সাফ ফুটবলের ফাইনাল নিশ্চিতে কাল জামাল ভূঁইয়াদের অগ্নি পরীক্ষা

মালদ্বীপ থেকে মাহফুজুল ইসলাম:

নেপালের বিপক্ষে অঘোষিত সেমিফাইনালে কোনো রকম চাপ নেই বাংলাদেশের। জয়ের জন্য চাপমুক্ত থেকে মাঠে নামার জন্য ফুটবলাররা প্রস্তুত। ম্যাচটায় উল্টো চাপে থাকবে নেপাল। আর জয়ের জন্য কাজে লাগাতে হবে পাওয়া সুযোগগুলো।

এমনটাই বলছেন জাতীয় দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপু। এদিকে নিজেদের সেরাটা দিয়ে নেপালের বিপক্ষে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে চান ফুটবলাররা। 

সোমবারের অনুশীলনে ছিলো সব ঠিকঠাক। আগের দিনে অনুশীলন শেষে বাংলাদেশ দলের টিম বাস না পাওয়া যেন আয়োজকদের অপেশাদারি আচরণের চূড়ান্ত বহিঃপ্রকাশ। সাফের কাছে লিখিত অভিযোগও দিয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। তাইতো, সোমবার অবশ্য অনুশীলন শেষে বাংলাদেশ দলের প্রটোকল ব্যবস্থায় ছিল আয়োজকদের বাড়তি মনযোগ।

নেপাল ম্যাচের আগে অস্কারের হাতে সময় আছে মাত্র একদিন। এরই মধ্যে সাজাতে হবে নেপাল বধের পরিকল্পনা। ডু অর ডাই ম্যাচ। জয় ভিন্ন নেই অন্য কোনো সমীকরণ। এমন অবস্থায় বাংলাদেশের উপর নেই কোনো চাপ। সব চাপ নেপালের দিকে।

আরও পড়ুন:


শেরপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

টানা পাঁচ দিন ছুটির ফাঁদে ভোমরা স্থলবন্দর

অনলাইনে চালু হচ্ছে বিয়ে-তালাক নিবন্ধন!

আবারও ফেরি চলাচল বন্ধ


হুনভেরুতে এদিন অনুশীনে মাঝ মাঠের বল দখলের উপর দেয়া হয়েছে জোর। সংগে ফিনিশিং নিয়ে হয়েছে বাড়তি কাজ। অঘোষিত সেমিফাইনালে নেপাল বধে বড় দায়িত্ব স্ট্রাইকারদের।

১৫ বছর ধরে সাফের ফাইনালের বাইরে বাংলাদেশ। ২০২১ এ এসে সেই ফাইনালের টিকিট নিশ্চিতের সুবর্ণ এক সুযোগ বাংলার ফুটবলের নতুন এই প্রজন্মের সামনে। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

স্প্যানিশ লা লিগায় জয়ের ধারা অব্যাহত রাখল রিয়াল

অনলাইন ডেস্ক

স্প্যানিশ লা লিগায় জয়ের ধারা অব্যাহত রাখল রিয়াল

ছব: সংগৃহীত

স্প্যানিশ লা লিগায় জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ঘরের মাঠে অ্যাটলেটিক বিলবাওকে ১-০ গোলে হারিয়েছে লস ব্লাঙ্কোসরা। এদিকে, ফরাসি লিগে আবারো হোঁচট খেয়েছে পিএসজি। নিসের সঙ্গে গোল শুন্য ড্র করেছে প্যারিসের জায়ান্টরা। 

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে লা লিগার শম্যাচে অ্যাটলেটিক বিলবাওকে আতিথ্য দিয়েছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। দলটির বিপক্ষে ১২ ম্যাচে অপরাজিত থাকা লস ব্লাঙ্কোসরা, শুরু থেকেই বল দখলে বিস্তার করে আধিপত্য। তবে, গোলের নিশ্চিত কোন সুযোগ তৈরি করতে পারছিলনা তারা।   

অবশেষে ম্যাচের ৪০ মিনিটে মেলে সোনার হরিনের দেখা। লুকা মদ্রিচের পাস থেকে লক্ষ্য ভেদ করে দলকে লিড এনে দেন ফরাসি ফরোয়ার্ড করিম বেনজামা। যা এবারের লিগে তার ১২তম গোল। 
 
দ্বিতীয়ার্ধো জুড়েই আক্রমণের ধারা অব্যাহত রাখে স্বাগতিক রিয়াল। পাল্টা আক্রমণে গোল শোধে মরিয়া ছিলো বিলবাও। তবে, শেষ পর্যন্ত আর জাল খুঁজে পায়নি কোন দল। ফলে, ১-০ গোলের জয়ে টেবিলের শীর্ষে নিজেদের অবস্থান আরো মজবুত করলো কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা।  

এদিকে, লিগ ওয়ানে ঘরের মাঠে নিসের মুখোমুখি হয়েছিলো ফরাসি জায়ান্ট পিএসজি। এদিন একাদশে মেনি, ডি মারিয়া, এমবাপ্পেরা থাকলেও, ছিলেননা গেলো সপ্তাহে দলটির জার্সিতে অভিষেক হওয়া সার্জিও রামোস। ঘরের মাঠে শুরু থেকেই বল দখলে আধিপত্য ছিলো পচেটিনোর শিষ্যদের।

আরও পড়ুন:

ওমিক্রন নিয়ে সবাই একটু চিন্তিত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


পুরো ম্যাচে প্রায় ৭০ শতাংশ বল ছিলো স্বাগতিকদের দখলে। ৯০ মিনিটে ২২ টি শট নিলেও তারা লক্ষ্যে রাখতে পেরেছে মোটে ৫টি শট। বিপরীতে রক্ষণ সামলাতেই ব্যস্ত সময় পার করে নিস। তবে, সবদিক থেকে এগিয়ে থাকলেও নিসের জাল খুঁজে পায়নি পিএসজির শক্তিশালী ফরোয়ার্ড লাইন। ফলে গোল শূন্য ড্র করে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই মাঠে ছাড়ে তারা। 

news24bd.tv রিমু   

 

পরবর্তী খবর

লাটভিয়ার জালে ইংল্যান্ডের ২০ গোলের রেকর্ড

অনলাইন ডেস্ক

লাটভিয়ার জালে ইংল্যান্ডের ২০ গোলের রেকর্ড

লাটভিয়া বনাম ইংল্যান্ড দলের একটি দৃশ্য

লাটভিয়ার জালে বিশটি গোল দিয়েছে ইংল্যান্ড জাতীয় নারী দল। এর মধ্যে প্রথম হাফে আটটি, পরের হাফে ১২টি গোল দিয়েছে তারা। ম্যাচে হ্যাট্ট্রিক করেছেন ইংল্যান্ড দলের চারজন।

বুধবার মেয়েদের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে মঙ্গলবার নিজেদের মাঠে ২০-০ গোলে জিতেছে ইংল্যান্ড। 

একাই চার গোল করেন ম্যানচেস্টার সিটির ফরোয়ার্ড লরেন হেম্প। এছাড়া এলেন হোয়াইট, বেথ মিড ও অ্যালেসিয়া রুসো করেন তিনটি করে গোল। আর ম্যাচে একাই ৬টি অ্যাসিস্ট করেন জর্জিয়া স্ট্যানওয়ে।

এই ম্যাচে প্রতিযোগিতামূলক ফুটবলে রেকর্ড গড়েছে ইংলিশ নারীরা। দলটির আগের সবচেয়ে বড় জয় ছিল ১৩-০ গোলে। ২০০৫ সালে অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচে ইংল্যান্ডের প্রতিপক্ষ ছিল হাঙ্গেরি।

আরও পড়ুন:

কারাগারে হামলা চালিয়ে বন্দী ছিনিয়ে নিল সন্ত্রাসীরা


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

২০ গোলের জয়

অনলাইন ডেস্ক

২০ গোলের জয়

নারী বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছিল লাটভিয়া।এক ম্যাচেই ২০ গোল করল ইংল্যান্ড নারী দল। বুধবার (১ ডিসেম্বর) লাটভিয়াকে একে একে কুড়ি গোল দিয়েছে তারা।

ম্যাচে ইংল্যান্ডের জার্সিতে চার জন হ্যাটট্রিক করেছেন। বেথ মিড, এলেন হোয়াইট ও অ্যালেসিয়া রুসো তিনটি করে গোল করেন। লরেন মে হেম্প করেন চার গোল। 

গোলের পাশাপাশি ম্যাচের অন্য পরিসংখ্যান দেখলেও যে কারও চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। ইংল্যান্ড লাটভিয়ার জালে শটই নিয়েছে ৬৪টি, যেখানে অন টার্গেট শট ছিল ৩১টি। বিপরীতে লাটভিয়া লক্ষ্যে তো দূরের কথা, কোনো শটই নিতে পারেনি ইংল্যান্ডের জাল অভিমুখে। লাটভিয়ানদের বলে নিয়ন্ত্রণ ছিল ১৪ শতাংশ।

নিজেদের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জয়টাই পেল ইংলিশ মেয়েরা। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ডি গ্রুপে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে ইংল্যান্ড।

উল্লেখ্য, বর্তমানে ইংল্যান্ড নারী দলের ফিফা র‍্যাংকিং ৮। লাটভিয়া রয়েছে তালিকার ১০২-এ। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

মেসিকে ব্যালন ডি’অর দেওয়াকে ‘অন্যায়’ বলছে তারা

অনলাইন ডেস্ক

মেসিকে ব্যালন ডি’অর দেওয়াকে ‘অন্যায়’ বলছে তারা

ফুটবল যাদুকর আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি সপ্তমবারের মতো ব্যালন ডি’অর জিতলেন। নিজেকে ফের অন্যন্য উচ্চতায় নিয়ে গেলেন মেসি। কিন্তু তার ব্যালন ডি’অর ‍পুরস্কার দেওয়াটা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না জার্মানরা। লেভানডফস্কি না পেয়ে পুরস্কারটা মেসি পাওয়াতে ক্ষোভে ফুঁসছেন তারা। 

জার্মানির সংবাদমাধ্যম, সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড় সবাই সমালোচনার ঝড় বইয়ে দিচ্ছেন। জার্মানির পত্রিকা বিল্ড ব্যালন ডি’অর নিয়ে তাদের লেখা খবরটির শিরোনাম দিয়েছে এ রকম— ‘এটা কীভাবে সত্যি হয়! এটা রীতিমতো একটা কেলেঙ্কারি।’

২০২০ সালের ব্যালন ডি’অর জয়ের লড়াইয়ে একচ্ছত্রভাবে এগিয়ে ছিলেন লেভানডফস্কি। ২০১৯-২০ মৌসুমে বায়ার্নকে চ্যাম্পিয়নস লিগ, জার্মান কাপ ও জার্মান সুপার কাপ জেতাতে বড় ভূমিকা রাখেন তিনি। 

কিন্তু গত বছর করোনাভাইরাস মহামারির কারণে পুরস্কারটি দেয়নি ফ্রান্স ফুটবল। গত মৌসুমেও লেভা ছিলেন দুর্দান্ত। বায়ার্নকে বুন্দেসলিগা ও জার্মান সুপার কাপ জিতিয়েছেন তিনি। বুন্দেসলিগা জয়ের পথে গড়েছেন অনন্য এক গোলের রেকর্ড। ৪১ গোল করে ভেঙেছেন বুন্দেসলিগায় এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের কিংবদন্তি গার্ড মুলারের ৪৯ বছরের রেকর্ড। এখন পর্যন্ত বায়ার্নের হয়ে ২০ ম্যাচ খেলে করেছেন ২৫ গোল।

অন্যদিকে মেসি গত মৌসুমে ক্লাব ফুটবলে তেমন কিছুই জিততে পারেননি। বার্সেলোনার জার্সিতে ভুলে যাওয়ার মতো একটি মৌসুমই কাটিয়েছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। এ মৌসুমে পিএসজিতে নাম লেখালেও চোট-টোট মিলিয়ে অনেকটা সময়ই ছিলেন মাঠের বাইরে। তবে এ বছর আর্জেন্টিনার হয়ে কাটিয়েছেন শিরোপা-খরা। প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের হয়ে জিতেছেন বড় কোনো শিরোপা। মেসি নিজেও মনে করেন, আর্জেন্টিনার হয়ে ২০২১ কোপা আমেরিকা জয়ই তাকে এনে দিয়েছে ক্যারিয়ারের সপ্তম ব্যালন ডি’অর।

কিন্তু এসব যুক্তি মানতে পারছেন না বিশ্বকাপ জয়ী জার্মানির সাবেক অধিনায়ক লোথার ম্যাথাউস। ব্যালন ডি’অর পুরস্কার ঘোষণার পর ১৯৯০ বিশ্বকাপ জয়ী ম্যাথাউস বলেছেন, লিওনেল মেসি এবং মনোনীত বাকি সব খেলোয়াড়ের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, লেভানডফস্কির চেয়ে বড় দাবিদার আর কেউই নয়। 

বর্তমান খেলোয়াড়দের মধ্যে লেভার ব্যালন ডি’অর জিততে না পারা নিয়ে কথা বলেছেন রিয়াল মাদ্রিদের জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুস। তিনি বলেন, এমনটা ঘটা উচিত হয়নি। 

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনায়েত উল্লাহ

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: ৬ হামলাকারী শনাক্ত


 

রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক গোলকিপার ইকার ক্যাসিয়ার বলেন, কোনো সন্দেহ নেই যে- দশকের সেরা ফুটবলার মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তবে এ বছর তাদের দুজনের চেয়ে অন্যরা এগিয়ে আছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

সপ্তম ব্যালন ডি'অর জিতে যা বললেন মেসি

অনলাইন ডেস্ক

সপ্তম ব্যালন ডি'অর জিতে যা বললেন মেসি

লিওনেল মেসি

তিন বছরের অপেক্ষা শেষে ২০১৯ সালে রেকর্ড ষষ্ঠ ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন লিওনেল মেসি। পুরষ্কার হাতে নিয়ে মেসি ভেবেছিলেন এটাই হয়তো তার শেষ ব্যালন ডি'অর হতে যাচ্ছে। কিন্তু দুই বছর পর আবারও আরেকটি পালক যুক্ত হল কিং মেসির ব্যালন ডি'অরের মুকুটে।

এক বছরের বিরতিতে অবশ্য অন্য কেউ মেসির রাজত্বে ভাগ বসায়নি। করোনাভাইরাস অতিমারিতে  ২০২০ সালের ব্যালন ডি’অর আয়োজনই করা হয়নি।

আর্জেন্টিনাকে ২৮ বছর পর প্রথম বড় ট্রফি জয়ে নেতৃত্ব দেওয়ায় এগিয়ে ছিলেন মেসি। ওই সাফল্যই তাকে এনে দিলো সপ্তম ব্যালন ডি’অর। 

মেসি বলেন, ‘আবারো এখানে থাকতে পারা অসাধারণ। দুই বছর আগে আমি ভেবেছিলাম এটাই শেষবার। কোপা আমেরিকা জয় মূল কারণ। এই কোপা আমেরিকা শিরোপা নিয়ে আমার জন্য বছরটা ছিল বিশেষ। মারাকানা স্টেডিয়ামে এটি জেতা ছিল অনেক কিছু এবং আর্জেন্টিনা থেকে আগত লোকদের সঙ্গে এটি উদযাপন করতে পারায় আমি ছিলাম খুব খুশি।’

মেসি আরো বলেন, ‘আমি জানি না এটা আমার জীবনের সেরা বছর ছিল কি না, আমার ক্যারিয়ার লম্বা। কিন্তু অনেক কঠিন সময় আর সমালোচনার পর আর্জেন্টিনার সঙ্গে শিরোপা জেতা ছিল বিশেষ কিছু।’

আরও পড়ুন:

‘সবাইকে সালাম’ লিখে গৃহবধূর আত্মহত্যা


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর