বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন আজ

শাহ্ আলী জয়

বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন আজ

বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন আজ। সরকার বা রাষ্ট্রপ্রধানের সন্তান হয়েও রাসেলের বেড়ে ওঠা ছিলো আর দশটা সাধারণ শিশুর মতই। শৈশবে তাকে কাছে থেকে দেখেছেন বঙ্গন্ধু পরিবারের ঘনিষ্ঠ, আলোক চিত্র শিল্পি পাভেল রহমান। শেখ রাসেলের জন্মদিনে তাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন তিনি।

বৃটিশ দার্শনিক বার্টান্ড রাসেলের নামের সঙ্গে মিলিয়ে বঙ্গবন্ধু তাঁর কনিষ্ঠ সন্তানের নাম রেখেছিলেন শেখ রাসেল। রাসেল চাইতো বড় হয়ে সে কাজ করবে সেনাবাহিনীতে। ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর ধানমণ্ডি ৩২ নম্বর সড়কের বাড়িতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এবং বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব দম্পতির কোল আলো করে জন্ম নেয় রাসেল। 

বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের নেতা বঙ্গবন্ধুর জীবনের একটা বড় সময় কেটেছে কারাগারের অন্ধ প্রকষ্ঠে। তাই পিতার সান্নিধ্য, স্নেহ-মমতায় বড় হয়ে ওঠার সুযোগ হয়নি রাসেলের। মা ছিলেন তার সব আদর-আবদার, ভালোবাসা-মমতার আধার, আর ভাইবোনদের  চোখের মণি ছিল সে।

বিশিষ্ট আলোকচিত্র শিল্পী পাবেল রহমান শেখ রাসেলের স্মৃতিচারণ করে বলেন, 'বেশিরভাগ সময় রাসেল তার মা আর বোনদের সঙ্গেই সময় কাটাতেন। পছন্দ করতেন চাইকেল চালাতে।' 

মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধু কারাবন্দি ছিলেন পশ্চিম পাকিস্তানের জেলে। দুই ভাই শেখ কামাল ও শেখ জামাল যুদ্ধ করছে হানাদারদের বিরুদ্ধে। তাই যুদ্ধের পুরোটা সময় মা বোনদের সঙ্গে ধানমণ্ডির একটি বাড়িতে বন্দি ছিল রাসেল। বন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি মেলে ১৯৭১ এর ১৭ ডিসেম্বর। জয় বাংলা শ্লোগানে সে বেরিয়ে আসে ঘর থেকে। বঙ্গবন্ধু ১০ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে ফিরে এলে সেদিন রাসেল পিতাকে বিস্ময়ভরা দুচোখে দেখেছে, তাঁর স্নেহচুম্বনে সিক্ত হয়েছে। এরপর থেকে সে খুব একটা পিতার সান্নিধ্য ছাড়া থাকতে চাইত না।

আরও পড়ুন


মাগুরায় চার খুন, গ্রাম পুরুষশূন্য

নবীর ভবিষ্যদ্বাণী, বৃষ্টির মতো বিপদ নেমে আসবে

ক্ষমা ও রহমতের দোয়া

মানুষের সঙ্গে যেভাবে কথা বলতেন বিশ্বনবী

সূরা বাকারা: আয়াত ১২৮-১৩৩, আল্লাহর নির্দেশ ও হয়রত ইব্রাহিম (আ.)


১৫ আগষ্ট ১৯৭৫। চতুর্থ শ্রেনীতে পড়া ১০ বছর বয়সী রাসেলের জন্য সে রাতটি ছিল আতঙ্কের। পরিবারের সবাইকে হত্যার পর যখন ঘাতকরা অস্ত্র তাক করে তার দিকে, কান্না জড়িত কণ্ঠে রাসেল বলেছিল, আমি মায়ের কাছে যাবো। নরপিশাচ ঘাতকরা ছোট্ট রাসেলের সে কান্নাভেজা কথা শোনেনি। তারা নির্দয়ভাবে শিশু রাসেলকে হত্যা করেছে।

news24bd.tv রিমু  

পরবর্তী খবর

স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বাস্থ্যখাতে অভাবনীয় সাফল্য

রিশাদ হাসান

স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বাস্থ্যখাতে অভাবনীয় সাফল্য

স্বাস্থ্যসেবায় অগ্রগতি

বিজয়ের ৫০ বছরে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বেড়েছে ২৬ বছর। যা প্রতিনিধিত্ব করে সমগ্র স্বাস্থ্যসেবাকে। বিশ্ব নন্দিত কমিউনিটি ক্লিনিক, ইপিআই কার্যক্রম, স্বাস্থ্য সূচকে অভাবনীয় সাফল্য আর অবকাঠামোগত উন্নয়ন তো আছেই সাথে যোগ হয়েছে প্রযুক্তিগত চিকিৎসাও। তবে প্রান্তিক পর্যায়ে চিকিৎসা সেবা দেয়া এখনও চ্যালেঞ্জ।

একটি স্বাধীন সার্বভোম রাষ্ট্রের মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশব্যাপি থানা হেলথ কমপ্লেক্স গঠনের পরিকল্পনা করেন। ৩ লাখ মানুষের জন্য তখন ছিলো একটি করে হেলথ কমপ্লেক্স।

বিজয়ের ৫০ বছরে দাঁড়িয়ে সেই দেশে এখন প্রতি ৬ হাজার মানুষের জন্য একটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক। জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় যা একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন। শুধু তাই নয়, গেল ৫০ বছরে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য সূচকও চোখে পড়ার মত। কমেছে মার্তৃ ও শিশু মৃত্যু হার, পোলিও, কলেরা, ধুনষ্টংকার, বসন্ত মুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ। স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে ওষুধ শিল্পে যা রপ্তানী হয় বিশ্বের দেড়শো’র বেশী দেশে। জনবহুল দেশ হওয়া স্বত্ত্বেও নিয়ন্ত্রণে এনেছে প্রজনন হার। বিশ্বে ঈর্ষনীয় সাফল্য লাভ করেছে ইপিআই টিকা কার্যক্রমেও। আরও যোগ হয়েছে অজ্ঞাত রোগ সনাক্ত ও জিনম সিকোয়েন্সসহ জটিল সব গবেষণায়।

৫০ বছরের দীর্ঘ পথপরিক্রমায় বাংলাদেশ এখন স্বপ্ন দেখছে, অটোমোশন, রোবোটিক সার্জারিসহ আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ জানান, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ চিকিৎসা সেবায় আরও এগিয়ে যাবে। অটোমোশন ও রোবোটিক সার্জারিসহ আধুনিক চিকিৎসা হবে এদেশেই।

স্বাস্থ্য খাতে, অবকাঠামোগত উন্নয়ন গুলোতে প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষের সেবা নিশ্চিত করাকে জরুরী বলে মনে করেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী।

কারিগরি দিক বিবেচনায়, দেশের বর্তমান স্বাস্থ্যসেবায় গতি আনতে মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও চিকিৎসকদের মাঝে যোগাযোগ স্থাপন গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন চিকিৎসক সংগঠনগুলো।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব ডা. এম এ আজিজ বলছেন, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা কাটাতে হবে। এই জটিলতার কারণে আমরা অনেক কিছু করতে পারছি না। আর এই জায়গাগুলো আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ।

থানা হেলথ কমপ্লেক্স, কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবা বিপ্লব থেকে – ভ্যাকসিন হিরো। সকল অর্জনের পর ডিজিটাল স্বাস্থ্য সেবা স্বপ্ন দেখাচ্ছে নতুন বাংলাদেশের।

আরও পড়ুন


ঢাকার যানজটেই শেষ জিডিপির প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

পোল্যান্ড থেকে কেনা হয় বিটকয়েনে

দেশে মিললো নতুন মাদক ডিওবি

মৌ খন্দকার

মাদক ডিওবি

দেশে প্রথমবারের মতো ভয়াবহ মাদক ডিওবি জব্দ করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। গ্রেপ্তার করা হয়েছে মাদক ব্যক্তিকে। পোল্যান্ড থেকে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন দিয়ে কেনা হয় এই মাদক। 

দেশের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অত্যাধুনিক স্ক্যানার মেশিন না থাকায় এসব মাদক অবাধে প্রবেশ করছে বলে জানিয়েছে অধিদপ্তর। 

দেশে প্রথমবারের মতো উদ্ধার হল মাদকসেবীদের কাছে ‘তৃতীয় নয়ন’ খুলে দেওয়ার মতো ভয়ঙ্কর মাদকদ্রব্য (ডিওবি)। মঙ্গলবার গোপন সূত্রে খবর পেয়ে খুলনার এক মাদক ব্যবসায়ীর গোপন ডেরায় হানা দেন দফতরের গোয়েন্দারা।

তারা বলছে, ওই ব্যবসায়ীর ডেরা থেকে লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইথ্যালামাইড বা এলএসডি নামে মাদকের পাশাপাশি ৯০ পিস ডিওবি উদ্ধার হয়। প্রতি পিস বিক্রি হয় ডিওবি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকায়। পরে গ্রেফতার করা হয় আসিফ আহমেদ শুভ ও তার বন্ধু অর্ণব কুমার শর্মাকে।

আরও পড়ুন:


আবারও আইসিইউতে রওশন এরশাদ

ছেলেকে হত্যা করে সেফটিক ট্যাঙ্কে লুকিয়ে রাখা বাবা-মা আটক

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা (ভিডিও)


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ডার্ক ওয়েবসাইটে ক্রিপ্টোকারেন্সির মাধ্যমে পোল্যান্ড থেকে ২০০ ব্লট ডিওবি কেনেন খুলনার পরিচিত মাদক ব্যবসায়ী আসিফ আহমেদ শুভ। এমনকি ভয়ঙ্কর মাদকের পক্ষে অনবরত যুক্তি দেন তিনি।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার কারণে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ম্যানেজার মামুনুর রশীদকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বলছে, ঢাকা ও খুলনার দুটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের একাংশ ওই ভয়ঙ্কর মাদকদ্রব্য নিয়মিত সেবন করেন।

অধিদপ্তর বলছে, নিত্য নতুন মাদকের খবর পাচ্ছেন তারা এবং সেভাবেই পরিচালিত হচ্ছে এসব অভিযান।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বিলুপ্ত প্রজাতির সাম্বার হরিণের জন্ম

নয়ন বড়ুয়া জয়, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বিলুপ্ত প্রজাতির সাম্বার হরিণের জন্ম

সাম্বার শাবক

এবার বাঘের ছানার পর চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সাম্বার হরিণ পরিবারে নতুন এক শাবকের জন্ম। যেখানে দেশে বিলুপ্ত সাম্বার হরিণ সেখানে সাম্বার শাবকের জন্মে এখন চিড়িয়াখানায় সাম্বারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬টা।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বলছেন, মায়ের আদর যত্নে বড় হচ্ছে সাম্বার হরিণ শাবক। এদিকে চিড়িয়াখানায় বাঘসহ বিভিন্ন প্রাণীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় আকর্ষণ বেড়েছে দর্শনার্থীদের।

সাম্বার হরিন। এ প্রাণীটি পৃথিবীতেই বিলুপ্তপ্রায়। সম্প্রতি চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় জন্ম হয়েছে সাম্বার হরিণ ছানার। এই নিয়ে চিড়িয়াখানায় সাম্বার পরিবারে সদস্য সংখ্যা হল ছয়। উপমহাদেশের সবচেয়ে বড়জাতের হরিণ সাম্বার প্রাপ্ত বয়স্ক হয় তিন বছরে এবং ২০ থেকে ২৫ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে।

সাম্বার হরিণ

চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, মায়ের আদরেই বড় হচ্ছে এই শাবকটি। সাম্বারটি পুরুষ বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এভাবে সাম্বার হরিণের সংখ্যা বাড়তে থাকলে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা পাবে প্রজাতিটি বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, বর্তমানে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সাম্বার ছাড়াও মায়া হরিণ রয়েছে ৪টি এবং চিত্রা হরিণ আছে ২৭টি। এছাড়াও ৬৬ প্রজাতির ৬২০টি পশুপাখি আছে এখানে। একের পর এক জন্ম নিচ্ছে বাঘের ছানাও। বাঘের সংখ্যা এখন ১২।

চিত্রা হরিণ

পশু পাখি আর নানা প্রাণীতে ভরপুর হওয়ায় চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের মন কেড়েছে। তারা বলছেন, চিড়িয়াখানাতে এখন অনেক পশু পাখি। বাঘের সংখ্যাও অনেক। এছাড়া বিলুপ্ত প্রজাতির সাম্বার হরিণ দেখে খুব লাগছে। তবে চিড়িয়াখানায় হাতি না থাকায় হতাশ অনেক দর্শনার্থী।

আরও পড়ুন


বাধ্য ছিল দেহ ব্যবসায়, জিম্মায় রেখে কিশোরীকে ফের ধর্ষণ

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

১৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ নতুন মেরিন ড্রাইভের সমীক্ষা শেষ পর্যায়ে

নয়ন বড়ুয়া জয়, চট্টগ্রাম

১৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ নতুন মেরিন ড্রাইভের সমীক্ষা শেষ পর্যায়ে

মেরিন ড্রাইভের গ্রাফিক্স

শেষ হচ্ছে বিশ্বের দীর্ঘতম মেরিন ড্রাইভের সমীক্ষা। কয়েক মাসের মধ্যে তৈরি হবে ১৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ চট্টগ্রামের মীরসরাই থেকে পর্যটন শহর কক্সবাজার পর্যন্ত মেরিন ড্রাইভের নকশা। সমুদ্রের পাড় ঘেঁষে এই মেরিনড্রাইভ নির্মাণ হলে চট্টগ্রামের মূল শহরে প্রবেশ না করেই টানেল দিয়েই যাবে কক্সবাজার, পটিয়া, আনোয়ারা-বাঁশখালীর দ্রুত যান। কমবে দূরত্ব, বাঁচবে সময়।

বিশিষ্টজনরা বলছেন, শহরের যানজট নিরসনের পাশাপাশি এই মেরিনড্রাইভ সড়ক যোগাযোগ ও অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

পর্যটন শহর কক্সবাজারের সাথে যোগাযোগ সহজ করতে চট্টগ্রামের মীরসরাই থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নির্মাণ হচ্ছে মেরিনড্রাইভ। ১৭০ কিলোমিটার ফোর লেনের এই মেরিন ড্রাইভ যুক্ত হবে টেকনাফ-কক্সবাজার মেরিনড্রাইভের সাথে। এতে মোট দৈর্ঘ্য দাঁড়াচ্ছে ২৫০ কিলোমিটার।

বিশ্বের দীর্ঘতম এই মেরিন ড্রাইভ নির্মাণে অস্ট্রেলিয়ার পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএমইটি ইন্টারন্যাশনাল প্রায় এক বছর ধরে সমীক্ষা পরিচালনা করছে বলে জানিয়েছেন, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা।

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম শহরে না ঢুকেই মেরিন ড্রাইভ দিয়ে টানেল হয়ে অল্প সময়েই যাওয়া যাবে কক্সবাজার। নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি আশিক ইমরান বলছেন, এই মেরিন ড্রাইভ নির্মাণের ফলে খুলবে অর্থনীতির নতুন দুয়ার, কমবে যানজটও।

আর আরেক নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী শহীদুল আলম বলছেন, শুধু এই ১৭০ কিলোমিটার নয় এর সাথে যুক্ত হচ্ছে টানেল ও টেকনাফ-কক্সবাজার মেরিনড্রাইভ। ফলে চট্টগ্রামের যানজট অনেক কমে আসবে।

উন্নয়নের সুফল পেতে টেকসই সড়ক নির্মাণের দাবি সুজন সম্পাদক এ্যাডভোকেট আখতার কবিরের। তিনি বলছেন, সমুদ্রের পাড়ে যেহেতু তাই মানসম্পন্ন হতে হবে। না হলে প্রতিবছর রাস্তা ভাঙবে সেটা প্রতিবছর ঠিক করতে হবে। এতে ব্যয় হবে বিপুল অর্থ।

পৃথিবীর দীর্ঘতম এই মেরিনড্রাইভ নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা।

আরও পড়ুন


এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে এসিড নিক্ষেপ, বখাটে মুহিন গ্রেপ্তার

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

পাল্টাপাল্টি অভিযোগ প্রার্থীদের

তৃতীয় ধাপের ইউপি ভোট ঘিরে ফের বাড়ছে উত্তাপ

অনলাইন ডেস্ক

প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা

আগামী ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সামনে রেখে জমে উঠেছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। শেরপুরের নকলা উপজেলার ৯ ইউনিয়ন পরিষদের প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইতে ব্যস্ত। 

ভোটাররা বলছেন যোগ্য প্রার্থীকেই বেছে নিবেন তারা। পিরোজপুরে রঘুনাথ ইউনিয়নেও কমতি নেই ভোটের প্রচারণায়। যদিও আওয়ামী লীগ ও দলের বিদ্রোহী প্রাথীদের রয়েছে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। প্রতিনিধির তথ্য ও চিত্রে ডেস্ক রিপোর্ট।

শেরপুরের নকলা উপজেলার ৯ ইউনিয়নে নির্বাচনকে ঘিরে জমে উঠেছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো এলাকা। প্রার্থীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। চায়ের দোকানেও বেড়েছে ভোটারদের আড্ডা।

ভোটাররা বলছেন, যে প্রার্থী এলাকার উন্নয়ন করবেন এবং যাকে সবসময় পাশে পাবেন, তাকেই ভোট দেবেন তারা। 
প্রার্থীরা নির্বাচিত হলে সব ধরণের উন্নয়নে কাজ করবেন বলে আশ্বস্ত করছেন। তবে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর অভিযোগ, নানাভাবে তাদের বাধা দিচ্ছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা।

জাকির হোসেন ফারুক, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী, বানেশ্বর্দী ইউপি (পাঞ্জাবি-কুটি পরিহিত) অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য কাজ করছেন বলে জানালেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:


২ সালের ৩০ জুন খুলে দেওয়া হবে পদ্মাসেতু: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির সমাবেশ


পিরোজপুরেও দেখা যায় একই চিত্র। জেলার কাউখালী উপজেলার রঘুনাথপুর ইউনিয়নের হাট-বাজারে স্লোগান, মিছিল,পথসভা ও উঠান বৈঠকের মধ্য দিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থী ও সমর্থকরা। এই ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান জেপির সাইকেল মার্কার প্রার্থী এক নারী। তাকে ভোটে হারাতে লড়ছেন ৫ পুরুষ প্রার্থী।

ভোটের হিসাব-নিকাশ বলছে, এই ইউনিয়নে সাইকেল মার্কার থেকে অনেকটা পিছিয়ে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রার্থী। তবে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে খুলে যেতে পারে স্বতন্ত্র তরুণ প্রার্থীদের ভাগ্যও।

নির্বাচনি কর্মকর্তারা বলছেন, ইতিমধ্যে নির্বাচন আচারণবিধি মানাতে মাঠে কাজ করছে ভ্রাম্যমাণ ম্যাজিস্ট্রেট।
তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ নভেম্বরের।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর