মা কুকুরটা গত তিনদিন মৃত বাচ্চাটার পাশ থেকে এক ইঞ্চিও নড়েনি
মা কুকুরটা গত তিনদিন মৃত বাচ্চাটার পাশ থেকে এক ইঞ্চিও নড়েনি

মা কুকুরটা গত তিনদিন মৃত বাচ্চাটার পাশ থেকে এক ইঞ্চিও নড়েনি

Other

গত কয়েকদিন এই রাস্তায় হাটি। তিন, চারদিন ধরে একটা জিনিস নজরে পরে। বিষয়টা এতটা মর্মান্তিক, তা এই ছবিটা তোলার আগ মূহুর্ত পর্যন্ত বুঝতে পারিনি।

এখানে কয়েকটা কুকুর ছানা রয়েছে।

দেখতে খুব সুন্দর, আহ্লাদে। নাদুসনুদুস। হাত দিয়ে ছুঁয়ে দেয়ার মত। পথিক হেটে গেলেই তাদের পিছু নেয় ছানাগুলো। কিছুদিন হয় কোনো বাচ্চা দেখি না।  

গত দুই দিন আগে রাস্তার পারে দেয়ালের পাশে মা কুকুরকে দেখতে পাই কেমন বিষন্ন মন নিয়ে এদিক ওদিক তাকিয়ে রয়। সামনে একটা মাত্র ছানা। ভেবেছি অন্য বাচ্চাদের বিয়োগের জন্য হয়তো তার মন খারাপ।  

news24bd.tv

গতকাল ও ঠিক একি জায়গায় মা কুকুর টা বসে আছে। আজো সেখানেই। সামনে একটা মাত্র বাচ্চা। আমি দেখার জন্য উঁকি দেই। আমার নাকে বিশ্রী এক গন্ধ আসে। সরে যাই। বমি আসে। কিন্তু মা কুকুরটা সম্ভবত গত তিন দিন ধরে কিছু না খেয়ে হয়তো এখানে বসে আছে। তা তার হাড্ডিসার শরীর দেখলেই বুঝায়। মা কুকুরটা হয়তো গত তিনদিন ধরে মৃত্যু বাচ্চাটার পাশ থেকে এক ইঞ্চিও নড়েনি। মৃত্যু বাচ্চাটাকে সামনে নিয়ে বসে এদিক ওদিক তাকাচ্ছে আর একটু পরপর মৃত্যু বাচ্চাটার পঁচা গলা শরীরে নাক লাগিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে কেমন করুন সুরে কাঁদছে। সন্তানের মৃত্যুতে পিতামাতা যেভাবে মেনে নিতে পারেনা, পশুরাও তেমনি পারে না। মানুষ তার দুঃখ, কষ্ট, বেদনার কথা পরস্পরের সাথে অংশীদার করে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করতে পারলেও পশু তার মনের কষ্ট কাউকে ভাগ বসিয়ে মনে দাগ কাটাতে ব্যর্থ হয়।  

এই দৃশ্য দেখে আমার মন বিষন্নতায় ছেয়ে যায়। তখন আমার দেখা প্রতিটা মানব বাচ্চা এবং তাদের পিতা মাতার কথা মনে পরে যায়। খারাপ লেগেছে খুব।

লেখাটি জামান হোসাইন-এর ফেসবুক থেকে নেওয়া (সোশ্যাল মিডিয়া বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়। )

news24bd.tv/আলী

;