খুলনার বেশিরভাগ সড়কের বেহাল দশার নেপথ্যে সমন্বয়হীনতা

খুলনার বেশিরভাগ সড়কের বেহাল দশার নেপথ্যে সমন্বয়হীনতা

Other

সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয়হীনতা ও সংস্কারের অভাবে খুলনার বেশিরভাগ সড়কের এখন বেহাল দশা। শিপইয়ার্ড সড়ক, মুজগুন্নি মহাসড়কসহ নগরীর বিভিন্ন সড়কে পিচ ও খোয়া উঠে বড় গর্ত তৈরি হয়েছে।

আর চলাচলের অনুপযোগী এসব সড়কে প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। প্রায়ই ঘটছে দুঘটনাও।

এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে নগরবাসী।  

২০১৩ সালে ৯৮ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে শিপইয়ার্ড সড়কের প্রশস্তকরণ প্রকল্প গ্রহণ করে খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। ২০২০ সালে প্রকল্পের বাস্তবায়ন ব্যয় আড়াই গুণ বৃদ্ধি পেয়ে ২৫৯ কোটি টাকা হলেও সড়ক নির্মাণে দৃশ্যমান কাজ শুরু হয়নি।  

একইভাবে সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে নতুন রাস্তা পর্যন্ত মুজগুন্নি সড়ক, মুজগুন্নি লিংক রোড, সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন বাইপাস সংস্কারের অভাবে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব সড়কে পিচ ও খোয়া উঠে বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। বিপদজনক সড়কে যানবাহন চলতে গিয়ে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনাও।

সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয়হীনতা ও সংস্কারের অভাবেই সড়কের এমন বেহাল দশা এমন অভিমত নাগরিক নেতাদের।

আরও পড়ুন:


লেবাননে তেলের ট্যাংকারে ভয়াবহ আগুন, নিয়ন্ত্রণে ২৫টি দল

গাঁজা সেবনে অভ্যস্তদের করোনায় মৃত্যুঝুঁকি বেশি: গবেষণা

অবশেষে যশের সঙ্গে বিয়ের কথা স্বীকার করলেন নুসরাত!

পল্লবী থেকে উধাও হওয়া সেই ৩ বান্ধবীকে দেওয়া হল পরিবারের জিম্মায়


এদিকে প্রায় ২৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনা-চুকনগর-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়কে প্রশস্ততা বাড়নো হলেও দুর্ঘটনা কমেনি। বিশ্লেষকরা বলছেন, ঝুকিপূর্ণ বাঁক, সংযুক্ত চার শতাধিক লিংক রোড ও চালকের অসচেতনতার কারণে এসব দুর্ঘটনা ঘটছে।  

জনদুর্ভোগ কমাতে সড়কগুলো সংস্কারে যথাযথ উদ্যোগ নেবে সেবা সংস্থাগুলো এমন দাবি ভুক্তভোগীদের।

news24bd.tv নাজিম