দুই মাদরাসা ছাত্রকে বলাৎকার, কারাগারে মাওলানা জাহিদুল
দুই মাদরাসা ছাত্রকে বলাৎকার, কারাগারে মাওলানা জাহিদুল

দুই মাদরাসা ছাত্রকে বলাৎকার, কারাগারে মাওলানা জাহিদুল

অনলাইন ডেস্ক

হেফজ শাখায় পড়াশোনা করতো দশ বছর ও নয় বছরের দুই কিশোর।   কিন্তু সেই মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মো. জাহিদুল ইসলাম প্রায় সময় তার কক্ষে ডেকে নিয়ে দুই ছাত্রকে দিয়ে  তার হাত-পা টিপাতো। হাত-পা টিপানোর কথা বলে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে ৯ বছর বয়সী ছাত্রকে একাধিকবার বলৎকার করার অভিযোগ উঠে।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় এই ঘটনা ঘটে।

মাওলানা জাহিদুল ইসলাম সোনারগাঁ থানার হরিহরদী গ্রামের শফিকুর রহমানের পুত্র ও ফতুল্লা মডেল থানার দেওভোগ এলাকার বাইতুল কোরআন হাফিজিয়া মাদরাসার সুপার হিসেবে কর্মরত। এ ঘটনায় সোমবার ভোরে তাকে ফতুল্লার দেওভোগ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মাদরাসা পড়ুয়া দুই ছাত্রকে বলৎকার করার অভিযোগে মাওলানা মো. জাহিদুল ইসলাম (৩৪) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার শেষে আসামিকে আদালতে পাঠালে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

সোমবার (১১ অক্টোবর) বিকেলে আসামিকে আদালতে ওঠানো হয়। পরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. কাউছার আলম এর আদালত এ আদেশ দেন। এর আগে, একই আদালতে ভিকটিমরা ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন।

এর আগে, বলাৎকারের শিকার হওয়া ছাত্রদের মধ্যে এক ছাত্রের বাবা বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, বাদীর দশ বছর বয়সি পুত্র ও বাদীর সঙ্গে থানায় আসা অপর এক সঙ্গীর নয় বছর বয়সী পুত্র উভয়েই দেওভোগ বাইতুল কোরআন হাফিজিয়া মাদরাসার হেফজ শাখায় পড়ালেখা করে। মাদরাসার সুপার মাওলানা মো. জাহিদুল ইসলাম প্রায় সময় তার কক্ষে ডেকে নিয়ে দুই ছাত্রকে দিয়ে হাত-পা টিপাতো। হাত-পা টিপানোর কথা বলে কক্ষে ডেকে নিয়ে ৯ বছর বয়সী ছাত্রকে একাধিকবার বলৎকার করে।

আরও পড়ুন:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইপিএল নিয়ে জুয়া, ৩ জনের সাজা

চট্টগ্রাম আদালত এলাকায় বোমা হামলা মামলার রায় আজ

টুইটার অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে আদালতে ট্রাম্প

যুবলীগ নেতার সঙ্গে ভিডিও ফাঁস! মামলা তুলে নিতে নারীকে হুমকি


 

সর্বশেষ চলতি মাসের ৭ তারিখ সকালে মাদরাসার ভিতরে থাকা কক্ষে বাদীর ছেলেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে বলৎকার করে। এর আগে ৯ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টার দিকে বাদীর ছেলের সহযোগি মাদরাসা পড়ুয়া অপর এক ছাত্রকে একই কায়দায় ডেকে নিয়ে বলৎকার করে।

news24bd.tv/আলী

;