৩০-৩৫ জনের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, ছাত্রীকে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা ভুয়া এএসপি

অনলাইন ডেস্ক

৩০-৩৫ জনের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, ছাত্রীকে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা ভুয়া এএসপি

৪০তম বিসিএস ক্যাডারে উত্তীর্ণ হয়ে এএসপি হয়েছেন পরিচয় দিয়ে ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলায় বিয়ে করতে গিয়ে পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন সোলাইমান কবীর (৩৫) নামের এক যুবক।

সোমবার উপজেলার রুপসী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানিয়েছে, এএসপি পরিচয় দেয়া যুবক সোলাইমান কবির একজন প্রতারক।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার রাতে ফুলপুরের রুপসী গ্রামে অনার্সপড়ুয়া এক ছাত্রীকে বিয়ে করতে যায় সোলাইমান কবীর। এসময় তার তার কথাবার্তায় সন্দেহ হলে মেয়েটির পরিবার ফুলপুর থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে তার সাথে কথা বলে নিশ্চিত হয় তিনি ভুয়া পরিচয় দিয়েছেন।

ওই রাতেই পুলিশ তাকে আটক করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠান। সোলাইমান কবীরের বাড়ি শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতি উপজেলার কুচনিপাড়া গ্রামে। তিনি সেখানকার শাহ জাহানের ছেলে বলে জানা গেছে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা যায়, শেরপুর সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অনার্স ফাইনাল বর্ষের ছাত্রীর সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় হয় কবীরের। তাকে সে পরিচয় দেয় ৪০তম বিসিএস ক্যাডার পুলিশের এএসপি। অনার্সপড়ুয়া মেয়েটিকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দিলে মেয়েটি তার অভিভাবককে এ ঘটনা জানান। প্রতারক সোলাইমান গত সোমবার রাতে এসে মেয়েটির বাড়িতে উপস্থিত হন। সোলাইমানের কথাবার্তায় সন্দেহ হলে পরিবারের লোকজন ফুলপুর থানা পুলিশকে খবর দিলে ফুলপুর থানার (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন মোবাইলে কথা বলেন। ওসি তার কথায় অসঙ্গতি পেলে নিশ্চিত হন যে সে ভুয়া পরিচয় দিচ্ছেন। তাকে অপেক্ষার অনুরোধ করে ওসি বলেন, আমি আপনার সাথে দেখা করতে আসছি। পরে সোলাইমানকে আটক করা হয়। আটককৃত কবিরের কাছ থেকে পুলিশের সরকারি বুট, মোবাইল সেট, মানিব্যাগ মেলে। গতকাল তার বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পর  আদালতে পাঠানো হয়। 

আরও পড়ুন


চট্টগ্রামে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আলম ডাকাত নিহত

নির্বাচন নিয়ে বিএনপির নীতি রাষ্ট্রঘাতী: ওবায়দুল কাদের

দুই হাজার কোটি টাকা মানি লন্ডারিং: বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা ফুয়াদ গ্রেপ্তার

বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে প্রস্তাব, সার্বিয়া প্রেসিডেন্টের সম্মতি


জানা যায়, সোলাইমান পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন যে, তিনি ভুয়া এএসপি পরিচয় দিয়ে ৩০-৩৫ জন মেয়ের সাথে অবৈধ সম্পর্ক করেছেন। এ অপকর্মের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে বেছে নিয়েছেন তিনি। জানা যায়, তার ফাঁদে পড়ছেন বেশিরভাগ কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া মেয়েরা। 

ফুলপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, যেসব মেয়েরা তার প্রতারণার ফাঁদে পড়েছেন তাদেরকে খুঁজে বের করে অভিভাবকদের সতর্ক করা হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে  স্কুল, কলেজ ও  বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া ছেলে-মেয়েরা যাতে এ ধরনের প্রতারণার ফাঁদে না পড়ে তিনি সকল অভিভাবকদের সতর্ক করেন। 

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

প্রকাশ্যে কাউন্সিলর হত্যা: এবার ‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রধান আসামি নিহত

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ্যে কাউন্সিলর হত্যা: এবার ‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রধান আসামি নিহত

নিহত শাহ আলম

কুমিল্লার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ মোহাম্মদ সোহেল ও আওয়ামী লীগ কর্মী হরিপদ সাহাকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি শাহ আলম (২৮) পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার চানপুর গোমতী নদীর বেড়িবাঁধ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহ আলম কুমিল্লা নগরীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের সুজানগর পূর্বপাড়া এলাকার মৃত জানু মিয়া ছেলে। তার বিরুদ্ধে কুমিল্লা কোতয়ালি মডেল থানায় হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

গণমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) পরিমল দাস।

এসআই পরিমল দাস জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি গোমতী নদীর বেড়িবাঁধ এলাকায় একদল সন্ত্রাসী অবস্থান করছেন। পরে রাত দেড়টার দিকে ওই এলাকায় জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ ও কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ যৌথ অভিযান চালায়।

সন্ত্রাসীরা আইনশৃঙ্খালা বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে তারা পলিয়ে যায়। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক ব্যক্তিকে ঘটনাস্থলে পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ব্যক্তি কাউন্সিলর সৈয়দ মো. সোহেল হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি শাহ আলম। ঘটনাস্থল থেকে সন্ত্রাসীদের ব্যবহৃত একটি ৭.৬৫ পিস্তল, গুলি এবং কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশের দুইজন সদস্য আহত হন। তাদের পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এর আগে সোমবার (২৯ নভেম্বর) রাতে ওই হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত দুই আসামি পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন।

আরও পড়ুন


এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু আজ

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

কমিউনিটি সেন্টার থেকে দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

কমিউনিটি সেন্টার থেকে দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার

একটি বিয়ের সেন্টার থেকে দুই জন বাবুর্চির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সিলেটের কানাইঘাটে আজ বুধবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের গাছবাড়ী বাজারস্থ ‘আনন্দ কমিউনিটি সেন্টার’ থেকে ওই দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার করা হয়। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে আরেকজন বাবুর্চিকে। এদিকে জোড়া লাশ উদ্ধারের ঘটনায় রহস্য দেখা দিয়েছে।

নিহতরা হলো- কানাইঘাট উপজেলার নয়াগ্রামের মৃত রহমত উল্লাহ’র ছেলে সুহেল আহমদ (২৮) ও ওসমানীনগর উপজেলার তাহিরপুর গ্রামের মৃত আক্কাছ আলীর মেয়ে সালমা বেগম (৪০)। অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার হওয়া বাবুর্চি হলেন কানাইঘাট উপজেলার ব্রাহ্মণগ্রামের নাজিম উদ্দিন। তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার রাতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানের রান্না করার জন্য আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারে যান সুহেল আহমদ, সালমা বেগম ও নাজিম উদ্দিন। রাতে কাজ শেষ করে তারা কমিউনিটি সেন্টারের ২য় তলার একটি ঘরে শুয়ে পড়ে। আজ বুধবার সকালে ঘুম থেকে উঠতে দেরি দেখে বিয়ের আয়োজনকারী জসিম উদ্দিন তাদের ডাকতে যান।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

পরে ভেতর থেকে সাড়া না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে তিনজনকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। এসময় পুরো রুম ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন ছিল। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুহেল ও সালমাকে মৃত ঘোষণা করেন। আর উন্নত চিকিৎসার জন্য ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় নাজিমকে। 

পুলিশের ধারণা মশার কয়েল জ্বালিয়ে ছোট একটি রুমে তিনজন ঘুমিয়ে ছিলো। ধোঁয়া ও কয়েলের বিষাক্ততার কারণে তারা মারা যেতে পারেন।
 
কানাইঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল হক জানান, ‘কী কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে তা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে- ধোঁয়া ও কয়েলের বিষাক্ততা থেকে তাদের মৃত্যু হতে পারে।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

বেকারত্ব ঘোচাতে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা

হৃদয় খান, নরসিংদী:

নরসিংদীতে বেকারত্ব ঘোচাতে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা। হতদরিদ্ররা পাচ্ছেন বিনামূল্যে এই সেবা। দক্ষ ও পেশাদার চালক তৈরি করাই মূল লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ। 

নরসিংদীতে সেইপ, ওকাপ, আনসার ও বেসিক প্রশিক্ষণ এই চারটি প্রকল্পের অধীনে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি)। হতদরিদ্র শিক্ষার্থীরাও বিনামূল্যে পাচ্ছেন এই সেবা।  এরই মধ্যে এ সেবার আওতায় ১ হাজার শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ নিয়ে হয়ে উঠেছেন দক্ষ চালক।

চাকরী না হওয়ায় বেকারত্ব ঘোচাতে বিকল্প পেশা হিসেবে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত এসব তরুণীরা।

দূর্ঘটনা রোধে সঠিক ট্রাফিক আইন ও দক্ষ চালক হিসেবে দেশে ও প্রবাসে এই পেশায় কাজ করার জন্যই এই প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

সংশ্লিস্টরা জানান, হতদরিদ্রদের  জন্য বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দেওয়ার পাশাপাশি  ফ্রি ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করা হচ্ছে ।

শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা যদি এটাকে পেশা হিসেবে বেছে নেয় তাহলে সড়কে  দূর্ঘটনা অনেকটা কমবে বলে মনে করেন  ট্রাফিকের এই কর্মকর্তা।

সড়ক দূর্ঘটনা রোধে সারাদেশে ১ লাখ দক্ষ চালক গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশেন (বিআরটিসি)।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

বেগমগঞ্জে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ২ কিশোরসহ গ্রেপ্তার ৪

নোয়াখালী প্রতিনিধি

বেগমগঞ্জে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ২ কিশোরসহ গ্রেপ্তার ৪

প্রতীকী ছবি

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ উপজেলা থেকে দেশীয় অস্ত্রসহ ৪জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। এদের মধ্যে দুই জন কিশোর রয়েছে।

আটককৃতরা হলো- সেনবাগ উপজেলার মো. সোহেল (১৮) বেগমগঞ্জ মো.জহিরুল ইসলাম (১৮) ফিরোজ আহম্মদ (১৫) ও মো.নেয়ামত উল্যাহ (১৬)।

বুধবার বেলা ১টার দিকে ৪ আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নোয়াখালী আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো.সফিকুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগ গ্রেফতারকৃত ৪ আসামি ওই স্থানে সন্ত্রাসী কার্যক্রম করতে অবস্থান নেয়। বিষয়টি টের তারা তাদের  আটক করে। এসময় আটককৃতদের কাছ থেকে কিরিচ, ছোরা,বেøড জব্দ করে পুলিশ। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

খাবারের সঙ্গে নেশা দ্রব্য খাইয়ে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট

নোয়াখালী প্রতিনিধি

খাবারের সঙ্গে নেশা দ্রব্য খাইয়ে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট

নোয়াখালী

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া গ্রামে রাতের খাবারের সঙ্গে নেশা জাতিয় দ্রব্য মিশিয়ে একই বাড়ির ৪টি পরিবারের নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে অজ্ঞাত দৃবৃত্তরা। 

ঘটনাটি মঙ্গলবার  রাতে সেনবাগ উপজেলার পশ্চিম ছাতারপাইয়া গ্রামে। 

বাড়ির লোকজন জানায়, ওই বাড়ির ৪টি পরিবারের সদস্য রাতের খারাব খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। বুধবার সকালে তারা ঘুম থেকে না ওঠায় বাড়ির অপর সদস্যরা ডাকাডাকি করে কোণ সাড়াশব্দ না দেখে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাদেরকে উদ্ধার করে সোনাইমুড়ী দি ল্যাব হাসপাতালে ভর্তি করান।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


বুধবার দুপুরে সেনবাগ থানার এস আই আরিপ হোসেন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন স্থানিয় ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান আবদুর রহমান। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর