শৈলকুপায় গ্রাহকের দেড় কোটি টাকা নিয়ে এনজিও উধাও
শৈলকুপায় গ্রাহকের দেড় কোটি টাকা নিয়ে এনজিও উধাও

শৈলকুপায় গ্রাহকের দেড় কোটি টাকা নিয়ে এনজিও উধাও

Other

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলা থেকে ‘সিরাক বাংলাদেশ’ নামে একটি এনজিও গ্রাহকের দেড় কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে। এ ঘটনায় প্রতারণার শিকার গ্রাহক রুহুল আমিনসহ হতদরিদ্র পরিবারগুলো কোন কুলকিনারা না পেয়ে অবশেষে শৈলকুপা থানায় প্রতিষ্ঠানের প্রধান নাজমুলকে প্রধান আসামি করে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেছে।

জানা গেছে, ১০ শতক জমি বন্ধক রেখে মরিচ ও সবজি চাষ করে কোনো রকম সংসার চালাচ্ছিলেন দিনমজুর বাচ্চু শেখ। ‘সিরাক বাংলাদেশ’ নামে একটি এনজিওর প্রলোভনে পড়ে বন্ধক রাখা জমিটিও আবারও অন্যের কাছে বন্ধক রাখেন।

সেই টাকা এনজিও কর্মীদের কাছে জামানত রাখেন মোটা অংকের ঋণের আশায়। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেল। মাত্র সাত দিনের ব্যবধানে জানতে পারেন, এনজিও কর্মীরা তাদের গ্রামের আরও ১৫ জনের ভর্তি ও জামানতের টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছেন। শুধু তাই নয়, উপজেলার কয়েকটি গ্রাম থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন মোটা অংকের টাকা।

পৌরসভার সিটি কলেজ রোডের পাশে ‘সিরাক বাংলাদেশ’ নামে এনজিওটির অফিস। সংস্থাটি শৈলকুপার বিভিন্ন গ্রামের দিনমজুর ও অসচ্ছল পরিবারকে মোটা অংকের ঋণ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় দেড় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে। খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায় সিটি কলেজ রোডের গ্রিস প্রবাসী আকবর হোসেনের বাড়ি ভাড়া নেয় এনজিও নামধারী একদল প্রতারক।

কবিরপুর এলাকার সিটি কলেজ সড়কে একটি একতলা বাড়ির মূল ফটকের সামনে সাইনবোর্ড। সাইনবোর্ডটিতে লেখা আছে, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত সিরাক বাংলাদেশ, ক্ষুদ্র ঋণ দান ও কুটির শিল্প প্রকল্প’। অফিসের সামনে দুই একজন আসা-যাওয়া করছেন। তারা ঋণ পাওয়ার আশায় টাকা জামানত রেখে এখন ঘুরছেন।

আরও পড়ুন


ভাসানচরে জাতিসংঘ যুক্ত হওয়ায় কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের আনন্দ র‍্যালি ও মিষ্টি বিতরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফিল্মি কায়দায় তরুণী অপহরণকারী বাড্ডা থেকে গ্রেপ্তার

স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা এই সপ্তাহেই, কেন্দ্র আলাদা

গণ-অভ্যুত্থান করে সরকার পতনের দিবা স্বপ্ন বিএনপির রঙিন খোয়াব: কাদের


সিরাক বাংলাদেশ ২৫ সেপ্টেম্বর তাদের অফিসের কার্যক্রম শুরু করে। ১ অক্টোবর ঋণ দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে টাকা আদায় করে। কিন্তু নির্ধারিত দিনে গ্রাহক অফিসে গিয়ে দেখতে পান গেটে তালা ঝুলছে। গ্রাহকরা বলছেন, সাজানো-গোছানো অফিস আর সাইনবোর্ড দেখে তারা টাকা জামানত রেখেছেন। সহজ শর্তে ঋণের আশায় কেউ কেউ পাঁচ হাজার থেকে শুরু করে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত জামানত রেখেছেন। এখন টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় তালাবদ্ধফটকটির সামনে এসে প্রতিদিন ভিড় জামাচ্ছেন তারা।

স্থানীয়রা জানায়, মাসিক চার হাজার টাকায় বাড়িটি ভাড়া নেয় তারা। এক বছরের টাকা অগ্রিম দেওয়ার কথা ছিল। গত মাসের ২৫ সেপ্টেম্বর বাসার গেটে সিরাক বাংলাদেশ  নামে একটি সাইনবোর্ড লাগায় তারা। ১ অক্টোবর তাদের ঋণ দেওয়ার কার্যক্রম উদ্বোধন করার কথা ছিল।

এ ব্যাপারে শৈলকূপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, প্রতারণার শিকার গ্রাহকেরা মামলা দায়ের করেছে। আমরা মামলাটি রেকর্ডও করেছি এবং আসামীদের গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

news24bd.tv এসএম