৮ জন নারী এবং ২৩ শিশুকে প্রত্যাবাসন করেছে জার্মানি
৮ জন  নারী এবং ২৩  শিশুকে প্রত্যাবাসন করেছে জার্মানি

৮ জন নারী এবং ২৩ শিশুকে প্রত্যাবাসন করেছে জার্মানি

অনলাইন ডেস্ক

আইএস সন্ত্রাসী গোষ্ঠীতে যোগ দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত  আটজন নারী এবং উত্তর সিরিয়া থেকে ২৩ জন শিশুকে প্রত্যাবাসন করেছে জার্মানি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার রাতভর দেওয়া বক্তব্যে জানিয়েছে, ২০১৯ সালের পর এটি সবচেয়ে বড় স্থানান্তর।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস একটি বিবৃতিতে বলেছেন, মায়েদের কাজের জন্য শিশুরা দায়ী হতে পারে না। তাই তাদের অনেককে নিরাপদ হেফাজতে রাখা হয়েছে।

বার্লিন বলেছেন, মার্কিন সামরিক সহায়তায় এই অভিযান পরিচালিত হয়। সেই অভিযানের অংশ হিসেবে ডেনমার্কও তিনজন নারী ও ১ জন শিশুকে তাদের অঞ্চলে নিয়ে আসে।

মাস বলেন যে শিশুদের বিশেষ সুরক্ষার প্রয়োজন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, বেশিরভাগ শিশুই অসুস্থ এবং জার্মানিতে তাদের অভিভাবক হিসেবে তাদের মা এবং ভাই -বোন রয়েছে। আরব নিউজ জানায়, কুর্দি নিয়ন্ত্রিত উত্তর-পূর্ব সিরিয়ার রোজ ক্যাম্প থেকে এই দলটিকে প্রত্যাবাসন করা হয়।

দৈনিক বিল্ড জানিয়েছে,  পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং পুলিশ কর্মকর্তারা বুধবার ভোরে একটি মার্কিন সামরিক বিমানে এই অঞ্চলে অবতরণ করে। বিমানাট ফ্রাঙ্কফুর্টের একটি ফ্লাইটে ওঠার আগে এই দলটিকে কুয়েতে নিয়ে আসে।

ডের স্পিগেল এর সাপ্তাহিক একটি রিপোর্ট বলছে,  এবং জার্মানির আশেপাশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা নারীদের বয়স ৩০ থেকে ৩৮ এর মধ্যে।


আরও পড়ুন

৭৫টি বিয়ে করে মনির, স্ত্রীদের বিক্রি করে পতিতালয়ে

আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের দেওয়ালে পানি দিতে গিয়ে স্বামী-স্ত্রী-সন্তানের মৃত্যু

২১ জনের মৃত্যুর দিনে বাড়ল শনাক্ত

৫ দিনের রিমান্ডে কনক সারোয়ারের বোন


২০১৯ সালের মার্চে পতনের পর থেকে আইএস এর সঙ্গে যুক্ত বন্দীদের সঙ্গে আচরণ নিয়ে ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে সহিংসতা বেড়েছে।

বেশিরভাগ ইউরোপীয় দেশ ধাপে ধাপে ভিত্তিতে প্রত্যাবাসন করে।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে ফিনল্যান্ডের সঙ্গে জার্মানির সর্বশেষ যৌথ প্রত্যাবাসনে পাঁচজন নারী ও ১ জন শিশুকে ফিরিয়ে আনা হয়েছিল।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

;