মার্কিন দূতাবাসে রহস্যজনক হাভানা সিনড্রোমের হানা

অনলাইন ডেস্ক

মার্কিন দূতাবাসে রহস্যজনক হাভানা সিনড্রোমের হানা

যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্য সচিব কলম্বিয়া সফরে আসার আগে দেশটিতে 'হাভানা সিনড্রোম' রোগের সম্ভাব্যতা যাচাই করছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি এ তথ্য জানায়।

কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতা শহরে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের কয়েকজন কর্মী সম্প্রতি এই রহস্যজনক রোগে আক্রান্ত হয়। এর ফলে সবসময় কানে এক যন্ত্রণাদায়ক শব্দ হতে থাকে, এর সঙ্গে যুক্ত হয় ক্লান্তি ও মাথা ঘোরা।

সর্বপ্রথম ২০১৬ সালে কিউবায় প্রথম এই রোগের খবর পাওয়া যায়। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মার্কিন রাষ্ট্রদূতেরা এরপর থেকে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর দিতে থাকে।

এই রোগের উৎপত্তি সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি। তবে এটি অত্যাধুনিক কোন 'অস্ত্রের' প্রভাব বলেও অনেকে মনে করেন।

মঙ্গলবার ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, কলম্বিয়ায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ফিলিপ গোল্ডবার্গ সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে দূতাবাসের কয়েকজন 'ব্যাখ্যা করা যায় না' এমন রোগে আক্রান্ত বলে নিশ্চিত করেন।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভান দাকু নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন, এই ঘটনায় তদন্ত চলছে। এই তদন্তে মার্কিন বাহিনী নেতৃত্ব দিচ্ছে বলেও যোগ করেন তিনি।

যেসব মার্কিন নাগরিক এই 'হাভানা সিনড্রোমে' আক্রান্ত তারা একে কানে অবর্ণনীয় কষ্টদায়ক এক শব্দ বলে উল্লেখ করেছে। প্রায় ২০০ জনের মত আক্রান্ত কয়েক মাস ধরে ক্লান্তি ও অবসন্নতায় ভুগছেন বলেও প্রতিবেদনে জানানো হয়।

মোট আক্রান্তের অর্ধেকেরও বেশি লোক মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-এর কর্মী বলে জানায় টাইমস।

শুক্রবার জার্মানির বার্লিনে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসে 'হাভানা সিনড্রোম' নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এর কারণ ও এর জন্য কে দায়ী তা খুঁজে বের করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

মার্কিন দূতাবাসের যেসকল কর্মচারী এই রোগে আক্রান্ত তাদেরকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার একটি বিলে সাক্ষর করার পর রাষ্ট্রপতি একথা বলেন।

আরও পড়ুন:

মুসা বিন শমসেরের কিছুই নেই, তিনি ভুয়া মানুষ: পুলিশ

‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে বিকেলে নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ

ইউপি নির্বাচনে আ. লীগের মনোনয়ন, দেড় শর বেশি প্রার্থী বদলের চাপ

৪৩ যাত্রী নিয়ে পাহাড়ি রাস্তা থেকে ছিটকে গেল বাস


প্রসঙ্গত, কলম্বিয়ার বোগটায় পরবর্তী সপ্তাহে মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন সফরে যাওয়ার কথা ছিলো। এর আগেই এমন সংবাদ পাওয়া গেল।

এর আগে গত আগস্টে, ভিয়েতনামে একই ধরণের রোগে দুজন রোগী আক্রান্তের খবরে মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস তার সফর পিছিয়ে দেন।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

সুইসাইড নোট: 'সোনা, কথা রাখলাম, তোমার জন্য জীবনও দিতে পারি'

অনলাইন ডেস্ক

সুইসাইড নোট: 'সোনা, কথা রাখলাম, তোমার জন্য জীবনও দিতে পারি'

প্রতিকী ছবি

দেবর-ভাবীর প্রেমের সম্পর্ক প্রায় আমরা শুনে থাকি। তবে ভাবীকে না পেয়ে আত্নহত্যা করেছে এমন খবর খুব কমই শেনেছি। দেবর-ভাবীর প্রেমের সম্পর্কের টানাপড়েনে এবার আত্মহত্যা করলেন এক যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিম মেদিনীপুরের সবংয়ের। যুবকের লাশের পাশ থেকে পুলিশ একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে।     

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই যুবকের নাম জগন্নাথ বর্মণ (২৬)। তিনি পশ্চিম মেদিনীপুরের সবং থানার বিষ্ণুপুর পঞ্চায়েতের কুলভেড়ি গ্রামের বাসিন্দা। ওই থানার অন্তর্গত মোহাড় পঞ্চায়েতের পূর্ব মোহাড় গ্রামে জগন্নাথ তার এক পিসি বা ফুপুর বাড়িতে আসা-যাওয়া করাকালীন সময়ে এক বৌদির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। সম্পর্কের টানাপড়েনের জেরে এক পর্যায়ে গতকাল বুধবার মোহাড় এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে বিষ পান করেন ওই যুবক। 

পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হলেও বাঁচানো যায়নি। তবে এ ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন:

ওমিক্রন নিয়ে সবাই একটু চিন্তিত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


জগন্নাথের কাছে একটি সুইসাইড নোটে বৌদির উদ্দেশে যা লেখা ছিল, ‘আমি তোমাকে বলেছিলাম, তোমার জন্য জীবন দিতে পারি। কথা রাখলাম সোনা। আমি পারলাম না তোমায় ছেড়ে বাঁচতে। যদি সারা জীবন তুমি আমার একা থাকবে বলতে তা হলে আমি রয়ে যেতাম গো। তুমি এই ভাবে অভিনয় করেছিলে আমি জানতাম না গো। আমি মরে গেলে তোমায় আর অভিনয় করতে হবে না। তুমি ভাল থাকবে, সুখী হবে। এতেই আমি খুশি। তোমার সুখের জন্য আমি সব করতে পারি। কিন্তু তোমায় ছাড়া বাঁচা অসম্ভব। তাই চলে যাচ্ছি। জোর করে তোমার সব কিছু ছিনিয়ে নিয়েছিলাম বলে আবার তোমায় ফিরিয়ে দিলাম।’ 

news24bd.tv রিমু    

 

পরবর্তী খবর

যুক্তরাষ্ট্রেও শনাক্ত হলো ওমিক্রন (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

বিশ্বের প্রতিটি মহাদেশেই ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন। ভারতের কর্ণাটকে প্রথমবারের মতো দুইজন ওমিক্রম রোগী সনাক্ত হলো এবার। তবে এর আতঙ্কে প্রভাবিত হয়ে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা না দিতে দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এদিকে, ভ্যাকসিন তৈরির তথ্যের জন্য নতুন এই ভ্যারিয়েন্টটিকে সম্পূর্ণভাবে আলাদা করতে সক্ষম হয়েছেন হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

বুধবার প্রথমবারের উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে প্রথম ওমিক্রন শনাক্ত হলো সৌদি আরবে। সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, উত্তর আফ্রিকা ফেরত এক ব্যাক্তির দেহে শনাক্ত হয়েছে নয়া এ ধরণ। ওই ব্যাক্তি ও তার সংস্পর্শে যাওয়া লোকদের আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

ভারতে ঢুকে পড়ল কোভিডের নতুন রূপ ওমিক্রন। কর্নাটকে দু’জনের দেহে এই ভাইরাস মিলেছে বলে বৃহস্পতিবার জানাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়।

একইদিনে প্রথমবারের মতো ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রেও। ক্যালিফোর্নিয়া এবং সান ফ্রান্সিসকো জনস্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, ওমিক্রনে আক্রান্ত ওই ব্যক্তি গেল নভেম্বরের ২২ তারিখ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরেছিলেন। এরইমধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ছুটির মৌসুমে ওমিক্রনের হুমকির মুখোমুখি হলেও ক্রমবর্ধমান দাম এবং পণ্যের ঘাটতি কিছুটা লাঘব হবে।

বুধবার জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেন, করোনার কারণে আরোপিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে কোনোও একটি দেশ বা অঞ্চলকে বিচ্ছিন্ন করা গভীরভাবে অন্যায় এবং শাস্তিমূলকই নয়, সেগুলো অকার্যকরও।

ওমিক্রন সম্পর্কে কয়েকদিনের মধ্যেও আরও বেশি তথ্য সংগ্রহ করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। দেশগুলোকে আতংকিত হয়ে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি না করার আহ্বান জানিয়েছে ডব্লিউএইচও।

এদিকে, এশিয়ার মধ্যে এই প্রথম সার্স কভ টু অমিক্রন ভারিয়ান্টকে ক্লিনিক্যাল নমুনা থেকে আলাদা করতে সফল হয়েছেন হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবাণুবিজ্ঞান বিভাগের গবেষকরা। বিচ্ছিন্ন এই ভ্যারিয়েন্টটি টিকা উৎপাদনের ক্ষেত্রে অনেক সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলেই আশা তাদের।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

তাইওয়ান ইস্যুতে উত্তেজনা (ভিডিও)

ডেস্ক রিপোর্ট

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় জরুরি বৈঠকের  জন্য বেইজিংয়ে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে। তাইওয়ান নিয়ে জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের মন্তব্যর পরই চীন এ পদক্ষেপ নিল।

চীন তাইওয়ানে আক্রমণ করে বসলে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা জাপান দাঁড়িয়ে থাকবে না বলে বুধবার মন্তব্য করেছিলেন শিনজো আবে। আবের এই মন্তব্য ভুল এবং বেইজিং ও টোকিও মধ্যকার সম্পর্কের মৌলিক নীতি বিরোধী  বলে আখ্যা দিয়েছেন, চীনের সহকারি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হুয়া চুনিং। চীনে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত হিদেও তারুমির সঙ্গে বৈঠকে এ মন্তব্য করেন তিনি। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে একথা জানিয়েছে।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত    

পরবর্তী খবর

জন্মদানের অভিযোগে ডাক্তারের বিরুদ্ধে তরুণীর মামলা!

অনলাইন ডেস্ক

জন্মদানের অভিযোগে ডাক্তারের বিরুদ্ধে তরুণীর মামলা!

তরুণী দাবি, তার জন্ম হওয়াটাই উচিত ছিল না। জন্মদানের অভিযোগে এবার সেই তরুণী মামলা করেছেন তার মায়ের ডাক্তারের বিরুদ্ধে।মামলায় ওই তরুণী ক্ষতিপূরণ হিসেবে লাখ লাখা টাকা জিতেছেন। এমন খবর দিয়েছে ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল। 

বুধবার লন্ডন হাইকোর্টের একটি যুগান্তকারী রায়ে বিচারক রোজালিন্ড কো কিউসি ইভির অভিযোগের প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন করেছেন। বিচারক রায় দিয়েছেন যে, যদি ইভির মাকে ‘সঠিকভাবে পরামর্শ দেওয়া হত, তাহলে তিনি গর্ভধারণে দেরি করতেন’।

তিনি বলেন, ‘ইভির মা যে পরিস্থিতিতে ছিলেন তাতে তিনি সঠিক পরামর্শ পেলে আরও দেরিতে গর্ভধারণ করতেন, যার ফলে একটি সুস্থ-স্বাভাবিক শিশুর জন্ম হত’। এরপর বিচারক ইভিকে বিশাল অংকের ক্ষতিপুরণ দেওয়ার আদেশ দেন।

ইভি টুম্বস (Evie Toombes) নামের ওই তরুণী যুক্তরাজ্যের একজন তারকা শো জাম্পার। আর তাকে  প্রায়ই মেরুদণ্ডের একটি মারাত্মক সমস্যার জন্য যন্ত্রণাদায়ক এবং ব্যায়বহুল চিকিৎসা নিতে হয়।মেরুদণ্ডের এই অসুখের জন্য কখনও কখনও ২৪ ঘণ্টাই টিউবের সাহায্যে চলতে হয় ইভিকে।

ডাক্তারের ভুল পরামর্শের কারণে তিনি মেরুদণ্ডের মারাত্মক এক সমস্যা নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছেন। এজন্য তিনি তার মায়ের ডাক্তারের বিরুদ্ধে ‘ভুল গর্ভধারণ’ মামলা দায়ের করেন। এটি একটি যুগান্তকারী মামলা।

ইভি টুম্বস তার মেরুদণ্ডে স্পিনা বিফিডা নামের এমন একটি জন্মগত ত্রুটি নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছেন, যার ফলে তার মেরুদণ্ডের একটি অংশ এবং এর মেনিনজেস মেরুদণ্ডের একটি ফাঁক দিয়ে উন্মুক্ত হয়ে পড়ে। এই সমস্যার ফলে প্রায়শই শরীরের নীচের অঙ্গগুলো পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে পড়তে পারে এবং কখনও কখনও এর ফলে মানসিক প্রতিবন্ধীতাও সৃষ্টি হয়।

আরও পড়ুন


রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চেয়ে বিদেশে যেতে হবে খালেদাকে: হানিফ

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বের হয়ে যাওয়া ও বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ

সিলেট থেকে বিদেশে পণ্য রপ্তানির ব্যবস্থা করা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


 

২০ বছর বয়সী এই তরুণী ফিলিপ মিচেল নামের একজন ডাক্তারকে গর্ভবতী থাকাকালীন তার মাকে সঠিকভাবে পরামর্শ দিতে ব্যর্থ হওয়ায় আদালতে টেনে নিয়ে যান। 

ইভি টুম্বসের দাবি, ডাক্তার মিচেল যদি তার মাকে বলত যে, তার শিশুর স্পিনা বিফিডা হওয়ার ঝুঁকি কমাতে তাকে গর্ভবতী অবস্থায় ফলিক অ্যাসিডের সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করতে হবে, তাহলে তিনি গর্ভধারণই করতেন না এবং তাকে আর এই ত্রুটি নিয়ে জন্ম গ্রহণও করতে হত না।

ইভি টুম্বস এর মা আদালতে বলেছিলেন যে, ডাক্তার মিচেল যদি তাকে সঠিকভাবে পরামর্শ দিতেন তবে তিনি তার গর্ভবতী হওয়ার চেষ্টা বন্ধ করে দিতেন। তিনি বলেন, ‘আমাকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল যে, যদি আমি আগে ভাল খাবার খেয়ে থাকি তাহলে আমাকে আর ফলিক অ্যাসিড খেতে হবে না’।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

কানাডা বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার দীর্ঘ লাইনে বিশৃঙ্খলা

অনলাইন ডেস্ক

কানাডা বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার দীর্ঘ লাইনে বিশৃঙ্খলা

শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আগত যাত্রী ছাড়া বাকি সব যাত্রীর করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক করেছে কানাডা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। এতে এর মধ্যেই সেখানে দীর্ঘ লাইনের সৃষ্টি হয়েছে।

উদ্যোক্তারা বলছে, এমন ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে ব্যাপারে গত মঙ্গলবারেই ঘোষণা দেওয়া হয়।
 
রিয়টার্স জানায়, কানাডিয়ান এয়ারপোর্ট কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ড্যানিয়েল গুচ বলেন, বহিরাগত সব যাত্রীকে এক সঙ্গে পরীক্ষা করা সম্ভব নয়। এ জন্য অবশ্যই দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হবে। যাত্রীরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করুক, এটা আমরা চাইনি । কিন্তু যাত্রীদের নিরাপদ এবং স্বস্তিদায়ক ভ্রমণের জন্য এটা অবশ্যই জরুরি। আমরা এটাকে কোনোভাবেই এড়াতে পারি না।

গত মঙ্গলবার কানাডা কর্তৃপক্ষ জানায়, তারা অন্য দেশ থেকে আসা সকল বিমানযাত্রীর করোনা পরীক্ষা করবে। শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যাত্রীদের ছাড়া। করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিস্তাররোধে এই সিদ্ধান্ত বলে জানায় তারা। শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে আর এটি করছে সরকারি ও বেসরকারি কর্তৃপক্ষ একসাথে।

আরও পড়ুন:

ইরানের ওপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আহ্বান

এবার আলেশা মার্টের কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা

সামনে দীর্ঘ ছুটির সময় আর এ জন্যই এই ছুটিকে নিরাপদ করার জন্য বিমান চলাচল ক্ষেত্রে যাত্রীদের করোনা পরীক্ষার এই বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলো।

কানাডার সর্ববৃহৎ বিমানবন্দর টরন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মুখপাত্র টোরি গাস বলেন, অন-সাইট এবং অফ-এয়ারপোর্ট পরীক্ষার একটি সমন্বয়সাধন জরুরি। পরীক্ষাগুলোর পরিমাণের বিষয়টিও বিবেচনায় আনা প্রয়োজন।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত    

পরবর্তী খবর