সামাজিক মাধ্যমগুলো এখন চরিত্র হনন, ঘৃণা এবং মিথ্যা ছড়ানোর হাতিয়ার
সামাজিক মাধ্যমগুলো এখন চরিত্র হনন, ঘৃণা এবং মিথ্যা ছড়ানোর হাতিয়ার

সামাজিক মাধ্যমগুলো এখন চরিত্র হনন, ঘৃণা এবং মিথ্যা ছড়ানোর হাতিয়ার

Other

সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুক, ইউটিউব নিয়ে দেশে দেশে নতুন করে ভাবনা চিন্তা শুরু হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমগুলো এখন বিবেচিত হচ্ছে ব্যক্তি মানুষের চরিত্র হনন, ঘৃণা এবং মিথ্যা ছড়ানোর হাতিয়ার হিসেবে। পশ্চিমা বিশ্বের অনেক সেলিব্রেটিরা সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেদের সরিয়ে নিচ্ছেন। মিথ্যা এবং ঘৃণার শিকার হয়ে তারা এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে খবরে বলা হয়েছে।

 

টুইটার এবং ইন্সট্রাগ্রামে ফ্রান্স ফুটবলের কিংবদন্তি  থিয়েরি হেনরির ফলোয়ারের সংখ্যা কয়েক মিলিয়ন। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে গিয়ে তিনি বলেছেন, সোশ্যাল মিডিয়া এখন বুলি, ঘৃণা আর ব্যক্তিকে নির্যাতনের প্লাটফরমে পরিণত হয়েছে। বৃটেন, নিউজিল্যান্ড, কানাডার বেশ কয়েকজন জাতীয় পর্যায়ের তারকা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার ছেড়ে দিয়ে বলেছেন, এই মাধ্যমগুলো দ্রুত নিয়ন্ত্রণের আওতায় আনা দরকার।

শুধু সেলিব্রেটিরাই নয়, ফেসবুক, ইউটিউব এখন সাংবাদিকদের চরিত্রহানি এবং অনলাইন ভায়োলেন্সের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। বিভিন্ন দেশে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতনের জন্য এই মাধ্যমগুলো ব্যবহার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে।

কানাডার সাংবাদিকদের সংগঠন দ্যা কানাডীয়ান এসোসিয়েশন অব জার্নালিষ্টস (সিএজি) সাংবাদিকদের প্রতি অনলাইন ভায়োলেন্সে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আইন শৃংখলা রক্ষী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। সিএজি বলেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা অনলাইন হয়রানি থেকে  সাংবাদিকদের রক্ষার দায়িত্ব কেবল সাংবাদিকদের একার না। এর জন্য সম্মিলিত উদ্যোগ দরকার। সংগঠনটি এই ব্যাপারে করণীয় বের করতে অটোয়ার  কার্লটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সম্মিলিতভাবে একটি সভার ডাক দিয়েছে। সাংবাদিকদের জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ক প্রশিক্ষণেরও আয়োজন করেছে সংগঠনটি।

আরও পড়ুন:

মেয়াদ-বেতন দুটোই বাড়ছে টাইগার কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর

চাকরির কথা বলে তরুণীকে হোটেলে নিয়ে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করে নূর

নবীর ভবিষ্যদ্বাণী, বৃষ্টির মতো বিপদ নেমে আসবে

হঠাৎ পায়ের রগে টান পড়লে কী করবেন?


কানাডার বড় বড় মিডিয়া হাউজগুলো সোশ্যাল মিডিয়া সাংবাদিকদের চরিত্র হণন, ঘৃণা এবং তাদের নিয়ে মিথ্যাচারের ব্যাপারে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। সেই উদ্বেগ উৎকণ্ঠার মধ্যে ফেসবুক, ইউটিউবসহ সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেতে শুরু করেছে।

(মত-ভিন্নমত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়। )

news24bd.tv/ নকিব

;