে ওই পাচারকারী নারীদের চৌকশ করার পর মুম্বাইতে নিয়ে গিয়ে দ্বিতীয় দফায় প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো। সবশেষে চাহিদা অনুযায়ী ভারতের বিভিন্ন শহরে তাদের সরবরাহ করা হতো। কেউ কেউ আবার হাত ঘুরে চলে যেতেন বিভিন্ন নিষিদ্ধপল্লীতে। আর এভাবেই চলে আসছিল দিনের পর দিন, মাসের পর মাস। 

সম্প্রতি সেক্স র‍্যাকেট এর চক্রের সন্ধান পেয়ে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য আসে ভারতের মধ্যপ্রদেশ পুলিশের হাতে। যদিও এই চক্রের সন্ধান পেতে গত কয়েক মাস ধরে লাগাতার অভিযান চালাতে হয়েছে পুলিশকে।
 
ভারতীয় পুলিশ সূত্রে খবর, গত ১১ মাসে ভারতের বিভিন্ন এলাকা থেকে ১১ জন বাংলাদেশি নারীসহ ২১ জনকে উদ্ধার করা হয়। আটক করা হয় সাগর, আফরীন, আমরিন নামে ওই পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত থাকা কয়েকজন ব্যক্তিকে। সেই সময় বিষয়টি সামনে আসে যদিও ওই চক্রের মূল পান্ডা বাংলাদেশি নাগরিক মুনির ওরফে মনিরুলর নাগাল কিছুতেই পাচ্ছিল না পুলিশ। আর মুনিরের খোঁজে মধ্যপ্রদেশ পুলিশের তরফে ১০ হাজার রুপি আর্থিক পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়েছিল। 

অবশেষে গত বৃহস্পতিবার গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গুজরাটের সুরাট থেকে যশোরের বাসিন্দা মুনিরকে গ্রেফতার করে ভারতের মধ্যপ্রদেশের ইন্ডোর পুলিশের স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিমের সদস্যরা। পরে তাকে ইন্দোরে নিয়ে আসা হয়। 

পুলিশি জেরায় বাংলাদেশি তরুণী এবং নারীদের ভারতে পাচার করার কথা স্বীকার করেছে মুনির। পুলিশের কাছে মুনির আরও জানায়- গত পাঁচ বছর ধরে এই কাজ করে আসছে সে। তার হাত ধরে এখন পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক নারী কলগার্লে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে অবৈধ পথে ভারতে পাচারের জন্য সীমান্তে টহলরত বাহিনীর সদস্যের রুপি দিতে বলেও জানায় মুনির। 
 
মুনির এ ও জানায় এখনো পর্যন্ত সে ৭৫ টা বিয়ে করেছে এবং তাদের অধিকাংশ গরীব এবং দরিদ্র পরিবারের নারী। আর দারিদ্রতার সেই সুযোগ নিয়েই কাজের লোভ দেখিয়ে নিজের বিয়ে করা স্ত্রীদেরই ভারতে এনে বিক্রি করে দেয়া হতো এবং এই পেশায় ঠেলে দেওয়া হতো। 

পুলিশের দাবি মুনির জানিয়েছে- দালাল মারফত অরক্ষিত সীমানার ড্রেইন গুলিকে ব্যবহার করে সে বাংলাদেশ থেকে নারীদের ভারতে আনা হত এবং পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ হ গ্রামীণ এলাকায় সেই সব নারীদের রাখা হতো। এরপর তাদের ভোপাল, ইন্দোরসহ ভারতের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হতো। 

আরও পড়ুন:


মুসলিম উম্মাহর শ্রেষ্ঠত্বের বৈশিষ্ট্য

বৃহস্পতিবার শপথ নেবেন মমতা

প্যানডোরা পেপার্স: বিশ্বনেতাদের দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার

এবি ব্যাংকের ডিএমডি আব্দুর রহমান গ্রেপ্তার


গত ১১ মাস ধরে মধ্যপ্রদেশের লাসুদিয়া এবং বিজয়নগর শহরে অভিযান চালিয়ে ১১ জন বাংলাদেশি নারী সহ ২১ জনকে উদ্ধার করা হয়। এরপর সেক্স র‍্যাকেটের বিষয়টি সামনে আসে। তবে কেবল মুনিরই নয়, এর পিছনে একটি বড় চক্র রয়েছে বলেও অনুমান পুলিশের। তাই মুনিরকে জিজ্ঞেস করেই আরও বড় চক্রের হদিশ পেতে চাইছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ। 

বিজয়নগরের সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা তেহজীব কাজী জানান, কয়েকদিন আগে সুরাট থেকে নিষিদ্ধ পল্লী এলাকার এক দালালকে গ্রেফতার করা হয়। সেসময় একটি গেষ্ট হাউসে অভিযান চালিয়ে ২১ জন নারীকেও উদ্ধার করা হয়। যার মধ্যে ১১ জন বাংলাদেশি। বাংলাদেশি নারীদের ভারতে পাচার করে তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে নিষিদ্ধ পল্লী এলাকায় কাজের জন্য উপযুক্ত করে গড়ে তোলা হয়। যদিও সেই সময় মূল অভিযুক্ত পালিয়ে যায়। এবং তাকে গ্রেফতারের জন্য ১০ হাজার রুপি পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন 

 

পরবর্তী খবর

কিশোরগঞ্জে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ

অনলাইন ডেস্ক

কিশোরগঞ্জে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে তিন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, পাকুন্দিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মো. সোহরাব উদ্দিন পাকুন্দিয়ায় পৌর নির্বাচন উপলক্ষে শনিবার বিকেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার জন্য ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন।

সোহবার উদ্দিনের আগমনকে কেন্দ্র করে ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির সদস্যদের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হলে স্থানীয় সংসদ সদস্যের গ্রুপটি হোসেন্দী ও ভূঁঞা বাজারে অবস্থান নেয়।

আরও পড়ুন:


ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪ 

আ.লীগের মনোনয়নপত্র বিক্রি ১৬ থেকে ২০ অক্টোবর

দেশে সাম্প্রদায়িক হামলাগুলোর মদদ দিচ্ছে সরকার: ফখরুল

সেদিন নীল শাড়িটাই পরবো: মাহি

দ্বিতীয় বিয়ে করে সত্যিই 'সারপ্রাইজ' দিলেন মাহি


 

একপর্যায়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে পুলিশসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সারোয়ার জাহান বলেন, আগামী শনিবারে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে কমিটির সদস্যদের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। পরে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে এ সময় পুলিশের এসআইসহ তিন আহত হন। আহত পুলিশ সদস্যদের পাকুন্দিয়া হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

প্রেমিকার ‌‘গোপন’ ভিডিও ফেসবুকে দিল ‘প্রেমিক’

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমিকার ‌‘গোপন’ ভিডিও ফেসবুকে দিল ‘প্রেমিক’

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করার অভিযোগ উঠেছে মারুফ নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। পরে তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার প্রেমিকার মা এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করে।

গ্রেপ্তার মারুফ (২২) শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার মির্জাপুর গ্রামের মনির হোসেন ও শিউলি বেগমের ছেলে।

মামলার বরাত দিয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, ফতুল্লার এক তরুণীর (১৭) সঙ্গে মারুফের প্রেমের সম্পর্ক হয়। এতে তারা দুজন বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যায়।

আরও পড়ুন:


ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪ 

আ.লীগের মনোনয়নপত্র বিক্রি ১৬ থেকে ২০ অক্টোবর

দেশে সাম্প্রদায়িক হামলাগুলোর মদদ দিচ্ছে সরকার: ফখরুল

সেদিন নীল শাড়িটাই পরবো: মাহি

দ্বিতীয় বিয়ে করে সত্যিই 'সারপ্রাইজ' দিলেন মাহি


 

তখন কৌশলে মারুফ মোবাইলে তরুণীর ছবি ও ভিডিও ধারণ করে রাখে। এরই মধ্যে তরুণীকে বিয়ের প্রস্তাব দেয় মারুফ। বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ফেসবুকে সেই ধারণ করা ভিডিও ও ছবি পোস্ট করে। 

এ ঘটনায় ওই তরুণীর মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

মুরগীর খামারে শিশু ধর্ষণ

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

মুরগীর খামারে শিশু ধর্ষণ

নাটোরের সিংড়ায় তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আব্দুল ওহাব (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সকালে উপজেলার রাতাল কুম গ্রামের একটি মুরগির খামারে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ধর্ষিত শিশুটি বর্তমানে সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

গ্রেপ্তার আব্দুল ওহাব সিংড়া উপজেলার রাতাল কুমগ্রামের আব্দুর রশীদ প্রামানিকের ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ওই শিশুটি বাড়ির পাশে বিয়সকালবিাড়ি এলাকায় জনৈক আমির হামজার মুরগীর খামারে যায়। এসময় ওই খামারের পাহারাদার আব্দুল ওহাব শিশুটিকে একাকী দেখে কাছে ডেকে নেয়। এক সময় সে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। শিশুটির চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে গিয়ে উদ্ধার করে।

এসময় আব্দুল ওয়াহাবকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আব্দুল ওয়াবকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

সিংড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুর-ই আলম সিদ্দীকি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। ভিকটিম শিশুটিকে সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

অভিযুক্ত আব্দুল ওহাবকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন:


ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪ 

আ.লীগের মনোনয়নপত্র বিক্রি ১৬ থেকে ২০ অক্টোবর

দেশে সাম্প্রদায়িক হামলাগুলোর মদদ দিচ্ছে সরকার: ফখরুল

সেদিন নীল শাড়িটাই পরবো: মাহি

দ্বিতীয় বিয়ে করে সত্যিই 'সারপ্রাইজ' দিলেন মাহি


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

নকল কাবিননামা তৈরি করে ধরা মাদ্রাসা শিক্ষক

অনলাইন ডেস্ক

নকল কাবিননামা তৈরি করে ধরা মাদ্রাসা শিক্ষক

ফেনীতে নকল কাবিননামা তৈরির অভিযোগে আমির হোসেন (৪৫) নামের এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তার আমির হোসেনের বিরুদ্ধে বিয়ে নিবন্ধনের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন কাজীর নামের সিল, স্বাক্ষর জাল করে নকল কাবিননামা তৈরির অভিযোগ রয়েছে। তিনি ফেনী পৌরসভার উত্তর চাড়িপুর এলাকার একটি মাদ্রাসার শিক্ষক ও ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের আলকদিয়া গ্রামের বাসিন্দা।

গত মঙ্গলবার রাতে শহরের শান্তিধারা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার এবং গত বুধবার ফেনীর আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ফেনী পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের বিয়ে নিবন্ধনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাজী আবু তৈয়বের নামের সিল, স্বাক্ষর জাল করে কয়েকটি ভুয়া কাবিননামা তৈরির অভিযোগে তিনি চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি ফেনী সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেন। মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব সিআইডিকে ন্যস্ত করা হয়। এরপর আরিফুল ইসলাম নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তখন তিনি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে তিনি ভুয়া স্বাক্ষর, সিল ও নকল কাবিননামা তৈরির কাজে মাদ্রাসা শিক্ষক আমির হোসেনসহ দুজন যুক্ত ছিলেন বলে আদালতে বলেছিলেন।

আরও পড়ুন


থেমে-থেমে জ্বর আসছে খালেদা জিয়ার, খাচ্ছেনও খুবই অল্প

কুমিল্লার ঘটনা উদ্দেশ্যমূলক ও পরিকল্পিত: রিজভী

যুক্তরাষ্ট্রে উড়াল দিলেন মৌসুমী, ভিসা মেলেনি ওমর সানীর

ক্ষমতায় যাওয়ার বিএনপির রঙিন খোয়াব অচিরেই দুঃস্বপ্নে পরিণত হবে: কাদের


মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সিআইডি উপপরিদর্শক (এসআই) মো. হাসানুল করিম জানান, আরিফুল ইসলামের স্বীকারোক্তিমূলক ও তদন্তে আমির হোসেনের জড়িত থাকার তথ্য প্রমাণ পেয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অন্য আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ফেনী সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান জানান, গ্রেপ্তার মাদ্রাসা শিক্ষক আমির হোসেনকে বুধবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো  হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪

অনলাইন ডেস্ক

ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা, নিহত ৪

মাগুরায় সদর উপজেলার জগদল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ঘিরে সহিংসতায় চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১০ জন। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এ সহিংসতা হয় বলে জানিয়েছেন জেলার পুলিশ সুপার জহিরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। আহতদেরকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর দুই মেম্বার প্রার্থী সমর্থদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর